কুতুব পুর -blog


...


 


নূরে মুজাসসাম হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম উনার সাথে যুগে যুগে বিরুদ্ধাচরণ এবং তার নির্মম পরিণতি


মহান আল্লাহ পাক তিনি ইরশাদ মুবারক করেন- ان الذين يحادون الله ورسوله اولئك فى الاذلين. كتب الله لاغلبن انا ورسلى ان الله قوى عزيز. অর্থ: “নিশ্চয়ই যারা মহান আল্লাহ পাক উনার এবং উনার রসূল (নূরে মুজাসসাম হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি



বিনামূল্যের বই পেয়ে খুশি হওয়ার আগে দেখুন, ভিতরে কতটুকু ঈমান আছে


দেশের বর্তমান শিক্ষানীতি অনুযায়ী যে সকল পাঠ্যবই প্রণীত হয়েছে, সেখানে পড়ানো হচ্ছে এমন কিছু বিতর্কিত বিষয় পড়ানো হচ্ছে যেগুলো কোনোভাবেই ইসলাম সমর্থন করে না। বরং ওই সকল পাঠবইয়ের গল্প, কবিতা, রচনাগুলো মুসলমানদের ঈমান ও মুসলমানিত্বকেই বিনষ্ট করে দিচ্ছে। পাঠ্যবইগুলোর অর্ন্তভুক্ত রচনা,



একজন সম্মানিত ছাহাবী রদ্বিয়াল্লাহু তা‘য়ালা আনহু উনার চোখের সামনেই মহান আল্লাহ পাক উনার সৃষ্টি জগত উন্মুক্ত


সাইয়্যিদুল মুরসালীন, ইমামুল মুরসালীন, নূরে মুজাসসাম, হাবীবুল্লাহ, হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম উনার সম্মানিত হাযির নাযির শান মুবারক নিয়ে বাতিল ফিরক্বার লোকেরা আপত্তি করে। নাউযুবিল্লাহ। অথচ তাদের এ কথাটিই জানা নেই যে সাইয়্যিদুল মুরসালীন, ইমামুল মুরসালীন, নূরে মুজাসসাম, হাবীবুল্লাহ, হুযূর



আজ সুমহান পবিত্র ১৫ই যিলহজ্জ শরীফ। সুবহানাল্লাহ! সাইয়্যিদুনা হযরত ইমামুল আ’শির মিন আহলি বাইতি রসূলিল্লাহ ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম


নূরে মুজাসসাম হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম তিনি ইরশাদ মুবারক করেন, আমার হযরত আহলু বাইত শরীফ আলাইহিমুস সালাম উনারা যমীনবাসী অর্থাৎ সারা কায়িনাতের জন্য নিরাপত্তা স্বরূপ।’ সুবহানাল্লাহ! আজ সুমহান পবিত্র ১৫ই যিলহজ্জ শরীফ। সুবহানাল্লাহ! সাইয়্যিদুনা হযরত ইমামুল আ’শির মিন



১লা বৈশাখ তথা নববর্ষ কাফির-মুশরিকদের রীতিনীতি, তা কখনো মুসলমানদের উৎসবের দিন হতে পারে না


খালিক্ব মালিক রব মহান আল্লাহ পাক তিনি পবিত্র কালামুল্লাহ শরীফ উনার মধ্যে ইরশাদ মুবারক করেন- “তোমরা কাফির-মুশরিকদের অনুসরণ কর না।” আর পবিত্র হাদীছ শরীফ উনার মধ্যে ইরশাদ মুবারক হয়েছে- “যে ব্যক্তি যে সম্প্রদায়ের সাথে মিল রাখে সে সেই সম্প্রদায়ের অন্তর্ভুক্ত হয়ে



গরুর খামার গড়ে তুলতে সহযোগিতা জরুরী


পবিত্র কুরবানী ছাড়াও প্রতিদিনই হাজার হাজার গরু আমাদের এ দেশে জবাই হয়ে থাকে। এদেশের মানুষের নিত্যদিনের খাবারের অন্যতম একটি উপাদেয় খাবার হলো গরুর গোশত। অথচ গরুর গোশতের দাম বেড়েই চলছে হু হু করে। মূলত সরকারের অসহযোগিতা ও গরু জবাই বিরোধী একটি



ত্বাহিরা, আউওয়ালুল মু’মীনা সাইয়্যিদাতুনা হযরত কুবরা আলাইহাস সালাম উনার বেমেছাল বৈশিষ্ট্য মুবারক


মহান রব্বুল আলামীন তিনি স্বয়ং উম্মুল মু’মিনীন সাইয়্যিদাতুনা হযরত কুবরা আলাইহাস সালাম উনার শান, মান ও মর্যাদা মুবারককে বুলন্দ করেছেন এবং আখিরী রসূল, নূরে মুজাসসাম, হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম তিনি স্বয়ং উনার উচ্ছ্বসিত প্রশংসা করেছেন, ছানা-ছিফত করেছেন। কাজেই



পরিত্রাণ পাওয়ার জন্য মুসলমানদের উচিত তওবা করে নেক আমলে ফিরে আসা


যত রকমের গযব দুনিয়ার যমীনে নাযিল হয় তার মূলত প্রধান দুটি কারণ। প্রথম কারনটি হচ্ছে সারা দুনিয়াব্যাপী সমস্ত বিধর্মীরা মুসলমানদের উপর মারাত্মক যুলুম-নির্যাতন চালিয়ে লক্ষ-লক্ষ মুসলমান উনাদের শহীদ করে মুসলমানদের মাল-সম্পদ লুট করে যাচ্ছে। বিধর্মীদের এই বদ আমলের কারণে মহান আল্লাহ



পানির অপর নাম জীবন পানির আছে শত গুণ


মানুষের শরীরের ৬০ ভাগই পানি। যদি কোনো কারণে এই পানির ভারসাম্য মানব দেহে নষ্ট হয়ে যায়, তবে মানুষ মারা যাবে। পানি মানুষের জন্য এতটাই প্রয়োজনীয় পদার্থ যে, পানির অপর নাম হয়েছে জীবন। পৃথিবী ৩/৪ অংশ পানি। এরপরও বড় বড় মরুভূমিগুলিতে পানির



ভারত এমন একটি দেশ,


যেখানে মুসলমানদের কোন অধিকার নেই। তাদেরকে চাকরি দেয়া হয় না, তাদেরকে ভালো এলাকায় বাড়িভাড়া দেয়া হয় না। তবে মুসলমান সমাজকে পর্যুদস্ত করার জন্য ভারতীয় রাষ্ট্রযন্ত্রের মূল টার্গেট হলো মুসলিম যুবসমাজ। ষড়যন্ত্রের প্রথম ধাপে মুসলিম সমাজের ঐসব উদীয়মান মেধাবী যুবকদের চিহ্নিত করা



নূরে মুজাসসাম, হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম উনার সম্মানিত আব্বাজান আলাইহিস সালাম ও সম্মানিতা আম্মাজান আলাইহাস সালাম


মহান আল্লাহ পাক উনার রসূল, নূরে মুজাসসাম, হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম উনার সন্তুষ্টি, মুহব্বত, মা’রিফাত, নিসবত, তাওয়াল্লুক হাছিল করার প্রধান দুটি উসীলা। প্রথমতঃ উনার মহাসম্মানিত আব্বাজান সাইয়্যিদুনা হযরত যবীহুল্লাহ আলাইহিস সালাম ও উনার মহাসম্মানিতা আম্মাজান সাইয়্যিদাতুনা হযরত আমিনা



অশুভ বা কুলক্ষণ যদি থাকতো তাহলে ঘর-বাড়ি, ঘোড়া এবং নারীদের মধ্যে থাকতো


মহান আল্লাহ পাক উনার হাবীব, নূরে মুজাসসাম, হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম তিনি কোনো কিছুতেই অশুভ বা কুলক্ষণে ধারণা করতে নিষেধ করেছেন। কোনো কিছুর মধ্যে অশুভ বা কুলক্ষণে নেই। তবে ভালো লক্ষণ আছে। সেটা ধারণা করা, বিশ্বাস করা যায়।