মানছূর -blog


...


 


পহেলা বৈশাখ পালন করা কেন হারাম ??


আমাদের রসূল ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম তিনি হিজরতের পর মদীনা শরীফ গিয়ে ঐ এলাকাবাসীর দুটি উৎসব বন্ধ করেছিলেন। একটি হচ্ছে, বছরের প্রথম দিন উদযাপন বা নওরোজ; অন্যটির নাম ছিলো ‘মিহিরজান’। এ উৎসবের দুটির বিপরীতে চালু হয় মুসলমানদের দুই ঈদ। (তাফসিরসমূহ দেখতে



সংবিধানে মহান আল্লাহ পাক উনার উপর পূর্ণ আস্থা ও বিশ্বাস পুনর্বহাল করতে হবে


সংবিধানের প্রজাতন্ত্র অধ্যায়ে ৭ (২) ধারায় সংবিধানের প্রাধান্য প্রসঙ্গে বিধান রয়েছে- ‘জনগণের অভিপ্রায়ের পরম অভিব্যক্তিরূপে এই সংবিধান প্রজাতন্ত্রের সর্বোচ্চ আইন এবং অন্য কোনো আইন যদি এই সংবিধানের সহিত অসমঞ্জস্য হয়, তাহা হইলে সেই আইনের যতখানি অসমঞ্জস্যপূর্ণ, ততখানি বাতিল হইবে।’ তাহলে আইনের



বাংলাদেশের খনিজ তেলও ভারতের হাতে


সরকারি অর্থ ব্যয় করে প্রকল্প গ্রহণ করে জ্বালানি তেল অনুসন্ধান কাজ শেষে তেল উত্তোলন শুরু হয়েছিল ১৯৮৯ সালে। দীর্ঘ সময় অতিক্রান্ত হবার পর রহস্যজনক কারণে তা কৌশলে তুলে দেয়া হয়েছে পার্শ্ববর্তী দেশের হাতে। আমাদের দেশের মূল খনিমুখ চিরতরে বন্ধ করে দেবার



মুজাদ্দিদে আ’যম মামদূহ হযরত মুর্শিদ ক্বিবলা আলাইহিছ ছলাতু ওয়াস সালাম তিনি আমাদেরকে, কায়িনাতবাসীকে সর্বশ্রেষ্ঠ এবং সর্বোত্তম বিষয়সমূহ তা’লীম মুবারক


নূরে মুজাসসাম হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম উনার, উনার মহাসম্মানিত হযরত আব্বা-আম্মা আলাইহিমাস সালাম উনাদের, মহাসম্মানিত হযরত উম্মাহাতুল মু’মিনীন আলাইহিন্নাস সালাম উনাদের এবং মহাসম্মানিত হযরত আহলু বাইত শরীফ আলাইহিমুস সালাম উনাদের অর্থাৎ উনাদের প্রত্যেকের বেমেছাল সম্মানিত শান মুবারক সম্পর্কে



সব সরকার-শাসকদের নছীহত গ্রহণের মাস পবিত্র ছফর শরীফ মাস


পবিত্র ছফর শরীফ মাসটি শুরু হয়েছে। সরকার প্রধানগণ এ সম্মানিত মাস থেকে কতটুকু শিক্ষা গ্রহণ করার প্রস্তুতি নিয়েছেন- তা বুঝা যাচ্ছে না। বিধায় কিছু লিখতে বাধ্য হলাম। বাদশাহ আকবরের পরিচয় জানেন না এমন কোনো সরকার আছেন কিনা তা আমার জানা নেই।



মুসলমানগণ কাদেরকে অনুসরণ করবে, সেটা বিধর্মী-বিজাতীরা বলার কে?


আখিরী যামানা বলে কথা। আসলে আখিরেরও আখির চলতেছে বর্তমানে। নতুবা যেখানে মহান আল্লাহ পাক রাব্বুল ইজ্জত তিনি এবং উনার রসূল, নূরে মুজাসসাম, হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম উনারা পবিত্র কুরআন শরীফ এবং পবিত্র হাদীছ শরীফ উনাদের মাঝে বলে দিয়েছেন-



বাল্যবিবাহ মুক্ত জেলা উপজেলা ঘোষণা করার অন্তরালে আসল রহস্য কি?


ইদানীং পত্র-পত্রিকা-মিডিয়াতে একটি সংবাদ খুব হাইলাইট করে প্রচার করা হয়। সেটা হলো- আজ অমুক জেলা, কাল অমুক উপজেলা কিংবা ইউনিয়নকে বাল্যবিবাহ মুক্ত হিসেবে ঘোষণা করা হয়েছে। অর্থাৎ দ্বীন ইসলাম বিষয়ে জাহিল প্রশাসন এবং বিদেশী বিজাতি এনজিও গং খুব তৎপরতার সাথে জেলা,



সৃষ্টির শুরু থেকে শেষ পর্যন্ত সমস্ত জিন-ইনসানকে জাহান্নামে যত শাস্তি দেয়া হবে, সাইয়্যিদুনা হযরত ইমামুছ ছালিছ মিন আহলি বাইতি


মহাসম্মানিত ও মহাপবিত্র হাদীছ শরীফ উনার মধ্যে ইরশাদ মুবারক হয়েছে- عَنْ حَضْرَتْ عَلِـىِّ بْنِ اَبِـىْ طَالِبٍ عَلَيْهِ السَّلَامُ قَالَ قَالَ رَسُوْلُ اللهِ صَلَّى اللهُ عَلَيْهِ وَسَلَّمَ تُـحْشَرُ ابْنَتِـىْ حَضْرَتْ فَاطِمَةُ عَلَيْهَا السَّلَامُ وَمَعَهَا ثِـيَابٌ مَّصْبُوغَةٌ ۢبِدَمٍ فَتَتَعَلَّقُ بِقَائِمَةٍ مِّنْ قَوَائِمِ الْعَرْشِ



পূজার ছুটি ঐচ্ছিক করুন: অর্থনীতি সচল রাখুন


বাংলাদেশের জনসংখ্যার শতকরা মাত্র ১.৫ ভাগ হিন্দু। এই গুটিকয়েক হিন্দুর জন্য দেশের বিশাল জনসংখ্যাকে ছুটি কাটাতে হয়। অর্থাৎ মাত্র ১.৫ ভাগ হিন্দুর পূজার ছুটিতে দেশের ৯৮ ভাগ জনসংখ্যাকে অলস বসিয়ে রাখায় দেশের অর্থনীতি মারাত্মকভাবে ক্ষতিগ্রস্ত হচ্ছে। এক্ষেত্রে সরকারের উচিত হবে, মাত্র



আশ শাহীদ, আল জাওওয়াদ, যুল হিজরাতাইন, মাহবুবুল্লাহ হযরত যুন নূরাইন আলাইহিস সালাম উনার দানের কারণে মহান আল্লাহ পাক তিনি


বর্ণিত রয়েছে যে, খলীফাতু রসূলিল্লাহ হযরত ছিদ্দীক্বে আকবর আলাইহিস সালাম উনার খিলাফতকালে একবার পবিত্র মদীনা শরীফ উনার মধ্যে দুর্ভিক্ষ দেখা দিলো। বাইতুল মালেও উল্লেখযোগ্য পরিমাণ খাদ্য ছিলো না। ঠিক সেই মুহূর্তে আমীরুল মু’মিনীন সাইয়্যিদুনা হযরত যুন নূরাইন আলাইহিস সালাম উনার একটি



ইমামুল আউওয়াল মিন আহলি বাইতি রসূলিল্লাহি ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম, আমীরুল মু’মিনীন সাইয়্যিদুনা হযরত কাররামাল্লাহু ওয়াজহাহূ আলাইহিস সালাম উনার


হযরত আহলে বাইত শরীফ আলাইহিমুস সালাম উনাদের মর্যাদা সম্পর্কে পবিত্র কালামুল্লাহ শরীফ উনার মধ্যে মহান আল্লাহ পাক তিনি ইরশাদ মুবারক করেন, “(হে আমার হাবীব ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম! আপনি জানিয়ে দিন, আমি তোমাদের নিকট কোনো বিনিময় চাচ্ছি না। আর চাওয়াটাও স্বাভাবিক



সম্মানিত ও পবিত্র ও সম্মানিত রজবুল আছম্ম শরীফ মাস উনার সম্মানিত ১৪ ই শরীফ বিশেষ আইয়্যামুল্লাহ শরীফ


মহান আল্লাহ পাক তিনি ইরশাদ মুবারক করেন- وذكرهم بايام الله ان فى ذلك لايات لكل صبار شكور. অর্থ: আমার হাবীব ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম! আপনি উম্মতকে তথা কায়িনাতবাসীকে মহান আল্লাহ পাক উনার বিশেষ দিনসমূহের কথা স্মরণ করিয়ে দিন। নিশ্চয়ই এতে প্রত্যেক