সরলমত -blog


...


 


যেভাবে এক বছরে মুসলমানগণ উনাদের জন্য ঈদ উনার সংখ্যা সর্বমোট ১৭৭ বা ১৭৮ দিন


ভূমিকাঃ মহান আল্লাহ পাক তিনি ইরশাদ করেন, (হে আমার হাবীব!) আপনি বলুন, মহান আল্লাহ পাক উনার ফযল ও রহমত অর্থাৎ আমাকে পাওয়ার কারণে তোমাদের উচিত ঈদ বা খুশি প্রকাশ করা। অর্থাৎ সাইয়্যিদুল আ’ইয়াদ, সাইয়্যিদে ঈদে আ’যম, সাইয়্যিদে ঈদে আকবর অর্থাৎ কুল-কায়িনাতের



শিয়াদের কুফরী বিশ্বাস সমূহ, যা যেকোন মুসলমান শুনলেই আঁতকে উঠবেন


যারা হযরত আলী আলাইহিস সালাম উনাকে অনুসরনের দোহাই দিয়ে সাহাবায়ে কিরাম রদ্বিয়াল্লাহু আনহুম উনাদের চরম বিরোধীতা করে। এদেরকে রাফেযী ও বলা হয়ে থাকে । এদের মধ্যে ২২ টি দল আছে। যাদের মৌলিক আক্বিদা এক,যৎসামান্য প্রার্থক্য আছে। নিম্মে তাদের আক্বীদা সমূহ দেয়া



প্রত্যেক বান্দা-বান্দী ও উম্মতের জন্য সাইয়্যিদুল আ’ইয়াদ, ঈদে আ’যম , ঈদে মীলাদুন নবী ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম পালন করা


হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম উনার প্রতি। যিনি সমগ্র কায়িনাতের মূল বা উৎস। উনার মুবারক শানে মহান আল্লাহ পাক তিনি ইরশাদ করেন, ورفعنا لك ذكرك. অর্থ: “আমি আপনার সুমহান মর্যাদাকে বুলন্দ করেছি।” (সূরা ইনশিরাহ) এ আয়াত শরীফ-এ মহান আল্লাহ



গলা ব্যথার চা বানাতে শিখুন !


উপকরণ : দুইটা লেবু গোল গোল টুকরা করে চার ভাগ করে নিন। দুইটা আদার পয়সার মত করে গোল গোল কেটে নিন। আন্দাজ বা পছন্দ মতো পরিমানে খাঁটি মধু। প্রণালী : একটি ছোট কাঁচের কৌটায় লেবু আর আদার টুকরা রাখুন। এরপর তাতে



ইমামুছ ছালিছ মিন আহলে বাইতে রসূলিল্লাহ সাইয়্যিদুনা হযরত ইমাম হুসাইন আলাইহিস সালাম উনার প্রতি নূরে মুজাসসাম, হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক


একদিন মহান আল্লাহ পাক উনার রসূল, নূরে মুজাসসাম, হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম তিনি এমন অবস্থায় বাইরে তাশরীফ আনলেন যে, উনার এক কাঁধ মুবারক উনার উপর হযরত ইমামুছ ছানী মিন আহলি বাইতি রসূলিল্লাহি ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম তিনি এবং



সম্মানিত পবিত্র আশুরা শরীফ তো শুরু হলো। আপনি প্রস্তত তো?


আশুরা শরীফ উনার সম্মানার্থে ::> আপনি কি বিশেষ দোয়ায় মশগুল হবেন না? আপনি ভালো খাবারের আয়োজন করবেন না? আপনি কি পরিবারের সবাইকে ভালো খাওয়াবেন না? আপনি কি ৯, ১০ বা ১০ , ১১ ই মুহররম রোযা রাখবেন না? আপনি কি চোখে



”হযরত আদম আলাইহিস সালাম তিনি গন্দম খেয়ে ভুল ও গুনাহ করেছেন”- এটা বিশ্বাস করা কুফরী তথা জাহান্নামী হওয়ার কারন


ভূমিকাঃ মহান আল্লাহ পাক তিনি ইরশাদ মুবারক করেন, ‘নিশ্চয়ই মহান আল্লাহ পাক তিনি হযরত আদম আলাইহিস সালাম উনাকে (সম্মানিত রসূল আলাইহিস সালাম হিসেবে) মনোনীত করেছেন।’ আশুরা শরীফ উপলক্ষে আলোচনা প্রসঙ্গেঃ পবিত্র আশূরা শরীফ তথা ১০ ই মুহররম শরীফ উপলক্ষে আলোচনা করতে



আমীরুল মু’মিনীন হযরত ফারূক্বে আ’যম আলাইহিস সালাম উনার অমুসলিমদের প্রতি ইনসাফ


আমীরুল মু’মিনীন হযরত ফারূক্বে আ’যম আলাইহিস সালাম উনার খিলাফত আমলে অমুসলিমদের প্রতিও কতটা ন্যায়পরায়ণতা অবলম্বন করা হতো, নিম্নের ঘটনা থেকে তা উপলব্ধি করা যায়। একবার রোম সম্রাট হিরাক্লিয়াসের প্রবল প্রতিরোধমূলক আক্রমণের দরুণ হিকমত অবলম্বনস্বরূপ কতক অগ্রসরমান মুসলমান সৈন্যকে পশ্চাতে নিয়ে আসেন।



ডিমের জানা অজানা !


১. পুষ্টিগুণের কথা বিবেচনায়, দেশি ডিমের চেয়ে ফার্মের ডিমে পুষ্টিগুণ বেশি থাকে। একটি ফার্মের ডিমে ক্যালরি আছে ৮০ এবং দেশি মুরগির ডিমে ক্যালরি আছে মাত্র ৫০। ২. ফার্মের ডিমে পাওয়া যায় ৮ গ্রাম প্রোটিন ও ৬ গ্রাম চর্বি রয়েছে। ডিমের কুসুমে



লাল ডিম নাকি সাদা ডিম ! কোনটা খাবেন?


কারো কারো ধারণা সাদা ডিমে ভিটামিন বেশি ৷ আবার কারো ধারণা লাল ডিমে ৷ এ ধারণাটা সম্পূর্ণ ভুল ৷ সব ডিমেই সমান ভিটামিন বা পুষ্টি উপাদান বিদ্যমান ৷ ১টা ডিমে ১২-১৪% প্রোটিন, ১০-১২% স্নেহ ও ১০% খনিজ পদার্থ বিদ্যমান যা একটা



পেয়ারার যত গুনাগুণ !


১. পেয়ারায় প্রচুর পরিমাণে ভিটামিন ‘সি’ পাওয়া যায়৷ ১০০ গ্রাম পেয়ারায় ১৮০ মি.গ্রাম ভিটামিট ‘সি’ থাকে, যা কমলার তুলনায় পাঁচগুণ বেশি৷ ২. পেয়ারায় আছে ভিটামিট ‘এ’ ও ভিটামিন ‘বি’ কমপ্লেক্স৷ ৩. আছে যথেষ্ট পরিমাণে বিটা ক্যারোটিন৷ ৪. সেই সঙ্গে রয়েছে ক্যালসিয়াম,



জন্মাষ্টমী ও দুর্গাপূজায় সার্বজনীন ছুটি চাওয়া পাগলের প্রলাপ


বাংলাদেশে মুসলমানগণ উনাদের সংখ্যা শতকরা ৯৭ ভাগ। আর হিন্দুদের সংখ্যা শতকরা ২ ভাগের ও কম। হিন্দুরা ভারতের চেয়েও এখানে চরম শান্তিতে বসবাস করছে। বাংলাদেশে মুসলমানগণ হিন্দুদের প্রতি এত সহানুভূতি দেখিয়ে আসছে যা তারা তাদের কথিত কল্পিত স্বর্গেও আশা করতে পারে না।