মুজাদ্দিদী সৈনিক -blog


...


 


মাহমুদুর রহমানের লাইগা পুড়ায় মন হেফাজতী জামাতের- ৪কোটি টাকার টান!


হেফাজতে জামাত। তারা না লং মার্চ করছিল নাস্তিকদের বিরুদ্ধে। ভাবছিলাম, ওরা মনে হয় শুধু নাস্তিকদের বিরুদ্ধেই সোচ্চার, কোন রাজনীতি করে না। ওরাও সেইটাই কয়। কিন্তু এখন তো আর বুঝি না, ঘটনা কি। মাহমুদুর রহমান সে কে? সে কি বাংলাদেশের ইসলামী নেতা,



হিফজতের প্রধান আস্তানা ভারতের দেওবন্দ: দেখুন সেই দেওবন্দীদের কি অবস্থা


কথিত হিফজতে ইসলাম বা হাটহাজারি বা পটিয়া মাদ্রাসা অর্থ্যাৎ কওমী মাদ্রাসাগুলো ভারতের দেওবন্দ সিলসিলার অনুসারি। কিন্তু সেই দেওবন্দের কি অবস্থা দেখুন: ১) দেওবন্দের ২৯ তম বার্ষিক সভার প্রধান অতিথি শ্রী শ্রী রবি শঙ্কর Click This Link ২) বাবা রাম দেও’র থেকে



নাস্তিকদের বিরুদ্ধে অভিযোগের কারণে তাদের এক রসিকা পত্র “দৈনিক মতিকন্ঠে” ব্যঙ্গ লেখা!!!


ইসলাম ও মহানবীকে ব্লগে অবমাননাকারী নাস্তিকদের শাস্তির দাবিতে ৮টি ব্লগ’ও ৮৪ নাস্তিক ব্লগারের তালিকা হস্তান্তর করা হয়েছে। ইসলাম ও মহানবীকে অবমাননাকারীদের খুঁজে বের করতে প্রধানমন্ত্রীর গঠিত কমিটির কাছে এই তালিকা দেন মোহাম্মদীয়া জামেয়া শরীফ’র উপদেষ্টা ইসলামী চিন্তাবিদ আল্লামা মোহাম্মদ মাহবুব আলম



যারা হরতালে গাড়ি, দোকান ভাংচুর করে, আগুন জ্বালায়, তারা স্বাধীনতা বিরোধী, তাদেরকে সন্ত্রাসী হিসেবে চিহ্নিত করা হোক ।।


একটি রাজনৈতিক দল হরতাল দেয় অবশ্যই একটি দাবী আদায়ের জন্য। এবং হরতালের উদ্দেশ্য হল সকল দরজায় তালা ঝুলানো। কিন্তু কোন ব্যক্তি যদি সেই দাবীর সাথে একমত না হয়, হরতালকে সমর্থন না করে, তাহলে সে কেন হরতাল পালন করবে? হরতাল পালন করতে বাধ্য



অনেক হক্ব‌পন্থীরা জামায়াতে নামাজ পড়েন না; কিন্তু কেন?


হক্ব‌পন্থীরা জামায়াতে নামাজ পড়েন না (নাউযুবিল্লাহ)। কথাটা পুরোপুরি মিথ্যা। যারা হক্ব‌পন্থী, তারা অবশ্যই জামায়াতে নামাজ পড়বেন, কেননা জামায়াতে নামাজ পড়া সুন্নতে মুয়াক্কাদাহ। আচ্ছা, কাফিরদের কি সালাম দেওয়া জায়িজ আছে? নাই। তাহলে কোন মুসলমানের যদি দাড়ি-টুপি বা মুসলমানিত্বে‌র আলামত না থাকে, তবে



ওহাবী, সালাফী, খারিজি, আহলে হাদিছ, জামাতী-মওদুদী তথা জাহিল মাওলানা, কাফিরদের এজেন্ট, উলামায়ে ছু’দের এক নব্য ফতোয়া শুনুন!!


দুনিয়ার মানুষের কাছে নিজের পান্ডিত্য জাহির করতে যেয়ে অনেকে মূর্খসূচক কথা বলে থাকে। এরা তাওহীদ তাওহীদ করতে যেয়ে অনেক ফরয বা সুন্নতকে শিরক বলে থাকে; আবার ফরয সহীহ আকীদাকে শিরক বলে থাকে।(নাউযুবিললাহ) যেমনঃ নূরে মুজাসসাম, হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া



সন্ত্রাসবাদী সংগঠন হিযবুত তাহরীর মওদুদীবাদী জামাতেরই সহযাত্রী


জামাত-শিবিরের আস্তানাগুলো: গোয়েন্দা প্রতিবেদনে ঢাকায় যেসব স্থানে জামাত-শিবিরের আস্তানা রয়েছে বলে উল্লেখ করা হয়, সেগুলো হলো- নিউ মার্কেট কাঁটাবন ঢালের ২৬৬ নম্বর বাড়ি, নিউ মার্কেটের পাশে এলিফ্যান্ট রোডের ২৬৪ নম্বর বাড়ি, এলিফ্যান্ট রোডের ৫১ নম্বর পাঁচতলা ভবন, এলিফ্যান্ট রোডের ৬৬ নম্বর



এপিএসকে বরখাস্ত করল সুরঞ্জিত, সুরঞ্জিতকে বরখাস্ত করবে কে?


সেইদিন যাচ্ছিলাম ঢাকা থেকে ট্রেনে অন্য জেলায়। ভোরে লাইনে দাড়িয়েও শুনতে পেলাম সিট শেষ, স্ট্যান্ডিং টিকিট আছে। অথচ, টিকিট কিনে যেয়ে দেখি পুরো বগি ফাকা। এখন কি করতে হবে, সেখানকার চেকার বলল যে, ‘বসতে চাইলে ৪০ টাকা লাগবে।’ দেখুন রেল যোগাযোগের



কথিত ‘লালন শাহ’ আসলে ‘বাউল লালন’; যে ছিল হিন্দু


ভারতের আনন্দবাজার পত্রিকায় এসেছে, বাউল লালন জন্মগ্রহণ করে হিন্দু কায়স্থ পরিবারে, তবে সে আশ্রিত ছিল একটি মুসলিম পরিবারে। সে মুসলমান পরিবারের সেবক হিসেবে থাকলেও সে ইসলাম গ্রহণ করেনি বা সে মুসলমান হয়নি। ফলে সে জীবনে এক ওয়াক্ত নামাযও পড়েনি। একটি রোযাও



সংখ্যালঘু হিন্দুরা বাংলাদেশে সাম্প্রদায়িকতা ছড়াচ্ছে; আসুন প্রতিরোধ গড়ে তুলি


২রা এপ্রিলঃ স্বাধীনতা দিবস উপলক্ষে ২৭শে মার্চ ফতেপুর মাধ্যমিক বিদ্যালয়ে আবুল মনসুর আহমদের ‘হযুর কেবলা’ গল্পের নাট্যরূপ মঞ্চস্থ হয়। সেই নাটকে ধর্মীয় অনুভূতিতে আঘাত ও হযরত রসূলুল্লাহ ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম-উনাকে কটূক্তি করার ঘটনাকে কেন্দ্র করে সাতক্ষীরার ধর্মপ্রাণ মুসলমান উত্তপ্ত হয়ে



আসুন কাউমাউ না করে জেনে নেই, যে কোন নতুন বছর উদযাপন করার ব্যাপারে ইসলাম কি বলে?


আমি মায়ের সন্তান, আবার বাবারও সন্তান। বাবার সন্তান যখন বলা হবে, তখন আমি মাকে দূরে ঠেলে দিতে পারি না। তারা দুজনেই আমার আপন। একইভাবে আমি মুসলমান, আবার আমি বাংলাদেশী। বাংলাদেশী হয়ে জন্মেছি। কিন্তু কতজন বাংলাদেশকে মুহব্বত করে? অধিকাংশের মুখে শুনি, “বাংলাদেশটা



প্রত্যেক মুসলমানের জন্য মাযহাবের অনুসরণ করা অপরিহার্য তথা ফরয-ওয়াজিব


মাযহাবের আভিধানিক অর্থ ‘চলার পথ’। শরীয়তের পরিভাষায় কুরআন শরীফ, হাদীছ শরীফ তথা ফিক্বাহর অনুসরণ করতে গিয়ে যে যেই ইমাম উনার তাকলীদ বা অনুসরণ করে সে সেই ইমাম উনার মাযহাবের অন্তর্ভুক্ত। মূলত প্রত্যেক ছাহাবী এবং প্রত্যেক ইমাম-মুজতাহিদ উনারা প্রত্যেকেই একটি করে মাযহাব