মুহিউদ্দীন -blog


...


 


শরীয়ত বিরোধী ইজতিহাদ করা ইবলিসের খাছলত ও সুস্পষ্ট গোমরাহী 


  আবুল বাশার হযরত ছফিউল্লাহ আলাইহিস সালাম উনাকে সিজদা না করার কারণে মহান আল্লাহ পাক তিনি ইবলীসকে জিজ্ঞাসা করলেন, مَا مَنَعَكَ أَلَّا تَسْجُدَ إِذْ أَمَرْتُكَ অর্থ:- “(হে ইবলীস) কোন জিনিস সিজদা করা থেকে তোকে বিরত রাখলো।” (পবিত্র সূরা আরাফ শরীফ, পবিত্র



সন্ত্রাসী উপজাতিদের এ দেশ থেকে বিতাড়িত করলেই পাহাড়ে শান্তি ফিরে আসবে


বাংলাদেশের স্বাধীনতার পূর্ব থেকেই বার্মা, নেপাল, ভারত প্রভৃতি দেশ থেকে আসা উপজাতিরা বাংলাদেশের পাহাড়গুলোতে খুঁটি গেড়েছিল। তৎকালীন সরকারের উচিত ছিল এগুলোকে আশ্রয় না দিয়ে বিতাড়িত করা। কিন্তু সেটা না করায় আজ অবধি এর যন্ত্রণার ফল ভোগ করছে দেশের সরকার ও জনগণ।



তারা সেই জাতি- যারা পূর্ব থেকেই লুটেরা, ডাকাত ও দস্যু


ইংরেজ নৌদস্যুদের লিডার ‘ক্লাইভ’ পলাশীর যুদ্ধ শেষে মীর জাফরের কাছ থেকে ২ লাখ ৩৪ হাজার পাউন্ড আত্মসাৎ করে রাতারাতি ইংল্যান্ডের ধনীতে পরিণত হয়।” (সূত্র-পি. রবার্টস, হিস্টরী অব ব্রিটিশ ইন্ডিয়া, পৃষ্ঠা ৩৮।) ১) ১৭৫৭ থেকে ১৭৬৫ সাল পর্যন্ত মাত্র কয়েক বছরে শুধুমাত্র



ছিঃ রবীন্দ্র! তোমার বংশপরিচয় এমন?


তথাকথিত ‘বিশ্বকবি’ রবীন্দ্র ঠগের পরিবারকে ‘জমিদার’ হিসেবেই কিছু বইয়ে লেখা হয়। এই রবীন্দ্র পরিবারের প্রশংসায় একশ্রেণীর লোকদের বাড়াবাড়িও লক্ষ্যণীয়। কিন্তু ‘অতিভক্তি চোরের লক্ষণ’ এই বাক্যটির মতোই এসব অতিভক্তি প্রকাশের পিছনে যে রবীন্দ্রদের বিশাল কলঙ্কিত অধ্যায় আড়াল করাই মুখ্য উদ্দেশ্য সেটা হুজুগে



সাইয়্যিদাতুন নিসায়ি ‘আলাল আলামীন, সাইয়্যিদাতু নিসায়ি আহলিল জান্নাহ, উম্মু আবীহা, সাইয়্যিদাতুনা হযরত আন নূরুছ ছালিছাহ আলাইহাস সালাম উনার


যিনি খলিক্ব মালিক রব মহান আল্লাহ পাক তিনি ইরশাদ মুবারক করেন, وَالطَّيِّبَاتُ لِلطَّيِّبِينَ وَالطَّيِّبُونَ لِلطَّيِّبَاتِ অর্থ: “পবিত্র পুরুষগণ উনাদের জন্য পবিত্রা নারীগণ আর পবিত্রা নারীগণ উনাদের জন্য পবিত্র পুরুষগণ উনাদেরকে তৈরি করা হয়েছে”। সুবহানাল্লাহ! (সম্মানিত সূরা নূর শরীফ: পবিত্র আয়াত শরীফ



হযরত উম্মাহাতুল মু’মিনীন আলাইহিন্নাস সালাম উনারা একমাত্র মহান আল্লাহ পাক তিনি এবং উনার হাবীব, নূরে মুজাসসাম হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক


মহান আল্লাহ পাক তিনি ইরশাদ মুবারক করেন, اِنَّـمَا يُرِيْدُ اللهُ لِيُذْهِبَ عَنْكُمُ الرِّجْسَ اَهْلَ الْبَيْتِ وَيُـطَـهِّـرَكُمْ تَطْهِيْرًا. অর্থ: “হে মহাসম্মানিত ও মহাপবিত্র হযরত আহলু বাইত শরীফ আলাইহিমুস সালাম! নিশ্চয়ই মহান আল্লাহ পাক তিনি চান আপনাদের থেকে সমস্ত প্রকার অপবিত্রতা দূর করে



মুসলমানদের জন্য সতর্কবাণী


সাইয়্যিদুল মুরসালীন, ইমামুল মুরসালীন, নূরে মুজাসসাম, হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম তিনি ইরশাদ মুবারক করেন, “প্রত্যেক ছবি তুলনেওয়ালা জাহান্নামী।” নাউযুবিল্লাহ। এই পবিত্র হাদীছ শরীফ থেকে বুঝা যাচ্ছে যে, যারা ছবি তুলবে তারা জাহান্নামী হবে। আর প্রাণীর ছবি আঁকা, রাখা,



নূরে মুজাসসাম হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম তিনি যখন সম্মানিত বেহেশতী সুঘ্রাণ মুবারক গ্রহণ করার ইচ্ছা মুবারক


যখন নূরে মুজাসসাম হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম তিনি সম্মানিত জান্নাত মুবারক উনার প্রতি আগ্রহী হতেন তথা সম্মানিত বেহেশতী সুঘ্রাণ মুবারক গ্রহণ করার ইচ্ছা মুবারক প্রকাশ করতেন, তখন সাইয়্যিদাতু নিসায়ি ‘আলাল আলামীন আন নূরুর রবি‘য়াহ সাইয়্যিদাতুনা হযরত যাহরা আলাইহাস



সাইয়্যিদাতুন নিসা ‘আলাল আলামীন, সাইয়্যিদাতু নিসায়ি আহলিল জান্নাহ, উম্মু আবীহা, খইরু বানাতি রসূলিল্লাহ ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম সাইয়্যিদাতুনা হযরত


উম্মু আবীহা, আফদ্বলু বানাতি রসূলিল্লাহ ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম সাইয়্যিদাতুনা হযরত আন নূরুল ঊলা আলাইহাস সালাম তিনি সাইয়্যিদুনা হযরত আন নূরুল আউওয়াল আলাইহিস সালাম উনার পর নূরে মুজাসসাম হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম উনার আনুষ্ঠানিকভাবে সম্মানিত নুবুওওয়াত মুবারক ও



সম্মানিত ইলম উনার গুরুত্ব ও ফযীলত


খালিক্ব মালিক রব মহান আল্লাহ পাক উনার অসংখ্য নিয়ামতসমূহ উনার মধ্যে সম্মানিত ইলম মুবারক হচ্ছেন অন্যতম। প্রবাদ বাক্যে রয়েছে ইলমহীন ব্যাক্তি পশুর সমান। কিতাবে আরও উল্লেখ রয়েছে জ্ঞানহীন বন্ধুর চেয়ে জ্ঞানী শত্রুও ভালো। ইলম অর্জন করা ছাড়া জিন ইনসান খালিক্ব মালিক



আসমাউর রিজাল, জারাহ ওয়াত তা’দীল, উছুলে হাদীছ শরীফ উনার অপব্যাখ্যা করে অসংখ্য ছহীহ হাদীছ শরীফ উনাকে জাল বলছে ওহাবী


সবাই কি জারাহ করার যোগ্যতা রাখে? পবিত্র হাদীছ শরীফ পর্যালোচনা ও বিশ্লেষণকারীদের অনেক গুণাবলি থাকতে হবে। যেমন তেমন লোক পবিত্র হাদীছ শরীফ নিয়ে বা কোন রাবী নিয়ে কোন মন্তব্য করতে পারবে না। হযরত আব্দুল হাই লখনবী রহমতুল্লাহি আলাইহি এ বিষয়ে কিতাবে



মেয়েদের সুন্নতী পোশাক সম্পর্কে জানা ফরয


মহান আল্লাহ পাক তিনি ইরশাদ মুবারক করেন, (আমার) রসূল ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম তিনি তোমাদের জন্য যা এনেছেন, তা আঁকড়ে ধরো, আর যা থেকে নিষেধ করেছেন, তা থেকে বিরত থাকো। এ বিষয়ে মহান আল্লাহ পাক উনাকে ভয় করো। নিশ্চয়ই মহান আল্লাহ