Archive for the ‘ইসলাম ও জীবন’ Category

মানুষের অনেকগুলো বদ স্বভাব আছে, যা থেকে অবশ্যই প্রত্যেকটা মানুষকে বেঁচে থাকতে হবে


মানুষের অনেকগুলো বদ স্বভাব আছে, যা থেকে অবশ্যই প্রত্যেকটা মানুষকে বেঁচে থাকতে হবে এবং এই বদ-স্বভাবগুলো যার মধ্যে থাকবে সেই হবে সবচেয়ে নিকৃষ্ট। যেটা হাদীস শরীফে ইরশাদ হয়েছে, হযরত আসমা ইবনে উমাইস রদ্বিয়াল্লাহু তায়ালা আনহু হতে বর্ণিত। তিনি বলেন, আমি নূরে

সুলত্বানুল হিন্দ হযরত খাজা ছাহেব রহমতুল্লাহি আলাইহি তিনি হাক্বীক্বী ওয়ারাছাতুল আম্বিয়া


এক কোটিরও বেশি বিধর্মী যে মহান ব্যক্তিত্ব উনার হাত মুবারক-এ হাত রেখে পবিত্র দ্বীন ইসলাম কবুল করেন, তিনিই হচ্ছেন সুলত্বানুল হিন্দ, সুলত্বানুল মাশায়িখ, সুমহান চীশতিয়া তরীক্বা উনার ইমাম ও প্রতিষ্ঠাতা, সপ্তম হিজরী শতকের মহান মুজাদ্দিদ হযরত খাজা ছাহেব রহমতুল্লাহি আলাইহি। তিনি

সুলতানুল হিন্দ, গরীবে নেওয়াজ, হাবীবুল্লাহ হযরত খাজা ছাহেব রহমতুল্লাহি আলাইহি উনার সম্মান ও মর্যাদা


মহান আল্লাহ পাক তিনি পবিত্র কুরআন শরীফ উনার মধ্যে ইরশাদ মুবারক করেন, “মহান আল্লাহ পাক তিনি যাকে ইচ্ছা উনাকেই উনার খাছ বান্দা হিসেবে মনোনীত করে থাকেন।” (পবিত্র সূরা শুরা শরীফ : পবিত্র আয়াত শরীফ ১৩) উক্ত পবিত্র আয়াত শরীফ উনার মধ্যে

সুলত্বানুল হিন্দ হযরত খাজা ছাহেব রহমতুল্লাহি আলাইহি উনার স্মরণে ভারত-বাংলার সরকারের উদ্যোগ কোথায়?


পবিত্র শাহরুল্লাহিল হারাম রজবুল আছাম্ম উনার ৬ তারিখ বিশ্ববিখ্যাত ওলীয়ে কামিল, সুলত্বানুল হিন্দ, হাবীবুল্লাহ হযরত খাজায়ে আ’যম চীশতি সানজরী আজমিরী রহমতুল্লাহি আলাইহি উনার পবিত্র বিছালী শান মুবারক প্রকাশের সুমহান দিবস। ভারতবর্ষে মানবতার মুক্তির দিশারী হিসেবে উনার বিকল্প আর কেউ নেই। অর্থাৎ

সুলতানুল হিন্দ হযরত খাজা ছাহেব রহমতুল্লাহি আলাইহি তিনি পবিত্র সুন্নতে নববী প্রচার-প্রসারে অনুপম আদর্শ


কুতুবুল মাশায়িখ, সুলত্বানুল হিন্দ, গরীবে নেওয়াজ, হাবীবুল্লাহ হযরত খাজা ছাহিব রহমতুল্লাহি আলাইহি উনার শাদী মুবারক সম্পন্ন হওয়ার বিষয়টি অত্যধিক মাশহূর। উনার দুনিয়াবী হায়াত মুবারক যখন নব্বই বছর, তখন একখানা বিশেষ ঘটনা মুবারক সংঘটিত হয়। এক বিশেষ দীদার মুবারকে নূরে মুজাসসাম হাবীবুল্লাহ

সাইয়্যিদাতুল উমাম, আওলাদে রসূল, সাইয়্যিদাতুনা হযরত শাহ নাওয়াসী আর রবি’য়াহ আলাইহাস সালাম উনার মর্যাদা-মর্তবা, বুযুর্গী-সম্মান মুবারক


সাইয়্যিদাতুল উমাম হযরত শাহ নাওয়াসী আর রবি’য়াহ আলাইহাস সালাম উনার শান-মান, মর্যাদা-মর্তবা, বুযুর্গী-সম্মান মুবারক বেমেছাল। উনার কোনো মেছাল বা তুলনা নেই। উনার মেছাল শুধুমাত্র তিনি নিজেই। সুবহানাল্লাহ! তিনি বহু কারণে বা বিভিন্ন দিক থেকে বেমেছাল শান-মান, মর্যাদা-মর্তবা উনার অধিকারিণী। সাইয়্যিদাতুল উমাম

আহলু বাইতি রসূলিল্লাহ ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম, সিবত্বতু মুজাদ্দিদে আ’যম আলাইহিস সালাম, জান্নাতী মেহমান, সাইয়্যিদাতুল উমাম সাইয়্যিদাতুনা হযরত শাহ নাওয়াসী আর রবি’য়াহ আলাইহাস সালাম উনাকে তা’যীম-তাকরীম মুবারক করার, মুহব্বত মুবারক করার, উনার সম্মানিত খিদমত মুবারক উনার আনজাম মুবারক দেয়ার এবং উনার সম্মানিত ছানা-ছিফত মুবারক করার বেমেছাল ফাযায়িল-ফযীলত মুবারক


সিবত্বতু মুজাদ্দিদে আ’যম আলাইহিস সালাম, জান্নাতী মেহমান, সাইয়্যিদাতুল উমাম সাইয়্যিদাতুনা হযরত শাহ নাওয়াসী আর রবি’য়াহ আলাইহাস সালাম তিনি হচ্ছেন সাইয়্যিদুল মুরসালীন, ইমামুল মুরসালীন, নূরে মুজাস্সাম, হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম উনার মহাসম্মানিত ও মহাপবিত্র হযরত আহলু বাইত শরীফ আলাইহিমুস

পবিত্র লাইলাতুর রাগায়িব শরীফ উনার মহত্ত্ব ও বড়ত


رغائب (রগায়িব) শব্দ মুবারকটি رغيب উনার বহুবচন। যার অর্থ কাঙ্খিত বিষয়, প্রচুর দান। (মিছবাহুল লুগাত-২৯৮) পারিভাষিক বা ব্যবহারিক অর্থে- আখিরী রসূল, সাইয়্যিদুল মুরসালীন, ইমামুল মুরসালীন, নূরে মুজাসসাম, হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম তিনি যে মুবারক রাত্রিতে উনার সম্মানিত আম্মা

মুসলিম শাসনামলের বিস্ময়কর আবিষ্কারক যাঁরা


মানব সভ্যতার ক্রমবিকাশে মুসলিম শাসনামলের মনীষীদের অবদান অবিস্মরণীয়। যুগ যুগ ধরে গবেষণা ও সৃষ্টিশীল কাজে তাদের একাগ্রতা প্রমাণিত।   বিজ্ঞানের বিভিন্ন ক্ষেত্রে তাদের নিজস্ব ধ্যান ধারণা সভ্যতার বিকাশকে করেছে আরও গতিশীল। রসায়ন, পদার্থ, জীববিজ্ঞান, কৃষি, চিকিৎসা, জ্যোতির্বিজ্ঞান, দর্শন, ইতিহাস সর্বত্র ছিল

كل مصور فى النار


প্রাণীর ছবি তোলা আকা রাখা সম্পর্কে আলোচনা- فَاجْتَنِبُوا الرِّجْسَ مِنَ الْأَوْثَانِ وَاجْتَنِبُوا قَوْلَ الزُّور “ তোমরা ছবি বা মূর্তির অপবিত্রতা থেকে বেঁচে থাক এবং মিথ্যা কথা থেকে বেঁচে থাক।” (সুরা হজ্জ্বঃ৩০) ছবি বা মূর্তি এধরণের যা আছে সেটা হাতে আঁকা হতে

মানুষের অনেক গুলো বদ স্বভাব আছে, যা থেকে অবশ্যই প্রত্যেক্টা মানুষকে বেঁচে থাকতে হবে


মানুষের অনেক গুলো বদ স্বভাব আছে, যা থেকে অবশ্যই প্রত্যেক্টা মানুষকে বেঁচে থাকতে হবে এবং এই বদ-স্বভাব গুলো যার মধ্যে থাকবে সেই হবে সবচেয়ে নিকৃষ্ট। যেটা হাদীস শরীফ উনার মধ্যে ইরশাদ মুবারক হয়েছে, হযরত আসমা ইবনে উমাইস রদ্বিয়াল্লাহু তায়ালা আনহু হতে

রজব মাস উনার পহেলা রাতটি দোয়া কবুলের খাস রাত।


রজব মাস উনার পহেলা রাতটি দোয়া কবুলের খাস রাত। যে ব্যক্তি এই মাসে রোযা রাখবে মহান আল্লাহ পাক উনার পক্ষ থেকে তার জন্য ৩টি বিষয় আবশ্যক হয়ে যায়। যথাঃ ১। তার পিছনের সব গুনাহ মাফ করে দেয়া হয়। ২। ভবিষ্যতের জন্য