Archive for the ‘অর্থনীতি’ Category

কুরবানীর হাট কমপক্ষে ১০ দিন আগ থেকেই বসানোর ব্যবস্থা থাকতে হবে


প্রকৃত হিসাব মতে, ১ কোটিরও বেশি শুধু গরুই কুরবানী হয়ে থাকে প্রতিবছর। প্রশ্ন হলো, এত বিপুল পরিমাণ কুরবানীর জন্য যতবেশি আয়োজন, প্রস্তুতি ও সময় প্রয়োজন সেটা কি আমাদের দেশের গরু-ছাগল ব্যবসায়ী ও এর ক্রেতারা পেয়ে থাকেন? যারা গরু ব্যবসার সাথে জড়িত

কৃষি খাতে প্রণোদনার নাম দিয়ে কৃষকের কাছ থেকে আদায় করা হবে ৪% সুদ


দেশের কৃষি উৎপাদন অব্যাহত রাখতে গ্রামের ক্ষুদ্র ও মাঝারি চাষিদের জন্য ৫ হাজার কোটি টাকার প্রণোদনা ঘোষণা করেছে সরকার। কৃষিকাজে চলতি মূলধন সরবরাহে বাংলাদেশ ব্যাংক ৫ হাজার কোটি টাকার পুনঃঅর্থায়ন স্কিম গঠন করবে। এছাড়া, কেবল গ্রাম অঞ্চলের ক্ষুদ্র ও মাঝারি চাষিরাই

প্রকৃত ইতিহাস কি বলে? কথিত দেবোত্তর সম্পত্তি, নাকি মুসলমানদের লাখেরাজ সম্পত্তি?


লাখেরাজ সম্পত্তি বলা হয় নিষ্কর বা শুল্ক মুক্ত ভূমিকে। মুসলিম শাসন আমলে মুসলিম শাসকগণ কর্তৃক এ অঞ্চলের মুসলিম ছূফী-দরবেশ ও আলিম-উলামা উনাদেরকে প্রশাসনের তরফ থেকে নিষ্কর অর্থাৎ বিনা খাজনায় হাজার হাজার বিঘা সম্পত্তি দেয়া হতো; যাতে করে উনারা নির্বিঘেœ ইসলামী শিক্ষা-দিক্ষার

সুদভিত্তিক অর্থনীতিই দারিদ্র্যতার মূল কারণ


সম্মানিত কুরআন শরীফ ও সম্মানিত হাদীছ শরীফ অনুযায়ী সুদ হচ্ছে হারাম। হারাম থেকে কখনো হালাল বা ভালো কিছু বের হয় না। হারাম থেকে হারামই বের হয়। পাত্রে আছে যা, ঢালিলে পড়িবে তা। পাত্রে ময়লা রেখে ঢাললে মধু পড়বে- এরূপ চিন্তা করা

ভূয়া লকডাউনের ক্ষতিপূরণ দিবে কে ?


করোনার নামে ভুয়া লকডাউন থিউরীর কারণে কত টাকার ক্ষয়ক্ষতি হয়েছে, সেটা নিয়ে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের স্বাস্থ্য অর্থনীতি ইনস্টিটিউটের গবেষক দল একটি হিসেব প্রকাশ করেছিলো। তাদের দাবী ছিলো- লকডাউনে দৈনিক ক্ষতির পরিমাণ ৩৩০০ কোটি টাকা। সে হিসেবে ৬৫ দিনের লকডাউনে ক্ষতির পরিমাণ দাড়ায়

করোনা নিয়ে ইউরোপ-আমেরিকা যা করছে, ৯৮ ভাগ মুসলমানের দেশ বাংলাদেশ তা কখনোই করতে পারে না। সরকারের এ কার্যক্রমে কোটি কোটি মানুষ বিনা চিকিৎসা ও খাদ্যাভাবে মরবে, আইন শৃঙ্খলা পুরো ভেঙ্গে পড়বে, রাষ্ট্রযন্ত্র ব্যর্থ হবে।


আন্তর্জাতিক সমীক্ষা অনুসারে বাংলাদেশে ৬ কোটি কর্মক্ষম লোক রয়েছে যারা শ্রমিক, রিক্সাচালক ইত্যাদি বিভিন্ন পেশায় যাদেরকে মূলত ডেইলী লেবারের সংজ্ঞায় ফেলা যায়। সমীক্ষা অনুসারে, এদের হাতে খাবারের টাকা থাকে মাত্র ৩ দিনের। এরপর এদের না খাবার পালা। সরকার যেভাবে মসজিদে যেতে

বিধি-নিষেধ ও গুজবে দেশ ও জাতি করুন পরিণতির দিকে যাচ্ছে। দেশের হতদরিদ্র, দরিদ্র, নিম্নবিত্ত ও মধ্যবিত্তদের চরম দুর্দশায় ফেলা কি সংবিধানের খেলাপ নয়?


অভিজ্ঞমহল মনে করেন, সরকার অঘোষিত লকডাউন দিয়ে ঢাকাসহ সারাদেশ কার্যত অবরুদ্ধ করে ফেলছে। ঢাকাসহ সারাদেশে পরিবহণ খাতে- যারা বাস মিনিবাসের ড্রাইভার, সুপারভাইজার বা হেলপার হিসেবে কাজ করেন তারা মজুরি পান প্রতিদিনের ট্রিপ বা যাতায়তের উপর। যাত্রী ও যাতায়াত দুটিই কমে যাওয়ায়

বিষাক্ত জিএম শস্য কেন নিষিদ্ধ হচ্ছে না, এ দেশের সরকার কি জিএম ফুড বিষয়ে অজ্ঞ?


বর্তমান বিশ্বের প্রায় সব দেশই বিষাক্ত বিকৃত জিন বা জিএম (জেনেটিক্যাল মডিফাইড) শস্য কঠোরভাবে নিষেধাজ্ঞা করছে। ইউরোপের ২৬টি দেশের মধ্যে ১৯টি দেশে জিএম শস্য চাষ নিষিদ্ধ। ফিলিপাইনে গোল্ডেন রাইস ব্যা- করার জন্য সাধারণ জনগণ আন্দোলন পর্যন্ত করেছে। ভারতে প্রবল বিতর্ক এবং

গোল্ডেন রাইস (জিএমও শস্য) চাষ করার বুদ্ধিদাতা খলনায়করা দেশ ও জাতির শত্রু


বিশ্বব্যাপী নিষিদ্ধ জিএমও ক্রপ্স (জেনেটিক্যাল মডিফাইড খাদ্য শস্য) বাংলাদেশের মতো খাদ্যে স্বয়ংসম্পূর্ণ একটি দেশে কী করে অনুমোদিত হতে পারে, তা সত্যিই আশ্চর্যের বিষয়। আমাদের দেশে এই আত্মঘাতী বীজ বাণিজ্যিকিকরণের পেছনে কে বা কারা কাজ করছে তাদেরকে চিহ্নিত করা ও খুঁজে বের

দেশের গ্যাসখনি থেকেও উঠছে জ্বালানী তেল, তবুও…


গ্যাসফিল্ড থেকে গ্যাস উত্তোলনের সময় গ্যাসের সঙ্গে উচ্চমাত্রার সিসাযুক্ত কনডেনসেট (গ্যাসের সহজাত ক্রুড অয়েল বা অপরিশোধিত তেল) বেরিয়ে আসে। রিগ মেশিনে গ্যাস ও কনডেনসেট আলাদা হয়ে যায়। পরে উত্তোলিত কনডেনসেট রিফাইনারিতে রিফাইনের জন্য পাঠানো হয়। গ্যাসের এই উপজাত পরিশোধন করে অকটেন,

এদেশে সংখ্যালঘুদের ছুটি ঐচ্ছিক করুন: অর্থনীতির চাকা সচল রাখুন


বাংলাদেশের জনসংখ্যার ক্ষদ্র থেকে ক্ষুদ্রতম একটি অংশ অমুসলিমরা। এই গুটিকয়েক সংখ্যালঘুদের জন্য দেশের বিশাল জনসংখ্যাকে ছুটি কাটাতে হয়। অর্থাৎ মাত্র কয়েক ভাগ অমুসলিমদের ছুটিতে দেশের ৯৮ ভাগ জনসংখ্যাকে অলস বসিয়ে রাখায় দেশের অর্থনীতি মারাত্মকভাবে ক্ষতিগ্রস্ত হচ্ছে। এক্ষেত্রে সরকারের উচিত হবে মাত্র

প্রসঙ্গ: সুদভিত্তিক চলমান পুঁজিবাদী অর্থনীতির অসম চিত্র ও বৈষম্য এবং সুদবিহীন ব্যাংকিং পদ্ধতি


ঋণখেলাপীরা নামে-বেনামে কথিত ব্যবসা প্রতিষ্ঠানের সাইনবোর্ড ব্যবহার করে ঋণ নিয়ে তাদের ইচ্ছানুযায়ী বিভিন্ন খাতে খরচ করে বা পাচার করে বলে যে, ব্যবসা প্রতিষ্ঠান দেউলিয়া হয়ে গেছে, এখন আর ব্যাংকের ঋণ পরিশোধ করা সম্ভব না ইত্যাদি ইত্যাদি। তখন ব্যাংকেরও কিছু করার থাকে