নাজরানা -blog


...


 


পবিত্র রমাদ্বান শরীফ হচ্ছেন- পবিত্র যাকাত উনার মাস।


মহান আল্লাহ পাক তিনি ইরশাদ মুবারক করেন, তোমরা পরস্পর পরস্পরকে নেকী ও পরহেযগারীর মধ্যে সাহায্য-সহযোগীতা করো, পাপ ও নাফরমানীর মধ্যে সাহায্য-সহযোগীতা করো না।’ সুবহানাল্লাহ! পবিত্র রমাদ্বান শরীফ হচ্ছেন- পবিত্র যাকাত উনার মাস। পবিত্র রমাদ্বান শরীফ মাসে সংগৃহীত যাকাত-ফিতরা দ্বারা প্রায় সারা



মুসলমানদের উচিত জুলুমকারী কাফির-মুশরিকদের বিরুদ্ধে বেশি বেশি বদ-দোয়া করা


মুসলমানদের জন্য করণীয় হচ্ছে- যারা খালিক্ব মালিক রব মহান আল্লাহ পাক উনার এবং উনার হাবীব, নূরে মুজাসসাম, হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম উনার, সম্মানিত আহলু বাইত শরীফ আলাইহিমুস সালাম উনাদের, হযরত ছাহাবায়ে কিরাম রদ্বিয়াল্লাহু আনহুম উনাদের ও হযরত আউলিয়ায়ে



স্থলপথ নদীপথ ও এয়ার ট্রানজিট এবং বাংলাদেশের বিপন্ন স্বাধীনতা


মহান আল্লাহ পাক তিনি পবিত্র কালামুল্লাহ শরীফ উনার মাঝে পবিত্র ইরশাদ মুবারক করেন, “তোমরা জালিমও হয়ো না। আবার মজলুমও হয়ো না।” বর্তমানে বাংলাদেশের চট্টগ্রাম ও মংলা বন্দর ভারতকে বিনাশর্তে ব্যবহার করতে দেওয়ার মাধ্যমে মূলত বাংলাদেশকেই আজ অনানুষ্ঠানিক করদরাজ্যে পরিণত করা হচ্ছে।



উম্মুল মু’মিনীন সাইয়্যিদাতুনা হযরত আছ ছামিনাহ্ আলাইহাস সালাম উনার সম্মানিত বিশেষ ইবাদাত মুবারক


মহাসম্মানিত ও মহাপবিত্র হাদীছ শরীফ উনার মধ্যে বর্ণিত রয়েছে, عَنْ ابْنِ عَبَّاسٍ عَنْ ام المؤمنين سيدتنا حضرت الثامنة عليها السلام (سيدتنا حضرت جويرية عليها السلام) أَنَّ النَّبِيَّ صَلَّى اللَّهُ عَلَيْهِ وَسَلَّمَ خَرَجَ مِنْ عِنْدِهَا بُكْرَةً حِينَ صَلَّى الصُّبْحَ وَهِيَ فِي مَسْجِدِهَا



তুলনাবিহীন মর্যাদা ও সম্মান মুবারক উনার অধিকারী


মুজাদ্দিদে আ’যম সাইয়িদুনা হযরত ইমামুল উমাম আলাইহিস সালাম উনার মর্যাদা-মর্তবা, বুযুর্গী-সম্মান অপরিসীম। সাধারণ মানুষের চিন্তা ভাবনার অনেকে উর্ধ্বে। কেননা পবিত্র হাদীছে কুদসী শরীফ উনার মধ্যে মহান আল্লাহ পাক তিনি ইরশাদ মুবারক করেন- ان اوليائى تـحت قبائى لايعرفهم غيرى الا اوليائى অর্থ:নিশ্চয়ই



আপনি কতটুকু মুসলমান…?


আপনার পরনে খ্রিস্টানদের পোশাক শার্ট, প্যান্ট। গলায় টাই। মুখে নেই দাঁড়ি। মাথায় নেই সুন্নতী টুপি। কয়েকজন খ্রিস্টান, নাস্তিকদের সাথে থাকলে আপনাকে আলাদাভাবে চিনাই তো যাবে না। এরপরও আপনি দাবি করেন- আপনি মুসলমান। এ তো গেলো আপনার বাহ্যিক বেশভূষার কথা। আপনাকে যদি



হক্কানী-রব্বানী শায়েখ বা মুর্শিদ ক্বিবলা উনার নিকট বাইয়াত গ্রহণ করা প্রত্যেক মুসলমানদের জন্য ফরয


মহান আল্লাহ পাক তিনি পবিত্র কুরআনুল কারীম উনার মধ্যে ইরশাদ মুবারক করেন, أَطِيْعُوا اللهَ وَأَطِيْعُوا الرَّسُوْلَ وَأُولِي الْأَمْرِ مِنْكُمْ অর্থ: “তোমরা মহান আল্লাহ পাক উনাকে ও উনার রসূল নূরে মুজাসসাম হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম উনাদেরকে অনুকরণ কর এবং



কাফিররা আযাব-গযবে ধ্বংস হচ্ছে, হবে; মুসলমানদের উচিত খালিছ তওবা-ইস্তেগফার করা


মুসলমানদের উপর নির্যাতন করার শাস্তিস্বরূপ বিভিন্ন অমুসলিম-কাফির দেশগুলোর উপর একের পর এক খোদায়ী গযব আপতিত হচ্ছে। বন্যা, টর্নেডো, ভূমিকম্প, তুষার ঝড়, দাবানলসহ নানা ধরনের খোদায়ী গযবে কাফিররা বারবার নিস্তানাবুদ হচ্ছে এবং অচিরেই ধ্বংস হয়ে যাবে। কিন্তু মুসলমানদের জন্য আফসুস! তারা গযবপ্রাপ্ত



সাইয়্যিদুল আ’ইয়াদ শরীফ পালন করা কুল কায়িনাতের সর্বশ্রেষ্ঠ ইবাদত


খালিক্ব মালিক রব মহান আল্লাহ পাক তিনি ইরশাদ মুবারক করেন, يَااَيُّهَا النَّاسُ قَدْ جَاءَتْكُمْ مَوْعِظَةٌ مّـِنْ رَّبّـِكُمْ وَشِفَاء لّـِمَا فِى الصُّدُوْرِ وَهُدًى وَّرَحْمَةٌ لّـِلْمُؤْمِنِيْنَ. قُلْ بِفَضْلِ اللهِ وَبِرَحْمَتِهٖ فَبِذٰلِكَ فَلْيَفْرَحُوْا هُوَ خَيْرٌ مّـِمَّا يَـجْمَعُوْنَ. অর্থ: “হে মানুষেরা! হে সমস্ত জিন-ইনসান, কায়িনাতবাসী!



খাসীকৃত পশু কুরবানী করা খাছ সুন্নত মুবারক


পবিত্র হাদীছ শরীফ উনার মধ্যে ইরশাদ মুবারক হয়েছে- عن حضرت جابر رضى الله تعال عنه قال ذبع النبى صلى الله عليه وسلم يوم الذبح كبشين اقرنين املحين موجوئين فلما وجههما قال انى وجهت وجهى الّذى فطر السموت والارض على ملة ابراهيم



বিধর্মীদের মতো কুরবানীতে বাধা নয়, সহযোগিতামূলক আচরণই সরকার থেকে কাম্য


এতদিন হয়েছে অমুসলিমদের দেশে। এখন মুসলমান অধ্যুষিত দেশগুলোতেও শুরু হয়েছে। তবে বাংলাদেশের মতো ৯৮ ভাগ মুসলমান অধ্যুষিত দেশে এটা সত্যিই বিস্ময়কর। হ্যাঁ! পবিত্র কুরবানীর পশু জবাই নিয়েই বলছি। ইতোমধ্যে বেশ কয়েকটি অমুসলিম দেশ, যেমন- নেপালসহ ভারতে বেশ কয়েকটি প্রদেশে কুরবানীতে গরু



সংখ্যালঘুদের জন্য সরকারি অনুদান জরুরী, নাকি ৯৮% মুসলমানের পবিত্র কুরবানীর জন্য অনুদান জরুরী?


১.৫ শতাংশ বিধর্মীর পূজা পালনে ৯৮% মুসলমানের দেয়া ট্যাক্সের টাকা থেকে যদি সরকারি অনুদান দেয়া সরকারের নিরপেক্ষ নীতি হয়ে থাকে, তবে ৯৮% মুসলমানের প্রদেয় টাকা থেকে গরিব মুসলমানের পবিত্র কুরবানী করার জন্য অনুদান দেয়াটা সরকারের নিরপেক্ষ নীতির মধ্যে পড়ে কিনা? যদি