মারুফ -blog


...


 


যুগে যুগে উলামায়ে ‘সূ’রা পবিত্র দ্বীন ইসলাম উনার চরম ক্ষতি করেছে


শের শাহ শূরীর নিকট পরাজিত সম্রাট আকবরের পিতা সম্রাট হুমায়ূন যখন সপরিবারে পলায়ন করছিল, তখন বর্তমান পাকিস্তানের অমরকোটে এক রাজপ্রাসাদে আকবরের জন্ম। প্রথম জীবনে লেখাপড়ার সুযোগ না পেলেও বৈরাম খাঁর নিকট যুদ্ধ বিদ্যায় হাতেখড়ি তার। অপরিণত বয়সেই তাকে সাম্রাজ্যের দায়িত্ব নিতে



ইমামুল আউওয়াল মিন আহলি বাইতি রসূলিল্লাহ ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম বাবুল ইলিম ওয়াল হিকাম সাইয়্যিদুনা হযরত কাররামাল্লাহু ওয়াজহাহূ আলাইহিস


নাম মুবারক হযরত আলী আলাইহিস সালাম। উপনাম আবূল হাসান ও আবূ তুরাব। পিতার নাম আবূ তালিব। মাতার নাম ফাতিমা বিনতে আসাদ। বিশেষ উপাধি আসাদুল্লাহ, হায়দার, মুরতাজা। তিনি আব্দুল্লাহ নামে প্রসিদ্ধ। তিনি নূরে মুজাসসাম, হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম উনার



সবাই সাবধান!! পবিত্র কুরবানী ঈদ আসলেই ‘মোটাতাজা গরুতে বিষ রয়েছে’ এমন মিথ্যা গুজব ছড়াতে তৎপর হয় ইসলামবিদ্বেষীরা


  পবিত্র কুরবানী ঈদ আসলে একটি ইসলামবিদ্বেষী মহল মুসলমান উনাদের গরু কুরবানী থেকে বিরত রাখতে ‘মোটাতাজা গরুতে বিষ রয়েছে’- এমন মিথ্যা গুজব রটিয়ে থাকে। অথচ গরু মোটাতাজাকরণে যেসব ওষুধ প্রয়োগ করা হয়, তার মাধ্যমে মনুষ্য শরীরে ক্ষতি হওয়ার কোনো সম্ভবনাই থাকে



বাংলাদেশের শিক্ষা সেক্টরে হিন্দু ও নাস্তিকদের আস্তানা এবং রমজানে পরীক্ষার শিডিউল


প্রথম প্রথম যখন লিখতাম- “পাঠ্যপুস্তকে হিন্দু ও নাস্তিক্যবাদীদের গভীর ষড়যন্ত্র আছে”, যখন অনেক মুসলমানই এসে আমাকে কটাক্ষ করতো। বলতো- “আপনি মনে হয় বেশি বুঝেন।” “এত মানুষ পড়ে কেউ বুঝলো না, কিন্তু আপনি বুঝে গেলেন?” ইত্যাদি ইত্যাদি। কিন্তু কিছু দিন লিখতেই- অনেকেই



যারা পবিত্র লাইলাতুল বরাত উনার ফযীলত সম্পর্কে চু-চেরা করবে, তারা কাট্টা কাফির ও চিরজাহান্নামী হয়ে যাবে


‘বরাত’ উনার বরকতময় রাতটির বর্ণনা স্বয়ং মহান আল্লাহ পাক রব্বুল আলামীন উনার কালাম পাক উনার মধ্যে ঘোষণা করেছেন। এ প্রসঙ্গে মহান আল্লাহ পাক তিনি ইরশাদ মুবারক করেন, “নিশ্চয়ই আমি বরকতময় রজনীতে (লাইলাতুল বরাতে) পবিত্র কুরআন শরীফ নাযিল করার সিদ্ধান্ত নিয়েছি। নিশ্চয়ই



আপনি কি জানেন কোন্ তিন ব্যক্তি যুগযুগ ধরে পবিত্র দ্বীন ইসলাম উনার ক্ষতিসাধন করে আসছে?


একদিন পবিত্র দ্বীন ইসলাম উনার ২য় খলীফা সাইয়্যিদুনা হযরত ফারূক্বে আ’যম আলাইহিস সালাম তিনি হযরত যিয়াদ বিন হুদাইর রহমতুল্লাহি আলাইহি উনাকে বললেন, আপনি কি জানেন কোন্ ব্যক্তি বা কারা পবিত্র দ্বীন ইসলাম উনার ক্ষতিসাধন করে থাকে। তখন তিনি বললেন, আমার সেটা



পিস টিভির ভাষ্যকার জাকির নায়েক ওরফে কাফির নায়েকের কুফরী আক্বীদা ও মতবাদ 


২৫. হিন্দুদের ‘বেদ’ মহান আল্লাহ পাক উনার বাণী হতে পারে। নাউযুবিল্লাহ! (জাকির নায়েক লেকচার সমগ্র – ভলিয়ম – ২,১৬২ পৃষ্ঠা) ২৬. পবিত্র কুরআন শরীফ উনার মধ্যে ব্যাকরণগত ভুল আছে। নাউযুবিল্লাহ! (জাকির নায়েক লেকচার সমগ্র- ভলিয়ম- ১,৫১২ পৃষ্ঠা) www. youtube.com/wateh?v = ytfrj6prjqu



সম্মানিত ইসলামী শরীয়ত উনার দৃষ্টিতে- শায়েখ বা মুর্শিদ ক্বিবলা, পিতা-মাতা, উস্তাদ অর্থাৎ সম্মানিত দ্বীনদার পরহেযগার ব্যক্তি উনাদের ক্বদমবুছী বা


বাতিল ফিরক্বা ওহাবী খারিজী লা-মাযহাবী জামাতী দেওবন্দী তাবলীগী- এরা সকলেই পবিত্র সুন্নত আমল ক্বদমবুছী উনাকে নাজায়িয, বিদয়াত ও শিরক বলে থাকে। নাউযুবিল্লাহ! যদিও তারা তাদের বক্তব্যের স্বপক্ষে নির্ভরযোগ্য কোনো দলীল পেশ করতে পারেনি এবং ক্বিয়ামত পর্যন্ত পারবেও না ইনশাআল্লাহ! কেননা ক্বদমবুছী



আপনী জানেন কি, আপনী একটি অঘোষিত মনস্তাত্ত্বিক যুদ্ধের শিকার? 


ফিলিস্তিনের অধিবাসীরা জানে, তারা যুদ্ধের শিকার। কারণ তাদের কান সবসময় বোমা বিস্ফোরণের শব্দ শুনতে পায়। তাদের নাকের সামনে অক্সিজেনও গোলা বারুদের গন্ধ নীয়ে আসে। ইয়েমেনের বাসিন্দারাও জানে তারা যুদ্ধবন্ধি নাগরিক। যেকোন সময় বোমার আঘাতে তাদের প্রাণ চলে যেতে পারে। কিন্তু আপনী



প্রসঙ্গ: পরপর দুইজন বিদেশী নাগরিক নিহত ॥ দেশে বড় ধরনের অরাজকতা সৃষ্টির চক্রান্ত চলছে! প্রশাসনকে এ চক্রান্ত নস্যাৎ করতে


সম্প্রতি রংপুরে এক জাপানী নাগরিককে গুলি করে হত্যা করা হয়েছে। তারও কিছুদিন আগে ঢাকার গুলশানে হত্যাকাণ্ডের শিকার হয়েছে এক ইটালীয় নাগরিক। আর এ দুটি ঘটনার পর বিদেশীদের চাপ আসতে শুরু করেছে। কারণ এই ঘটনার পেছনে সাম্রাজ্যবাদীদেরই হাত রয়েছে। তারা পরিকল্পিতভাবে এই



পবিত্র কুরবানীর পশু ছুরি দিয়ে নিজ হাতে যবেহ করা খাছ সুন্নত মুবারক উনার অন্তর্ভুক্ত।


  আর মেশিনের সাহায্যে যবেহ করলে যবেহ দুরুস্ত হবে না, ফলে কুরবানী বাতিল হবে। সম্মানিত ইসলামী শরীয়ত উনার দৃষ্টিতে- পবিত্র কুরবানীর পশু ছুরি দিয়ে নিজ হাতে যবেহ করা খাছ সুন্নত মুবারক উনার অন্তর্ভুক্ত। আর মেশিনের সাহায্যে যবেহ করলে যবেহ দুরুস্ত হবে



আধুনিক ঈশপের গল্প


সেই গল্পটা মনে আছে? সেই যে ঈশপের মিথ্যাবাদী রাখালের গল্পটা। এক রাখাল বালক প্রতিদিন বাঘ এসেছে, বাঘ এসেছে বলে চিৎকার করত আর গ্রামের সব মানুষ ছুটে আসত তাকে বাঁচানোর জন্য। রাখাল বালক মানুষের নির্বুদ্ধিতা দেখে হাসত, আর নিজেকে খুব চালাক মনে