হাসনাত -blog


...


 


সাইয়্যিদুল আ’ইয়াদ শরীফ পালন করা সকলের জন্য ফরযে আইন


সমস্ত মাখলুকাতের নবী ও রসূল, নূরে মুজাসসাম, হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম উনার মহান বিলাদত শরীফ উনার মাস হচ্ছে পবিত্র রবীউল আউওয়াল শরীফ। এই মাসের বারোই শরীফ তারিখ ইয়াওমুল ইছনাইনিল আযীমি তথা সোমবার শরীফ তিনি যমীনে আগমন করেন। এ



“কায়িনাতে এক বেমেছাল তাজদীদ মুবারক: নুরুশ শেফা এবং নূরুল গইব”


সাইয়্যিদুল মুরসালীন, ইমামুল মুরসালীন, খাতামুন্ নাবিইয়ীন, নূরে মুজাস্সাম হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাাম তিনি ইরশাদ মুবারক করেন, “নিশ্চয়ই মহান আল্লাহ পাাক তিনি প্রতি হিজরী শতকের শুরু ভাগে এই উম্মতের হিদায়তের জন্য একজন করে মুজাদ্দিদ প্রেরণ করবেন, যিনি সম্মানিত দ্বীন



রাষ্ট্রীয় ধর্মই যদি পবিত্র দ্বীন ইসলাম? তবে কোথায় উনার যথাযথ সম্মান?


শতকরা ৯৭ ভাগ মুসলিম জনগোষ্ঠীবেষ্টিত এই দেশ। এর চেয়ে বড় কথা হচ্ছে- এদেশের রাষ্ট্রধর্ম হলো “পবিত্র দ্বীন ইসলাম”। এতদ্বসত্ত্বেও পবিত্র দ্বীন ইসলাম উনার অনুভূতি লালনের পরিবর্তে পবিত্র দ্বীন ইসলাম উনাকে অবমাননা করা ও ক্ষুণœ করা যেন এদেশের শাসকগোষ্ঠী তথা সরকারের প্রধান



যে প্রশাসন ও সাংবাদিক হিন্দুদের পক্ষে কথা বলবে তাদেরকে বয়কট করুন ও প্রতিবাদ করুন


মালউন হিন্দুরা পবিত্র দ্বীন ইসলাম, মুসলমান উনাদের বিপক্ষে একের পর এক আঘাত করেই যাচ্ছে। শেষপর্যন্ত এরা বরিশালে মুসলমান শহীদ করার সাহস দেখালো? এই ঘটনা যদি ভারতে হতো, তাহলে কি হতো? লক্ষ লক্ষ মুসলমান শহীদ করত। অথচ মুসলমান কিছুই করলো না!! উল্টো



কোনো মুসলমান হারাম খেলাধুলাতে অংশগ্রহণ করতে পারে না


মহান আল্লাহ পাক তিনি ইরশাদ মুবারক করেন, “তোমরা কাফির-মুশরিকদের অনুসরণ কর না” আর পবিত্র হাদীছ শরীফ উনার মধ্যে ইরশাদ মুবারক হয়েছে, “যে ব্যক্তি যে সম্প্রদায়ের সাথে মিল রাখে তার হাশর-নশর তাদের সাথে হবে।” নাউযুবিল্লাহ! মুলত, আমাদের এই দেশের জনগোষ্ঠিরা ৯৭ ভাগই



আজই চলে আসুন আম্মাজী ক্বিবলা উনার ক্বদম মুবারকে


সাম্প্রতিক অনলাইন পত্রিকার মাধ্যমে জানা গেছে- ফিলিপাইনের এক অভিনেত্রী শোবিজ ত্যাগ করে পবিত্র দ্বীন ইসলাম উনাকে গ্রহণ করেছে। সংবাদ মাধ্যমে একটি সাক্ষাতকারে সে জানায়, পবিত্র দ্বীন ইসলাম উনাকে গ্রহণ করে সে শান্তি ও দিক নির্দেশনা পেয়েছে। যা সে শোবিজ জীবনে কখনো



সাইয়্যিদাতু নিসায়িল আলামীন, বিনতু মুজাদ্দিদে আ’যম, আওলাদে রসূল, উম্মু আবীহা হযরত শাহযাদী ঊলা ক্বিবলা আলাইহাস সালাম উনার ফাযায়িল-ফযীলত ও


ফাযায়িল-ফযীলত মহান আল্লাহ পাক তিনি পবিত্র কুরআন শরীফ উনার মধ্যে ইরশাদ মুবারক করেন, “নিশ্চয়ই আমি আপনার যিকিরকে, (সম্মানকে) বুলন্দ করেছি।” (পবিত্র সূরা আলাম নাশরাহ শরীফ : পবিত্র আয়াত শরীফ ৪) মহান আল্লাহ পাক তিনি উনার রসূল, সাইয়্যিদুল মুরসালীন, ইমামুল মুরসালীন, নূরে



ছানী শাহদামাদ ক্বিবলা আলাইহিস সালাম উনার শানে


-মুহম্মদ মুস্তফা হাসনাত।   ৯ই জুমাদাল উলা শরীফ-এ তাশরীফ ধরণীতে ৯ম মেহমান হয়ে তিনি আহালী হুজরাতে। মালিক হয়েও তাশরীফ উনার এমন এক ছুরতে রেযায়ে মামদূহ আক্বা তবে মোদের বুঝাতে। মুর্দা এ দিল এখন এ দুনিয়ার তাছীরে জিন্দা হয় শুধু আপনারই এক



দৃষ্টের মাঝে অদৃষ্ট আপনি


-মুহম্মদ মুস্তফা হাসনাত। দৃষ্টের মাঝে অদৃষ্ট আপনি সীমার মাঝে অসীম আপনি তুলনার মাঝে অতুলনীয় আপনি এ কেমন মুবারক শান নিয়ে হন আগুয়ান ইয়া শাহযাদী ছানীজান আলাইহাস সালাম এ অধম না জানি ॥ স্বয়ং ইলাহী ও হাবীবজীর শান আপনি মুর্শিদ পাকের হন



হেফাজতের লংমার্চে যোগদান করা হারাম


-মুহম্মদ মুস্তফা হাসনাত, ঢাকা। কথিত হেফাজত ইসলাম আজ ৬ এপ্রিল, ২০১৩ ঈসাযীতে নাস্তিক ব্লগারদের কার্যকলাপের বিরুদ্ধে লংমার্চের ডাক দিয়েছে। কিন্তু তাদের এ লংমার্চ কতটুকু ইসলামসম্মত তা তারা ভেবে দেখেনি। লংমার্চ-এর জনক হলো বিধর্মী, ইসলামবিদ্বেষী, সমাজতান্ত্রিক নেতা মাওসেতুং। কাজেই এটি ইসলামের কোনো



ব্লাসফেমী আইন চাওয়া মানে পবিত্র দ্বীন ইসলাম উনাকে অবমাননা করা


-মুহম্মদ মুস্তফা হাসনাত, ঢাকা।   বর্তমান দেশীয় প্রেক্ষাপটে যে একটি বিষয় ইসলাম উনার সাথে সংযুক্ত করার অপপ্রচার চালানো হচ্ছে তা হলো ‘ব্লাসফেমী আইন।’ কিন্তু এ আইনটি হলো মূলত খ্রিস্টধর্মের। এ আইন মুতাবিক কেউ যদি খ্রিস্টানদের তথাকথিত যিশু এবং তাদের ধর্ম নিয়ে



একটি মুবারক নাম .


-মুহম্মদ মুস্তফা হাসনাত আম্মাজী, আম্মাজী, আম্মাজী কি সুমধুর এ মুবারক নাম যা আমি দিনরাত্রি জপছি। পাখিদের কিচির-মিচির কলতানে সমুদ্রের ভুবন কম্পমান গর্জনে একটি মুবারক নামই শুনেছি আম্মাজী, আম্মাজী, আম্মাজী। ফুলের মিষ্টি সুগন্ধে প্রকৃতির ওই অপরূপ বসন্তে একটি মুবারক নামেরই সুগন্ধি পেয়েছি