Ilmun_nafeh -blog


...


 


আমি মহান আল্লাহ পাক উনার হাবীব। আর আমার হযরত আহলে বাইত শরীফ আলাইহিমুস সালাম উনাদেরকে মুহব্বত কর আমার মুহব্বতে।”


মহান আল্লাহ পাক তিনি ইরশাদ মুবারক করেন,   “(হে আমার হাবীব ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম! আপনি জানিয়ে দিন, আমি তোমাদের নিকট কোনো বিনিময় চাচ্ছি না। আর চাওয়াটাও স্বাভাবিক নয়; তোমাদের পক্ষে দেয়াও কস্মিনকালে সম্ভব নয়। তবে তোমরা যদি ইহকাল ও পরকালে



হুযুরপাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম তিনি বলেন,আমি তোমাদের কারো মত নই।


ছহীহ বুখারী শরীফ, ও মুসলিম শরীফে বর্নিত রয়েছে,হুযুর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম তিনি নিজেই ইরশাদ মুবারক করেন,   অর্থ:”আমি তোমাদের কারো মত নই।”   আরো ইরশাদ মুবারক করেন,   অর্থ:তোমাদের মধ্যে কে রয়েছে আমার মত?   অর্থাৎ আল্লাহপাক উনার রসুল ছল্লাল্লাহু



ইতিকাফ এর ফযীলত


হাদীছ শরীফে ইরশাদ হয়েছে, যে ব্যক্তি রমাদ্বান শরীফ-এর শেষ দশ দিন (সুন্নতে মুয়াক্কাদায়ে কিফায়া) ই’তিকাফ করবে, আল্লাহ পাক তাকে দুটি হজ্জ ও দুটি ওমরাহ করার সমতুল্য ছাওয়াব দান করবেন। আরো উল্লেখ করা হয়েছে যে, আল্লাহ পাক তার পিছনের গুনাহখতা ক্ষমা করে



যাকাত সংগ্রহকারী উনাদের ফযীলত


    ১) খাছ সুন্নত আদায় এবং ফরয ইবাদতের সমান সওয়াব পাওয়া যাবে:   ২) দান-ছদকা যত হাত ঘুরে আসে প্রত্যেকেই সমান ফযীলত লাভ করবে।   তাই নিজের অর্থ খরচ না করেও যাকাত দাতার সমান সকল ফযীলত পাচ্ছে।   ৩) দুআ



পবিত্র যাকাত উনার কাপড়ের নামে আলাদা কাপড় বিক্রয় কিংবা দোকান বসানো সম্পূর্ণ নাজায়িয


    আরবী বা হিজরী সন উনার নবম মাস হলো পবিত্র রমাদ্বান শরীফ। হযরত নবী আলাইহিমুস সালাম উনাদের নবী, হযরত রসূল আলাইহিমুস সালাম উনাদের রসূল, নূরে মুজাসসাম, হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম তিনি পবিত্র রজব মাস থেকেই দোয়া করতেন, “আয়



সুমহান পবিত্র ও বরকতময় ৯ই রমাদ্বান শরীফ।


আল্লাহ পাক তিনি ইরশাদ মুবারক করেন,   “(হে আমার হাবীব ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম!) আপনি বলে দিন, আমি তোমাদের নিকট কোনো বিনিময় চাচ্ছি না। তোমাদের জন্য ফরয-ওয়াজিব হচ্ছে আমার হযরত আহলে বাইত শরীফ আলাইহিমুস সালাম উনাদেরকে মুহব্বত করা, তা’যীম-তাকরীম মুবারক করা,



“”””মহিলাদের জন্য মসজিদে গিয়ে জামায়াতে নামায পড়া জায়িয নয়।”””


  পবিত্র হাদীছ শরীফ উনার মধ্যে ইরশাদ মুবারক হয়েছে-   عن حضرت ام حميد امرأة ابى حميد الساعدى انها جاءت النبى صلى الله عليه وسلم فقالت يا رسول الله صلى الله عليه وسلم انى احب الصلوة معك، قال علمت انك تحبين



“””’ সুমহান ৬ ই রমাদ্বান শরীফ””””


“”””সাইয়্যিদাতুন নিসা হযরত আছ ছালিছা( উম্মু কুলছূম) আলাইহাস সালাম উনার বিছাল শরীফ দিবস।””” বানাতু রসূলিল্লাহি ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম উনাদের মধ্যে সাইয়্যিদাতুন নিসা হযরত উম্মু কুলসুম আলাইহাস সালাম তিনি তৃতীয়। আর আওলাদু রসূলিল্লাহ ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম উনাদের মধ্যে তিনি ষষ্ঠতম।



কাদেরকে যাকাত দিলে বেশি ফযীলত?


  اِنّٰـمَا الصَّدَقٰتُ لِلْفُقَرَاءِ وَالْمَسَاكِيْنَ وَالْعٰمِلِيْنَ عَلَيْهَا وَالْمُؤَلَّفَةُقُلُوْبُهُمْ وَفِي الرِّقَابِ وَالْغٰرِمِيْنَ وَفِي سَبِيْلِ اللهِ وَابْنِ السَّبِيْلِ ۖفَرِيْضَةً مِّنَ اللهِ ۗ وَاللهُ عَلِيمٌ حَكِيْمٌ. ৪ জোড়া- ৮টি খাত : যথা ১) ফক্বীর (যার এক বেলা খাবার আছে আরেক বেলা নেই)-মিসকীন (যার আয়ের



“”‘”সুমহান বরকতময় সন্মানিত ২ রা রমাদ্বান শরীফ,”””’


  এই দিনে নুরে মুজাসসাম হাবীবুল্লাহ হুযুরপাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম উনার প্রথম আউলাদ যিনি ইবনু রসুলিল্লাহ ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম সাইয়্যিদুনা আন নুরুল আউওয়াল (ক্বাসিম) আলাইহিস সালাম তিনি যমীনে আগমন করেছেন।সুবহানাল্লাহ   অর্থাৎ যিনি কুল মাখলুকাতের নবী ও রসুল নুরে মুজাসসাম হাবীবুল্লাহ



“”””’আহলু বাইত শরীফ আলাইহিমুস সালাম উনাদের প্রতি দরুদ শরীফ পাঠ করা ব্যাতীত নামায কবুল হয়না”””’


  “শাফেয়ী মাযহাব উনার ইমাম হযরত ইমাম শাফেয়ী রহমতুল্লাহি আলাইহি তিনি বলেছেন,,,   হে নুরে মুজাসসাম হাবীবুল্লাহ হুযুরপাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম উনার মহাসন্মানিত হযরত আহলু বাইত শরীফ আলাইহিমুস সালাম আপনাদের সন্মানিত মুহব্বত মুবারক আল্লাহপাক উনার পক্ষ থেকে ফর‍য, যা আল্লাহপাক তিনি



হুযুরপাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম উনাকে মুহব্বত করা ব্যতীত কেউই মু’মিন হতে পারবে না। আর হযরত আহলু বাইত শরীফ আলাইহিমুস


      পবিত্র হাদীছ শরীফ উনার মধ্যে ইরশাদ মুবারক হয়েছে-     عن حضرت على عليه السلام قال خرج رسول الله صلى الله عليه وسلم مغضبا حتى استوى على المنبر فحمد الله واثنى عليه قال ما بال الرجال يؤذوننى فى