আবূ ইয়াকুব রাসেল -blog


...


 


হযরত নবী-রসূল আলাইহিমুস সালাম উনাদেরকে সাধারন মানুষের মত মনে করা কুফরী এবং কাফির ও জাহান্নামী হওয়ার কারণ 


যুগে যুগে কাফিররা এবং তাদের অনুসারীরাই হযরত নবী-রসূল আলাইহিমুস সালাম উনাদেরকে তাদের মতো মনে করতো। শুধু তাই নয়, সর্বপ্রথম ইবলীস শয়তান হযরত আবুল বাশার আদম ছফিউল্লাহ আলাইহিস সালাম উনাকে বাশার তথা মানুষ বলে সিজদা করতে অস্বীকার করে। শাস্তিস্বরূপ তাকে সম্মানিত জান্নাত



আমেরিকায় বিকিরণে মারা গেছে সাড়ে ৩৩ হাজার কর্মী


দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধ এবং শীতল যুদ্ধে জয়ী হতে গিয়ে ৩৩ হাজারের বেশি মার্কিন পরমাণু কর্মীকে জীবন দিতে হয়েছে। আমেরিকার মাটিতেই মাত্রাতিরিক্ত বিকিরণের শিকার হয়ে গত সাত দশকে মারা গেছে এসব পরমাণু কর্মী। এক বছর ধরে চালানো অনুসন্ধান প্রতিবেদনে এ তথ্য উঠে এসেছে।



প্রসঙ্গঃ এন্টিবায়োটিকের যথেচ্ছা ও ব্যবসায়ীক ব্যবহার। জনগণ অসচেতন থাকতে পারে না। আর সরকার কোনভাবেই দায় এড়াতে পারেনা।


একটু অসুস্থ হলেই অনেকে চিকিৎসকের পরামর্শ ছাড়াই এন্টিবায়োটিক ওষুধ খেয়ে থাকে। যা সাময়িরকভাবে অসুখের হাত থেকে মুক্তি দিলেও মানুষের শরীরে দীর্ঘস্থায়ী ক্ষতিকর প্রভাব ফেলে। এমনকি যা ভবিষ্যতে দেহে প্রাকৃতিক রোগ প্রতিরোধের ক্ষমতা চিরতরে ধ্বংস করে দিতে পারে। এন্টিবায়োটিক হচ্ছে সেই সব



শাস্তি দেয়ায় ওস্তাদ চীনা বসরা


ধমক ধামক দিয়ে থাকে সব অফিসের উর্ধ্বতন কর্মকর্তারাই। কেউ কেউ আবার টুকটাক শাস্তিও দেয়। কিন্তু কর্মচারীদের শাস্তি দেয়ার ক্ষেত্রে চীনা বসদের জুড়ি মেলা ভার। সে দেশের বসরা নাকি কর্মচারীদের স্কুলের বাচ্চাদের মত নিলডাউন আর হামগুড়ি দেয়ানোর মত শাস্তিও দিয়ে থাকে। গত



হযরত সাইয়্যিদাতুল উমাম আছ- ছালিছাহ আলাইহাস সালাম তিনি ক্বায়িম-মাক্বামে বিনতু হযরত যাহরা আলাইহাস সালাম আছ-ছালিছাহ আলাইহাস সালাম। সুবহানাল্লাহ!


নূরে মুজাসসাম হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম উনার এবং উনার পূত-পবিত্র নূরানী হযরত আহলু বাইত শরীফ আলাইহিমুস সালাম উনাদের খিদমত মুবারক, তা’যীম-তাকরীম মুবারক এবং ছানা-ছিফত মুবারক করার জন্য কায়িনাতবাসীকে আদেশ করা হয়েছে। মহান আল্লাহ পাক তিনি ইরশাদ মুবারক করেন-



মুজাদ্দিদে আ’যম, সাইয়্যিদুনা ইমাম মামদুহ হযরত মুর্শিদ ক্বিবলা আলইহিস সালাম উনার মা’রিফাত-মুহব্বত মুবারক, সন্তুষ্টি-রেযামন্দি মুবারক পেতে হলে সাইয়্যিদাতুল উমাম


সম্মানিত হাদীছ শরীফ উনার মধ্যে ইরশাদ মুবারক হয়েছ, عَنْ حَضْرَتْ أَبِىْ هُرَيْرَةَ رَضِىَ اللهُ تَعَالٰی عَنْهُ قَالَ: سمعت رسول الله صلى الله عليه وسلم يقول في حَضْرَتْ الحسن عَلَيْهِ السَّلَامُ و حَضْرَتْ الحسين عَلَيْهِ السَّلَامُ : ্র من أحبني فليحب هذين



আশ্বাসে বিশ্বাসের বাস্তবতা নাই। মোদীর সফরে বাংলাদেশ কী শুধু তিস্তার পানিই বঞ্চিত হয়েছে? না উল্টো ভারতের আগ্রাসী থাবায় ফেনী


নরেন্দ্র মোদীর সদ্যসমাপ্ত বাংলাদেশ সফরে তিস্তার পানি বন্টন নিয়ে চুক্তি না হওয়ায় কটাক্ষ করা হয়েছে চিনা সরকারি মিডিয়ায়। ভারতের প্রধানমন্ত্রীর বাংলাদেশ সফরে স্থলসীমান্ত চুক্তিসহ নানা বিষয়ে ভারত-বাংলাদেশ চুক্তি স্বাক্ষরিত হয়েছে। কিন্তু তিস্তার পানিবন্টন নিয়ে ঐকমত্য হয়নি দুটি দেশের। সরকার পরিচালিত চিনা



পবিত্র মি’রাজ শরীফকালীন নূরে মুজাসসাম, হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম উনার সাথে সাত আসমানে যে সকল হযরত


প্রথম আসমানে সাক্ষাৎ মুবারক হয়েছিল প্রথম নবী ও রসূল হযরত আদম ছফীউল্লাহ আলাইহিস সালাম উনার সাথে। দ্বিতীয় আসমানে হযরত ঈসা রূহুল্লাহ আলাইহিস সালাম এবং হযরত ইয়াহইয়া আলাইহিস সালাম উনাদের সাথে। উল্লেখ্য, হযরত ইয়াহইয়া আলাইহিস সালাম ছিলেন হযরত ঈসা রূহুল্লাহ আলাইহিস সালাম



সরকারের জন্য ফরয-ওয়াজিব হচ্ছে, ‘আওলাদে রসূল হযরত ইমাম জা’ফর ছাদিক্ব আলাইহিস সালাম উনার পবিত্র জীবনী মুবারক সকল শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের


পবিত্র হাদীছ শরীফ উনার মধ্যে ইরশাদ মুবারক হয়েছে, “হযরত আহলু বাইত শরীফ আলাইহিমুস সালাম উনাদের মুহব্বতই হচ্ছে পবিত্র ঈমান।” হযরত আহলু বাইত শরীফ আলাইহিমুস সালাম উনাদের ৬ষ্ঠ ইমাম হযরত ইমাম জা’ফর ছাদিক্ব আলাইহিস সালাম উনার পবিত্র বিছাল শরীফ দিবস হচ্ছে- পবিত্র



আগর চাষ থেকে বছরে ১ হাজার কোটি টাকা আয় করা সম্ভব


আগর চারার তেমন কোনো পরিচর্যার দরকার হয় না। মহান আল্লাহ পাক উনার রহমতে অতিবৃষ্টি বা অনাবৃষ্টিতে আগর গাছের কোনো ক্ষতি হয় না। পাহাড়ি এলাকায় পানি জমে না বিধায় মৌলভীবাজার, রাঙামাটি, খাগড়াছড়ি ও বান্দরবান জেলা আগর চাষের জন্য অত্যন্ত উপযোগী। আগর দিয়ে



পবিত্র লাইলাতুর রগায়িব উনার মহিমা


পবিত্র শাহরুল্লাহিল হারাম রজবুল আছম্ম মাস উনার পহেলা জুমুয়াবার রাতকে হযরত ইমাম-মুজতাহিদ রহমতুল্লাহি আলাইহিম উনাদের পরিভাষায় পবিত্র ‘লাইলাতুর রগায়িব’ বলা হয়। এ রাত মুবারকেই সাইয়্যিদুল আম্বিয়া ওয়াল মুরসালীন, নূরে মুজাসসাম, হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম তিনি উনার সম্মানিতা মাতা



যারা যমীনে ফিৎনা-ফাসাদ সৃষ্টি করে তারা মুসলমান নয় বরং মহান আল্লাহ পাক উনার শত্রু


খালিক্ব মালিক রব মহান আল্লাহ পাক তিনি পবিত্র কালাম পাক উনার মধ্যে ইরশাদ মুবারক করেন, لا تفسدوا فى الارض অর্থ : (হে যমীনবাসী) তোমরা যমীনে ফিতনা-ফাসাদ সৃষ্টি করো না। (পবিত্র সূরা বাক্বারা শরীফ : পবিত্র আয়াত শরীফ ১১, পবিত্র সূরা আ’রাফ