সাকালাইন -blog


দেশপ্রেম ও ইসলামি চেতনায় উজ্জীবিত...


 


বিধর্মীদের সাথে বন্ধুত্ব, মুসলমানগণের সাথে বিরোধিতা!


পৃথিবীর প্রায় প্রতিটি দেশেই লক্ষ্য করলে দেখা যাচ্ছে, মুসলমানগণের ফরয আমল তথা পর্দার বিরোধিতা, পবিত্র কুরআন শরীফ উনার মানহানি করা, মহান আল্লাহ পাক উনার হাবীব নূরে মুজাসসাম হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম উনার মানহানি করা, মুসলমানগণের পবিত্র মসজিদ তৈরিতে



হযরত উম্মাহাতুল মু’মিনীন আলাইহিন্নাস সালাম উনাদের ফাযায়িল-ফযিলত মুবারক


মহান আল্লাহ পাক তিনি নিজেই ইরশাদ মুবারক করেন, وَمَا يَنْطِقُ عَنِ الْـهَوٰى. اِنْ هُوَ اِلَّا وَحْىٌ يُّوْحٰى অর্থ: “নূরে মুজাসসাম হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম তিনি সম্মানিত ও পবিত্র ওহী মুবারক ব্যতীত কোনো কথা মুবারক বলেন না, কোনো কাজ



খিলাফত আলা মিনহাজিন নুবুওওয়াহ উনার বিরুদ্ধে অপপ্রচারের উদ্দেশ্যেই বিভ্রান্ত ও গোমরাহদের দ্বারা সন্ত্রাসী গোষ্ঠীর উত্থান


খিলাফত আলা মিনহাজিন নুবুওওয়াহ একটি শান্তিপূর্ণ বিশ্ব পরিচালনা করার ব্যবস্থা। যা মহান আল্লাহ পাক উনার নাযিলকৃত, পবিত্র কুরআন শরীফ এবং পবিত্র হাদীছ শরীফ উনাদের মাধ্যমে পরিচালিত। এই খিলাফত ব্যবস্থা জারি থাকলে মুসলমান উনারা সম্মানিত শরীয়ত অনুযায়ী শান্তিপূর্ণ জীবন পরিচালনা করার পরিবেশ



গান-বাজনার ক্ষতি হতে এ দেশ ও এ সমাজকে রক্ষা করা জরুরী


বর্তমানে সমাজ পরিবারকে প্রচলিত গান বাজনা এমন এক কঠিন ব্যাধী হিসেবে আক্রান্ত করেছে যে, এর থেকে মুক্ত কে বা কারা তা নির্ণয় করা মুশকিল হয়ে পড়েছে। কেউ গান করছে, কেউবা গান শুনছে, কেউবা গানের শো আয়োজন করছে, আবার কেউ গানের ব্যবসা



স্বয়ং নূরে মুজাসসাম হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম তিনি নিজেই সম্মানিত শা’বান শরীফ মাস উনার চাঁদ তালাশের


মহাসম্মানিত ও মহাপবিত্র হাদীছ শরীফ উনার মধ্যে ইরশাদ মুবারক হয়েছে, عَنْ اُمِّ الْـمُؤْمِنِيْـنَ الثَّالِثَةِ سَيِّدَتِنَا حَضْرَتْ اَلصِّدِّيْقَةِ عَلَيْهَا السَّلَامُ (سَيِّدَتِنَا حَضْرَتْ عَائِشَةَ عَلَيْهَا السَّلَامُ) قَالَتْ كَانَ رَسُولُ اللَّهِ صَلَّى اللَّهُ عَلَيْهِ وَسَلَّمَ يَتَحَفَّظُ مِنْ هِلَالِ شَعْبَانَ مَا لَا يَتَحَفَّظُ مِنْ غَيْرِهِ.



আরবী সনের দ্বিতীয় মাস উনার নাম ‘ছফর’ রাখার কতিপয় কারণ


আরবী সনের দ্বিতীয় মাস ‘পবিত্র ছফর শরীফ’। ‘ছফর’ শব্দটি একবচন। এর বহুবচন আছফার। ‘ছফর’ শব্দের অর্থ এবং এ নামে মাসটির নামকরণ সম্পর্কে কয়েকটি বর্ণনা পাওয়া যায়। (১) ‘ছফর’ অর্থ খালি হওয়া। পবিত্র ছফর শরীফ মাস উনার পূর্ববর্তী ‘পবিত্র মুহররমুল হারাম শরীফ



প্রসঙ্গ: দ্বীন ইসলাম নিয়ে কটূক্তি: অন্ততঃপক্ষে জবানে হলেও প্রতিবাদ জানাতে হবে, নচেৎ ঈমানদার থাকা যাবে না


কিতাবে বর্ণিত আছে, একবার একজন ব্যক্তির উপস্থিতিতে একটি মজলিসে কিছু লোক উম্মুল মু’মিনীন সাইয়্যিদাতুনা হযরত ছিদ্দীকা আলাইহাস সালাম উনাদের সম্পর্কে কটূক্তি করলো। কিন্তু সে লোক প্রতিবাদে কোনো কথাও বললো না। ওইদিন রাতেই সে স্বপ্নে দেখলো- স্বয়ং নূর নবীজি হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক



এক নজরে: সাইয়্যিদাতুন নিসায়ি ‘আলাল ‘আলামীন, উম্মুল মু’মিনীন সাইয়্যিদাতুনা হযরত আছ ছালিছাহ্ ‘আশার আলাইহাস সালাম উনার সম্মানিত পরিচিতি মুবারক


উম্মুল মু’মিনীন সাইয়্যিদাতুনা হযরত আছ ছালিছাহ্ ‘আশার আলাইহাস সালাম তিনি হচ্ছেন হযরত উম্মাহাতুল মু’মিনীন আলাইহিন্নাস সালাম উনাদের মধ্যে বিশেষ ব্যক্তিত্বা মুবারক। সুবহানাল্লাহ! তিনি শুধু যিনি খালিক্ব মালিক রব মহান আল্লাহ পাক তিনি নন এবং নূরে মুজাসসাম, হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি



শাফিউল উমাম সাইয়্যিদুনা হযরত শাহদামাদ আউওয়াল আলাইহিস সালাম উনার সুমহান বিলাদত শরীফ অত্যন্ত জওক-শওকের সাথে পালন করা এবং এ


চন্দ্র মাসের এগারতম মাসটির নাম যিলক্বদ শরীফ। আর খালিক্ব মালিক রব মহান আল্লাহ পাক উনার ঘোষণাকৃত চারটি হারাম বা সম্মানিত মাসের প্রথম মাসটিই হচ্ছে পবিত্র যিলক্বদ শরীফ মাস। তাই এ মাসের ফযীলত-বুযূর্গীর কথা নতুন করে বর্ণনার অবকাশ নেই। এ ব্যাপারে স্বয়ং



সুমহান ৯ জুমাদাল ঊলা শরীফ: আওলাদে রসূল সাইয়্যিদুনা হযরত হাদিউল উমাম আলাইহিস সালাম উনার পবিত্র বিলাদতী শান মুবারক প্রকাশ


‘জুমাদাল ঊলা’ মাস সম্মানিত মাস। মুবারক মাস। কারণ এ মাসেরই ৯ তারিখ পবিত্র বিলাদতী শান মুবারক প্রকাশ করেন বর্তমান যামানার মুজাদ্দিদ, মুজাদ্দিদে আ’যম, গাউসুল আ’যম, আওলাদে রসূল, রাজারবাগ শরীফ উনার মামদূহ হযরত মুর্শিদ ক্বিবলা আলাইহিস সালাম উনার লখতে জিগার, ছানী আওলাদ,



সুমহান সম্মানিত ১৯শে রবীউছ ছানী শরীফ উপলক্ষে সুমহান নিয়ামত মুবারক হাছিল করার সহজ মাধ্যম


নূরে মুজাসসাম হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম তিনি ইরশাদ মুবারক করেন, مَنْ أَحْب سُنَّتِي فَقَدْ أَحَبَّنِي وَمَنْ أَحَبَّنِي كَانَ مَعِي فِي اَلْجَنة অর্থ: “যে ব্যক্তি আমার যেকোনো একটি সম্মানিত সুন্নত মুবারক উনাকে মুহব্বত করলো, সে মূলত আমাকেই মুহব্বত করলো।



যে বা যারা সম্মানিত শরীয়ত উনার খিলাফ কাজ করে, তাদেরকে অনুসরণ করা জায়িয নেই, তারা অনুসরণের অযোগ্য


আমরা প্রত্যেকেই কাউকে না কাউকে অনুসরণ করে থাকি। তবে বাজার দরে সবাইকে অনুসরণ করা সম্মানিত দ্বীন ইসলাম, সম্মানিত শরীয়ত উনার সম্পূর্ণ খিলাফ ও গুনাহের কাজও বটে। কেননা মহান আল্লাহ পাক তিনি উনার সম্মানিত কালাম পবিত্র কালামুল্লাহ শরীফ উনার মাঝে ইরশাদ মুবারক