মারুফ -blog


...


 


মহাপবিত্র সাইয়্যিদুল আইয়াদ শরীফ উপলক্ষে সাইয়্যিদু সাইয়্যিদিল আ’দাদ মহাসম্মানিত ১২ই শরীফ উনার সম্মানার্থে রাজারবাগ দরবার শরীফ উনার আযীমুশ শান


-কোটি কোটি কণ্ঠে একযোগে বিশ্বজুড়ে মীলাদ শরীফ পাঠ -সুসজ্জিত পরিবহনে শহর প্রদক্ষিণ এবং বিভিন্ন স্থানে তাবারুক বিতরণ -গরু, খাসী, মহিষ জবেহের মাধ্যমে বিশেষ আক্বীকা মুবারক আহলু বাইতে রসূলিল্লাহ, মুজাদ্দিদে আযম সাইয়্যিদুনা হযরত ইমামুল উমাম আলাইহিস সালাম উনার এক অনন্য বেমেছাল তাজদীদ



ছাহাবায়ে কিরাম রদ্বিয়াল্লাহু তায়ালা আনহুম উনারা উম্মাহ’র অনুসরনীয় আদর্শ 


পবিত্র কালামুল্লাহ শরীফ উনার মধ্যে ইরশাদ মুবারক হয়েছে- رَضِيَ اللَّـهُ عَنْهُمْ وَرَضُوا عَنْهُ অর্থাৎ মহান আল্লাহ পাক তিনি উনাদের (হযরত ছাহাবায়ে কিরাম রদ্বিয়াল্লাহু তায়ালা আনহুম) প্রতি সন্তুষ্ট এবং উনারাও মহান আল্লাহ পাক উনার সন্তুষ্টি মুবারক যথাযথভাবে অর্জন করতে পেরেছেন। (পবিত্র সূরা



পবিত্র মসজিদ শরীফ উনার মধ্যে নামায পড়ার নামে টুল বা চেয়ারে বসা বিদয়াত


ইদানীং বিশেষ করে বেশ কয়েক বৎসর যাবৎ দেখা যাচ্ছে- খালিক মালিক্ব রব মহান আল্লাহ পাক উনার ঘর পবিত্র মসজিদ শরীফ উনার মধ্যে নামায পড়ার নামে কতিপয় মুসল্লী বিশেষ করে সমাজের প্রভাবশালী ব্যক্তি ও মসজিদ কমিটির লোকজনের কেউ কেউ টুল কিংবা চেয়ারে



বিষাক্ত জিএম শস্য কেন নিষিদ্ধ হচ্ছে না, এ দেশের সরকার কি জিএম ফুড বিষয়ে অজ্ঞ?


বর্তমান বিশ্বের প্রায় সব দেশই বিষাক্ত বিকৃত জিন বা জিএম (জেনেটিক্যাল মডিফাইড) শস্য কঠোরভাবে নিষেধাজ্ঞা করছে। ইউরোপের ২৬টি দেশের মধ্যে ১৯টি দেশে জিএম শস্য চাষ নিষিদ্ধ। ফিলিপাইনে গোল্ডেন রাইস ব্যা- করার জন্য সাধারণ জনগণ আন্দোলন পর্যন্ত করেছে। ভারতে প্রবল বিতর্ক এবং



মহান আল্লাহ পাক উনার ওলীগণ উনাদেরকে মুহব্বত করো, কেননা উনারা কবুলকৃত আর উনাদের প্রতি বিদ্বেষ পোষণ করো না, কেননা


মহান আল্লাহ পাক রব্বুল আলামীন উনার ওলী তথা বন্ধুগণ উনারা মহান আল্লাহ পাক উনার নিকট মনোনীত ও মকবুলকৃত। ওলীআল্লাহগণ উনাদের পরিচয় মুবারক হলো- উনারা মহান আল্লাহ পাক উনাকে অধিক ভয় করেন। উনারা কখনো সম্মানিত শরীয়ত উনার বিরোধী কোনো কাজ করেন না,



ইয়াযীদ ও তার বাহিনী এখনো সমাজে বিদ্যমান ॥ আর এরাই উলামায়ে ‘সূ’ তথা ধর্মব্যবসায়ী মালানা


পবিত্র মুহররমুল হারাম শরীফ মাস আসলেই ধর্মপ্রাণ মুসলমানগণ উনাদের মন ভারাক্রান্ত হয়ে উঠে। স্মৃতিতে ভেসে উঠে পবিত্র কারবালা উনার হৃদয় বিদারক ঘটনা। এমন ঘটনা মানবজাতির ইতিহাসে দ্বিতীয় আর একটিও নেই। খিলাফতের দাবি সাইয়্যিদুনা হযরত ইমামুছ ছালিছ মিন আহলি বাইতি রসূলিল্লাহি ছল্লাল্লাহু



ইদানীং পূজা নিয়ে সরকারের এত মেতে উঠার কারণ কি?


বাংলাদেশে শতকরা মাত্র প্রায় ১.৫ ভাগ হিন্দুর বাস। প্রতিবছর দুর্গাপূজার সময় সাধ্যাতীত আস্ফালন করা হয় এ পূজা নিয়ে। এক সপ্তাহ ঢাক-ঢোলের আওয়াজে অতিষ্ঠ করে রাখে পূজামন্ডপ এলাকা। হারাম পূজার প্রসাদ বিতরণ করে মুসলমানগণের মধ্যেও। সরলপ্রাণ সাধারণ মুসলমানগণ না বুঝে এ হারাম



মুসলমানদের জন্য সম্মানিত কুরবানী উনার মাসয়ালা মাসায়িল শিক্ষা করা ওয়াজিব


সম্মানিত শরীয়ত উনার পরিভাষায় খালিক মালিক রব মহান আল্লাহ পাক উনার নৈকট্য ও সন্তুষ্টি লাভের উদ্দেশ্যে মহান আল্লাহ পাক উনার নামে নির্দিষ্ট তারিখে নির্দিষ্ট নিয়মে নির্দিষ্ট প্রাণী যবেহ করার নাম পবিত্র কুরবানী। অর্থাৎ পবিত্র যিলহজ্জ শরীফ মাস উনার ১০, ১১ ও



ইমামুল উমাম সাইয়্যিদুনা হযরত মুজাদ্দিদে আ’যম আলাইহিস সালাম উনার জান্নাতী বাগান মুবারক উনার অন্যতম সুবাসিত ফুল হচ্ছেন শাফিউল উমাম


মহান আল্লাহ পাক তিনি ইরশাদ মুবারক করেন, اطيعوا الله و اطيعوا الرسول و اولى الامر منكم- অর্থ: তোমরা খালিক মালিক রব মহান আল্লাহ পাক উনাকে এবং নূরে মুজাসসাম, হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম উনাকে এবং তোমাদের মধ্যে যাঁরা উলিল



পহেলা বৈশাখ পালন করা কেন হারাম ??


নবী করিম সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম হিজরতের পর মদীনা শরীফ গিয়ে ঐ এলাকাবাসীর দুটি উৎসব বন্ধ করেছিলেন। একটি হচ্ছে, বছরের প্রথম দিন উদযাপন বা নওরোজ; অন্যটির নাম ছিলো ‘মিহিরজান’। এ উৎসবের দুটির বিপরীতে চালু হয় মুসলমানদের দুই ঈদ। (তাফসিরসমূহ দেখতে পারেন)



সাইয়্যিদাতুন নিসা, উম্মু আবীহা, আন নূরুর রবিয়াহ, সাইয়্যিদাতুনা হযরত যাহরা আলাইহাস সালাম উনার বেমেছাল খিদমত মুবারক


সাইয়্যিদুল মুরসালীন, ইমামুল মুরসালীন নূরে মুজাসসাম, হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম উনার নুবুওওয়াত প্রকাশের ষষ্ঠ বছর পর যখন রিসালতের ই’লান মানুষের কাছে দিয়ে যাচ্ছেন; তখনও কুরাঈশবাসী এবং অন্যান্য লোকেরা নূরে মুজাস্সাম, হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম উনার



সাইয়্যিদাতুনা হযরত নিবরাসাতুল উমাম আলাইহাস সালাম উনার সন্তুষ্টি মুবারক উনার মধ্যেই মামদূহ হযরত মুর্শিদ ক্বিবলা আলাইহিস সালাম উনার সন্তুষ্টি


যিনি খালিক্ব মালিক রব মহান আল্লাহ পাক তিনি পবিত্র কালামুল্লাহ শরীফ উনার মধ্যে ইরশাদ মুবারক করেন, قُلْ لَا أَسْأَلُكُمْ عَلَيْهِ أَجْرًا إِلَّا الْمَوَدَّةَ فِي الْقُرْبى অর্থ: “হে আমার হাবীব, সাইয়্যিদুল মুরসালীন, ইমামুল মুরসালীন, নূরে মুজাসসাম, হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া