Shan Mubarok Prokash -blog


আহলান!সাহলান!! কুদুমুল মুবারক!!! ***সবুজ বাংলা ব্লগের পক্ষ থেকে !!! আপনাদেরকে আহলান সাহলান*** বেশি বেশি সবুজ বাংলা ব্লগে মেহমান হোন, দুনিয়া ও আখিরাতের কামিযাবী হাসিল করুন!!!


 


আহলু বাইত শরীফ উনাতের বিরুধীতার জবাব ১.


১. কোন ব্যক্তি যদি কারো পিতা-মাতা ও পরিবার পরিজনকে গালিগালাজ করে বলে যে, উমুকের পিতা চোর বা ডাকাত অথবা যদি বলে তার মা পতিতা অথবা তার বোন জিনাকারী বা তার ছেলে বদচরিত্র তাহলে কি সেটা শুনে চুপ করে বসে থাকবে? সে



কুরবানি নিয়ে চক্রান্ত বন্ধ করুন!!!


আসুন আমরা বন্যাকবলিত এলাকায় যারা গরিব,দুখী আছেন,না খেয়ে জীবন যাপন করছেন।তাদের পাশে দাঁড়াই।আমরা তাদের জন্য নিজস্ব তহবিল থেকে চাল,ভাত,মাছ,গোশত,ডাল,দুধ,ঔষধ,কাপড়-চোপড়,স্যালাইন,বিশুদ্ধ পানি,চিড়া,মুড়ি,গুড়,চিনি ইত্যাদি জিনিস খাবারের উপযুক্ত করে তাদের কাছে পৌঁছে দিই।তারা যেন কোন কষ্টট ছাড়াই খাবার গুলো গ্রহণ করতে পারে। কেননা,আমরা যদি তাদেরকে



আহলু বাইত শরীফ উনাদের বিদ্বেষ পোষণ করা কুফুরি!!!


ওহে ঈমানদারেরা তোমরা কোথায়? ওহে মুসলমানেরা তোমরা কোথায়? ওহে বীরের জাতিরা তোমরা কি ঘুমিয়ে পড়েছো? তোমরা কিছু কাফির,মুশরিক, নাস্তিদের কাছে মাথা নত করেছ কি? তোমরা তো ঘুমাবার জাতি নও।তোমরা তো কারোও কাছে মাথা নত করিবার জাতি নও। *****তাহলে আজ কেন তোমাদের



মুসলমানদের ঈমান-আমল নষ্টের নেপথ্যে একটি সত্য ঘটনা


আমি পেশাগত কাজের উদ্দেশ্যে যশোরে গেলাম। সেখানে আমার এক বন্ধু থাকে। আমাদের বন্ধুত্ব গড়ে উঠেছিল সেই ছাত্রাবস্থায়। যখন যশোরে পৌছলাম, তখন কাজের এক ফাঁকে মনে হল তার সাথে একটু সাক্ষাত করি । যেই চিন্তা সেই কাজ, দিলাম কল। জানিয়ে দিলাম আমার



হারাম ভালবাসা দিবস::::


আগামী কাল আসছে বিশ্বভালবাসা তথা বিশ্ব বেহায়া দিবস!!!১৪ই ফেব্রুয়ারি কখনই হারাম ভালবাসা দিবস হতে পারে না!বিশ্ব বেহায়া দিবস সম্পর্কে জরুরী কিছু কথা না বললেই নয়!এ বিষয়টি জানা সকল মুসলমানের জন্যই অত্যাবশ্যক! তা নিম্ন রুপ: ১.ভারবাসা তথা বেহায়া দিবস পালন কররে ঈমান



মিলাদ শরীফ উনার কিতাবব সহ লেখক


ঈদে মীলাদুন নবী ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লামের স্বপক্ষে লিখিত কয়েকটি বিখ্যাত কিতাবের নাম উল্লেখ করা হলো। . ১) হাফিযুল হাদীছ হযরত শিহাবুদ্দীন আবু মুহাম্মদ আব্দুর রহমান বিন ইসমাইল রহমতুল্লাহি আলাইহির কিতাব- আল বাইস আলা ইনকারি বিদাই ওয়াল হাওয়াদিস। . ২) হাফিযুল



গাট্টিওয়ালাতের সত্য ঘটনা


তাবলীগ জামাত তথা গাট্টা ওয়ালাদের একটি চমৎকার কাহিনী,,,, ১০/১২বছর আগের কথা।গল্পটি বর্ণনা করেন লেখকের বাবা।গল্পটি নিম্ন রুপ: আমার বাবা একদিন ইজতেমার ময়দান তথা টুঙ্গির ময়দানে গেলেন দেখতে,,তারা কি করে,,,সময় ছিল বর্ষা কাল।মাঠের অবস্হা খুব খারাপ,চারিদিকে পানি আর এঁটেল মাটির কাদাতে রাস্তা



গাট্টীওয়ালাদের কুফুরি কথা::


তাবলীগ জামাত তথা জাহান্নামের গাট্টী ওয়ালা তাদের তথা কথিত বিশ্ব ইজতেমা বা বিশ্ব ইস্তেনজার কিছু কথা না বললেই নয়।এসব বিষয় আপনাদের ভাল ভাবে জানা দরকার।তা নিম্ন রুপ: ১.ছয় উসুল তাবলীগ মানা হারাম। ২.গাট্টী নিয়ে মসজিদে মসজিদে ঘোরা হারাম। ৩.তাদের গুরু মালানা



সর্বস্তরে দুর্নীতি


দুর্নীতিতে দেশ,বিভাগ,জেলা,উপজেলা,ইউনিয়ন,গ্রাম,মহল্লা,পরিবার ছেয়ে গিয়েছে। ১.মনে করেন আপনি ভাল কোন স্কুলে পড়তে চান,পকেটে টাকা আছে,,,তাহলেই কোন কথা নেই।।। ২.কলেজে পড়বেন সেখানেও ৩.বিশ্ববিদ্যালয়ে ও ৪.মহল্লায় কোন কালভাট বা ব্রিজেও দুর্নীতি,,,,চাঁদা চাই ৫.ভাল ব্যবসা করবেন,, চাঁদা চাই ৬.কোন সমস্যায় তথাকথিত পাতি নেতার কাছে গেলে,



মূর্তি স্হাপন করা হারাম!!!


মূর্তি পূজা করা হারাম,,,,একমাত্র আল্লাহ পাক উনারই ইবাদত করতে হবে,,,অন্য কাহার ও ইবাদত করা যাবে না! ১.মুর্তি বানানো হারাম ২.মুর্তির পুজা করা হারাম ৩.মুর্তি দেখা হারাম ৪.মুর্তি দেখানো হারাম ৫.বাড়ির সামনে মুর্তি রাখা হারাম। ৬.স্কুর,কলেজ,মাদ্রাসা,বিশ্ববিদ্যালয়ে মুর্তি রাখা,রাখানো,দেখা,দেখানো,সম্মান জানানো হারাম। ৭.বিভিন্ন আদালত,কোট,কাচারি,বিচারালয়তে



31ST(থার্টি ফাস্ট নাইট) পালন করা হারাম!কি হবে?


অামরা কি মুসলমান?আমরা কি ঈমানদার?যদি ঈমানদার বা মুসলমান হই ,তাহলে কি করে আমরা 31ST তথা কাফির মুশরিকদের নিয়ম কানুন তর্জ ত্বরিকা গ্রহণ করতে পারি ।যে বা যাহারা থার্টি ফাস্ট নাইট পালন করবে তাদের পরিনাম হবে খুব খারাপ:::: ১.তাদের ঈমান নষ্ট হবে।



বিভিন্ন কুফুরি দিবস:পর্ব ৭


বিভিন্ন কুফুরি দিবস সমূহ:পর্ব:৭:জুলাই মাস:তারিখ সহ প্রদত্ত হল: ১.ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় দিবস। ২.বিশ্ব ক্রীড়া সাংবাদিক দিবস। ৩.জাতীয় জন্ম নিবন্ধন দিবস। ৪.জাতীয় সমবায় দিবস। ১০.জাতীয় মূসক দিবস। ১১.বিশ্ব জন সংখ্যা দিবস। ১৪.ঐতিহাসিক বাস্তিল দিবস। ১৬.বিশ্ব সর্প দিবস। ১৭.আন্তর্জাতিক ন্যায়বিচার দিবস। ১৮.নেলসন ম্যান্ডেলা আন্তর্জাতিক