রাতের তারা -blog


...


 


ভারতের মতো বাংলাদেশের প্রশাসনও কি মুসলিমশূন্য হতে চলেছে?


সাম্প্রতিককালে বাংলাদেশের প্রতিটি বিভাগে, প্রতিটি পদে বিধর্মী, উপজাতিসহ অমুসলিমদের গণহারে নিয়োগ দেয়া হচ্ছে। আমাদের এই দেশে ৯৮ ভাগ মুসলমান। সে হিসেবে দেশের প্রশাসনসহ প্রতিটি বিভাগে চাকরি-বাকরিতে মুসলমানদের প্রাধান্য থাকবে এটাই কি স্বাভাবিক নয়? অবশ্যই স্বাভাবিক, শুধু স্বাভাবিক নয়, এটা ৯৮ ভাগ



ছবিযুক্ত আইডি কার্ড-এর কারণে মুসলিম নারীদের পর্দা পালনের অধিকার খর্ব হচ্ছে


আমি একজন মুসলিম নারী। পর্দা করি, সে কারণে ছবি তুলি না। পবিত্র হাদীছ শরীফ উনার অনুসারে “যে ব্যক্তি ছবি তোলে, আঁকে, রাখে তারা জাহান্নামী।” আমার ধর্ম আমার পালন করার অধিকার আছে। সবাই যখন নিজ অধিকার নিয়ে কথা বলছে, আমাকে আপনারা অবজ্ঞা



মহাপবিত্র ২রা যিলহজ্জ শরীফ। সুবহানাল্লাহ! উম্মু আবীহা আন নূরুর রবি’য়াহ সাইয়্যিদাতুনা হযরত যাহরা আলাইহাস সালাম উনার সুমহান মহাসম্মানিত পবিত্র


মহান আল্লাহ পাক তিনি ইরশাদ মুবারক করেন, ‘মহান আল্লাহ পাক তিনি চান- হযরত আহলে বাইত শরীফ আলাইহিমুস সালাম উনাদের থেকে অপবিত্রতা দূর করতে এবং উনাদেরকে পবিত্র করার মতো পবিত্র করতে। অর্থাৎ উনাদেরকে পবিত্র করার মতো পবিত্র করেই সৃষ্টি করেছেন।’ সুবহানাল্লাহ! আজ



সুমহান মহাপবিত্র যিলহজ্জ শরীফ মাস উনার মহাসম্মানিত আইয়্যামুল্লাহ শরীফ সমূহ


মহান আল্লাহ পাক তিনি ইরশাদ মুবারক করেন, ‘মহান আল্লাহ পাক উনার নিদর্শন সম্বলিত দিবসগুলিকে স্মরণ করিয়ে দিন সমস্ত কায়িনাতকে। নিশ্চয়ই এর মধ্যে ধৈর্যশীল ও শোকরগোজার বান্দা-বান্দী উনাদের জন্য ইবরত ও নছীহত রয়েছে।’ সুবহানাল্লাহ! সুমহান মহাপবিত্র যিলহজ্জ শরীফ মাস উনার ২, ৬,



এসো হে বৈশাখ আহবান মূলত কাট্টা শিরকী আহবান


আসন্ন ফসলী সনকে কেন্দ্র করে কদিন পরেই কিছু লোক, কতিপয় দল গোষ্ঠি শুরু করে দিবে মাতামাতি। নববর্ষ বড় নিয়ামত, নাউজুবিল্লাহ এমন আজব কুফরী ফতোয়ার কারনে মুসলমান নামধারী অনেককেই দেখা যাবে এ উপলক্ষে কুফরী গান, কুফরী শ্লোগান- এসো হে বৈশাখ বন্দনা করতে।



‘পবিত্র লাইলাতুর রগায়িব শরীফ’-এ মুজাদ্দিদে আ’যম আলাইহিস সালাম


পবিত্র ইসলাম উনার সূচনাকাল থেকেই হযরত ছাহাবা আজমাইন রদ্বিয়াল্লাহু তায়ালা আনহুম এবং পরবর্তীতে সকল আউলিয়ায়ে কিরাম রহমতুল্লাহি আলাইহিম উনারা জীবনের প্রতিটি মুহূর্ত ব্যয় করেছেন নূরে মুজাসসাম, হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম উনার সুন্নতসমূহ জীবনে প্রতিষ্ঠিত করতে। কিন্তু এই সুন্নতসমূহ



সাইয়্যিদুনা হযরত যাবীহুল্লাহ আলাইহিস সালাম উনাকে আহাল হিসেবে না পাওয়ার কারণে শোক প্রকাশ করে বিভিন্ন মহিলা উনাদের ক্বাছীদা শরীফ


পূর্ববর্তী আসমানী কিতাবের ইলম রাখতো এরূপ অনেক মহিলা উনারা জানতেন যে, সাইয়্যিদুনা হযরত যাবীহুল্লাহ আলাইহিস সালাম উনার সম্মানিত কপাল মুবারক-এ এখন ‘নূরে হাবীবী ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম’ অবস্থান মুবারক করছেন। তিনিই হবেন, নূরে মুজাসসাম হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম



২০, ২১, ২২, ২৩ ও ২৯ জুমাদাল উখরা শরীফ সম্মানিত বিশেষ আইয়্যামুল্লাহ শরীফ


মহান আল্লাহ পাক তিনি ইরশাদ মুবারক করেন- وَذَكِّرْهُم بِأَيَّامِ اللَّهِ ۚ إِنَّ فِي ذَٰلِكَ لَآيَاتٍ لِّكُلِّ صَبَّارٍ شَكُورٍ অর্থ: আমার হাবীব ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম! আপনি উম্মতকে তথা কায়িনাতবাসীকে মহান আল্লাহ পাক উনার বিশেষ দিনসমূহের কথা স্মরণ করিয়ে দিন। নিশ্চয়ই এতে



প্রত্যেক মুসলমান পুরুষের জন্য দাড়ি রাখা ফরয


প্রথমত মহিলা ও পুরুষের মাঝে পার্থক্য হলো, মহিলাদের মুখে দাড়ি নেই আর পুরুষের মুখে দাড়ি থাকবে। আর দ্বিতীয়ত মুসলমানদের ও কাফিরদের মাঝে প্রভেদ করার মানদ-ও হলো দাড়ি। মুসলমানের মুখম-লে দাড়ি, মাথায় টুপি-পাগড়ি রুমাল পরা, নামায পরা ইত্যাদির মাধ্যমে পরিচয় লাভ করা



‘মহান আল্লাহ পাক উনার সম্মানিত নবী ও রসূল হযরত আদম ছফিউল্লাহ আলাইহিস সালাম তিনি ভুল ও গুনাহ করেছেন’ নাউযুবিল্লাহ-


সম্মানিত আহলে সুন্নত ওয়াল জামায়াত উনাদের আক্বীদা হলো- ‘কোনো হযরত নবী-রসূল আলাইহিমুস সালাম উনারা কখনো কোনো ভুল করেননি। ইচ্ছাকৃত তো নয়ই, অনিচ্ছাকৃতও নয়।’ অর্থাৎ হযরত নবী-রসূল আলাইহিমুস সালাম উনারা কোনো ভুলই করেননি। আর হযরত নবী-রসূল আলাইহিমুস সালামগণ উনারা সকলেই হলেন মহান



হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম তিনি হচ্ছেন- নিয়ামতে উযমা মুবারক অর্থাৎ সবচেয়ে মহান বা বড় নিয়ামত মুবারক


মহান আল্লাহ পাক তিনি ইরশাদ মুবারক করেন, (মু’মিন বান্দা-বান্দী) উনারা খুশি প্রকাশ করেন মহান আল্লাহ পাক উনার নিয়ামত মুবারক ও ফদ্বল বা অনুগ্রহ মুবারক লাভ করার কারণে। সুবহানাল্লাহ! নূরে মুজাসসাম হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম তিনি ইরশাদ মুবারক করেন,



পবিত্র আখিরী চাহার শোম্বাহ শরীফ পালন করা সুন্নত; বিদয়াত বলা কুফরী


মহান আল্লাহ পাক তিনি ইরশাদ মুবারক করেন, والذين اتبعوهم باحسان رضى الله عنهم ورضوا عنه অর্থ: “হযরত ছাহাবায়ে কিরাম রদ্বিয়াল্লাহু তায়ালা আনহুম উনাদেরকে যারা উত্তমভাবে অনুসরণ করবে, মহান আল্লাহ পাক তিনি তাদের প্রতিও সন্তুষ্ট হবেন এবং তারাও মহান আল্লাহ পাক উনার