সাময়িক অসুবিধার জন্য আমরা আন্তরিকভাবে দু:খিত। ব্লগের উন্নয়নের কাজ চলছে। অতিশীঘ্রই আমরা নতুনভাবে ব্লগকে উপস্থাপন করবো। ইনশাআল্লাহ।

ফারুক -blog


.............


ফারুক
 


ঘাঘড়া লস্কর খান মসজিদ, শেরপুর


মোঘল সম্রাজ্যের প্রায় সোয়া দুইশ’ বছরের পুরনো শেরপুরের ঘঘড়া লস্কর ‘খান বাড়ী’ জামে মসজিদটি আজও দাঁড়িয়ে আছে কালের সাক্ষী হয়ে। স্থাপত্যকলার অনুপম নিদর্শন ঐতিহাসিক এ ‘খান বাড়ী’র মসজিদটি শেরপুর জেলার ঝিনাইগাতি উপজেলার ঘাগড়া লস্কর গ্রামে অবস্থিত। তাই কালের আবর্তে এ মসজিদের



একমাত্র ইহুদী, মুশরিক আর বিধর্মীরাই ঈদে মীলাদুন নবীর বিরোধিতা করে থাকে


মহান আল্লাহ রব্বুল আলামীন পবিত্র কুরআন শরীফ-এ ইহুদী এবং মুশরিককে মুসলমানদের সবচেয়ে বড় শত্রু হিসেবে উল্লেখ করেছেন। ইহুদীদের সর্বাধিক আক্রোশ ছিলো নূরে মুজাসসাম, হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম উনার প্রতি; যে কারণে তারা উনাকে শহীদ পর্যন্ত করার কোশেশ করেছিলো,



বাংলাদেশের জনসংখ্যা আসলে কত?


গত বুধবার ২০ অক্টোবর জাতিসংঘ জনসংখ্যা তহবিল ‘বিশ্ব জনসংখ্যা পরিস্থিতি প্রতিবেদন ২০১০’-এর তথ্য প্রকাশ করা হয়েছে। এতে বলা হয়, বাংলাদেশের বর্তমান জনসংখ্যা ১৬ কোটি ৪৪ লাখ ২৫ হাজার। আবার এ বছরের জুলাই মাসে আমেরিকার সেন্ট্রাল ইনটেলিজেন্স এজেন্সির (সিআইএ) ওয়ার্ল্ড ফ্যাক্ট বুকে



সংবিধান পরিবর্তন!


এক সময় কিছু রাজনীতিবিদদের মুখে সর্বদায় খই ফুটত, ‘যদি ৭২’র সংবিধানে ফেরত যাওয়া যায় তবে ধর্মভিত্তিক রাজনৈতিক দলগুলো নিষিদ্ধ হবে।’ কিন্তু সরকার সংবিধান পরিবর্তন করলেও দেখা যাচ্ছে, ধর্মভিত্তিক রাজনীতি চালু রাখার ঘোষণা দিয়েছে প্রধানমন্ত্রী। তাহলে কি আমরা বুঝব যে, সংবিধান পরিবর্তনটা



রক্ষকই যখন ভক্ষক!


আজ ১৪ অক্টোবর বৃহস্পতিবার অনেক পত্রিকাতেই খবরটি ছাপা হয়। খবরে বলা হয়, “কাপড় ব্যবসায়ী হাসমত গত ৭ অক্টোবর ঢাকা থেকে ৪ লক্ষ ৫২ হাজার ১৫০ টাকা মূল্যে শাড়ী ও অন্যান্য দেশী কাপড় ক্যাশ মেমোতে ক্রয় করে দিনাজপুর গামী কোচ যোগে বাড়ী



Anthrax আতঙ্ক! সর্বশেষ বৈজ্ঞানিক তথ্য সম্বলিত একটি পর্যালোচনা (৪)


Anthrax ব্যাকটেরিয়ার সংস্পর্শে আসা মানেই Anthrax রোগ হওয়া নয়: Anthrax জীবাণু প্রাণীদেহে প্রবেশ করলেই যে Anthrax রোগ হয়ে গেলো এ কথার কোন বৈজ্ঞানিক ভিত্তি নেই। মনে রাখতে হবে- রোগ বিস্তারের জন্য কিছু নির্দিষ্ট শর্ত পূরণ হওয়া আবশ্যক। যেমন প্রথমেই বলা যায়,



Anthrax আতঙ্ক! সর্বশেষ বৈজ্ঞানিক তথ্য সম্বলিত একটি পর্যালোচনা (৩)


Anthrax আক্রান্ত প্রাণীর মৃতদেহ কতটা বিপদজনক? এর বৈজ্ঞানিক ব্যাখ্যা: Anthrax আক্রান্ত প্রাণী যদি মৃত্যুবরণ করে (রোগের কারণেই হোক কিংবা ভুলক্রমে জবাই করা হোক) তার দেহাভ্যন্তরে অবস্থানকারী বেশিরভাগ সক্রিয় Anthrax bacteria -ই সেই প্রাণীরই অভ্যন্তরসি’ত অন্য কিছু বিশেষ bacteria (anaerobic) দ্বারা আক্রান্ত



Anthrax আতঙ্ক! সর্বশেষ বৈজ্ঞানিক তথ্য সম্বলিত একটি পর্যালোচনা (২)


কাদের Anthrax হয় এবং এর বৈজ্ঞানিক ব্যাখ্যা কি? Anthrax জীবাণু ২৫০-৪০০ সেলসিয়াস (৭৭০-১০৪০ ফারেনহাইট) তাপমাত্রায় বংশবৃদ্ধি করতে পারে। প্রায় সমস্ত উষ্ণরক্তের (warm blooded) প্রাণী Anthrax -এ আক্রান্ত হতে পারে (যেহেতু এদের শরীরের তাপমাত্রা উপরোক্ত তাপমাত্রার সীমার মধ্যে থাকে)। অপরপক্ষে শীতল রক্তের



Anthrax আতঙ্ক! সর্বশেষ বৈজ্ঞানিক তথ্য সম্বলিত একটি পর্যালোচনা (১)


Anthrax জীবাণু: ভূমিকা: Anthrax-জীবাণু অর্থাৎ Bacillus anthracis আমাদের পরিবেশে দুইভাবে অবস্থান করে: (১) সক্রিয় অবস্থা (active/vegetative form) এবং (২) সুপ্ত অবস্থা (spore form/inactive form) এ দুই অবস্থার মধ্যে প্রথম অবস্থাটি আক্রান্ত প্রাণীদেহের অভ্যন্তরে থাকে এবং দ্বিতীয় অবস্থাটি (spore form) প্রাণীদেহের বাইরে