মেঠোপথ -blog


...


 


মাহে মুহররমুল হারাম শরীফ উনার বিশেষ বিশেষ আইয়্যামুল্লাহ শরীফসমূহ


১ মুহররমুল হারাম: আমিরুল মুমিনীন, খলীফায়ে ছালিছ, সাইয়্যিদুনা হযরত যুন নূরাইন আলাইহিস সালাম উনার খিলাফত মুবারক গ্রহণ দিবস। ২ মুহররমুল হারাম: সাইয়্যিদুনা যবিহুল্লাহ হযরত আবু রসূলিল্লাহ ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম উনার পবিত্র বিছালী শান মুবারক প্রকাশ দিবস। ৫ মুহররমুল হারাম: ক)



হাক্বীক্বী পর্দা করা ফরয, অথচ এ সম্পর্কে মুসলিম জাতি বড়ই বেখবর


অনেক মহিলা এমন আছে, পাঁচ ওয়াক্ত নামায পড়ে রোযা রাখে এমনকি অনেক নফল ইবাদত করে থাকে, কিন্তু পর্দাকে কোন গুরুত্ব দেয় না। এর মধ্যে অনেকে বোরকা পরেনা, অনেকে বোরকা পরেও বোরকা না পরার সমান। কারণ এই বোরকাতে তাদের দেহের আকৃতি সম্পূর্ণ



চিকিৎসা বিজ্ঞানের দোহাই দিয়ে খাছ সুন্নত অল্প বয়সে বিবাহের বিরুদ্ধাচরণ করা অপপ্রচার মাত্র। মুসলিম সমাজে অশ্লীলতা, বেহায়াপনা, নোংরামী, অনৈতিকতা


অল্প বয়সে বিবাহ ব্যাপারে পৃথিবীর সকল ধর্মের মানুষ এখন যেন দায়ভার সম্মানিত ইসলাম উনার উপর চাপিয়ে দেবার প্রতিযোগিতায় নেমেছে। আর এই অসুস্থ প্রচারণার শিকার হয়ে আজ এমনকি মুসলিমরাও এর বিরুদ্ধে বলতে শুরু করেছে অথবা নানাভাবে একে পাশ কাটিয়ে যেতে চাইছে। নাউযুবিল্লাহ!



পবিত্র শবে বরাত শরীফ উনার একটি খাছ আমল ‘ছলাতুত তাসবীহ’ নামায


পবিত্র হাদীছ শরীফ উনার মধ্যে বর্ণিত রয়েছে, হযরত আব্দুল্লাহ ইবনে আব্বাস রদ্বিয়াল্লাহু তায়ালা আনহু তিনি বর্ণনা করেন, একদা মহান আল্লাহ পাক উনার হাবীব হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম তিনি আমার পিতা হযরত আব্বাস আলাইহিস সালাম উনাকে বললেন, “হে আমার চাচা



পবিত্র রজবুল হারাম মাসে ইবাদতের পুরস্কার


হিজরী পঞ্চম শতাব্দীর মুজাদ্দিদ, হুজ্জাতুল ইসলাম হযরত ইমাম গাযযালী রহমতুল্লাহি আলাইহি তিনি উনার সুপ্রসিদ্ধ ‘মুকাশাফাতুল কুলূব’ কিতাবে বর্ণনা করেন, “এক মহিলা রজব মাসে প্রতিদিন বাইতুল মুকাদ্দাস শরীফ-এ গিয়ে বারো হাজারবার সূরা ইখলাছ পাঠ করতেন। উনার আদত ছিল, রজব মাসে তিনি নিয়মিত



বাংলাদেশের সরকারের জন্য ফরয- প্রতিটি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে, প্রতিটি সিলেবাসে দ্বীন ইসলাম মুতাবিক পাঠদানের যথাযথ ব্যবস্থা গ্রহণ করা


বাংলাদেশ হচ্ছে ৯৮ ভাগ মুসলমান অধ্যুষিত একটি দেশ। এখানকার রাষ্ট্রদ্বীন সম্মানিত দ্বীন ইসলাম। আর সম্মানিত দ্বীন ইসলাম সম্পর্কে মহান আল্লাহ পাক তিনি ইরশাদ মুবারক করেন- “নিশ্চয় সম্মানিত দ্বীন ইসলাম হচ্ছে পরিপূর্ণ জীবন ব্যবস্থা।” আর মহান আল্লাহ পাক তিনি নূরে মুজাসসাম, হাবীবুল্লাহ



পবিত্র আখিরী চাহার শোম্বাহ শরীফ পালনে মুসলিম বিশ্বের সরকারগুলোকে বিশেষ মনোযোগী হতে হবে


পবিত্র ছফর মাস উনার শেষ ইয়াওমুল আরবিয়া বা বুধবার দিন ইসলামের ইতিহাসে একটি উল্লেখযোগ্য তাৎপর্যময় ঘটনার ঐতিহাসিক দিন। এ সম্পর্কে একমতে বর্ণিত আছে, মাহবুব-ই ইলাহী হযরত নিযামুদ্দীন আউলিয়া রহমতুল্লাহি আলাইহি উনার শায়েখ হযরত বাবা ফরিদউদ্দিন মাসউদ গঞ্জে শকর রহমতুল্লাহি আলাইহি উনার



পবিত্র ঈদে মীলাদে হাবীবুল্লাহ ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম পালনের যারা বিরোধিতা করে তারা কিভাবে ঈমানদার-মুসলমান হতে পারে


পবিত্র কালিমা শরীফ ‘লা ইলাহা ইল্লাল্লাহু মুহাম্মাদুর রসূলাল্লাহ’ ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম ঈমান আনয়নের জন্য পাঠ করতে হয়, মনে প্রাণে মেনে নিতে হয়, সেই পবিত্র কালিমা শরীফ উনার প্রথমাংশ ‘লা ইলাহা ইল্লাল্লাহ’ প্রকাশ ঘটতো না যদি না শেষাংশ হতো। তাহলে লা



হাশরের ময়দানে ৫টি সুওয়ালের জাওয়াব না দেয়া পর্যন্ত কেউই তার ক্বদম নড়াতে পারবে না


পবিত্র হাদীছ শরীফ উনার মধ্যে বর্ণিত রয়েছে, সাইয়্যিদুল আম্বিয়া ওয়াল মুরসালীন, ইমামুল আম্বিয়া ওয়াল মুরসালীন, খাতামুন নাবিইয়ীন, নূরুম মুজাসসাম, হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম তিনি ইরশাদ মুবারক করেন, হযরত আদম আলাইহিস সালাম উনার কোনো সন্তান অর্থাৎ কোনো মানুষ হাশরের



এক নজরে উম্মুল মু’মিনীন সাইয়্যিদাতুনা আছ ছানিয়াহ্ ‘আশার আলাইহাস সালাম উনার সম্মানিত পরিচিতি মুবারক


উম্মুল মু’মিনীন সাইয়্যিদাতুনা আছ ছানিয়াহ্ ‘আশার আলাইহাস সালাম তিনি হচ্ছেন হযরত উম্মাহাতুল মু’মিনীন আলাইহিন্নাস সালাম উনাদের মধ্যে বিশেষ ব্যক্তিত্বা মুবারক। সুবহানাল্লাহ! ১৩ জন হযরত উম্মাহাতুল মু’মিনীন আলাইহিন্নাস সালাম উনাদের মধ্যে সাইয়্যিদুল মুরসালীন, ইমামুল মুরসালীন, খাতামুন নাবিয়্যীন, নূরে মুজাসসাম হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক



সুমহান পবিত্র ১৪ই যিলক্বদ শরীফে: এক মহান নূর মুবারক উনার তাশরীফ


১৪ই যিলক্বদ শরীফ সেই মহান নূরে মুবারক উনার তাশরীফ; যেই নূর মুবারক ছিলেন খালিক্ব মালিক রব মহান আল্লাহ পাক উনার কুদরত মুবারক উনার মধ্যে। যেই নূর মুবারক রসূল পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম উনার পবিত্র বংশ মুবারক থেকে প্রকাশিত। সেই নূর



মহাসম্মানিত ও মহাপবিত্র আইয়্যামুল্লাহ শরীফ উনাদের সম্মানিত পরিচিতি মুবারক


اَيَّامٌ (আইয়্যাম) শব্দ মুবারকখানা يَوْمٌ (ইয়াওম্) শব্দ মুবারক উনার বহুবচন। অর্থ দিনসমূহ। আর শব্দ মুবারকখানা লফযে আল্লাহ (اللهُ শব্দ মুবারক) উনার সাথে ইযাফত হয়ে হয়েছেন- اَيَّامُ اللهِ (আইয়্যামুল্লাহ্)। সুবহানাল্লাহ! اَيَّامُ اللهِ (আইয়্যামুল্লাহ্) উনার অর্থ হচ্ছেন যিনি খালিক্ব মালিক রব মহান আল্লাহ