নীলাভ -blog


...


 


মহাসম্মানিত ও মহাপবিত্র রসূল হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম তিনি হচ্ছেন কায়িনাতবাসীর জন্য সর্বশ্রেষ্ঠ নিয়ামত। সুতরাং সর্বশ্রেষ্ঠ


মহান আল্লাহ পাক তিনি পবিত্র কুরআন শরীফ উনার মধ্যে ইরশাদ মুবারক করেন- وَمَا أَرْسَلْنَاكَ إِلا رَحْمَةً لِلْعَالَمِينَ অর্থ: আমার হাবীব মাহবুব মহাসম্মানিত ও মহাপবিত্র রসূল হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম আমি আপনাকে সমস্ত আলমের জন্য রহমতস্বরূপ প্রেরণ করেছি। সুবহানাল্লাহ!



মুসলমানদের অধিকার সংরক্ষণ করার ব্যাপারে সরকারকে অবশ্যই অত্যধিক তৎপর হতে হবে


মহান আল্লাহ পাক তিনি পবিত্র সূরা ক্বছাছ শরীফ উনার ৭৭নং পবিত্র আয়াত শরীফ উনার মধ্যে ইরশাদ মুবারক করেন, ‘দুনিয়াতে তুমি তোমার অধিকারকে ভুলে যেও না।’ বাংলাদেশের মোট জনসংখ্যার শতকরা ৯৮ ভাগই মুসলমান আর রাষ্ট্রদ্বীন হচ্ছেন সম্মানিত দ্বীন ইসলাম। তাই সর্বক্ষেত্রেই পবিত্র



ঐতিহাসিক দিবস পবিত্র ১০ই রজবুল হারাম শরীফ: সম্মানিত ইয়ারমূকের জিহাদ


রোমান সৈন্যদের একদল কানাতীরের নেতৃত্বে লাজিকিয়ার পথ ধরে এগুতে আরম্ভ করলো। আরেকদল জার্জিরের নেতৃত্বে জাদাতুল উজমার ও সাওমীনের পথ ধরে এগুতে থাকলো। আরেকদল কাওরীনের নেতৃত্বে হালাব ও হামাতের পথ ধরে এগুতে থাকলো। আরেকদল দীরজানের নেতৃত্বে আওয়াসিমের পথ ধরে এগুতে থাকলো। মাহান



পবিত্র রজবুল হারাম শরীফ মাস উনার মধ্যে রোযা রাখার ফযীলত


হযরত আনাস রদ্বিয়াল্লাহু তায়ালা আনহু উনার থেকে বর্ণিত। তিনি বলেন, নূরে মুজাসসাম হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম তিনি ইরশাদ মুবারক করেন, “যে ব্যক্তি হারাম মাসে (যিলক্বদ, যিলহজ্জ, মুর্হরম ও রজব) তিন (৩) দিন রোযা রাখবে, তার জন্য নয় (৯)



সন্ত্রাসী, দেশদ্রোহী, উপজাতি-রাজাকারদের কেন বিচার হচ্ছে না?


১৯৭১ সালের বাংলাদেশের স্বাধীনতাবিরোধী, মুক্তিযুদ্ধবিরোধী, যুদ্ধাপরাধী উপজাতি রাজাকারদের কথা আমাদের নতুন প্রজন্ম জানেই না। আর এই সুযোগে সন্ত্রাসী উপজাতি রাজাকাররা বহাল তবিয়তেই আছে। দুঃখের হলেও সত্যি, রাজাকাররা এবং তাদের বংশধররা স্বাধীন বাংলাদেশের প্রতিনিধি হিসেবে জাতিসংঘেও পৌঁছে গেছে, যা জাতি হিসেবে আমাদের



মুসলমানদের ইবাদত-বন্দেগী নষ্ট করতে চাঁদ নিয়ে ষড়যন্ত্র


সউদী সরকার তবৎড় সড়ড়হ অনুযায়ী নতুন চন্দ্রমাস শুরু করে, যা শরীয়তসম্মত নয়। কারণ শরীয়তে চাঁদ চাক্ষুষ দেখা শর্ত। মূলত, Zero moon অনুযায়ী সউদী ওহাবী ইহুদী সরকার চন্দ্র তারিখ ঘোষণা করার করণে এই তারিখ অনুযায়ী কেউ যদি রোযা শুরু করে, তবে যে



আফদ্বালুন নাস বা’দা রসূলিল্লাহ, সাইয়্যিদাতু নিসায়িল আলামীন, উম্মুল মু’মিনীন আল ঊলা, সাইয়্যিদাতুনা হযরত কুবরা আলাইহাস সালাম উনার একখানা বিশেষ


উম্মুল মু’মিনীন আল ঊলা সাইয়্যিদাতুনা হযরত কুবরা আলাইহাস সালাম তিনি পূর্ব থেকেই মনোনীত। নূরে মুজাসসাম হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম উনার মুবারক খিদমতে আনজাম দেয়ার জন্য উনাকে মহান আল্লাহ পাক তিনি বিশেষভাবে সৃষ্টি করেছেন। যা উম্মুল মু’মিনীন আল ঊলা



ফক্বীহাতুন নিসা, রাহনুমায়ে দ্বীন, হাদীয়ে যামান, ছহিবাতু ইলমে গইব সাইয়্যিদাতুনা হযরত উম্মুল উমাম আলাইহাস সালাম উনার মহামূল্যবান নছীহত মুবারক


“হাত-পা, চেহারা খোলার মাধ্যমে অবশ্যই সৌন্দর্য প্রকাশ পায়” সাইয়্যিদাতুন নিসা, মুত্বাহ্হারাহ , মুত্বহহিরাহ হযরত উম্মুল উমাম আলাইহাস সালাম তিনি বলেন, মহান আল্লাহ পাক তিনি সূরা আহযাব শরীফ উনার ৫৯নং আয়াত শরীফ উনার মধ্যে ইরশাদ মুবারক করেন, ياَ اَيُّهَا النَّبِىُّ قُلْ لِّاَزْوَاجِكَ



কথিত থার্টিফাস্ট যে কারণে মুসলমানদের জন্য বর্জনীয়


১. থার্টিফাস্ট নাইট হলো ইংরেজি নববর্ষ। ২. থার্টিফাস্ট নাইটের প্রবর্তক- কাট্টা কাফির জুলিয়াস সিজার। ইংরেজি নববর্ষের হিসাব হয় খ্রিস্টানদের তথাকথিত ধর্মযাজক পোপ গ্রেগরির (যার একটা অবৈধ সন্তান ছিল) প্রবর্তিত ক্যালেন্ডার অনুযায়ী। নাউযুবিল্লাহ! ৩. থার্টিফাস্ট নাইট দ্বারা খ্রিস্টানদের সাদৃশ্য হয়। মুসলমানদের জন্য



সন্তানের ভবিষ্যতের সাথে সাথে নিজের পারলৌকিক জীবন নিয়ে ভাবুন


মানুষ অনেক সময় নিজের জ্ঞান ও যুক্তিকে অগ্রাহ্য করে আবেগ দ্বারা চালিত হয়। যেমন নিজে না খেয়ে কষ্ট করে সঞ্চয় করে ভবিষ্যৎ প্রজন্মের জন্য। এটা নেহায়েৎ বোকামি। খালিক্ব মালিক রব মহান আল্লাহ পাক তিনি প্রত্যেক বান্দা-প্রাণীর রুজির ব্যবস্থা করেই পৃথিবীতে পাঠিয়েছেন।



অত্যন্ত ফযীলতপূর্ণ সুন্নতি আসবাবপত্রসহ বিভিন্ন সুস্বাদু সুন্নতি খাবার ক্রয়ে আজই চলে আসুন


সম্মানিত সুন্নত উনার ফযীলত ও গুরুত্ব অপরিসীম। একটি সুন্নত জারী হওয়া মানেই একটা বিদআত ধ্বংস হওয়া। আর সে সুন্নত মুবারক ঘিরে রয়েছে মানুষের দৈনন্দিন জীবন হতে শুরু করে খাবার-দাবার আসবাবপত্র সবকিছুর মধ্যে। আর এ সুন্নত মুবারক যদি একজন মুসলমান হাক্বীক্বীভাবে অনুসরণ



বাংলাদেশে ঘাপটি মেরে আছে ১২ লাখ ভারতীয়? না আরো বেশি? এদেশের চাকরীর বাজার দখল থেকে নাশকতা ও টাকা পাচার


একদিকে ভারতীয় হিন্দুত্ববাদী শক্তি মুসলমানদের শহীদ করার জন্য উন্মত্ত হয়ে উঠেছে। নাঊযুবিল্লাহ! বাংলাদেশের স¦াধীনতা ও সার্বভৌমত্ব দখলের জন্য মরিয়া হয়ে উঠেছে। অপরদিকে এ দেশে অবৈধভাবে থাকা ভারতীয়দের সংখ্যা কল্পনাতীতহাতে বাড়ছে। সেই সাথে বাড়ছে ঘাপটি মেরে থাকা ভারতীয়দের দ্বারা বিভিন্ন ভয়ঙ্কর ষড়যন্ত্র