রাতের তারা -blog


...


রাতের তারা
 


বেমেছাল আত্মত্যাগের এক বেদনাদায়ক ওয়াক্বিয়া


সাইয়্যিদুনা হযরত ফারূক্বে আ’যম আলাইহিস সালাম উনার খিলাফত মুবারক পরিচালনাকালে তিনি হযরত যায়ীদ বিন আমের আল জুমাহী রদ্বিয়াল্লাহু তায়ালা আনহু উনাকে হিমসের গভর্নর করে পাঠালেন। সাইয়্যিদুনা হযরত ফারূক্বে আ’যম আলাইহিস সালাম তিনি কিছুদিন পর হিমসের সার্বিক অবস্থা পর্যবেক্ষণের জন্য হিমসে গেলেন।



প্রখ্যাত ইতিহাসবিদদের দৃষ্টিতে পবিত্র হারামাইন শরীফে সাইয়্যিদুল আ’ইয়াদ শরীফ পালনের ইতিহাস


বাতিল ফিরকার লোকেরা বলে থাকে, পবিত্র সাইয়্যিদুল আ’ইয়াদ শরীফ এই সেদিন থেকে প্রচলিত হয়েছে! নাউযুবিল্লাহ! হারামাইন শরীফে এ দিবস পালন হতনা! নাউযুবিল্লাহ! অথচ ইতিহাস সাক্ষী সম্মানিত ইসলাম উনার শুরু থেকেই হারামাইন শরীফে পবিত্র সাইয়্যিদুল আ’ইয়াদ শরীফ পালন হতো। নিম্নে কয়েকজন প্রখ্যাত



খলীফায়ে ছালিছ, আমিরুল মু’মিনীন সাইয়্যিদুনা হযরত যুন নুরাইন আলাইহিস সালাম উনার নৌবাহিনী গঠন এবং বিজিত এলাকার সংক্ষিপ্ত বর্ণনা


সময় কি আছে বর্তমান মুসলিম দেশের শাসকদের জন্য, তারা চিন্তা করবে কি তাদের অতীত ইতিহাস-ঐতিহ্য কেমন ছিল, তারা শিক্ষা নেবে কী কেমন বীরত্বপূর্ণ ছিল মুসলমান উনাদের অতীত শৌর্য, কী ন্যায়নিষ্ঠ ছিলেন মুসলিম জাতির পূর্বপুরুষ উনারা? আমরা যদি একবার চোখ বুলাই তাহলে



মহান আল্লাহ পাক তিনি পবিত্র কুরবানীর যে কোন কাজে বাধা প্রদানকারীকে অবশ্যই লাঞ্ছিত করবেন


যে আমলটি চির অটুট সেটি হচ্ছে পবিত্র কুরবানী। চির অটুট এজন্য যে, আবুল বাশার হযরত আদম শফিউল্লাহ আলাইহিস সালাম উনার থেকে শুরু হয়ে আজ পর্যন্ত পবিত্র কুরবানীর আমলটি বহাল রয়েছে। এটা আল্লাহ পাক উনার একটা আদেশ আর হযরত খলীলুল্লাহ আলাইহিস সালাম



দেশের চলমান ‘শিক্ষানীতি’ কিভাবে ইসলাম ও মুসলমানদের হতে পারে?


দেশের বর্তমান শিক্ষানীতি অনুযায়ী যে সকল পাঠ্যবই প্রণীত হয়েছে, সেখানে এমন কিছু বিতর্কিত বিষয় পড়ানো হচ্ছে যেগুলো কোনোভাবেই ইসলাম সমর্থন করে না। বরং ওই সকল পাঠবইয়ের গল্প, কবিতা, রচনাগুলো মুসলমানদের ঈমান ও মুসলমানিত্বকেই বিনষ্ট করে দিচ্ছে। পাঠ্যবইগুলোর অর্ন্তভুক্ত রচনা, কবিতা ও



এদের আসল পরিচয় কি আপনার জানা আছে?


১) বঙ্কিমচন্দ্র: আমাদের দেশের পাঠ্যবইগুলোতে তার রচনা থাকবেই। সাথে থাকবে ‘সাহিত্য সম্রাট’সহ আরো নানারকম প্রশংসার ফুলঝুড়ি। অথচ পাঠক! এই বঙ্কিমই হলো সেই ব্যক্তি, যে কিনা তার রচনায় লিখেছে- “..বল হরে মুরারে! হরে মুরারে! উঠ! মুসলমানের বুকে পিঠে চাপিয়া মার! লক্ষ সন্তান



সুন্নতে রসূলিল্লাহ ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম পালনের একমাত্র উজ্জ্বল দৃষ্টান্ত হচ্ছেন হযরত ছাহাবায়ে কিরাম রদ্বিয়াল্লাহু তায়ালা আনহুম


পবিত্র কালামুল্লাহ শরীফ উনার মধ্যে ইরশাদ মুবারক হয়েছে- رَضِيَ اللَّـهُ عَنْهُمْ وَرَضُوا عَنْهُ অর্থাৎ মহান আল্লাহ পাক তিনি উনাদের (হযরত ছাহাবায়ে কিরাম রদ্বিয়াল্লাহু তায়ালা আনহুম) প্রতি সন্তুষ্ট এবং উনারাও মহান আল্লাহ পাক উনার সন্তুষ্টি মুবারক যথাযথভাবে অর্জন করতে পেরেছেন। (পবিত্র সূরা



ঈদে বিলাদতে আওলাদে রসূল সাইয়্যিদুনা হযরত হাদিউল উমাম আলাইহিস সালাম


সমস্ত অন্ধকার দূরীভূত করে, বিশ্বজগতের মাঝে তাশরীফ এনেছেন আওলাদে রসূল সাইয়্যিদুনা হযরত হাদিউল উমাম আলাইহিস সালাম। উনার পবিত্র বিলাদতী শান মুবারক প্রকাশ দিবস ৯ই জুমাদাল ঊলা শরীফ; যা মূলত মহান আল্লাহ পাক রব্বুল আলামীন উনার এবং উনার রসূল, নূরে মুজাসসাম, হাবীবুল্লাহ



পবিত্র ছফর শরীফ মাস উনাকে অশুভ ও কুলক্ষণ মনে করা কাট্টা কুফরীর শামিল


পবিত্র হাদীছ শরীফ উনার মধ্যে ইরশাদ মুবারক হয়েছে, হযরত আবূ হুরায়রা রদ্বিয়াল্লাহু তায়ালা আনহু তিনি বর্ণনা করেন, মহান আল্লাহ পাক উনার রসূল, নূরে মুজাসসাম, হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম তিনি ইরশাদ মুবারক করেন, “সংক্রামক রোগ বলতে কিছু নেই। পেঁচার



মুজাদ্দিদে আ’যম আলাইহিস সালাম উনার দোয়ার প্রতিফলন স্বরূপ মুসলমানদেরকে জুলুম নির্যাতনকারী কাফিরদের উপরে খোদায়ী গজব ভারতীয় সাবমেরিনে বিস্ফোরণ!


  আমাদের পার্শ্ববর্তী দেশ ভারতে প্রতিদিন গড়ে একটিরও বেশি সাম্প্রদায়িক দাঙ্গা হয়ে থাকে, যার পেছনে মূল ভূমিকা পালন করে যাচ্ছে সেখানকার প্রশাসন। উদাহরণস্বরূপ বলা যায়, ১৯৯০ সালে ভারতের হাসিমপুরা গণহত্যা, উত্তরপ্রদেশের সশস্ত্র বাহিনীর হিন্দু সদস্যরা পঞ্চাশজন মুসলিম যুবককে লাইনে দাঁড় করিয়ে



আল মুজাদ্দিদুল আ’যম আলাইহিস সালাম উনার নিশান তলেই রয়েছে বিশ্ব মানবের মুক্তির ঠিকানা


খালিক্ব মালিক রব মহান আল্লাহ পাক তিনি ইরশাদ মুবারক করেন, “সাবধান! নিশ্চয়ই যাঁরা খালিক্ব মালিক রব মহান আল্লাহ পাক উনার ওলী উনাদের কোনো ভয় নেই, চিন্তা নেই, পেরেশানী নেই। উনাদের জন্য ইহকাল ও পরকালে রয়েছে সুসংবাদ।” খালিক্ব মালিক রব মহান আল্লাহ



সন্ত্রাস প্রতিরোধে বাংলাদেশ-যুক্তরাষ্ট্র ঐক্যবদ্ধভাবে কাজ করবে -প্রভাবশালী মন্ত্রীর বক্তব্য বনাম আমার ভাবনা। আমার সাথে একমত হলে কমেন্টে উত্তর


  অত্যন্ত আফসুসের সাথে বলতেছি আজকে আমরা মুসলমানরা চক্ষু থাকতে দেখি না, কান থাকতে শুনিনা,কোন বিষয়ে ঠান্ডা মাথায় চিন্তা করিনা।কথাগুলো বলছি  আক্ষেপ করে কারন   ইউরোপ আমেরিকা বৃটেন প্রায় ২০০ বছর বাংলাদেশসহ এ অঞ্চলে শাসন করে ধনসম্পদ লুটপাট করেছে মানুষের উপর