নীল আসমান -blog


...


নীল আসমান
 


সুমহান সাইয়্যিদুল আ’ইয়াদ শরীফ উনার বিশেষ শান মুবারক ১১, ১২ ও ১৪ যিলক্বদ শরীফ। সুবহানাল্লাহ!


অনন্তকালব্যাপী জারিকৃত মহাপবিত্র মহাসম্মানিত মাহফিল উনার সংক্ষিপ্ত নাম মুবারক সুমহান সাইয়্যিদুল আ’ইয়াদ শরীফ। সুবহানাল্লাহ! যা সাইয়্যিদুল আম্বিয়া ওয়াল মুরসালীন, রহমাতুল্লিল আলামীন, নূরে মুজাসসাম, হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম উনার সম্মানিত ওজূদ পাক, সম্মানিত যাত পাক এবং সম্মানিত বিলাদতী শান



পিস টিভির প্রতিষ্ঠাতা জাকির নায়েক ওরফে কাফির নায়েকের ঈমান বিধ্বংসী কিছু কুফরী আক্বীদা ও মতবাদ


* ‘রাম ও কৃষ্ণ নবী হতে পারে। নাউযুবিল্লাহ! (জাকির নায়েক: লেকচার সমগ্র ভলিয়ম-২, ১৬২ পৃষ্ঠা) * জুমুয়ার খুতবা আরবী হওয়া জরুরী নয়। নাযুউবিল্লাহ! (লেকচার সমগ্র-৪, পৃষ্ঠা ২৩৯) * ইসলামে চার জন মহিলা নবী ছিলো। নাউযুবিল্লাহ! (ভলিয়ম-২, ১৬২ পৃষ্ঠা) * তারাবীহ নামায যত খুশি তত



উগ্র নারীবাদী কার্যক্রম মুসলিম দেশে চলছে কিভাবে?


সম্প্রতি বাংলাদেশে একটি মহল উগ্র নারীবাদ (জধফরপধষ ভবসরহরংস) ছড়াতে ব্যস্ত । বিভিন্ন লেখালেখি ও সমাবেশে তারা এমন সব উগ্র বক্তব্য ছড়াচ্ছে, যা সাধারণ মানুষের জন্য মেনে নেয়া কষ্টকর। যেমন তারা শ্লোগান হিসেবে ছড়াচ্ছে: ১) “আমি সম্পূর্ণ বিবস্ত্র থাকবো, কিন্তু কোনো পুরুষ



মুসলমান উনাদের জন্য বিধর্মী ও বিজাতীয়দের অনুসরণ করা কাট্টা হারাম, নাজায়িয ও কুফরী


পহেলা বৈশাখ পালনের ইতিহাস পবিত্র দ্বীন ইসলাম উনার সাথে সম্পৃক্ত নয়। এটা পালন মুসলমানগণ উনাদের কাজ নয়। ইতিহাসের তথ্য অনুযায়ী নববর্ষ বা নওরোজ বা পহেলা বৈশাখ পালনের সংস্কৃতি মজুসি, বৌদ্ধ ও হিন্দুদের থেকে এসেছে। সাধারণভাবে প্রাচীন পারস্যের তথাকথিত শক্তিশালী সম্রাট জমশীদ



হারাম টাকা দিয়ে কুরবানী দিলে কুরবানী হবে না।


-গাজী মুহম্মদ ইবনে ইসহাক। হাদীছ শরীফ উনার মধ্যে ইরশাদ হয়েছে, ان الله طيب يحب الطيبات . অর্থাৎ- “মহান আল্লাহ পাক তিনি পবিত্র, তিনি পবিত্রতা বা হালালকেই পছন্দ করেন।” যিলহজ্জ মাসের ১০, ১১, ১২ এই তিনদিন যাদের নিকট নিছাব পরিমাণ অর্থ সম্পদ



বাররাকুল জাবীন, বাসিতুল ইয়াদাইন, বালিগুল বয়ান, হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম উনার আহলিয়াগণ অর্থাৎ উম্মুল মু’মিনীন আলাইহিন্নাস


সাইয়্যিদুল মুরসালীন, ইমামুল মুরসালীন হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম উনার ছোহবতের মধ্যেই রয়েছে সর্বাধিক মর্যাদা-মর্তবা। হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম উনার ছোহবতের মহান সৌভাগ্যশালী হওয়ার কারণেই হযরত ছাহাবায়ে কিরাম রদ্বিয়াল্লাহু তায়ালা আনহুম উনারা দুনিয়ায় থাকতেই যিনি খালিক্ব-মালিক আল্লাহ পাক



সৃষ্টির সূচনা ও সৃষ্টির মূল


মহান আল্লাহ পাক তিনি একক উনার কোন শরীক নেই। তিনি খালিক্ব বা সৃষ্টা হিসেবে একক। মহান আল্লাহ পাক সর্বপ্রথম উনার যিনি হাবীব, সাইয়্যিদুল মুরসালীন, ইমামুল মুরসালীন, নূরে মুজাসসাম, হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম উনাকে সৃষ্টি করেছেন যখন সৃষ্টির কোন



হযরত ছাহাবায়ে কিরাম রদ্বিয়াল্লাহু তায়ালা আনহুমগণের ফযীলত ও মর্যাদার বর্ণনা


আল্লাহ পাক-উনার হাবীব হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম হাদীছ শরীফে হযরত ছাহাবায়ে কিরাম রদ্বিয়াল্লাহু তায়ালা আনহুমগণের ফযীলত, মর্যাদা-মর্তবা সমপর্কে ইরশাদ করেন, “হযরত আবদুল্লাহ ইবনে মাসউদ রদ্বিয়াল্লাহু তায়ালা আনহু হতে বর্ণিত : যে ব্যত্তি শরীয়তের সঠিক তরীকা অনুসরণ করতে চায়, তার



পবিত্র যমযম কূপ ও সাইয়্যিদুনা হযরত আব্দুল মুত্তালিব আলাইহিস সালাম উনার স্বপ্ন মুবারক


মহান আল্লাহ পাক উনার প্রিয় বান্দী হযরত সাইয়্যিদাহ হাজেরা আলাইহিস সালাম উনার ঘরে হযরত ইসমাঈল আলাইহিস সালাম তিনি বিলাদত শরীফ লাভ করেন, তখন উনার ললাট মুবারক-এ নূরে মুজাসসাম, হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম উনার দীপ্ত নূর মুবারক দেখা যাচ্ছিলো।



ছহিবুল কাওছার, ছহিবুল মাহশার, ছহিবু লিওয়ায়িল হামদ, হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম উনার পবিত্র আবাসস্থল মদীনা শরীফ-এর


আল্লাহ পাক যে সকল বস্তুকে সম্মানীত করেছেন, তাকে যে ব্যক্তি সম্মান করলো, এটা তার জন্য কল্যাণ বা ভালাইয়ের কারণ।” (সূরা হজ্ব-৩০) পবিত্র মদীনা শরীফ-এর ফাযায়িল-ফযীলত বর্ণনা করা প্রকৃতপক্ষে আখিরী রসূল, সাইয়্যিদুল মুরসালীন, ইমামুল মুরসালীন, নূরে মুজাস্সাম, হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি



আছহাবুল ফীল বা আবরাহা ও তার সৈন্য বাহিনীর ধ্বংসের ঘটনা


মহান আল্লাহ পাক উনার হাবীব নূরে মুজাসসাম, হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম উনার বিলাদত শরীফ-এর পঞ্চাশ দিন পূর্বে আছহাবুল ফীল বা আবরাহা ও তার সৈন্য বাহিনী খোদায়ী গযবে পড়ে ধ্বংস হওয়ার ঘটনা সংঘটিত হয়। কুরআন শরীফ-এ এ ঘটনার উপর



হাবীব যামানার উলিল আমর হযরত মুর্শিদ ক্বিবলা মুদ্দা জিল্লুহুল আলী উনার সন্তুষ্টি অর্জনই আল্লাহ পাক ও উনার


মহান আল্লাহ পাক তিনি কুরআন শরীফ-এ ইরশাদ করেন, “তারা যদি মু’মিন হয়ে থাকে, তাহলে তাদের দায়িত্ব কর্তব্য হলো, তারা যেন আল্লাহ পাক ও ল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম উনারা যেন আমাদের সকলকে ঢাকা রাজারবাগ শরীফ-এর মামদূহ হযরত মুর্শিদ ক্বিবলা মুদ্দা জিল্লুহুল আলী