রিয়াদুজ্জামান -blog


...


 


সম্মানিত হযরত ছাহাবায়ে কিরাম রদ্বিয়াল্লাহ তায়ালা আনহুম উনারা পবিত্র আখিরী চাহার শোম্বাহ শরীফ পালন করেছেন


আখির অর্থ শেষ, আর চাহার শোম্বাহ অর্থ আরবিয়া বা বুধবার। এক কথায় আখিরী চাহার শোম্বাহ অর্থ শেষ আরবিয়া (বুধবার)। সম্মানিত ইসলামী শরীয়ত উনার পরিভাষায় পবিত্র ছফর শরীফ মাস উনার শেষ আরবিয়া (বুধবার)কে পবিত্র আখিরী চাহার শোম্বাহ বলা হয়। সাইয়্যিদুল মুরসালীন, ইমামুল



আখিরী চাহার শোম্বা শরীফ উপলক্ষে সর্বশ্রেষ্ঠ আমল সুন্নতী আমলসমূহ


কোন আমলই পবিত্র সুন্নত মুবারক ব্যতীত পূর্ণতায় পৌঁছেনা। পবিত্র সুন্নত মুবারক উনার মধ্যেই রয়েছেন শতভাগ রহমত বরকত ও সাক্বীনা। আর এই অবারিত রহমত মুবারক নিয়ে এলেন পবিত্র আখেরী চাহার শোম্বাহ শরীফ। যে দিনটিতে কিছু সুন্নতী আমল তথা সর্বশ্রেষ্ঠ ও সর্বোত্তম আমল



আজ সুমহান বরকতময় পবিত্র ৫ই ছফর শরীফ। সুবহানাল্লাহ! সাইয়্যিদাতু নিসায়িল আলামীন, সাইয়্যিদাতুনা হযরত উম্মুল মু’মিনীন আছ ছানিয়াহ আলাইহাস সালাম


মহান আল্লাহ পাক তিনি ইরশাদ মুবারক করেন, ‘মহান আল্লাহ পাক উনার বিশেষ বিশেষ রাত ও দিনগুলো তাদেরকে স্মরণ করিয়ে দিন।’ সুবহানাল্লাহ! আজ সুমহান বরকতময় পবিত্র ৫ই ছফর শরীফ। সুবহানাল্লাহ! সাইয়্যিদাতু নিসায়িল আলামীন, সাইয়্যিদাতুনা হযরত উম্মুল মু’মিনীন আছ ছানিয়াহ আলাইহাস সালাম উনার



পবিত্র দ্বীন ইসলামে নারীর মর্যাদা ও অধিকার: কন্যা-সন্তান হিসেবে নারীর মর্যাদা


মহান আল্লাহ পাক তিনি ইরশাদ মুবারক করেন, بِأَيِّ ذَنْبٍ قُتِلَتْ وَإِذَا الْمَوْءُودَةُ سُئِلَتْ অর্থ : যখন জীবন্ত প্রোথিত কন্যা সন্তানকে জিজ্ঞেস করা হবে; কোন্ অপরাধে তাকে হত্যা করা হয়েছিল। (পবিত্র সূরা তাকভীর শরীফ, পবিত্র আয়াত শরীফ ৮-৯) কন্যা সন্তানের হত্যার এক



স্বকীয়তা ধারণ করে মুসলমানদের উচিত প্রকৃত মুসলমানে পরিণত হওয়া


আমরা সবাই নিজেদের মুসলমান এবং ঈমানদার বলে দাবি করি। অথচ মহান আল্লাহ পাক তিনি পবিত্র কালামুল্লাহ শরীফ উনার মধ্যে ইরশাদ মুবারক করেন, “যদি তোমরা ঈমানদার দাবি করে থাকো তবে আল্লাহ পাক উনাকে ও উনার রসূল নূরে মুজাসসাম, হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু



কায়িনাতজুড়ে মহান আল্লাহ পাক উনার মুবারক নির্দেশে পবিত্র সাইয়্যিদুল আইয়াদ শরীফ পালন


বিশ্বসমাদৃত “আননি’মাতুল কুবরা আলাল আলাম” কিতাবে বর্ণিত রয়েছে, সাইয়্যিদাতুল উম্মাহাত, মালিকাতুল জান্নাহ, হাবীবাতুল্লাহ, সাইয়্যিদাতুন নিসা হযরত উম্মু রসূলিনা ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম তিনি বলেন, নূরে মুজাসসাম হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম উনার বিলাদতী শান মুবারক প্রকাশকালে আমি দেখতে পেলাম,



পবিত্র আশূরা মিনাল মুহররমুল হারাম শরীফ উনার কতিপয় বৈশিষ্ট্য


১। পবিত্র মুহররমুল হারাম শরীফ মাসটি চারটি হারাম বা পবিত্র মাসের মধ্যে অন্যতম মাস। ২। এ মাসটি বিশেষভাবে সম্মানিত । ৩। পবিত্র আশূরা শরীফ উনার দিনটি পবিত্র মুহররমুল হারাম শরীফ মাসের দশ তারিখ বলে এর নাম পবিত্র আশূরা শরীফ হয়েছে। ৪।



পবিত্র সুন্নত মুবারক মুবারক জারী হওয়া মানেই বিদয়াত দূরীভূত হওয়া


পবিত্র হাদীছ শরীফ উনার মধ্যে ইরশাদ মুবারক হয়েছে, “ফিতনা-ফাসাদের যুগে যে একটি সুন্নত মুবারক উনাকে মাড়ির দাঁত দ্বারা শক্তভাবে আঁকড়িয়ে ধারণ করবে, সে একশত শহীদ উনাদের সওয়াব পাবে, কেমন শহীদ? বদর এবং উহুদের যুদ্ধে শরীক হওয়া শহীদ উনাদের ছওয়াব তথা মর্যাদা-মর্তবা



সবার রিযিকের মালিক মহান আল্লাহ পাক তিনি; যা কুদরতী বিষয়


ومامن دابة فى الارض الاعلى الله رزقها অর্থ: “যমীনে যত প্রাণী আছে সবার রিযিকের মালিক মহান আল্লাহ পাক তিনি।” (পবিত্র সূরা হুদ শরীফ: পবিত্র আয়াত শরীফ-৬ ) হযরত সুলাইমান আলাইহিস সালাম তিনি একবার বললেন, মহান আল্লাহ পাক আমি সমস্ত মাখলুককে এক



নূরে মুজাসসাম, হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম উনার পবিত্র শান মুবারক উনার খিলাফ বুখারী শরীফে একটি জাল


বুখারী শরীফ, মুসলিম শরীফ নাম শুনলে পৃথিবীবাসীর কাছে আর যেন কোন দলীলই প্রয়োজন হয়না। এখানে যা আছে চোখ বুজে মানুষ মেনেও নেয়। যেহেতু হাদীছ শরীফ উনার কিতাব সেহেতু মেনে নিবে এটাই স্বাভাবিক। কিন্তু আক্বীদার ক্ষেত্রে উছূল হচ্ছে যখন এমন কোন বর্ণনা



মহান আল্লাহ পাক উনার খালিছ ওলী হযরত মুজাদ্দিদে আলফে ছানী রহমতুল্লাহি আলাইহি তিনি ছিলেন পবিত্র সুন্নত মুবারক জিন্দাকারী পাশাপাশি


মহান আল্লাহ পাক তিনি উনার প্রিয়তম হাবীব, সাইয়্যিদুল মুরসালীন, ইমামুল মুরসালীন, নূরে মুজাসসাম, হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম উনার মাধ্যমে আসমানী ওহী প্রেরণের অবসান ঘটিয়েছেন। এরপর মানুষকে প্রশিক্ষিত ও নিবিষ্ট করার দায়িত্বে যুগে যুগে নিয়োজিত থাকেন ওয়ারাছাতুল আম্বিয়াগণ তথা



মুসলমানগণের ইবাদত-বন্দেগী নষ্টকরণে সউদী ওহাবী ইহুদী শাসকদের প্রতারণা


সউদী সরকার তবৎড় সড়ড়হ অনুযায়ী নতুন চন্দ্রমাস শুরু করে, যা শরীয়তসম্মত নয়। কারণ শরীয়তে চাঁদ চাক্ষুষ দেখা শর্ত। মূলত, তবৎড় সড়ড়হ অনুযায়ী সউদী ওহাবী ইহুদী সরকার চন্দ্র তারিখ ঘোষণা করার করণে এই তারিখ অনুযায়ী কেউ যদি রোযা শুরু করে, তবে যে