তাজদীদ -blog


...


 


পবিত্র সাইয়্যিদুল আ’ইয়াদ শরীফ উনার বোনাস চালু করুন।


যিনি খালিক্ব মালিক রব মহান আল্লাহ পাক তিনি সম্মানিত কিতাব কালামুল্লাহ শরীফ উনার মধ্যে ইরশাদ মুবারক করেন- “সমস্ত কাফির-মুশরিক মুসলমানদের শত্রু। তোমরা কখনই তাদেরকে বন্ধুরূপে গ্রহণ করিও না” এবং তাদেরকে অনুসরণ করিও না। কাজেই নববর্ষ সেটা বাংলা হোক, ইংরেফজ হোক, আরবী



জঙ্গিবাদ হারাম নয় ‘ফরয’ বরং ‘সন্ত্রাসবাদ হারাম’। ফতোয়ায় স্বাক্ষরকারী ১লাখ কথিত আলেম স্থূলবুদ্ধিসম্পন্ন ও ভাষাজ্ঞানহীন


সম্প্রতি দেশের ধর্মব্যবসায়ী শ্রেণীর একলক্ষ স্থুলবুদ্ধিসম্পন্ন কথিত আলেম “ইসলামের নামে জঙ্গীবাদ হারাম” নামক একটি ফতোয়াতে একমত হয়ে সই-স্বাক্ষর করে খুব বাহবা কামিয়েছে। কট্টর ইসলাম বিদ্বেষী ভারতও তাদের ফতোয়ায় খুশি হয়ে বাহবা দিয়েছে। সূত্র: http://goo.gl/oL6fRl জঙ্গি শব্দটা আসলে কোত্থেকে এসেছে? একটা সময় ছিল যখন



মায়ের জন্য একটি দিন কেন? এটা মায়ের সাথে উপহাস নয়?


পৃথিবীর কোন মা-ই সন্তানকে একদিনের জন্য ভালোবাসা-আদর-যত্ন করেন নি। তাহলে মায়ের এই সীমাহীন ভালোবাসার কৃতজ্ঞতা জানাতে কেন একটি জাতিকে অনুসরণ করে আমরাও আমাদের মায়ের জন্য একটি দিবসকে নির্ধারণ করবো? এই দিবসটি শেষ হয়ে গেলে মা কি পরের বছর এই দিবসটির জন্য



একাত্তরে জামাত : বিদেশীদের চোখে ॥ ছড়ি ঘোরানোর ক্ষমতা দিয়ে গড়া হয় শান্তিকমিটি


রাজাকারদের অপকর্মের বর্ণনা দিয়ে ১৯৭১ ঈসায়ী সালের ২০ জুন সানডে টাইমস-এ ‘পাকিস্তানে সংঘবদ্ধ নির্যাতন’ শীর্ষক প্রতিবেদনে বলা হয়, ‘গেস্টাপো কায়দায় যখন তখন লোকজনকে তুলে নেয়ার ঘটনায় এ অঞ্চলে নতুন আতঙ্ক দেখা দিয়েছে। জিজ্ঞাসাবাদের জন্য অনেককেই গ্রেপ্তার করা হয়েছে প্রকাশ্যে। তাদের মধ্যে



ভারতের বিষাক্ত ‘সুন্দরী’ আম থেকে সাবধান!!!


ভারত আমরা যতোই বন্ধু বলিনা কেন, সুযোগ পেলে ঠিকই পিঠে ছুড়ি মেরে দেয় তারা। কিন্তু বাংলাদেী/মুসলিমদের প্রতি তাদের কেন এতো বিদ্বেষ আমি বুঝিনা। গত বছর কোরবানীর সময় গরুর মধ্যে বিষাক্ত ইনজেকশন পুশ করে অসংখ্য গরু বাংলাদেশে পাঠিয়েছে। https://goo.gl/Q2xjGO এখন আবার ভারত



প্রবঞ্চনার শ্রমিক দিবস বাতিলের দাবি


বছরের পর বছর পালিত মে দিবস আসলে শ্রমিকদের কতটুকু স্বার্থ পূরণ করেছে? এটা কি শ্রমিকদের কথা বলার সুযোগ দেয়ার নামে প্রবঞ্চনা নয়? বছরে একটি দিন শ্রমিকদের, আর বাকি ৩৬৪ দিন কি মালিক শ্রেণীর? এটাই কি হওয়া উচিত? শ্রমিক দিবসকে ‘প্রহসন’ ও



ইহুদীদের ষড়যন্ত্র ফাঁস: আইএস মোসাদের সৃষ্টি, খলিফা বাগদাদি ইহুদি


আইএস-এর মুখোশ উন্মোচন যদিও সাম্প্রতিক কোন ঘটনা নয়, তবে বর্তমান প্রেক্ষাপটে তাদের মুখোশ উন্মোচনকারী তথ্যগুলো পুনঃপ্রকাশ সময়ের দাবি। প্রকৃতপক্ষে আইএস নামক সংগঠনটির জন্মদাতা হচ্ছে ইহুদীবাদী গোয়েন্দাসংস্থা মোসাদ তথা ইসরায়েল। মুসলিম দেশগুলোতে সন্ত্রাস কায়েম করে ভীতিকর পরিস্থিতি সৃষ্টি করা এবং সেই সুবাদে



‘বাংলাদেশে আইএস আছে’ প্রমাণ করতে মরিয়া পশ্চিমা অপশক্তি


সোনায় সমৃদ্ধ বাংলাদেশের দিকে লোলুপ দৃষ্টি এখন গোটা বিশ্বের। একথা অনস্বীকার্য যে, বিশ্ব অর্থনীতি এখন মুখ থুবড়ে পড়ছে। ইউরোপীয় ইউনিয়ন ও সাম্রাজ্যবাদী মার্কিন মুলুক আর চীন-জাপানের মতো একসময়কার কথিত ধনী দেশগুলো এখন অর্থ মন্দায় সুপার ফকির হয়ে কঙ্কালসার হয়ে ধুকে ধুকে



মুসলমান মাত্রই প্রত্যেক মালেকে নেছাব ব্যক্তির উপর যাকাত আদায় করা ফরয


নিত্যপ্রয়োজনীয় আসবাবপত্র, মাল-সামানা ইত্যাদি বাদ দিয়ে এবং কর্জ ব্যতীত নিজস্ব মালিকানাধীন সাড়ে সাত ভরি স্বর্ণ অথবা সাড়ে বায়ান্ন তোলা রূপা এক বছর কারো নিকট থাকলে তার উপর যাকাত ফরয। পবিত্র হাদীছ শরীফ উনার মধ্যে ইরশাদ মুবারক হয়েছে, “তোমরা যাকাত দ্বারা আপন



পবিত্র কুরআনের রেফারেন্স দিয়ে মৃত্যুদণ্ডের রায় উচ্চ আদালতে


নিউজ নাইন২৪ডটকম, ঢাকা: হত্যাকাণ্ড আইনত দণ্ডনীয় অপরাধ বিধানটি এসেছে পবিত্র কুরআনের বানী থেকে। সঙ্গত কারণে পবিত্র কুরআনের আয়াতের রেফারেন্স দিয়েই সাবেক ব্রিটিশ হাইকশিনার আনোয়ার চৌধুরীর ওপর হামলার পূর্ণাঙ্গ রায় পর্যবেক্ষণ করা হলো উচ্চ আদালতে। রায়ে তিন সন্ত্রাসীকে মৃত্যুদণ্ড ও দুজনকে যাবজ্জীবন কারাদণ্ড দেওয়া হয়।



পাকিস্তান সরকার স্কুলে পবিত্র কুরআন শরীফ শিক্ষা বাধ্যতামূলক করেছে, আমাদের দেশে নয় কেন?


পাকিস্তানের সকল সরকারি স্কুলে পবিত্র কুরআন শিক্ষা দেয়া বাধ্যতামূলক করা হয়েছে। শিক্ষা প্রতিমন্ত্রী মুহম্মদ বলিগুর রহমান বলেছেন, সকল পাবলিক স্কুলে শিশু শ্রেণী থেকে পঞ্চম শ্রেণী পর্যন্ত শিক্ষার্থীদের নাজেরা (দেখে দেখে) কুরআন শিখানো হবে। আর ৬ষ্ঠ শ্রেণী থেকে ১০ শ্রেণী পর্যন্ত শিক্ষার্থীদের



বাংলাদেশের ভূমিকম্প মুসলমানদের কুফরি-শিরকি থেকে তওবা করে ফিরে আসার ইঙ্গিত


মুসলমানদের জন্য হারাম হিন্দুয়ানী পহেলা বৈশাখের আগের দিন ভূমিকম্পে কেঁপেছিলো বাংলাদেশ। রাতের আধারে ঘর থেকে বের হয়ে পড়েছিলো অসংখ্য মানুষ। ‘আল্লাহ আল্লাহ’ বলে চিৎকার করে নিজের অজান্তেই মহান আল্লাহ পাক উনাকে ডেকেছিলো কতো মানুষ বলার অপেক্ষা রাখেনা। বিপদের সময় কিংবা মৃত্যুর