Archive for the ‘ইসলাম ও জীবন’ Category

আবরাহার সমজাতীয়রাই মসজিদ ভাঙ্গার ষড়যন্ত্র করে


কে না জানে, মহান আল্লাহ পাক উনার সম্মানিত ঘর পবিত্র কা’বা শরীফ ভাঙ্গার জন্য এসেছিল আবরাহা নামের ব্যক্তিটি যে ছিল আবিসিনিয়ার শাসকের প্রতিনিধি। আবিসিনিয়ার শাসকের অনুমতিক্রমে সে ইয়েমেনের শাসনকর্তা নিযুক্ত হয়। সে লক্ষ্য করলো, হজ্জের সময় লক্ষ লক্ষ লোক প্রচুর মাল-সম্পদ

ঈমানদার হিসেবে দাবিকারী প্রত্যেকের জন্য ফরয হচ্ছে- সম্মানিত শরীয়ত উনার প্রতিটি বিষয়ে আহলে সুন্নত ওয়াল জামায়াত অনুযায়ী আক্বীদা পোষণ করা এবং প্রতিটি আমল পবিত্র কুরআন শরীফ ও পবিত্র সুন্নাহ শরীফ অনুযায়ী করা।


মহান আল্লাহ পাক তিনি ইরশাদ মুবারক করেন, হে ঈমানদারগণ! তোমরা মহান আল্লাহ পাক উনাকে যথাযথভাবে ভয় করো এবং প্রকৃত মুসলমান না হয়ে কেউ মৃত্যুবরণ করো না। ঈমানদার হিসেবে দাবিকারী প্রত্যেকের জন্য ফরয হচ্ছে- সম্মানিত শরীয়ত উনার প্রতিটি বিষয়ে আহলে সুন্নত ওয়াল

‘ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম’ ব্যবহার সম্পর্কে দলীল


মহাসম্মানিত ও মহাপবিত্র হাদীছ শরীফ মুবারক উনার মধ্যে এসেছে, عن حضرت جابر بن عبد الله الانصاري رضى الله تعالى عنه قال خطبنا رسول الله صلى الله عليه وسلم فسمعته وهو يقول يا أيها الناس من أبغضنا اهل البيت حشره الله يوم

নিষিদ্ধ হলো পবিত্র কাবা শরীফে সেলফি ও ছবি তোলা


সউদি আরবে মক্কা নগরীর কাবা শরীফে সেলফি তোলা নিষিদ্ধ করেছে সউদি হারামাইন কর্তৃপক্ষ। সাথে মদিনার মসজিদে নববিতেও সেলফি তোলা নিষিদ্ধ করেছে কর্তৃপক্ষ। এ দুটি পবিত্র স্থানে কেউ সেলফি তুললেই দায়িত্ব পালনকারী কর্মকর্তারা তার মোবাইল ফোন বাজেয়াপ্ত করবে। কাবা শরীফ ও মসজিদে

করোনা ভাইরাস থেকে বাচতে চান ?


বেশি করে নূরে মুজাসমাম হাবীবুল্লাহ হুজুর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম উনার ছানা সিফত করুন এবং মিলাদ শরীফ পাঠ করুন। তাহলেই করোনা ভাইরাস থেকে মুক্তি পাবেন। কারণ- নূরে মুজাসমাম হাবীবুল্লাহ হুজুর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম উনার ছানা সিফত কারলে এবং

অপসংস্কৃতি রোধ করতে হলে কথিত ফ্যাশন হাউজগুলো নিয়ন্ত্রণ করতে হবে


বাংলাদেশের মার্কেটগুলোতে কেমন জিএসএম (গ্রাম পার স্কয়ার মিটার)’র কাপড় আসবে সেটা নির্ভর করে পোশাক ববসায় ফ্যাশন হাউসগুলোর উপর। তারা গার্মেন্টগুলোতে যে পরিমাণ জিএসএম’র কাপড় অর্ডার করবে, মার্কেটে সেরকম কাপড়ই আসবে। যদি ফ্যাশন হাউসগুলো মহিলাদের জন্য পাতলা কাপড়ের অর্ডার দেয় তবে তারা

পবিত্র আযান মানুষকে সময় সচেতন করে, কর্মঘন্টা রক্ষা করে


বর্তমানে কিছু পরিবেশবাদী নাস্তিক বের হয়েছে, যারা বলে থাকে আযানে শব্দ দূষণ হয়। নাউযুবিল্লাহ! আমি তাদেকে চ্যালেঞ্জ করে বলবো! আযানে কখনো শব্দ দূষণ হয় না, বরং আযান আমাদের লাখ লাখ কর্মঘণ্টা ও শব্দ দূষণ মুক্ত করতে সহায়তা করে। পবিত্র দ্বীন ইসলাম

সন্তানের ভবিষ্যতের সাথে সাথে নিজের পারলৌকিক জীবন নিয়ে ভাবুন


মানুষ অনেক সময় নিজের জ্ঞান ও যুক্তিকে অগ্রাহ্য করে আবেগ দ্বারা চালিত হয়। যেমন নিজে না খেয়ে কষ্ট করে সঞ্চয় করে ভবিষ্যৎ প্রজন্মের জন্য। এটা নেহায়েৎ বোকামি। খালিক্ব মালিক রব মহান আল্লাহ পাক তিনি প্রত্যেক বান্দা-প্রাণীর রুজির ব্যবস্থা করেই পৃথিবীতে পাঠিয়েছেন।

করোনা ভাইরাসরূপী খোদায়ী গযব থেকে বাঁচতে বেশী বেশী পবিত্র মীলাদ শরীফ পাঠ, ইস্তেগফার ও দুয়া করা সকলের জন্য দায়িত্ব-কর্তব্য।


নূরে মুজাসসাম হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম তিনি ইরশাদ মুবারক করেন, “যে ব্যক্তি আমার প্রতি একবার পবিত্র ছলাত শরীফ ও পবিত্র সালাম শরীফ পেশ করবে, মহান আল্লাহ পাক তিনি তার প্রতি দশটি পবিত্র রহমত মুবারক নাযিল করবেন।” সুবহানাল্লাহ! করোনা

ঐতিহাসিক সুমহান মহাপবিত্র ১৫ই রজবুল হারাম শরীফ। সুবহানাল্লাহ! মুসলমানদের সম্মানিত ক্বিবলা পরিবর্তন দিবস।


মহান আল্লাহ পাক তিনি ইরশাদ মুবারক করেন, ‘মহান আল্লাহ পাক উনার নিদর্শন সম্বলিত দিবসগুলিকে স্মরণ করিয়ে দিন সমস্ত কায়িনাতকে। নিশ্চয়ই এর মধ্যে ধৈর্যশীল ও শোকরগোজার বান্দা-বান্দীর জন্য ইবরত ও নছীহত রয়েছে।’ সুবহানাল্লাহ! ঐতিহাসিক সুমহান মহাপবিত্র ১৫ই রজবুল হারাম শরীফ। সুবহানাল্লাহ! মুসলমানদের

সুমহান বরকতময় ঐতিহাসিক পবিত্র ১৪ই রজবুল হারাম শরীফ। সুবহানাল্লাহ! সাইয়্যিদাতুনা হযরত উম্মুল মু’মিনীন আর রবিয়াহ ইবনাতু আবীহা আলাইহাস সালাম উনার মহাপবিত্র বিলাদতী শান মুবারক প্রকাশ দিবস।


নূরে মুজাসসাম হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম তিনি ইরশাদ মুবারক করেন, ‘আমার হযরত আহলু বাইত শরীফ আলাইহিমুস সালাম উনাদেরকে মুহব্বত করো আমার সন্তুষ্টি মুবারক লাভের জন্য।’ সুবহানাল্লাহ! সুমহান বরকতময় ঐতিহাসিক পবিত্র ১৪ই রজবুল হারাম শরীফ। সুবহানাল্লাহ! সাইয়্যিদাতুনা হযরত উম্মুল

বাংলাদেশের সরকারী আমলাদের কি পরকালের কথা মনে পড়ে না?


কিছুদিন আগে একজন মন্ত্রী মৃত্যুবরণ করেছে। সে মৃত্যুর আগে প্রকাশ্যে ধূমপান ও সভায় ঘুমানোর কারনে সাংবাদিকদের কাছে বেশ আলোচিত ছিলো। কিন্তু তার চেয়ে বেশি সমালোচিত ছিলো ধর্মপ্রাণ মুসলমানদের কাছে। তবে সেটা ভালো মানুষ হিসেবে নয়। কারণ সে প্রকাশ্যেই মেয়েদের পর্দা করার