উদীয়মান সূর্য -blog


...


 


কে তিনি ???কে তিনি ???


বের হলাম সফরে।পথ চলছি- হঠাৎ কারো যেন অট্টহাসি আমার কানে আসে,দাঁড়িয়ে পড়ি। সাথে সাথে শুনতে পাই কান্নার ধ্বনি । এক পা ও সামনে অগ্রসর করতে পারছিনা ,কে যেন আমাকে পিছন দিক থেকে আটকে ধরে রেখেছে। কার অট্টহাসি!!! কার এই কান্নার ধ্বনি!!!



ছবি ব্লগ




প্রসঙ্গ: ছদকাতুল ফিতর


আখিরী রসূল, হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম ছদকাতুল ফিতরের পরিমাণ সম্পর্কে ইরশাদ করেন- “হযরত আব্দুল্লাহ ইবনে সা’লাবা অথবা সা’লাবা ইবনে আব্দুল্লাহ ইবনে আবু সুআইর উনার পিতা হতে বর্ণনা করেন যে, হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ইরশাদ করেন, এক সা’



আফসোস!!!মুসলিম জাহান কেন আজ আহলে বাইত আলাইহিমুস সালাম উনাদের মর্যাদা মর্তবার ব্যাপারে বেখবর!!!


আজ আহলে বাইত আলাইহিমুস সালাম উনাদের মর্যাদা মর্তবা সম্পর্কে মুসলমানরা বেখবর অথচ মহান আল্লাহ পাক রব্বুল আলামীন তিনি পবিত্র কুরআন শরীফ-এ ইরশাদ করেন, “হে আমার হাবীব ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম! আপনি (উম্মতদেরকে) বলুন, আমি তোমাদের নিকট হিদায়েত দানের বিনিময়স্বরূপ কোনো প্রতিদান



রোযা অবস্থায় হয় যদি বমি……..তাহলে মাসয়ালাটা এখন কি?না জানলে জেনেনি…


বমি সাধারণত দুপ্রকার- (ক) ইচ্ছাকৃত (খ) অনিচ্ছাকৃত। বমির মাসয়ালা হচ্ছে- ১. কেউ যদি ইচ্ছাকৃত মুখ ভরে বমি করে, তাহলে ছাওম বা রোযা ভঙ্গ হবে। ২. আর ইচ্ছাকৃত অল্প বমি করলে ছাওম বা রোযা ভঙ্গ হবে না। ৩. অনিচ্ছাকৃতভাবে মুখ ভরে বমি



কিছু মূল্যবান নছীহত…মানতে পারলে এবং অনুসরন করতে পারলে জীবনে কাজে দিবে..


১. মহান আল্লাহ পাক ইরশাদ করেন, ” তোমাদের হৃদয়কে এমন ব্যক্তির সংস্পর্শে স্থিতিশীল রাখো যারা আল্লাহ্ পাক উনার সন্তুষ্টি অর্জনের জন্য সকাল ও সন্ধ্যায় উনাকে ডাকে। আর উনাদের দিক থেকে কখনও অন্যদিকে দৃষ্টি নিবদ্ধ করো না।” (সূরা কাহাফঃ ২৮) ২. হাদীছ



ভয় নেই আজ


হে বীর মুসলিম সেনা, ঘুমিয়ে আর থেকোনা পথ যে আজ অনেক বাকি বাড়াতে হবে পথের গতি ভাঙ্গতে হবে সব -বাঁধার প্রাচীর। জ্বালাতে হবে-সত্যের আলো দূর করে সব -আঁধার কালো।   ভুলে গেলে কেমনে হবে? মোদের সেই হারানো ঐতিহ্য স্মরণ করো সেই



প্রসঙ্গ: নারী ,বেপর্দা এবং সমসাময়িক বেদনাদায়ক ঘটনাসমূহ


সামিউল ও রৌশনিদের কলঙ্কিত মা’দের ঘটনা আমাদেরকে ভাবনায় ফেলে দিয়েছে, চিন্তায় ফেলে দিয়েছে।চিন্তিত হওয়াটাই স্বাভাবিক…. কারন কবি বলেছেন ‘মাগো ডাক সুমধুর’। ‘মা’ ডাকটাই অতি মধুর। অতি মায়াময়। কিন্তু সেই ‘মা’ ডাকেরই করুণ কাহিনী দুঃখের কথায় চরম ব্যথায় পর্যবসিত হয়েছে। হতাশ হতে



মাথাটা গেলরে গেলরে …এবার করি কি যে!!!!!!!


মাথাব্যথার সাথে  আমরা সকলেই পরিচিত। কেউ ক্ষণস্থায়ীভাবে ভোগে, আবার কেউ বা নিয়মিত কষ্ট পায়। বিভিন্নভাবে মাথাব্যথা হতে পারে। কী কারণে মাথাব্যথা হচ্ছে সেটা উদ্‌ঘাটনই সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ। এর মধ্যে সবচেয়ে বেদনাসিক্ত ব্যাপার হচ্ছে মাইগ্রেন। মাইগ্রেন সাধারণত তিন প্রকার। কমন মাইগ্রেন, ক্লাসিক মাইগ্রেন



প্রসঙ্গঃ পবিত্র ও সুমহান শবে মিরাজ শরীফ


আল্লাহ পাক উনার হাবীব হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম উনার মি’রাজ শরীফ-এর ঘটনাটি কালামুল্লাহ শরীফ-এর “সূরা বণী ইসরাইল”-এর ১ নম্বর আয়াত শরীফ-এ বর্ণনা করেছেন। মহান আল্লাহ পাক তিনি ইরশাদ করেন, “মহান আল্লাহ পাক যিনি উনার বান্দা (হাবীব) ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া



১৪ই রজব – সুলত্বানুল হিন্দ, খাজা গরীবে নেওয়াজ, হাবীবুল্লাহ হযরত মুঈনুদ্দীন হাসান চিশতী রহমতুল্লাহি আলাইহি উনার পবিত্র বিলাদত শরীফ


যমীনে নবী-রসূল আলাইহিমুস সালাম উনাদের পরে যে সকল আউলিয়ায়ে কিরাম রহমতুল্লাহি আলাইহিম উনাদেরকে আল্লাহ পাক উনার খাছ বান্দা হিসেবে, লক্ষ্যস্থল হিসেবে পাঠিয়েছেন উনাদের মধ্যে অন্যতম হচ্ছেন সুলত্বানুল হিন্দ, খাজা গরীবে নেওয়াজ, হাবীবুল্লাহ হযরত মুঈনুদ্দীন হাসান চিশতী রহমতুল্লাহি আলাইহি। যিনি ৫৩৬ হিজরী



প্রসঙ্গঃ সুমহান ও পবিত্র লাইলাতুর রগায়িব


رغائب (রগায়িব) শব্দটি رغيب এর বহুবচন। যার অর্থ কাঙ্খিত বিষয়, প্রচুর দান। (মিছবাহুল লুগাত-২৯৮) পারিভাষিক বা ব্যবহারিক অর্থে আখিরী রসূল, সাইয়্যিদুল মুরসালীন, ইমামুল মুরসালীন, হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম তিনি উনার আম্মা সাইয়্যিদাতু নিসায়িল আলামীন হযরত আমিনা আলাইহাস সালাম