সাইয়্যিদ মুহম্মদ আব্দুল্লাহ বিন হামিদ ( অপূর্ব ) -blog


Only Ahle Sunnat Waal Jamaat Is The Right Way.....


 


সবার রিযিকের মালিক মহান আল্লাহ পাক তিনি ॥ যা সম্পূর্ণ কুদরতী বিষয়!


সবার রিযিকের মালিক মহান আল্লাহ পাক তিনি ॥ যা সম্পূর্ণ কুদরতী বিষয়! “যমীনে যত প্রাণী আছে সবার রিযিকের মালিক মহান আল্লাহ পাক তিনি।” (পবিত্র সূরা হুদ শরীফ: পবিত্র আয়াত শরীফ-৬ ) হযরত সুলাইমান আলাইহিস সালাম তিনি একবার বললেন, মহান আল্লাহ পাক



ব্রিটিশ দস্যুরা নাকি অসৎ হয়ে যাচ্ছে ॥ ওরা সৎ ছিল কবে?


ব্রিটিশ দস্যুরা নাকি অসৎ হয়ে যাচ্ছে ॥ ওরা সৎ ছিল কবে? পত্রিকায় দেখলাম- ব্রিটিশদের সততা কমে যাচ্ছে। সংবাদটি আমাকে অবাক করেছে। অবাক হয়েছি সাংবাদিকের জ্ঞানের দৈন্যতা দেখে। ব্রিটিশদের সততা কমে যাচ্ছে এর মধ্যে অন্য একটি সংবাদ নিহিত আছে। আগে ব্রিটিশদের সততা



শুধুমাত্র দ্বীন ইসলাম পালনেই কেন বয়সের কথা আসে?


শুধুমাত্র দ্বীন ইসলাম পালনেই কেন বয়সের কথা আসে? মোবাইলফোন এখন ছোট-বড়, ছেলে-মেয়ে সবাই ব্যবহার করে। মোবাইলফোনে ইন্টারনেটের ব্যবহারও সর্বত্র। ইন্টারনেটের এই অবাধ ব্যবহারে দেশের উঠতি বয়সের শিশু, কিশোর, যুবক থেকে শুরু করে সকলেই যে পর্নো দেখা, অশ্লীল ছবি-ভিডিও দেখাসহ নানা রকম



শুধুমাত্র দ্বীন ইসলাম পালনেই কেন বয়সের কথা আসে?


শুধুমাত্র দ্বীন ইসলাম পালনেই কেন বয়সের কথা আসে? মোবাইলফোন এখন ছোট-বড়, ছেলে-মেয়ে সবাই ব্যবহার করে। মোবাইলফোনে ইন্টারনেটের ব্যবহারও সর্বত্র। ইন্টারনেটের এই অবাধ ব্যবহারে দেশের উঠতি বয়সের শিশু, কিশোর, যুবক থেকে শুরু করে সকলেই যে পর্নো দেখা, অশ্লীল ছবি-ভিডিও দেখাসহ নানা রকম



সন্ত্রাসীদের বইকে ‘জিহাদী বই’ না বলে ‘সন্ত্রাসী বই’ বলতে হবে!


সন্ত্রাসীদের বইকে ‘জিহাদী বই’ না বলে ‘সন্ত্রাসী বই’ বলতে হবে! অমুসলিম তথা ইসলামবিদ্বেষীদের একটা বড় ধরনের কুট-কৌশল হলো পবিত্র ইসলামের বিভিন্ন বিষয়গুলোকে বিকৃত করা কটাক্ষ করা ও হেয় করে বিভিন্ন সংবাদ মাধ্যমে লেখালেখির মাধ্যমে প্রকাশ করা। তারই একটা ঘৃণ্য উদাহরণ হলো-



এদেশে দেবোত্তর সম্পত্তি বলতে কিছু আছে কি?


ভিন্ন মত: এদেশে দেবোত্তর সম্পত্তি বলতে কিছু আছে কি? ব্রিটিশরা এই উপমহাদেশে আসার পূর্বে ৯৯ ভাগ জমির মালিক ছিল মুসলমানগণ। মুসলমান উনাদের আরদালি ছিল সমস্ত বিধর্মীরা। বিধর্মীদের ইসলামী লিবাস ও ফার্সী ভাষা শিক্ষা ছিল বাধ্যতামূলক। যা পরিধান করে চাকরি-ব্যবসা বাণিজ্য করতে



চুরির যত রহস্য!


চুরির যত রহস্য! বাংলাদেশে যত টাকা-পয়সা চুরি হয়, গায়েব হয় তার অনেকগুলো কারণ থাকলেও কয়েকটা উল্লেখযোগ্য কারণ রয়েছে। এর মধ্যে ভারতীয় সিনেমা, খেলাধুলা ও ব্যাপকহারে বিজাতী-বিধর্মী নিয়োগ অন্যতম। কারণ সমাজে যত অপকর্ম ছিনতাই, চুরি ডাকাতি, অপহরণ প্রত্যেকটা ঘটনা ঘটে সিনেমা ইস্টাইলে।



ভারতে মুসলিম নির্যাতনের রক্তাক্ত ইতিহাস, যার ধারাবাহিকতা এখনও চলমান!


ভারতে মুসলিম নির্যাতনের রক্তাক্ত ইতিহাস, যার ধারাবাহিকতা এখনও চলমান! বর্তমানে বাংলাদেশের একদল চিহ্নিত বুদ্ধিজীবী ও দালাল মিডিয়ার ট্রাম্পকার্ড হলো ‘সংখ্যালঘু নির্যাতন’। যদিও আওয়ামী মদদে প্রশাসনের প্রতিটি স্তরে সংখ্যালঘুদের প্রাধান্য, তারপরও বাংলাদেশে নাকি হচ্ছে ব্যাপক সংখ্যালঘু নির্যাতন! পাঠকগণ আসুন দেখি, এসব ভারতে



মুসলমানদের থেকে ‘ট্যাক্স’ নিয়ে সে টাকা হারাম কাজে ব্যয় কেন?


মুসলমানদের থেকে ‘ট্যাক্স’ নিয়ে সে টাকা হারাম কাজে ব্যয় কেন? আমাদের দেশের সরকারী আমলা-কামলারা কি জনগণের ভালো চায়? কতটুকু চায়? তাদের কাজ কারবার দেখে কি মনে হয়? কারণ তিনি আমাদের মৌলিক যে ৬টি চাহিদা- খাদ্য, বস্ত্র, বাসস্থান, শিক্ষা, বিবাহ, চিকিৎসার প্রতি



মুসলমানদের ক্ষতিসাধন করাই অমুসলিমদের প্রধান লক্ষ্য-উদ্দেশ্য!


ফিলিস্তিনে মুসলমানদের নৃশংস্যভাবে হত্যা করছে কারা? উত্তর: সন্ত্রাসী ইহুদীরা। ভারতের আসাম-গুজরাটের দাঙ্গায় মুসলমানদের নির্মমভাবে শহীদ করছে কারা? উত্তর: সন্ত্রাসী উগ্র হিন্দুরা। চীনের উইঘুরে মুসলমানদের নির্যাতন করছে কারা? উত্তর: সন্ত্রাসী কমিউনিস্ট বৌদ্ধরা। মায়ানমারে হাজার হাজার মুসলমানদেরকে হত্যা করছে কারা? উত্তর: সন্ত্রাসী বৌদ্ধ



দ্বীন ইসলাম পালন করতে মুসলমান লজ্জা পায়; অথচ বিধর্মীগুলো নেংটি পরতেও লজ্জা পায় না!


একটা বিধর্মী তার কথিত ধর্মে অসামাজিক ও অশোভনীয় বিষয় থাকার পরও সেগুলো ঠিকই গর্ব করে পালন করে। নাউযুবিল্লাহ! যেমন- মুশরিকরা ধুতি পরে, যেটা কিনা এক প্রকার নেংটি, অর্ধউলঙ্গ একটি পোশাক। এরপরও এটা পরেই তারা দেশ-বিদেশ ঘুরে বেড়ায়। বিজাতী-বিধর্মীদের কথিত ধর্মে নানারকম



আক্বীদা শুদ্ধ হতে সময় লাগে মাত্র ১ সেকেন্ড!


আমরা মুসলমান, আমরা ঈমানদার। আমাদের পবিত্র ঈমান উনার যিনি মূল, সাইয়্যিদুল মুরসালীন, ইমামুল মুরসালীন, খাতামুন নাবিয়্যীন, রহমাতুল্লিল আলামীন, নূরে মুজাসসাম, হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম উনার শান মুবারকে পবিত্র ঈমান আনার কারণে, আক্বীদা শুদ্ধ রাখার কারণে আমরা মুসলমান। তাহলে