মুহম্মদ সোহেল -blog


...


মুহম্মদ সোহেল
 


শাহী আওলাদ শাহনাওয়াসা


জান্নাতি মেহমান জান্নাতি মেহমান আগমনে আজ আলোকিত জাহান মামদূহ বাগানে জান্নাতি নূর শাহী নাওয়াসা শাহযাদী ছানীর লখতে জিগার শাহী নাওয়াসা শাহদামাদ ছানীর নছবী ফুল শাহী নাওয়াসা রাসূলে খোদার শাহী আওলাদ শাহী নাওয়াসা সুলত্বানুল ওলীর তাশরীফে জগত আলোয়ান। তাশরীফ নিয়েছেন হুজরা পাকে



হিন্দুরা ‘শক্তের ভক্ত নরমের যম’: প্রলয় কুমাররা ক্ষমতায় থাকলে সিজদা দেবে, কিন্তু পতন হলে মানুষ বলেও জ্ঞান করবে না


বাংলায় স্বাধীন সুলতানী আমলে (১৩৩৮-১৫৩৮ ঈসায়ী) গিয়াসউদ্দীন আযমশাহ রহমাতুল্লাহি আলাইহি উনার রাজত্বকালে ‘গণেশ’ নামে এক বিশ্বাসঘাতকের উত্থান ঘটেছিল। এই ‘গণেশ’ নামক হিন্দুটি প্রথমে মুসলিম শাসকদের অনুগত সেজে রাজকর্মচারী হয়েছিল, এরপর একে একে ষড়যন্ত্রের মাধ্যমে হযরত গিয়াসউদ্দীন আযমশাহ রহমাতুল্লাহি আলাইহি ও উনার



বেমেছাল রহমত, বরকত, ছাকিনাপূর্ণ মাস পবিত্র জুমাদাল উখরা।। উম্মু আবীহা হযরত যাহরা আলাইহাস সালাম তিনি এ পবিত্র মাস উনার


সাইয়্যিদাতু নিসায়ি আহলিল জান্নাহ, উম্মু আবীহা হযরত যাহরা আলাইহাস সালাম উনার পবিত্র শান-মান মর্যাদা-মর্তবা ফযীলত ও সংক্ষিপ্ত সাওয়ানেহ উমরী বা জীবনী মুবারক নূরে মুজাসসাম, হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম তিনি ইরশাদ মুবারক করেন, ‘হযরত ফাতিমাতুয যাহরা আলাইহাস সালাম তিনি



বছরের পহেলা তারিখ নয়; ১০ই মুহররম তথা আশুরার দিনই বিশেষ খাবার গ্রহণের দিন


ছোটবেলা থেকে একটা বিষয় দেখে আসছি, আমাদের দেশসহ অন্যান্য দেশে নববর্ষ উপলক্ষে বছরের পহেলা দিন যেমন- পহেলা মুহররম, পহেলা বৈশাখ, পহেলা জানুয়ারি বিশেষ করে আমাদের দেশে পহেলা বৈশাখের দিন ভালো বা বিশেষ খাবার গ্রহণের ব্যবস্থা করা হয়ে থাকে। এবং এমন ধারণাও



থার্টি ফার্স্ট নাইট ও ১লা জানুয়ারি (নববর্ষ) পালন ইসলাম ও মুসলমানদের জন্য নয়


মহান আল্লাহ পাক ইরশাদ করেন, নিশ্চয়ই আল্লাহ পাক-এর নিকট একমাত্র মনোনীত দ্বীন হচ্ছে ইসলাম। বাংলাদেশের ৯৭ ভাগ মানুষের দ্বীন হচ্ছে ইসলাম, তাই সংবিধানের ২ নম্বর ধারায় বর্ণিত রাষ্ট্রধর্ম ইসলাম-এর স্বীকারের প্রেক্ষিতে বিজাতীয় সংস্কৃতি থার্টিফার্স্ট নাইটসহ কোন ইসলাম বিরোধী কাজ গ্রহণযোগ্য হতে



কেএমটি তাজদীদ প্রতিষ্ঠিত হতে যাচ্ছে…….


মুজাদ্দিদে আ’যম, ইমাম রাজারবাগ শরীফ-এর মামদূহ হযরত মুর্শিদ কিবলা আলাইহিস সালাম উনার তাজদীদী ক্বওল শরীফ—- “কুরআন শরীফ-এ ইরশাদ হয়েছে, কাবা শরীফ মানব জাতির জন্য নির্মিত প্রথম ঘর। হাদীছ শরীফ-এ বর্ণিত আছে, কাবা শরীফ-এর নিচের অংশটুকু পৃথিবীর প্রথম যমীন। কুরআন শরীফ ও



কুরবানীর ফাযায়িল-ফযীলত এবং কুরবানী নিয়ে মিথ্যাচার, অপপ্রচার ও ষড়যন্ত্রমূলক বিতর্কিত কিছু বিষয়ের খণ্ডনমূলক জবাব


আল্লাহ পাক তিনি ইরশাদ করেন, فصل لربك وانحر “আপনার যিনি রব তায়ালা উনার সন্তুষ্টির জন্য নামায আদায় করুন এবং কুরবানী করুন।” (সূরা কাউছার/২) আখিরী রসূল, সাইয়্যিদুল মুরসালীন, ইমামুল মুরসালীন, নূরে মুজাসসাম হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম তিনি ইরশাদ করেন, ‘যে