সরলকথা -blog


...


 


গরুর গোশত খাওয়া নিয়ে মুনাফিকদের বক্তব্য- সম্মানিত দ্বীন ইসলামবিরোধী ও কুফরী


সম্মানিত মুসলমান উনাদের জন্য সম্মানিত দ্বীন ইসলাম উনার বিরোধী কোনো বক্তব্য, মন্তব্য, ব্যাখ্যা, বিশ্লেষণ, লিখনী গ্রহণযোগ্য ও অনুসরণযোগ্য নয়। মহান আল্লাহ পাক তিনি ইরশাদ মুবারক করেন- وَمَنْ يَّبْتَغِ غَيْرَ الْاِسْلَامِ دِيْنًا فَلَنْ يُّقْبَلَ مِنْهُ وَهُوَ فِى الْاٰخِرَةِ مِنَ الْخٰسِرِيْنَ অর্থ: “যে



সম্মানিত ইসলামী শরীয়ত উনার আলোকে নিকাহ বা বিবাহ-শাদীর ফযীলত গুরুত্ব ও আহকাম সম্মানিত ইসলামী শরীয়ত বিবাহের কোন বয়স নির্দিষ্ট


মহান আল্লাহ পাক তিনি ইরশাদ মুবারক করেন- وَمِنْ ايَاتِه انْ خَلَقَ لَكُمْ مِنْ أَنْفُسِكُمْ أَزْوَاجًا لِتَسْكُنُوا اِلَيْهَا وَجَعَلَ بَيْنَكُمْ مَوَدَّةً وَرَحْمَةً ۚ ِانَّ فِى ذَٰلِكَ لَآيَاتٍ لِقَوْمٍ يَتَفَكَّرُونَ অর্থ: মহান আল্লাহ পাক উনার নিদর্শনসমূহের মধ্যে এটাও একটি নিদর্শন যে, তিনি তোমাদের



২৪শে শাওওয়াল-১৪৩২ হিজরী, জুমুয়াবার। প্রত্যেক সপ্তাহে জুমুয়াবার দিন আসলেই সাইয়্যিদুনা হযরত দাদীজান ক্বিবলা আলাইহাস সালাম তিনি হাত-পা মুবারকের নখ


প্রত্যেক জুমুয়াবারের মতো তিনি পবিত্র বিছালী শান মুবারক প্রকাশ উনার আগের দিন ২৪ শাওওয়াল জুমুয়াবার নখ কেটেছেন, গোসল করেছেন অতঃপর তিনি কিছু নাস্তা মুবারক খেয়ে ঘুমিয়েছিলেন। ঘুম থেকে জেগে তিনি যুহর নামায আদায় করার পর দুপুরের খাবার খেয়েছেন। এরপর আসর নামাযের



যদি গোবর-গোচনা থেকে বিরত থাকতে চান, তাহলে বিধর্মীদের হোটেলে খাওয়া-দাওয়া থেকে বিরত থাকুন


মহান আল্লাহ পাক তিনি পবিত্র কালামুল্লাহ শরীফ উনার মধ্যে ইরশাদ মুবারক করেন, “নিশ্চয়ই মুশরিকরা (পূজারী) নাপাক”। নাপাক মুশরিক মূর্তিপূজারীদের জাতিগত অভ্যাস ধর্মের পবিত্রতার নামে খাবার জাতীয় মিষ্টি, জিলাপী, দই, রসগোল্লা ইত্যাদিতে গোবর-গোচনা ছিটানো যা আমি প্রত্যক্ষদর্শী। নাপাক হিন্দুরা গরুকে তাদের মা



মুসলিম সাংবাদিকের চোখে সন্ত্রাসী বা ধর্মব্যবসায়ীদের বইকে ‘জিহাদী বই’ লেখা প্রসঙ্গে


“গতকাল রাজধানীর একটি মেস থেকে ককটেল, চাপাতি, দেশীয় অস্ত্রসহ বিপুল পরিমাণ জিহাদী বই উদ্ধার করেছে র‌্যাব” -আমাদের দেশসহ বিশ্বজুড়ে সকল সাংবাদিক, দৈনিক পত্রিকাসহ সমস্ত মিডিয়াগুলোর খুব স্বাভাবিক ভাষা এরকমই। আর এ ধরনের ভাষায় সংবাদ পড়তে আমরাও অভ্যস্ত। কিন্তু এই সংবাদের মধ্যেই



ফিতনাবাজ ও বিশৃঙ্খলা সৃষ্টিকারীরাই মহিলাদেরকে মসজিদে জামায়াতে নামায পড়ানোর জন্য উৎসাহিত করে


মুসলিম মহিলাদের জন্য যেকোনো প্রকারের নামায জামায়াতের সাথে আদায় করার জন্য মসজিদ বা ঈদগাহে গমন করা সম্মানিত ইসলামী শরীয়া অনুযায়ী কবীরা গুনাহ ও কুফরী। এই আমলে মহিলাদের জন্য বিন্দু পরিমাণ নেকীতো নেই; বরং কঠিন কবীরা গুনাহ হবে। কারণ উম্মুল মু’মিনীন আছ



একজন মুসলমানের কেমন হওয়া উচিত?


যিনি মহান আল্লাহ পাক উনার উপর পরিপূর্ণ আস্থা ও বিশ্বাস স্থাপন করেছেন, আখিরী নবী, নূরে মুজাসসাম, হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম উনার উপর ঈমান এনেছেন, উনাকে সম্মানিত নবী ও রসূল হিসেবে এবং একমাত্র আদর্শ হিসেবে মেনে নিয়েছেন, সর্বোপরি আহলে



গতকালকে মস্কোতে রাশিয়া-বাংলাদেশ-ভারতের মধ্যে রুপপুর পরমাণু প্রকল্প নিয়ে একটি চূক্তি সাক্ষরিত হয়েছে।


গতকালকে মস্কোতে রাশিয়া-বাংলাদেশ-ভারতের মধ্যে রুপপুর পরমাণু প্রকল্প নিয়ে একটি চূক্তি সাক্ষরিত হয়েছে। এ চূক্তি অনুসারে ভারত সরকারের মালিকানাধীন নিউক্লিয়ার পাওয়ার কো-অপারেশন অব ইন্ডিয়া লিমিটেড (এনপিসিআইএল) রুপপুর পারমানবিক প্রকল্পের যাবতীয় মালামাল ও কনসালটেন্সি সরবরাহ করবে। (http://bit.ly/2FgC8ok) ভারত সরকারের মালিকানাধীন ‘এনপিসিআইএল’ বাংলাদেশের রূপপুর



মুসলমান উনাদের সবচেয়ে বড় শত্রু কারা?


প্রত্যেক প্রাণীই তার শত্রুকে খুব ভালো করে চিনে। আর সেই শত্রু থেকে নিজেকে রক্ষা করার ফিকির সবসময় সে করে থাকে। মানুষ হচ্ছে পৃথিবীর সর্বশ্রেষ্ঠ প্রাণী। তাদের মধ্যে আবার শ্রেষ্ঠ হচ্ছেন মুসলমান জাতি। তাহলে মুসলমানগণ উনাদের সবচেয়ে বড় শত্রু কারা। তা কি



পবিত্র দ্বীন ইসলাম উনার মধ্যে একটি বিশেষ দিন‘পবিত্র আখিরী চাহার শোম্বাহ শরীফ’


‘পবিত্র আখিরী চাহার শোম্বাহ শরীফ’ বলতে পবিত্র ছফর শরীফ মাস উনার শেষ বুধবার উনাকে বলা হয়। পবিত্র ছফর শরীফ মাস ব্যতীত আর কোনো মাস উনার শেষ আরবিয়া বা বুধবারকে ‘পবিত্র আখিরী চাহার শোম্বাহ শরীফ’ বলা হয় না। যেমন ‘আশূরা’ শব্দটি আরবী



মুসলিম দেশে কেন পূজার আয়োজন?


মধ্যপ্রাচ্যে বাংলাদেশ হতেও বেশি হিন্দু থাকে কিন্তু সেখানে কোনো পূজা হয় না। তাহলে মুসলিম দেশ বাংলাদেশে কেন পূজার আয়োজন? হিন্দুরা যদি পূজা করতে চায়, তাহলে তারা আবদ্ধ জায়গায় কর”ক, তাদের বাড়িতে যা খুশি করুক। কিন্তু প্রকাশ্যে মুসলমান উনাদের প্রতিষ্ঠানে পূজা কেন?



মুসলমানদের জন্য কাফির-মুশরিক, বিধর্মী-বিজাতীয়দের প্রবর্তিত দিবসসমূহ পালন করা হারাম। যে পালন করবে, সে মুসলমান থেকে খারিজ হয়ে যাবে আল্লামা


সম্মানিত মুসলমান উনাদেরকে যিনি খলিক্ব মালিক রব মহান আল্লাহ পাক তিনি “আইয়্যামুল্লাহ” অর্থাৎ মহান আল্লাহ পাক উনার সম্মানিত দিবসসমূহ পালন করার জন্য আদেশ মুবারক করেছেন। বিপরতী পক্ষে মহান আল্লাহ পাক উনার শত্রু কাফির-মুশরিক, বেদ্বীন-বিজাতিদের প্রবর্তিত ও পালিত দিবসসমূহ পালন করতে নিষেধ