সৈয়দ আবেদ উল্লাহ ( অপূর্ব ) -blog


Only Ahle Sunnat Waal Jamaat Is The Right Way.....


 


হযরত আহলে বাইত শরীফ আলাইহিমুস সালাম উনাদের মুহব্বত করলে ঈমান আক্বীদা বিশুদ্ধ হয়!


নূরে মুজাসসাম হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম তিনি ইরশাদ মুবারক করেন, اَلَا وَمَنْ مَاتَ عَلَى حُبِّ الِ (سَيِّدِنَا حَضْرَتْ) مُحَمَّدٍ صَلّى اللهُ عَلَيْهِ وَسَلَّمَ جَعَلَ اللهُ قَبْرَهُ مزار مَلَائِكَة الرَّحْمَة. অর্থ: “হে ঈমানদারগণ! আপনারা সাবধান হন! যে ব্যক্তি নূরে



সম্মানিত আহলে বাইতে রসূল ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম উনারা হযরত নূহ আলাইহিস সালাম উনার কিশতীর ন্যায়!


সম্মানিত নবী ও রসূল হযরত নূহ আলাইহিস সালাম তিনি উনার অবাধ্য, নাফরমান উম্মতদের ধ্বংস করে দেয়ার জন্য মহান আল্লাহ পাক উনার কাছে ফরিয়াদ করলে মহান আল্লাহ পাক তিনি উনাকে কিশতী বানানোর জন্য বললেন, কিশতী যথাসময়ে তৈরি হয়ে গেলে মহান আল্লাহ পাক



ভূগোল বিজ্ঞানে মুসলিম ভূগোলবিদদের অবদান (১ম অংশ)


৭৩২ হিজরী (১৩৩২ ঈসায়ী) সালে ঐতিহাসিক আবুল খিদার তার কিতাবে উল্লেখ করেন যে, আল বিরুনী সর্বপ্রথম বেরিং প্রণালী আবিষ্কার করেন। তিনি ৪র্থ হিজরী শতকে ভারত ভ্রমন করেছিলেন। তিনি সেখানে অনেক বছর অবস্থান করেন এবং সাংস্কৃতি ভাষা শিখেন। তার ভারত নিয়ে রচিত



গরিবদের রক্ষায় ব্যর্থ মার্কিন অর্থনীতি!


জেপি মরগান চেজের সিইও জেমি ডিমন বলেছে, যুক্তরাষ্ট্রের অর্থনীতি মূলত বিভক্ত হয়ে পড়েছে দুই ভাগে। এক ভাগে রয়েছে সমৃদ্ধ করপোরেশন থেকে যারা লাভবান হচ্ছে এবং আরেক ভাগে থাকছে গরিবরা। খবর সিএনবিসি। ডিমন বলেছে, মার্কিনিদের একটি বড় অংশ পেছনে পড়ে যাচ্ছে। মার্কিনিদের



দেশজুড়ে গরুর খামার গড়ে তোলায় সরকারী সহযোগিতা জরুরী!


কুরবানীর সময় ছাড়াও প্রতিদিনই হাজার হাজার গরু আমাদের এ দেশে জবাই হয়ে থাকে। এদেশের মানুষের নিত্যদিনের খাবারের অন্যতম একটি উপাদেয় খাবার হলো গরুর গোশত। অথচ গরুর গোশতের দাম বেড়েই চলছে হু হু করে। মূলত সরকারের অসহযোগিতা ও গরু জবাই বিরোধী একটি



নদীর তীরের পবিত্র মসজিদসমূহকে ‘অবৈধ মসজিদ’ বলার সাহস ওদের কে দিলো?


শত শত ড্রেন-নর্দমা দিয়ে রাজধানীর কোটি মানুষের পয়ঃবর্জ্য, হাসপাতাল-কল-কারখানাগুলোর বিষাক্ত বর্জ্য, হাজারীবাগের ট্যানারীর বিষাক্ত বর্জ্যসহ বিভিন্ন বর্জ্য-আবর্জনা নদীতে পড়ে নদী দূষিত হচ্ছে যুগ যুগ ধরে। যা নিয়ে কারো কোনো কথা নেই। নদীর তীরে সরকারি জায়গা দখল করে ক্ষমতাসীনদের দলীয় কার্যালয়, বাসভবন-বানিজ্যিক



সরকারি মহলের কাছে দেখি- পূর্ণ চাঁদ এক খাবারের রুটি!


কোনো এক মুশ্রিক কাফির অখ্যাত কবি লিখেছিলো- “ক্ষুধার রাজ্যে পৃথিবী গদ্যময়; পূর্ণিমার চাঁদ যেন ঝলসানো রুটি”। মুসলমানদের কাছে চাঁদ মহান আল্লাহ পাক উনার তরফ থেকে এক নিয়ামত, যা দ্বারা মুসলমানগণ বিশেষ দিবস সংশ্লিষ্ট আমলগুলি করে থাকে। ক্ষুধা লাগুক আর যাই হোক,



কলকাতা থেকে বাংলাদেশে এসেও বিধর্মীদের দ্বারা চাকরিক্ষেত্রে বাঙালি মুসলমানের অপমানের পালা শেষ হলো না!


শামসুল হুদা চৌধুরী ছিলেন জিয়াউর রহমান আমলের তথ্যমন্ত্রী, পরবর্তীতে জাতীয় সংসদের স্পীকার। ১৯২০ সালে তিনি পশ্চিমবঙ্গের বীরভূমে জন্মগ্রহণ করেন। পশ্চিমবঙ্গের স্থানীয় হিসেবে সাতচল্লিশের দেশবিভাগের পর তিনি বাংলাদেশে আসতে চাননি, পশ্চিমবঙ্গেই থেকে যেতে চেয়েছিলেন। কিন্তু তাকে চাকরিক্ষেত্রে হিন্দুদের দ্বারা অপমানিত হয়ে বাংলাদেশে



বিদেশী, বিধর্মীদের প্রাধান্য দেয়ার হেতু কি?


এটা এখন ওপেন সিক্রেট খবর যে, বাংলাদেশে নামে-বেনামে, বৈধ-অবৈধভাবে লাখ লাখ ভারতীয় অবস্থান করছে। তারা বিভিন্নভাবে নিজেদের দেশে প্রায় হাজার হাজার মিলিয়ন ডলার আমাদের দেশ থেকে পাচার করছে। ভারতের রেমিট্যান্স উৎসের শীর্ষ পাঁচে রয়েছে বাংলাদেশ। এই সংখ্যা শুধু সরকারি হিসাবে। কিন্তু



একটি বেমেছাল অনন্য ‘দান’ এবং অভূতপূর্ব ‘প্রতিদান’!


খলীফাতু রসূলিল্লাহ সাইয়্যিদুনা হযরত ছিদ্দীক্বে আকবর আলাইহিস সালাম উনার খিলাফতকালে একবার পবিত্র মদীনা শরীফ উনার মধ্যে দুর্ভিক্ষ দেখা দিলো। বাইতুল মালেও উল্লেখযোগ্য পরিমাণ খাদ্য ছিলো না। ঠিক সেই মুহূর্তে আমীরুল মু’মিনীন সাইয়্যিদুনা হযরত যুন নূরাইন আলাইহিস সালাম উনার একটি বাণিজ্য কাফিলা



#মুসলমানের_জন্য_হোলি_পূজায়_যাওয়া_হারাম!


#মুসলমানের_জন্য_হোলি_পূজায়_যাওয়া_হারাম! #ধর্ম_যার_যার_উৎসবও_তার_তার! #যে_যার_সাথে_মিল_রাখবে_তার_সাথেই_তার_হাশর_নাশর_হবে৷ #এ_প্রসংগে_হিন্দুস্থানের_এক_ওলীর_ঘটনা! #নোংরামি_আর_বেহায়াপনার_আরেক_নাম_হোলি_পূজা! #হোলি_পূজার_ইতিহাস! রাধা কৃষ্ণ, দোল পুজা এবং হোলি খেলা। রাধা কৃষ্ণ লীলা সম্পর্কে ব্রক্ষ্ম বৈবর্ত পুরানে বর্নিত আছে ব্রক্ষ্মা বলছে ” হে বৎস! আমার আজ্ঞানুসারে আমার নিয়োজিত কার্য করিতে উদযুক্ত হও।” জগদ্বিধাতা ঈশ্বরের বাক্য শ্রবন করিয়া রাধা



জাকির নায়েক নতুন এক ফিৎনা!


জাকির নায়েক নতুন এক ফিৎনা, সম্রাট আকবর ইসলাম ধর্মের সাথে হিন্দুদের ধর্মের সংমিশ্রণ ঘটিয়ে “দ্বীন-এ-ইলাহী” প্রতিষ্ঠার চেষ্টা করেছিল। একই ভাবে জাকির নায়েক সকল ধর্মকে একই প্লাটফর্মে এনে নতুন এক ফিৎনার সৃষ্টির অপচেষ্টা চালাচ্ছে। তার কিছু বিভ্রান্তিমুলক বক্তব্য এবং তার জবাব তুলে