tahkik9 -blog


writer


 


লা-মাজহাবী দের মুখোশ উন্মোচন পর্ব-২


  প্রসঙ্গঃ আল্লাহ পাক আরশে স্থির হয়ে আছেন(নাউজুবিল্লাহ)   আমরা জানি, গতিশীল বা ঘূর্ণনশীল বস্তুই কেবল স্থির হয়। আল্লাহ তায়ালার ক্ষেত্রে গতিশীল বা স্থির হওযার আকিদা মূলত: আল্লাহ তায়ালাকে সৃষ্টির সাথে সাদৃশ্য দেয়া। অথচ তথাকথিত সালাফী আলেমরা আল্লাহ তায়ালা সম্পর্কে এই



পবিত্র মীরাজ শরীফের রাতে ইবাদত এবং দিনে রোজা রাখার প্রসঙ্গে কিছু বর্ননা


  ** বড়পীর ছাহেব রহমতুল্লাহি আলাইহি তার বিশ্বখ্যাত কিতাব “গুন্ইয়াতুত তালিবীন” নামক কিতাবে শবে মিরাজ-এর তথা রজব মাসে ২৭ তারিখের রোযার ফযীলত সম্পর্কে হাদীছ শরীফগুলো বর্ণনা করেন। যেমন – الله بى ص الله تعالى عنه عن ال وعن ابى هريرة ر



পবিত্র মিরাজ শরীফ !! পবিত্র মিরাজ শরীফ !!


  আল্লাহ পাক ইরশাদ মুবারক করেন- سبحن الذي اسري بعبده ليلا من المسجد الحرام الي المسجد الاقصي الذي باركنا حوله لنريه من ايتنا انه هو السميع البصير অর্থ: পবিত্র সেই সত্তা যিনি রাত্রের কিছু সময় ভ্রমন করিয়েছেন উনার প্রিয় হাবীব উনাকে



আযানের সময় বৃদ্ধাঙ্গুলি চুম্বন খাস সুন্নত উনার অন্তর্ভূক্ত ৷সুবহানাল্লাহ


Comments আযানের সময় বৃদ্ধাঙ্গুলি চুম্বন খাস সুন্নত উনার অন্তর্ভূক্ত ৷সুবহানাল্লাহ মন্তব্য দিন আযানের সময় বৃদ্ধাঙ্গুলি চুম্বন খাস সুন্নত উনার অন্তর্ভূক্ত ৷সুবহানাল্লাহ আযানের মধ্যে যখন মুয়াযযিন ‘আশহাদুআন্না মুহাম্মদার রসুলুল্লাহ’ ﺍَﺷْﻬَﺪُ ﺍَﻥَّ ﻣُﺤَﻤَّﺪًﺍ ﺭَّﺳُﻮْﻝُ ﺍﻟﻠﻪِ উচ্চারণ করে, তখন স্বীয় বৃদ্ধাঙ্গুলীদ্বয় বা শাহাদাত আঙ্গুল



মিসওয়াক করা খাস সুন্নত


السواك )মিসওয়াক করা( السواك বা মিসওয়াকের পরিচয় এবং শরীয়াতে এর বিধান: السواك শব্দটি ساك শব্দ থেকে গৃহীত। এর আভিধানিক অর্থ:دلك বা ঘষা, মাজা, মর্দন করা ইত্যাদি। পরিভাষায়ঃ দাঁত থেকে হলুদ বর্ণ বা এ জাতীয় ময়লা দূর করার জন্য কাঠ বা গাছের



আনা সাগড় ও লোটা মোবারক!!!


      খাজা সাহেব মুঈনুদ্দিন চিশতী রহমাতুল্লাহি আলাইহি যখন ইসলাম প্রচারে গেলেন ভারতবর্ষে,তখন ভারতের রাজা পৃথবীরাজ চৌহান উনাকে বিতাড়িত করার জন্য বাবাজান ও উনার সংগিদের পানি বন্ধ করে দেয়!এমনকি সামান্য উজু করার পানি টুকু নিশেধ করে দেয়! বাবাজান তখন জালালী



উলামায়ে ‘সূ’ বা ধর্মব্যবসায়ী কারা? কি তাদের পরিচয়?


Comments নূরে মুজাসসাম, হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম তিনি ইরশাদ মুবারক করেন, ‘আমার উম্মতদের মধ্যে যারা উলামায়ে ‘সূ’ বা ধর্মব্যবসায়ী তারা নিকৃষ্টেরও নিকৃষ্ট।’ সাইয়্যিদুল মুরসালীন, ইমামুল মুরসালীন হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম তিনি বলেন, সাবধান! নিশ্চয়ই নিকৃষ্টেরও নিকৃষ্ট



মাশুকে মাওলা,নূরে মুজাসসাম,হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম উনার মহাসম্মানিত আহলু বাইত শরীফ আলাইহিমুস সালাম উনারাই ঈমান,আমল ও


    প্রসঙ্গঃহযরত আহলে বাইত শরীফ ও আওলাদে রসূল ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম উনাদের পরিচয় মুবারক৷ ১ম স্তরঃ ক)হযরত ওয়ালিদাইনিশ শরীফাঈন আলাইহিমাস সালাম তথা ১৷আবু রসূলিল্লাহ,সাইয়্যিদুল বাশার,মালিকুল জান্নাহ,আফদ্বালুন নাস বা’দা রসূলিল্লাহ সাইয়্যিদুনা হযরত আব্দুল্লাহ যবীহুল্লাহ আলাইহিস সালাম ২৷উম্মু রসূলিল্লাহ,সাইয়্যিদাতু নিসায়ীল আলামীন,সাইয়্যিদাতু



মাশুকে মাওলা,নূরে মুজাসসাম,হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম উনার মহাসম্মানিত আহলু বাইতশরীফ আলাইহিমুস সালাম উনারাই ঈমান,আমল ও নাযাতের


প্রসঙ্গঃমুহব্বতউনার ক্রমধারা কুরআন সুন্নাহর আলোকে৷ শাফেয়ী মাযহাব উনার ইমাম হযরত ইমাম শাফেয়ী রহমতুল্লাহি আলাইহি তিনি বলেছেন- ﻳَﺎ ﺍَﻫْﻞَ ﺑَﻴْﺖِ ﺭَﺳُﻮْﻝِ ﺍﻟﻠﻪِ ﺣُﺒُّﻜُﻢْ .. ﻓَﺮْﺽٌ ﻣّﻦَ ﺍﻟﻠﻪِ ﻓِـﻰ ﺍﻟْﻘُﺮْﺍٰﻥِ ﺍَﻧْﺰَﻟَﻪٗ ﻳَﻜْﻔِﻴْﻜُﻢْ ﻣّﻦْ ﻋَﻈِﻴْﻢِ ﺍﻟْﻔَﺨْﺮِ ﺍَﻧَّﻜُﻢْ … ﻣّﻦْ ﻟَّـﻢْ ﻳُﺼَﻞّ ﻋَﻠَﻴْﻜُﻢْ ﻟَﺎ ﺻَﻠَﺎﺓَ



মাশুকে মাওলা,নূরে মুজাসসাম,হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম উনার মহাসম্মানিত আহলু বাইত শরীফ আলাইহিমুস সালাম উনারাই ঈমান,আমল ও


প্রসঙ্গঃমুহব্বত উনার ক্রমধারা কুরআন সুন্নাহর আলোকে৷ পবিত্র হাদীছ শরীফ উনার মধ্যে ইরশাদ মুবারক হয়েছে- ﻋﻦ ﺣﻀﺮﺕ ﻋﻠﻰ ﻋﻠﻴﻪ ﺍﻟﺴﻼﻡ ﻗﺎﻝ ﺧﺮﺝ ﺭﺳﻮﻝ ﺍﻟﻠﻪ ﺻﻠﻰ ﺍﻟﻠﻪ ﻋﻠﻴﻪ ﻭﺳﻠﻢ ﻣﻐﻀﺒﺎ ﺣﺘﻰ ﺍﺳﺘﻮﻯ ﻋﻠﻰ ﺍﻟﻤﻨﺒﺮ ﻓﺤﻤﺪ ﺍﻟﻠﻪ ﻭﺍﺛﻨﻰ ﻋﻠﻴﻪ ﻗﺎﻝ ﻣﺎ ﺑﺎﻝ ﺍﻟﺮﺟﺎﻝ ﻳﺆﺫﻭﻧﻨﻰ



মাশুকে মাওলা,নূরে মুজাসসাম,হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম উনার মহাসম্মানিত আহলু বাইত শরীফ আলাইহিমুস সালাম উনারাই ঈমান,আমল ও


  প্রসঙ্গঃ মুহব্বত উনার ক্রমধারা কুরআন সুন্নাহর আলোকে৷ رضو ان من الله اكبر অর্থঃ খালিক্ব মালিক রব মহান আল্লাহ পাক উনার সন্তুষ্টি মুবারক সবচেয়ে বড়৷(পবিত্র সূরা তওবা শরীফঃ পবিত্র আয়াত শরীফ ৭২) অর্থাৎ মাখলুক্বাতের জন্য সবচেয়ে বড় প্রাপ্তি হচ্ছে মহান আল্লাহ



আল্লাহ আপনি কতো মহান!আপনার নিয়া’মতের সীমা-পরিসীমা নেই


মিসরীয় চিকিৎসাবিজ্ঞানী ডঃ আব্দুল বাসিত মুহম্মদ ৷ সূরা ইউসুফ তিলাওয়াত করছিলেন ৷ হঠাৎ চোখ আটকে গেলো একটি আয়াতে ৷ যেখানে বলা হয়েছে হযরত ইউসুফ আলাইহিস সালাম উনার জুব্বা মুবারক দিয়ে হযরত ইয়াকুব আলাইহিস সালাম উনার চোখ মুছে দিলে তাঁর দৃষ্টি শক্তি