Archive for the ‘ইসলাম ও জীবন’ Category

ভালো নিয়ত থাকলেই হারাম বিষয় হালাল হয়ে যায় না


ভালো নিয়ত থাকলেই হারাম বিষয় হালাল হয়ে যায় না; বরং হালাল ও হারাম পণ্য চিহ্নিত করার জন্য কিছু মূলনীতি জানা দরকার। হালালের চিহ্ন থাকাই উক্ত বস্তু হালাল হবার নিদর্শন হতে পারে না। কারণ হালালের চিহ্ন দিয়ে হারাম পণ্যও বিক্রি করা হতে

যাদেরকে অনুসরন করা সম্পূর্ণরূপে নিষিদ্ধ


না, কোনো মুসলমানের জন্য কাফির-মুশরিক বা বিধর্মীদের অনুসরণ করা যাবে না। এটা কোনো মানুষেরর বানানো কথা নয়। বরং এই ইরশাদ মুবারক হচ্ছেন মহান রব্বুল আলামীন উনার। সুবহানাল্লাহ! তিনি নিজেই কাফির-মুশরিকদের অনুসরণ করতে নিষেধ করেছেন। যেমন এ সম্পর্কে পবিত্র কালামুল্লাহ শরীফ উনার

সুদভিত্তিক অর্থনীতিই দারিদ্র্যতার মূল কারণ


সম্মানিত কুরআন শরীফ ও সম্মানিত হাদীছ শরীফ অনুযায়ী সুদ হচ্ছে হারাম। হারাম থেকে কখনো হালাল বা ভালো কিছু বের হয় না। হারাম থেকে হারামই বের হয়। পাত্রে আছে যা, ঢালিলে পড়িবে তা। পাত্রে ময়লা রেখে ঢাললে মধু পড়বে- এরূপ চিন্তা করা

নূরে মুজাসসাম, হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম তিনি কায়িনাতের সর্বত্র হাযির-নাযির


যিনি খালিক্ব মালিক রব মহান আল্লাহ পাক তিনি ইরশাদ মুবারক করেন- اِنَّــاۤ اَرْسَلْنٰكَ شَاهِدًا وَّمُبَشِّرًا وَّنَذِيْرًا. অর্থ: “(হে হাবীব ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম!) নিশ্চয়ই আমি আপনাকে প্রেরণ করেছি, সৃষ্টি মুবারক করেছি শাহিদ তথা সাক্ষ্যদাতা, উপস্থিত, হাযির-নাযির হিসেবে, সুসংবাদদানকারী এবং সতর্ককারীরূপে।” সুবহানাল্লাহ!

নূরে মুজাসসাম, হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম উনাকে সম্বোধন মুবারক করার বিষয়ে আহলু বাইতি রসূলিল্লাহ মুজাদ্দিদে আ’যম মামদূহ মুর্শিদ ক্বিবলা আলাইহিছ ছলাতু ওয়াস সালাম উনার তাজদীদ মুবারক


যিনি খালিক্ব মালিক রব মহান আল্লাহ পাক তিনি ইরশাদ মুবারক করেন- وَلَلْاٰخِرَةُ خَيْرٌ لَّكَ مِنَ الْاُوْلـٰى অর্থ: “(আমার মাহবূব হাবীব, নূরে মুজাসসাম হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম!) নিশ্চয়ই আপনার পরকাল ইহকাল অপেক্ষা উত্তম।” সুবহানাল্লাহ! (সম্মানিত ও পবিত্র সূরা দ্বুহা

পবিত্র সাইয়্যিদুল আইয়াদ শরীফ নিয়ে বাতিলপন্থীদের চু-চেরার দলীলভিত্তিক জওয়াব


সুওয়াল: নামায রোযা পালনের খবর নাই, পবিত্র ঈদে মীলাদে হাবীবুল্লাহ ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম নিয়ে টানাটানি। নাউযুবিল্লাহ! সুওয়াল: পবিত্র ঈদে মীলাদে হাবীবুল্লাহ ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম পালনের আগে নামায, রোযা, হজ্জ, যাকাত ঠিকমত আদায় করতে হবে। কারণ কিয়ামতের ময়দানে এসবের হিসেব

আমীরুল মু’মিনীন হযরত ফারূক্বে আ’যম আলাইহিস সালাম উনার এবং হযরত আবূ হুরায়রা রদ্বিয়াল্লাহু তায়ালা আনহু উনাদের নিয়ে বাতিল ফিরক্বা শিয়া’দের বিদ্বেষমূলক অপপ্রচারের জবাব


আহলে সুন্নত ওয়াল জামায়াত উনাদের ফতওয়া মতে, শিয়ারা মুসলমানের অন্তর্ভুক্ত নয়। তারা মুসলমান না হওয়ার ব্যাপারে অনেক কারণের মধ্যে একটি উল্লেখযোগ্য কারণ হচ্ছে, হযরত ছাহাবায়ে কিরাম রদ্বিয়াল্লাহু তায়ালা আনহুম উনাদের মধ্যে মুষ্টিমেয় কয়েকজন ব্যতীত বাকী সকল ছাহাবায়ে কিরাম রদ্বিয়াল্লাহু তায়ালা আনহুম

উম্মত যে কোন অবস্থায়, যে কোন স্থান থেকেই নূরে মুজাসসাম হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম উনার নিকট আরজু করলে তিনি সে আরজু পূরণ করে দেন


عَنْ حَضْرَتْ اَبِـىْ جُرَىٍّ جَابِرِ بْنِ سُلَيْمٍ رَضِىَ اللهُ تَعَالـٰى عَنْهُ قَالَ اَتَيْتُ الْمَدِيْنَةَ فَرَاَيْتُ رَجُلًا يَّصْدُرُ النَّاسُ عَنْ رَّأْيِهٖ لَا يَقُوْلُ شَيْئًا اِلَّا صَدَرُوْا عَنْهُ قُلْتُ مَنْ هٰذَا قَالُوْا هٰذَا رَسُوْلُ اللهِ صَلَّى اللهُ عَلَيْهِ وَسَلَّمَ قُلْتُ عَلَيْكَ السَّلَامُ يَا

আজ সুমহান ঐতিহাসিক পবিত্র আশূরা শরীফ। ১০ই মুহররম তথা ‘পবিত্র আশূরা শরীফ’ দিবসটি বিশ্বব্যাপী এক আলোচিত সুমহান দিন।


নূরে মুজাসসাম হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম তিনি ইরশাদ মুবারক করেন, ‘আমার হযরত আহলু বাইত শরীফ আলাইহিমুস সালাম উনাদেরকে মুহব্বত করো আমার সন্তুষ্টি মুবারক লাভের জন্য।’ সুবহানাল্লাহ! আজ সুমহান ঐতিহাসিক মহা পবিত্র আশূরা মিনাল মুহররমুল হারাম শরীফ উনার সম্মানিত

কারবালার হৃদয় বিদারক ঘটনার সাথে সম্পৃক্তরা কঠিন খোদায়ী গযবে পতিত


সাইয়্যিদু শাবাবি আহলিল জান্নাহ, ইমামুছ ছালিছ মিন আহলি বাইতি রসূলিল্লাহি ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম সালাম উনাকে কারবালায় শহীদ করার ব্যপারে হযরত উলামায়ে কিরামগণ উনারা ইজমা করেছেন যে, বিশ্বের ইতিহাসে সবচেয়ে আশ্চর্যজনক, নির্মম, বেদনাদায়ক এবং হৃদয়বিদারক বিষয় হলো কারবালার ঘটনা। সাইয়্যিদুনা হযরত

পবিত্র আশূরা মিনাল মুহররম শরীফ উনার বিশেষ আমলসমূহ এবং ফযীলত মুবারক


পবিত্র মুহররমুল হারাম শরীফ মাস উনার উল্লেখযোগ্য ও শ্রেষ্ঠতম দিন হচ্ছে ১০ই মুহররমুল হারাম শরীফ পবিত্র আশূরা শরীফ উনার দিন। এই মুবারক দিনটি বিশ্বব্যাপী এক আলোচিত দিন। কেননা সৃষ্টির সূচনা হয় এ দিনে এবং সৃষ্টির সমাপ্তিও ঘটবে এই দিনে। বিশেষ বিশেষ

পবিত্র আশুরার শিক্ষা: কাফির-মুশরিকদের খিলাফ করতে হবে


সামনেই পবিত্র আশুরা (১০ মহররম শরীফ)। ঐ দিন পরিবারের লোকদের নিয়ে ভাল খাবারের আয়োজন করলে সারা বছর রিযিকে বরকত হয়। সুবহানাল্লাহ! মানুষ মনে করে থাকে বছরের প্রথম দিন ভাল খাবারের ব্যবস্থা করলে সারা বছর ভাল খাওয়া যাবে। নাউজুবিল্লাহ! এটা একটা কুফরী