Ahmad -blog


...


 


“নম্রতা” মানুষের জন্য এক অতি উত্তম সম্পদ


আমার এক দ্বীনি বোন কিছুদিন পূর্বে ইন্তেকাল করেছেন। উনার ইন্তেকালের পর পরিচিত প্রায় সবার মুখে যা শোনা গেছে তা হল, “উনি খুব নম্র-ভদ্র ছিলেন”। যে ব্যক্তি স্বভাবতই নম্র, সে বিরাট এক নিয়ামতের অধিকারী। আশেপাশের মানুষ তাদের জবান থেকে নিরাপদ থাকে। ফলে



বাল্যবিবাহের বিরুদ্ধে সরব হওয়া “বালিকা”দের উদ্দেশ্যে…


সস্তায় খ্যাতিলাভের জন্য বর্তমানে সবচেয়ে শর্টকাট উপায় হল, বাল্যবিবাহের বিরুদ্ধে ঝাঁপায় পড়া! অজপাড়াগায়ের ক্লাস নাইনে পড়া এক নিতান্ত সাধারন মেয়ে, লাইমলাইটে উঠে গেল। ট্রাম্পের বউ তাকে খেতাব দিল, “বিশ্বসেরা সাহসী নারী” হিসেবে। সাহসীই বটে! বিয়ে দিতে চাওয়ার অপরাধে নিজের মাকে জেলে



রহমত পেতে হলে রহমতপ্রাপ্ত যাঁরা উনাদের নিকট যেতে হবে


নূরে মুজাসসাম, হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম উনার যামানায় গীবতের দুর্গন্ধ অনুভব করা যেত। কারণ তখন গীবতের অস্তিত্ব ছিল খুবই কম। কিন্তু এখন চারিদিকে এতো গীবতের ছড়াছড়ি যে মানুষ এতে অভ্যস্ত হয়ে গেছে। ফলে আলাদা করে এর দুর্গন্ধ অনুভূত



জাহান্নামের সর্বনিম্ন স্তরের অধিবাসী “উলামায়ে ছু” সম্পর্কে…


হাদীস শরীফে ইরশাদ মুবারক হয়েছে, “জাহান্নামের দরজা এই পৃথিবীর ঘর-বাড়ির দরজার মতো নয়; বরং উপরে-নিচে স্তরে স্তরে বিন্যস্ত এবং এক দরজা হতে অপর দরজা পর্যন্ত সত্তর বছরের পথ পরিমাণ দূরত্ব। উপরের দিক থেকে প্রথম দরজার তুলনায় দ্বিতীয়টির এবং এভাবে পরবর্তী দরজাগুলোর



কারাবালার হৃদয় বিদারক ইতিহাস সংক্রান্ত বিভ্রান্তি ও বাস্তবতা


কারাবালার হৃদয় বিদারক ইতিহাস সংক্রান্ত অনেক বিভ্রান্তি সাধারণ মুসলমানদের মধ্যে ছড়িয়ে আছে, যা ঈমান ও আমল বিধ্বংসী। তাই মুসলমানদের উচিত এসব সম্মন্ধে জেনে নিজেদের আক্বীদা বিশুদ্ধ করা।   ১। ইমামুছ ছালিছ, সাইয়্যিদুনা হযরত ইমাম হুসাইন আলাইহিস সালাম উনার মর্মান্তিক শাহাদাতকে কেন্দ্র



সাইয়্যিদুনা হযরত ইমামুছ ছালিছ আলাইহিস সালাম উনার “মুনাজাত” মুবারকের মধ্যেই রয়েছে সমস্ত উম্মতদের জন্য পথনির্দেশনা


১০ই মুহররম শরীফ ফজরের নামাযের পর ইমামুছ ছালিছ, সাইয়্যিদুনা হযরত ইমাম হুসাইন আলাইহিস সালাম তিনি আল্লাহ পাক উনার কাছে মুনাজাত করেছিলেন, “ইয়া আল্লাহ পাক! আপনার রাস্তায় আমাকে অটল রাখুন, আমাকে ধৈর্য এবং সহনশীলতা দান করুন। হে মাওলা! জুলুম-অত্যাচারের ঝড় তুফান আমার



সুমহান ৮ই মুহাররমুল হারাম শরীফ উনার সম্মানার্থে…


হাদীস শরীফে বর্ণিত হয়েছে, হযুর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম তিনি ইরশাদ মুবারক করেন, “মহান আল্লাহ পাক উনার শপথ! আমাকে মুহব্বত করা ব্যতীত কেউই মু’মিন হতে পারবে না। আর আমার হযরত আহলু বাইত শরীফ আলাইহিমুস সালাম উনাদেরকে মুহব্বত করা ব্যতীত কেউই



আশুরা শরীফ এবং একজন কাজী, একজন আলিম ও একজন খ্রিস্টান ব্যক্তি…


এক ব্যক্তি ছিল গরিব ও আলিম। একবার অসুস্থতার কারণে তিনি তিন দিন যাবত কাজ করতে পারলেন না। চতুর্থ দিন ছিল আশুরার দিন। তিনি জানতেন, হাদীস শরীফে আছে, “যে ব্যক্তি পবিত্র আশূরা শরীফ উনার দিন তার পরিবার পরিজনের জন্য ভালো খাদ্যের ব্যবস্থা



“যাবীহুল্লাহ” শান মুবারকে হযরত আবু রসূলিল্লাহ ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম


“আমি দুই যাবীহুল্লাহ আলাইহিমাস সালাম উনাদের সন্তান” (শরফুল মুস্তাফা, তারীখুল খমীস); হাদীস শরীফে এভাবেই হুযুর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম তিনি উনার শান মুবারক বর্ণনা করেছেন। একজন “যাবীহুল্লাহ আলাইহিস সালাম” উনাকে সবাই চিনে। তিনি হলেন হযরত ইসমাঈল আলাইহিস সালাম; যাঁকে মহান



সারা বিশ্বে বার বার শুধু মুসলমানদেরই শরনার্থী হতে হচ্ছে; এর কারণ ও সমাধান প্রসঙ্গে


এমন এক সময় ছিল যখন……   মুসলমানগণ কাত্তানের কাপড় দিয়ে নাক পরিষ্কার করতেন। কাত্তান হল পৃথিবীর সবচেয়ে দামী কাপড়, যা রাজা বাদশাহরা পরিধান করত।   রাস্তায় রাস্তায় ঘোষণা করা হত, মুসলমানগণ যেন উনাদের জন্য বরাদ্দকৃত দৈনিক ভাতা, পোশাক-পরিচ্ছদ, খাদ্যসামগ্রী এসে নিয়ে



বোর্ড বইগুলোতে হযরত খুলাফায়ে রাশেদীন আলাইহিমুস সালাম উনাদের খিলাফত গ্রহণের বিষয়ে ভূল শিক্ষা দেয়া হচ্ছে!


সপ্তম শ্রেণীর ইসলাম ও নৈতিক শিক্ষা বইতে লেখা “মুসলমানদের মতামতের ভিত্তিতে হযরত আলি (রা) মুসলিম জাহানের চতুর্থ খলিফা নির্বাচিত হন।“ ষষ্ঠ শ্রেনীর বইতে লেখা, “হযরত ওমর (রা) ও অন্যান্য সাহাবীগণ হযরত আবু বকর (রা) কে খলিফা নির্বাচনের ব্যাপারে পরামর্শ করে তাঁকে



২৭ই যিলহজ্জ শরীফ: সাইয়্যিদুনা হযরত ফারূক্বে আ’যম আলাইহিস সালাম উনার সুমহান শাহাদতী শান মুবারক প্রকাশ দিবস


কিয়ামতের দিন ডাকা হবে, কোথায় হযরত ফারূক্বে আ’যম আলাইহিস সালাম! তারপর হযরত ফারূক্বে আ’যম আলাইহিস সালাম উনাকে মহান আল্লাহ্‌ পাক উনার সামনে উপস্থিত করা হবে। বলা হবে, ইয়া হযরত আবু হাফস আলাইহিস সালাম আপনার জন্য মারহাবা! এটা হচ্ছে আপনার আমলনামা। ইচ্ছা