প্রশান্ত নফস -blog


...


 


পবিত্র রজবুল হারাম শরীফ মাস উনার প্রথম জুমুয়াহ শরীফ রাত্রি অর্থাৎ ‘পবিত্র লাইলাতুর রগায়িব শরীফ’ উনার মর্যাদা


সম্মানিত হাম্বলী মাযহাব উনার ইমাম হযরত ইমাম আহমদ বিন হাম্বল রহমতুল্লাহি আলাইহি তিনি একবার ফতওয়া দিলেন, ‘পবিত্র লাইলাতুর রগায়িব শরীফ’ উনার মার্যাদা পবিত্র লাইলাতুল ক্বদর, পবিত্র লাইলাতুল বরাত উনার চেয়েও অনেক বেশি। তখন সে যামানার আলিম-উলামাগণ উনারা এই ফতওয়া শুনে চিন্তিত



বিধর্মীরা মুসলমানদের খাদিম…


বিধর্মীদের আবিষ্কৃত তৈরিকৃত যন্ত্রপাতি, আসবাব ইত্যাদি ব্যবহার নিয়ে অনেকেই মুসলমানদের মাঝে বিভ্রান্তি ছড়িয়ে থাকে। মহান আল্লাহ পাক তিনি ও নূরে মুজাসসাম হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম উনারা যেহেতু মুসলমানদের জন্য কাফির-মুশরিক তথা তাবৎ বিধর্মী অমুসলিমদের সাথে কোনো প্রকার মিল-মুহব্বত



মুজাদ্দিদে আ’যম আলাইহিস সালাম উনার দোয়ার প্রতিফলন স্বরূপ মুসলমানদেরকে জুলুম নির্যাতনকারী কাফিরদের উপরে খোদায়ী গজব মুটিয়ে যাচ্ছে চীনের যুব


চীনের যুব সমাজ অস্বাভাবিকভাবে মোটা হয়ে যাচ্ছে। সম্প্রতি এক গবেষণায় দেখা গেছে, সাধারণত চীনের মফস্বল এলাকার যুব সমাজের স্থুলতা বৃদ্ধি পাচ্ছে স্বাভাবিকের চেয়ে বেশি মাত্রায়। তবে মুটিয়ে যাওয়ার দলে মেয়েদের তুলনায় ছেলেদের পাল্লা ভারী। গবেষণায় দেখা যায়, ১৯ বছরের নিচের বয়সী



মুসলমান উনাদের সবচেয়ে বড় শত্রু কারা?


প্রত্যেক প্রাণীই তার শত্রুকে খুব ভালো করে চিনে। আর সেই শত্রু থেকে নিজেকে রক্ষা করার ফিকির সবসময় সে করে থাকে। মানুষ হচ্ছে পৃথিবীর সর্বশ্রেষ্ঠ প্রাণী। তাদের মধ্যে আবার শ্রেষ্ঠ হচ্ছেন মুসলমান জাতি। তাহলে মুসলমানগণ উনাদের সবচেয়ে বড় শত্রু কারা। তা কি



সাইয়্যিদুল মুরসালীন, ইমামুল মুরসালীন, নূরে মুজাসসাম, হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম উনার সুমহান শান মুবারক হানীকারীর দুনিয়াতে


পবিত্র হাদীছ শরীফ উনার মধ্যে ইরশাদ মুবারক হয়েছে, قَالَ حَدَّثَنَا ابْنُ عَبَّاسٍ، أَنَّ أَعْمَى، كَانَتْ لَهُ أُمُّ وَلَدٍ تَشْتُمُ النَّبِيَّ صلى الله عليه وسلم وَتَقَعُ فِيهِ فَيَنْهَاهَا فَلاَ تَنْتَهِي وَيَزْجُرُهَا فَلاَ تَنْزَجِرُ – قَالَ – فَلَمَّا كَانَتْ ذَاتَ لَيْلَةٍ جَعَلَتْ تَقَعُ



যেসব পত্রিকা পবিত্র দ্বীন ইসলাম উনার মুখালিফ সেগুলোকে বর্জন করুন


মুনাফিক লাদেন, আইএস, তালেবান, সউদী ওহাবী শাসক বা তার সমগোত্রীয়রা কি বলছে সে সমস্ত অপ্রয়োজনীয় ও অপ্রাসঙ্গিক কথাগুলো বেশি বেশি লেখালেখি করে থাকে এক শ্রেণীর পত্রিকা। ইহুদী-নাছারা সর্বাবস্থায় চায় কি করে মুসলমানদের ক্ষতি করা যায়। বর্তমান কালের মুসলমানদের ঈমানের জযবা, ঈমানী



হযরত ছাহাবায়ে কিরাম রদ্বিয়াল্লাহু তায়ালা আনহুম উনারা যেভাবে মহাসম্মানিত ‘ফালইয়াফরহূ’ সাইয়্যিদুল আ’ইয়াদ শরীফ পালন করেছেন


সম্মানিত তাবুকের জিহাদ মুবারক উনার ঘটনা। সাইয়্যিদুল মুরসালীন, ইমামুল মুরসালীন, নূরে মুজাসসাম, হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম তিনি প্রতি ওয়াক্ত নামায বা’দ ঘোষণা মুবারক দিচ্ছেন, “হে হযরত ছাহাবায়ে কিরাম রদ্বিয়াল্লাহু তা‘য়ালা আনহুম! আপনারা যার যার সাধ্য-সামর্থ্য অনুযায়ী সম্মানিত জিহাদ



নিয়ামতওয়ালার পথ


“হযরত আনাস রদ্বিয়াল্লাহু তায়ালা আনহু বর্ননা করেন, আল্লাহ পাক উনার হাবীব হুযুর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহী ওয়া সাল্লাম তিনি ইরশাদ মুবারক করেন, প্রত্যেক মুসলামান নর-নারীর জন্য ইলম অর্জন করা ফরজ।” [মুসলিম শরীফ, ইবনে মাজাহ শরীফ, বায়হাক্বী শরীফ, মিশকাত শরীফ, মাছাবীহুস সুন্নাহ শরীফ,



হুজুগে মুসলমান, হাক্বীকতে ছু-মোল্লাদের অনুসারী!


কাফির-মুশরিকদের ক্যালেন্ডার অনুযায়ী ইউরোপ-আমেরিকায় আগামীকাল ঈদ। আমি কি করে জানি? কারন তাদের চ্যালা মোল্লারা চাঁদ দেখার এক সপ্তাহ, কোন কোন ক্ষেত্রে এক মাস আগে পত্র-পত্রিকায় ঈদের তারিখ ঘোষণা করে দিয়েছে। এভাবে এক সপ্তাহ বা এক মাস আগে ঘোষণা দিয়ে মুসলমানের ঈদ



“বোধ” কোথায়?


পহেলা রমাদ্বান শরীফের সকালে বসে ভাবছিলাম ইফতারির জন্য দেশের অত্যন্ত জনপ্রিয় একটি খাবার রান্না করব। খাবারটির নাম “হালিম”। রান্নার কথা ভাবতে গিয়ে মনে পড়ল আল্লাহ পাক উনার ৯৯টি ছিফতি নামের মধ্যে একটি হচ্ছেন الحليم (আল হালিম)। এখন কথা হচ্ছে খাবারটির এই



ঈমানদার মুসলমান উনাদেরকে বেঈমান করে জাহান্নামী বানানোর পাঁয়তারায় প্রতিনিয়ত লিপ্ত রয়েছে তাবৎ ইহুদী-নাছারা, মুশরিক গং!


দুনিয়ার তাবৎ নাছারা গং যিশুখ্রিস্টের পুনরুত্থানকে প্রতিপাদ্য করে প্রতিবছর চার্চগুলোতে ইস্টার সানডে নামক একটি অনুষ্ঠান পালন করে। এটি চার্চ কর্তৃপক্ষ কর্তৃক পালিত সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ এবং পুরনো অনুষ্ঠান; যা কিনা মহাবিষুব পরবর্তী প্রথম পূর্ণ চাঁদের প্রথম রোববার পালিত হয়। এ উপলক্ষে আমেরিকার



বিধর্মীর বিদ্বেষ


  প্রেক্ষিত ১, অন বোর্ড উইথ রয়াল ডাচ এয়ারলাইন্স খাওয়া শেষে চা-কফি পরিবেশন করছে কেবিন ক্রু। আমার সারিতে বসা বাকী দু’জন যাত্রীকে চা-কফি অফার করলো মেয়েটি। তাদেরকে পরিবেশন করে চলেও গেল, আমাকে কিছু না বলেই। ভাবটা এমন যেন ওখানে ২ জন