Archive for the ‘ইতিহাস’ Category

পবিত্র আশুরা শরীফ উনাকে সম্মান করায় খ্রিষ্টান ব্যক্তিকে মহান আল্লাহ পাক পবিত্র ঈমান দান করলেন এবং জান্নাত দিয়ে সম্মানিত করলেন”সুবহানাল্লাহ


আল্লাহ পাক উনি ইরশাদ করেন, তোমরা খাও, পান করো, তবে অপচয় করো না। আর হাদীছ শরীফ উনার মধ্যে ইরশাদ হয়েছে, যে ব্যক্তি আশুরা শরীফ উনার দিন তার পরিবার পরিজনের জন্য ভালো খাদ্যের ব্যবস্থা করবে মহান আল্লাহ পাক উনি তাকে এক বৎসরের

✅কারবালার হৃদয় বিদারক ইতিহাস ধারাবাহিক পর্ব -০৪ (সাইয়্যিদুশ শুহাদা সাইয়্যিদুনা হযরত ইমাম হুসাইন আলাইহিস সালাম)


✅ কারবালার হৃদয় বিদারক ইতিহাস ধারাবাহিক পর্ব -০৪ (সাইয়্যিদুশ শুহাদা সাইয়্যিদুনা হযরত ইমাম হুসাইন আলাইহিস সালাম) সাইয়্যিদুশ শুহাদা সাইয়্যিদুনা হযরত ইমাম হুসাইন আলাইহিস সালাম তিনি চতুর্থ হিজরীর শা’বান মাসের ৫ তারিখ মদীনা শরীফ-এ বিলাদত শরীফ লাভ করেন। বিলাদত শরীফ-এর পর সরকারে মদীনা, নূরে

✅ কারবালার হৃদয় বিদারক ইতিহাস ধারাবাহিক পর্ব-০৩ (আহলে বাইত শরীফ ও আওলাদে রসূল আলাইহিমুস সালাম উনাদের পরিচয়)


✅ কারবালার হৃদয় বিদারক ইতিহাস ধারাবাহিক পর্ব-০৩ (আহলে বাইত শরীফ ও আওলাদে রসূল আলাইহিমুস সালাম উনাদের পরিচয়) আল্লাহ পাক উনার হাবীব, সাইয়্যিদুল মুরসালীন, ইমামুল মুরসালীন, খাতামুন নাবিইয়ীন, রহমতুল্লিল আলামীন, নূরে মুজাসসাম হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম উনার সর্বমোট সন্তান ছিলেন আটজন। চারজন

✅ কারবালার হৃদয় বিদারক ইতিহাস ধারাবাহিক পর্ব-০২ (সাইয়্যিদুনা হযরত ইমাম হুসাইন আলাইহিস সালাম উনার শাহাদাত মুবারক নিঃসন্দেহে মুসলিম বিশ্বের ইতিহাসে সবচেয়ে হৃদয় বিদারক ঘটনা)


✅ কারবালার হৃদয় বিদারক ইতিহাস ধারাবাহিক পর্ব-০২ (সাইয়্যিদুনা হযরত ইমাম হুসাইন আলাইহিস সালাম উনার শাহাদাত মুবারক নিঃসন্দেহে মুসলিম বিশ্বের ইতিহাসে সবচেয়ে হৃদয় বিদারক ঘটনা) ولاتحسبن الذين قتلوا فى سبيل الله امواتا بل احياء عند ربهم يرزقون. অর্থ : “যাঁরা আল্লাহ তায়ালা উনার রাস্তায়

✅ কারবালার হৃদয় বিদারক ইতিহাস ধারাবাহিক পর্ব-০১ ( সাইয়্যিদুনা হযরত ইমামুল উমাম আলাইহিস সালাম উনার ক্বওল শরীফ মুবারক)


✅ কারবালার হৃদয় বিদারক ইতিহাস ধারাবাহিক পর্ব-০১ ( সাইয়্যিদুনা হযরত ইমামুল উমাম আলাইহিস সালাম উনার ক্বওল শরীফ মুবারক) نحمده ونصلى على رسوله الكريم মহান আল্লাহ পাক রব্বুল আলামীন উনার দরবারে লক্ষ কোটি শুকরিয়া; যিনি স¦ীয় রহম ও করমে আমাদেরকে উনার প্রিয় হাবীব, সাইয়্যিদুল

ব্রিটিশ দালাল, ইসলামবিদ্বেষী ও মুসলিম অধ্যুষিত পূর্ববঙ্গ প্রদেশ সৃষ্টির বিরোধিতাকারী রবীন্দ্রের আলোচনা এদেশে হয় কীভাবে?


  (১) রবীন্দ্রের দাদা দ্বারকানাথ ছিল দেড়শ টাকা বেতনের ইংরেজ ট্রেভর প্লাউডেনের চাকর। দ্বারকানাথ ধনী হয়েছিল পতিতালয়ের ব্যবসার দ্বারা। রবীন্দ্রের দাদার তেতাল্লিশটা পতিতালয় ছিল কলকাতাতেই। (তথ্যসূত্র: কলকাতার আনন্দবাজার পত্রিকা, ২৮শে কার্তিক-১৪০৬, রঞ্জন বন্দ্যোপাধ্যায়) (২) কয়েক পুরুষ ধরে কৃষকদের উপর পীড়ন চালিয়েছে

আফ্রিকার রাজা জার্জিসের কণ্যার ইসলাম গ্রহন!


হযরত উসমান যুন নুরাইন আলাইহিস সালাম উনার শাসনকালে নীল ভূমধ্যসাগর তীরের ‘তারাবেলাস’ নগরী মুসলমানদের করতলগত হয়। কাফির রাজা জার্জিসের প্রধান নগরী ছিল এ এলাকা। সে সময় হযরত যুন নূরাইন আলাইহিস সালাম তিনি হযরত আব্দুল্লাহ ইবনে সা’দ রদ্বিয়াল্লাহু তায়ালা আনহু উনাকে সেনাপতি

৪৭-এ ভারত ভাগ- ভারতীয় মালউনদের বৈষম্য ও পীড়নের খন্ড চিত্র


সালাউদ্দিন আবু আসাদ। পশ্চিমবঙ্গের বর্ধমানে ছিল আসাদের বাড়ি। ১৯৪৭ সালে ভারত ও পাকিস্তান ভাগের পর আসাদ চলে আসেন তৎকালীন পূর্ব-পাকিস্তানে। দেশভাগের ৭০ বছর উপলক্ষে সালাউদ্দিন আবু আসাদের কথা। ১৯৪৬ সালের পর থেকে পশ্চিমবঙ্গে উগ্র হিন্দুদের সাম্প্রদায়িকতা মাথাচাড়া দিয়ে উঠেছিল। মুসলমানদেরকে সেখানে

প্রাসঙ্গিক ভাবনা- ইসলামী সভ্যতা


(বিশ্ববিদ্যালয় থেকে ডিগ্রিধারী যেসব জাহেল গোষ্ঠী জ্ঞান-বিজ্ঞান-প্রযুক্তি-সভ্যতা সব কিছুতেই পশ্চিমা কাফিরদেরকে গুরু মানে তাদের বোধোদয়ের জন্য) ============ বিশ্ববিদ্যালয়ের এক সমাবর্তন অনুষ্ঠানে HP (Hewlett-Packard Company)-এর তৎকালীন CEO কার্লি ফিওরিনা (Carly Fiorina) মোটিভেশনাল স্পীচ দিয়েছিল। ২০০৫ সাল পর্যন্ত ফিওরিনা ছিলো Fortune 500 কোম্পানির

আপনি জানেন কি “গাযওয়াতুল হিন্দ” কি? এর সম্পর্কে কে ভবিষ্যৎবানী করেছিলেন?


গাযওয়াতুল হিন্দ বা হিন্দুস্থানের যুদ্ধ হাদীস শরিফে বর্নিত আছে উগ্রবাদী, মৌলবাদী, হিন্দুদের ধ্বংসকারী গাযওয়াতুল হিন্দ অত্যাসন্ন ও অবশ্বাম্ভাবী। সারা পৃথিবীতে সবচে’ বড় জিহাদ যেটা হবে সেটা হবে হিন্দুস্তান তথা ভারতের মুশরিকদের সাথে। এই জিহাদে যাঁরা শরীক থাকবেন, উপস্থিত থাকবেন, অংশ গ্রহণ

মুক্তিযুদ্ধে ভারতীয় সেনা বাহিনীর লুটপাটের ইতিহাস ও সাহায্যের স্বরূপ


(সঙ্কলিত পোস্ট)- ১৯৭১ সালের মুক্তিযুদ্ধে বীর মুক্তি বাহিনী যখন দেশের ৯৫-৯৯ শতাংশ অঞ্চল মুক্ত করে ফেলেছিল, ঠিক তখন ৩রা ডিসেম্বর ভারতীয় আরদালী বাহিনী লুটপাট করার জন্য বাংলাদেশে প্রবেশ করে। তারা ১৬ ডিসেম্বরের পর বাংলাদেশ জুড়ে নজির বিহীন লুটপাট চালিয়েছিলো। ৯৩ হাজার

রহমত বাটেন আক্বা শাহযাদা


রহমানী ছিফতে রহমত বাটেন আক্বা শাহযাদা মাদানী নূরে রওশন করেন তাশরীফে মাওলা শাহেন শাহে মামদূহ সাইয়্যিদী মানজুর সুলত্বানুল ক্বাওনাইন নূরুন আলা নূর ॥ ইলাহী তায়ালা ইলান করেন সাইয়্যিদুল আ’ইয়াদ আজ হাবীবে খোদা আয়োজন করেন সাইয়্যিদুল আ’সইয়াদ আজ ঈদের আনন্দে মুখরিত জাহান