নুর আলম দেওয়ান -blog


...


 


বাল্য বিবাহ খাছ সুন্নত, বিরোধিতা করা কুফরী


আখিরী রসূল, সাইয়্যিদুল মুরসালীন, ইমামুল মুরসালীন, নূরে মুজাসসাম, হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম তিনি উম্মুল মু’মিনীন হযরত ছিদ্দীক্বা আলাইহাস সালাম উনাকে ছয় (৬) বছর বয়স মুবারকে ‘আক্বদ’ মুবারক করেন। সুবহানাল্লাহ! আর নয় (৯) বছর বয়স মুবারকে হুজরা শরীফে তাশরীফ



পবিত্র ঈমান ধ্বংসে উলামায়ে সূ’রা অনেক কঠিন ও ভয়ঙ্কর ফিতনা


হুজ্জাতুল ইসলাম হযরত ইমাম গাযযালী রহমতুল্লাহি আলাইহি উনার লিখিত বিশ্বখ্যাত কিতাব ‘বিদায়াতুল হিদায়া’তে এসেছে, নূরে মুজাসসাম হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম তিনি ইরশাদ মুবারক করেন- اَنَا مِنْ غَيْرِ الدَّجَّالِ اَخْوَفُ عَلَيْكُمْ مّـِنَ الدَّجَّالِ فَقِيْلَ وَمَا هُوَ يَا رَسُوْلَ اللهِ



পাঠ্যপুস্তকে দ্বীন ইসলাম উনার শিক্ষা ও ঈমানী চেতনা সমৃদ্ধ লেখনী অন্তর্ভুক্ত করতে হবে


জাতীয় শিক্ষাক্রম ও পাঠ্যপুস্তক বোর্ড প্রণীত বইসমূহে সম্মানিত পবিত্র দ্বীন ইসলাম উনার ব্যাপারে প্রচুর ভুল তথ্য তো রয়েছেই; পাশাপাশি রয়েছে পবিত্র দ্বীন ইসলাম উনার প্রতি বিদ্বেষমূলক কথা-বার্তা এবং বহু আক্বীদাগত ও তথ্যগত ভুলের ছড়াছড়ি। এছাড়াও রয়েছে কাফির-মুশরিকদের জীবন ও কর্মের অহেতুক



মাত্র ১.৫ ভাগ সংখ্যালঘুর দুটির জন্য ৯৮ ভাগেরও বেশি বিশাল জনগোষ্ঠীকে বসিয়ে রাখার অর্থ কি?


একটি রাষ্ট্র অর্থনৈতিকভাবে শক্তিশালী হতে হলে তাকে ছুটি দেয়ার সময় অবশ্যই লাভ-ক্ষতির হিসেব কষতে হবে। দেশের সামান্য কিছু লোকের ছুটির প্রয়োজনে গোটা দেশের মানুষের ছুটি দিয়ে দিলে নিয়ম-শৃঙ্খলা বলে কিছু থাকবে না। কেননা একদিন ছুটি দেয়া মানে দেশের অর্থনীতিকে পুরোপুরি অবশ



অশুভ বা কুলক্ষণ বিশ্বাস করা কুফরী


ফক্বীহুল উম্মত হযরত আব্দুল্লাহ ইবনে মাসউদ রদ্বিয়াল্লাহু তায়ালা আনহু তিনি নূরে মুজাসসাম হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম উনার থেকে বর্ণনা করেন। মহান আল্লাহ পাক উনার হাবীব, নূরে মুজাসসাম, হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম তিনি ইরশাদ মুবারক করেন,



নূরে মুজাসসাম হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম উনার প্রতি হাক্বীক্বী মুহব্বত উনার দৃষ্টান্ত স্থাপন করলেন সাইয়্যিদুনা হযরত


এক ব্যক্তি ছিল, তার নাম ছিল বিশর। সে মুসলমান দাবি করতো, হাক্বীক্বত সে ছিল মুনাফিক। এই মুনাফিক বিশরের সাথে এক ইহুদীর সাথে গ-গোল হয়ে যায়। যখন গ-গোল হয়ে গেল, তখন মুনাফিক বিশরকে ইহুদী বললো, হে বিশর এটার বিচার বা ফায়ছালা করতে



২রা রজবুল হারাম শরীফ সাইয়্যিদুনা হযরত ক্বাসিম আলাইহিস সালাম বিছাল শরীফ গ্রহণ করেন


: এই দিনে সাইয়্যিদুল মুরসালীন, ইমামুল মুরসালীন, নূরে মুজাসসাম, হাবীবুল্লাহ, হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম উনার মহাসম্মানিত প্রথম আওলাদ সাইয়্যিদুনা হযরত ক্বাসিম আলাইহিস সালাম বিছাল শরীফ গ্রহণ করেন পৃথিবীর ইতিহাসে এক মহাস্মরণীয় এক দিন হচ্ছে ২রা রজবুল হারাম। এই দিনে



সন্ত্রাসীদের বইকে ‘জিহাদী বই’ না বলে ‘সন্ত্রাসী বই’ বলতে হবে


অমুসলিম তথা ইসলামবিদ্বেষীদের একটা বড় ধরনের কুট-কৌশল হলো পবিত্র ইসলামের বিভিন্ন বিষয়গুলোকে বিকৃত করা কটাক্ষ করা ও হেয় করে বিভিন্ন সংবাদ মাধ্যমে লেখালেখির মাধ্যমে প্রকাশ করা। তারই একটা ঘৃণ্য উদাহরণ হলো- উগ্র সন্ত্রাসীদের বইগুলোকে ‘সন্ত্রাসী বই’ বলে না বলে ‘জিহাদী বই’



দেশের চলমান ‘শিক্ষানীতি’ কিভাবে ইসলাম ও মুসলমানদের হতে পারে?


দেশের বর্তমান শিক্ষানীতি অনুযায়ী যে সকল পাঠ্যবই প্রণীত হয়েছে, সেখানে পড়ানো এমন কিছু বিতর্কিত বিষয় পড়ানো হচ্ছে যেগুলো কোনোভাবেই ইসলাম সমর্থন করে না। বরং ওই সকল পাঠবইয়ের গল্প, কবিতা, রচনাগুলো মুসলমানদের ঈমান ও মুসলমানিত্বকেই বিনষ্ট করে দিচ্ছে। পাঠ্যবইগুলোর অর্ন্তভুক্ত রচনা, কবিতা



হযরত আব্দুল্লাহ ইবনে উমর রদ্বিয়াল্লাহু তায়ালা আনহু উনার সুমহান কয়েকটি উপদেশ


  সম্মানিত দ্বীন ইসলাম উনাকে গ্রহণে অগ্রগামী, দুনিয়া বিরাগী, আখিরাতের প্রতি অনুরাগী, পরহেজগার, মহাজ্ঞানী, চিন্তাশীল, সম্মানিত দ্বীন উনার ব্যাপারে সাবধানতা অবলম্বনকারী, নূরে মুজাসসাম, হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম উনার আশিক, পবিত্র সুন্নত উনার একনিষ্ঠ অনুসারী, পদের মোহমুক্ত, ইবাদতগুজার, দানশীল-দানবীর,



দেওবন্দীরা কেন হিন্দু হবে না?


(১) দেওবন্দীরা (২০০৮ এবং ২০১১ সালে) ফতওয়া দেয় “গরু কুরবানী করা যাবে না, কারণ গরু হিন্দুদের দেবতা।” (নাউযুবিল্লাহ) (২) দেওবন্দ মাদরাসার ২৯তম বার্ষিকীতে কাট্টা গোঁড়া হিন্দু ঠাকুর রবি সঙ্করকে প্রধান অতিথি বানায়। নাঊযুবিল্লাহ! (৩) দেওবন্দ মাদরাসার ৩০তম বার্ষিকীতে তারা আরেক কাট্টা



হযরত ইমাম হুসাইন আলাইহিস সালাম তিনি ছিলেন মহান আল্লাহ পাক উনার রসূল হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম উনার


  হযরত আল্লামা জামী রহমতুল্লাহি আলাইহি তিনি বর্ণনা করেন, একদিন নূরে মুজাসসাম, হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম তিনি হযরত ইমাম হুসাইন আলাইহিস সালাম উনাকে ডানে ও স্বীয় ছাহিবযাদা হযরত ইবরাহীম আলাইহিস সালাম উনাকে বামে বসিয়েছিলেন। এমতাবস্থায় হযরত জিবরীল আলাইহিস