ধ্রুব তারা -blog


...


 


পবিত্র ঈদে মীলাদে হাবীবুল্লাহ ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম উনাকে সর্বোচ্চ জাঁকজমকের সাথে উদযাপন করতে হবে


মানব জীবনে উৎসবের বিকল্প নেই। মানুষ নানা উৎসব পালন করে থাকে। আর যে কোনো উৎসব উদযাপনে খরচ হয় হাজার হাজার টাকা থেকে কোটি কোটি টাকা। কিন্তু মুসলমানদের সবচেয়ে বড় উৎসব হলো পবিত্র সাইয়্যিদুল আ’ইয়াদ শরীফ। কেননা নূরে মুজাসসাম হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক



হাতিরঝিলের মসজিদটি যারা ভেঙ্গে ফেলেছে তারা তওবা না করলে তাদেরকে আবরাহার চেয়ে কঠিন পরিণতি ভোগ করতে হবে


যিনি খালিক্ব মালিক রব মহান আল্লাহ পাক তিনি সম্মানিত কালামুল্লাহ শরীফ উনার মধ্যে ইরশাদ মুবারক করেন, وَمَنْ أَظْلَمُ مِمَّنْ مَنَعَ مَسَاجِدَ اللهِ أَنْ يُذْكَرَ فِيهَا اسْمُهُ وَسَعَى فِي خَرَابِهَا أُولَئِكَ مَا كَانَ لَهُمْ أَنْ يَدْخُلُوهَا إِلَّا خَائِفِينَ لَهُمْ فِي الدُّنْيَا خِزْيٌ



রতের যে গ্রামের মেয়েদের প্রধান পেশা অনৈতিক কাজ; পরিবারের পুরুষরা তাদের দালাল!


ভারতে বসবাসরত মুসলিম নারীরা যালিম ও সন্ত্রাসী মুশরিকদের দ্বারা যেভাবে নির্যাতনের স্বীকার হয়েছে তা পৃথিবীর ইতিহাসে বিরল। যারফলে খোদায়ী গযবে তারা নিজেরাই বর্তমানে কঠিনভাবে পর্যদুস্ত। রাজস্থান ভারতের একটি গ্রাম। রাজধানী দিল্লি থেকে এই গ্রামের দূরত্ব ২০০ কিলোমিটার। এই গ্রামের অধিকাংশ মেয়েই



নিজ ভাষায় পাঠ্যবই পড়লেই কি পার্বত্য উপজাতিরা অধিকার প্রাপ্ত হয়ে যাবে ?


সমস্যা অনেক । প্যাচ লাগানোর লোকের অভাব নাই, তবে খোলার লোকের অভাব আছে। গত কয়েক বছর যাবত পশ্চিমাপন্থী সংগঠনগুলো বাংলাদেশ সরকারের উপর চাপ প্রয়োগ করে আসছিলো- পার্বত্য এলাকায় উপজাতি গোষ্ঠীগুলোকে নিজ নিজ মাতৃভাষায় পাঠ্যবই পড়ার সুযোগ করে দেয়ার জন্য। সরকার পশ্চিমাগোষ্ঠীর



৯৮ ভাগ মুসলমানের পাঠ্যপুস্ত ইসলামী শিক্ষার বিপরীতে নাস্তিক্যবাদের শিক্ষায় পরিপূর্ণ!


বাংলাদেশ বিশ্বের দ্বিতীয় বৃহত্তম মুসলিম দেশ। কারণ এদেশের মোট জনগোষ্ঠীর ৯৮ ভাগ মুসলমান। এছাড়া আমাদের রাষ্ট্রধর্মও ইসলাম। আমাদের সংবিধানে ধর্ম হিসেবে পবিত্র দ্বীন ইসলাম উনাকে এবং সম্প্রদায় হিসেবে মুসলিম সম্প্রদায়কে প্রাধান্য দেয়া হয়েছে। যেহেতু বাংলাদেশ গণতান্ত্রিক দেশ এবং গণতন্ত্রে অধিকাংশ জনগোষ্ঠীর



দেশে এখন ইসলামবিরোধিতা প্রকাশ্যেই হচ্ছে!! এর জন্য দায়ী কে?


  আজ থেকে কয়েক বছর আগেও যেটা এদেশে কল্পনা করা হয়নি- আজ সেটাই হচ্ছে। কিছুুদিন আগে একটি জাতীয় পত্রিকার সম্পাদক প্রকাশ্যে আযানের বিরুদ্ধে কটূক্তি করেছে। এর আগেও একবার নাস্তিকদের কবি শামসুর সেও আযানকে কটাক্ষ করেছিলো। কিন্তু তখন তা নিয়ে দেশজুড়ে ব্যাপক



সউদীরা প্রকৃতপক্ষে ইহুদী তা আবারো প্রমাণিত


সউদী আরব বুঝতে পেরেছে ইসরাইল তার বন্ধু: নেতানিয়াহু ইসরাইলের প্রধানমন্ত্রী বেনিয়ামিন নেতানিয়াহু বলেছে, সউদী আরব এখন তেলআবিবকে ‘শত্রুর পরিবর্তে বন্ধু’ হিসেবে দেখে। সে আরো দাবি করেছে, এটি ফিলিস্তিন ইস্যুতে সউদী নীতিতে বড় ধরনের পরিবর্তনের আভাস। ড্যাভোসে গত জুমুয়াবার বিশ্ব অর্থনৈতিক ফোরামের



শিক্ষানীতিতে ইসলামী ব্যক্তিত্বাগণের আলোচনা নেই কেন? সাইয়্যিদাতুনা হযরত আছ ছানিয়াহ আলাইহাস সালাম উনার জীবনী মুবারক পাঠ্যবইয়ে বাধ্যতামূলক করতে হবে


কোথাকার কোন টাকা লুটকারী, চরিত্রহীন খ্রিস্টানদের তেরেসা, ফ্লোরেন্স নাইটিঙ্গেল, আর এদেশের ইসলামবিদ্বেষী নারী রোকেয়াদের নিয়েই পাঠ্যবইগুলোকে সাজানো হয়েছে। নাউযুবিল্লাহ! পাঠ্যবইয়ে উল্লিখিত এ সকল মহিলাগুলো যে ব্যক্তিগতভাবে কত অসামাজিক ও অপরিণত তা কিন্তু তাদের সংশ্লিষ্ট মহলগুলো পূর্ণভাবেই জানে। কিন্তু তারপরও তাদের উদ্দেশ্য



“বিনতুম মিন বানাতি রসূলিল্লাহ ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম, সাইয়্যিদাতু নিসায়িল আলামীন, সাইয়্যিদাতু নিসায়ি আহলিল জান্নাহ, উম্মু আবীহা সাইয়্যিদাতুনা হযরত


কায়িনাতের বুকে আহলু বাইতি রসূলিল্লাহ, মুজাদ্দিদে আ’যম মামদূহ মুর্শিদ ক্বিবলা সাইয়্যিদুনা ইমাম খলীফাতুল্লাহ হযরত আস সাফফাহ আলাইহিছ ছলাতু ওয়াস সালাম উনার এক অভূতপূর্ব বেমেছাল মহাসম্মানিত তাজদীদী শান মুবারক প্রকাশ- “বিনতুম মিন বানাতি রসূলিল্লাহ ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম, সাইয়্যিদাতু নিসায়িল আলামীন, সাইয়্যিদাতু



পবিত্র আশূরা শরীফ: সর্বাবস্থায় হক্বের উপর ইস্তিকামত থাকার সমুজ্জ্বল ঈমানদীপ্ত প্রেরণা


পবিত্র আশূরা মিনাল মুহররম শরীফ অর্থাৎ পবিত্র মুহররম শরীফ মাস উনার ১০ তারিখ; যা পবিত্র দ্বীন ইসলাম উনার ইতিহাসে পবিত্র আশূরা শরীফ নামে মশহুর। এই মহাপবিত্র দিনটি নূরে মুজাসসাম, হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম উনার কারণেই সম্মানিত। উক্ত দিনে



পৃথিবী সদৃশ গ্রহ পেয়েছে নাসা


পৃথিবীর মতোই একটি গ্রহের সন্ধান পেয়েছে মহাকাশ গবেষণা সংস্থা নাসা। গত ইয়াওমুল খামিস (বৃহস্পতিবার) এক সংবাদ সম্মেলনে বিজ্ঞানীরা নাসার শক্তিশালী কেপলার টেলিস্কোপ ব্যবহার করে এ গ্রহ আবিষ্কারের ঘোষণা দেয়। নতুন আবিস্কৃত গ্রহটি পৃথিবীর চেয়ে ৬০ গুণ বড় এবং পৃথিবী থেকে এটি