Archive for the ‘খবর’ Category

এনটিভিকে এক হাজার কোটি টাকার চ্যালেঞ্জ রাজারবাগ দরবার শরীফের


রোববার জাতীয় প্রেসক্লাবের আব্দুস সালাম হলে সংবাদ সম্মেলনে রাজারবাগ দরবার শরীফের মুখপাত্র আল্লমা মুহম্মদ মাহবুব আলম এ চ্যালেঞ্জ ঘোষণা করেন। এনটিভি’র উল্লেখিত প্রতিবেদনে বলা হয়, রাজধানীর শান্তিবাগের ১০৭ নং বাড়ীটি রাজারবাগ শরীফের পীর তার মুরিদের নামে জোর করে লিখে নেন। তবে

‘রাজারবাগ দরবার শরীফের বিরুদ্ধে এনটিভি’ প্রচারিত সংবাদের প্রতিবাদ’


ইমামে আ’যম ইমাম আবু হানিফা রহমতুল্লাহি আলাইহি, গাউসুল আ’যম, হযরত বড় পীর সাহেব রহমতুল্লাহি, ইমাম গাযযালী রহমতুল্লাহি আলাইহি, হযরত খাজা মুঈনুদ্দীন চিশতি রহমতুল্লাহি আলাইহি, উনাদের মতো মহান বুযুর্গ ওলীআল্লাহ রাজারবাগ দরবার শরীফের পীর সাহেব ক্বিবলা যিনি খ্বলীফাতুল্লাহ, খ্বলীফাতু রসূলিল্লাহ, মুজাদ্দিদে আ’যম,

আশুলিয়ার শিশু আহরার হত্যাকাণ্ড নিয়ে এনটিভি’র প্রতারণাপূর্ণ প্রতিবেদন এবং এনটিভির প্রতারক সাংবাদিক শফিক শাহীন কর্তৃক মানবাধিকার লঙ্ঘনের প্রতিবাদ


গত ১১ অক্টোবর এনটিভি-তে প্রচারিত সংবাদে জনৈক সাংবাদিক সফিক শাহীনের ‘মামলাবাজ সিন্ডিকেট’ শীর্ষক কথিত অনুসন্ধানী রিপোর্টে উদ্দেশ্যপ্রণোদিতভাবে আশুলিয়ার শিশু আব্দুস সাত্তার আহরারের (১৩) চাঞ্চল্যকর হত্যা মামলার চার্জশিটভুক্ত খুনিদের পক্ষাবলম্বন এবং খুনিদের বাঁচাতে বাদী ও সাক্ষীদের পরিবারের বিরুদ্ধে জঘন্য মিথ্যাচার করা হয়েছে

৯৮ ভাগ মুসলমানদের দেশের মুসলিম সরকার হিসেবে সাইয়্যিদুল আ’ইয়াদ শরীফ পালনের জন্য সরকারের কোন উদ্যোগ আছে কি?


মহান আল্লাহ পাক তিনি ইরশাদ মুবারক করেন, ‘(আমার হাবীব ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম!) আপনি বলুন, মহান আল্লাহ পাক উনার মহাসম্মানিত ও মহাপবিত্র ফদ্বল মুবারক ও মহাসম্মানিত ও মহাপবিত্র রহমত মুবারক অর্থাৎ আমাকে পাওয়ার কারণে তোমাদের উচিত ঈদ বা খুশি প্রকাশ করা।’

শরয়ী পর্দাভিত্তিক আল মুতমাইন্নাহ মা ও শিশু হাসপাতালের প্রয়োজনীয়তা


সম্প্রতি রাজধানীতে ইউনাইটেড হাসপাতাল নামক এক হাসপাতালে এক নারী রোগীর শ্লীলতাহানীর খবর ফাঁস হয়েছে। অপারেশনের পর রোগীকে অজ্ঞান অবস্থায় পেয়ে অসৎ উদ্দেশ্যে হস্ত সঞ্চালন করে ওই হাসপাতালের সাইফুল নামের এক স্টাফ নার্স। স্পর্শকাতর জায়গায় অনুভূতি পেয়ে জ্ঞান ফিরে আসার পর রোগী

মহল্লায় মহল্লায় পূজামন্ডপ হয় কিন্তু কুরবানীর হাট মহল্লায় মহল্লায় হতে বাধা!!


বাংলাদেশের ৯৮ ভাগ মুসলমানদের দেশে প্রতিবারই পাড়ায়-পাড়ায়, মহল্লায়-মহল্লায়, মোড়ে-মোড়ে পূজামন্ডপ বসাতে দেখা যায়। সংখ্যালঘুরা পাড়ায়-পাড়ায়, মহল্লায়-মহল্লায় পূজামন্ডপ বসাতে পারে তাহলে ৯৮ ভাগ মুসলমানদের সুবিধার্থে কেন প্রতিটি এলাকায় কুরবানীর হাট বসানো হবে না? মুসলমানদের জন্য প্রতিটি এলাকা, পাড়া-মহল্লা সবখানইে কুরবানীর হাট বসাতে

অশালীন বিলবোর্ড রাস্তায় দুর্ঘটনার অন্যতম কারণ!


একবার এক মন্ত্রী এক সভার ভাষণে বলেন, “সুন্দরী মেয়েদের বিল বোর্ড এর কারণে রাস্তায় দুর্ঘটনা ঘটে, আমাদের চালক ভাইরা তারা সুন্দরী মেয়েদের বিলবোর্ডের দিকে তাকান এর ফলে দুর্ঘটনা ঘটে, তবে তারাও মানুষ”। বাস্তবতা সেটাই আমরা দেখতে পাই- শুধু সুন্দরী মেয়ে নয়,

বিশ্বের সবচাইতে বেশি নারী নির্যাতন এবং নারী অধিকার খর্ব করে যে সব দেশ


১. সম্ভ্রমহরণ ও শ্লীলতাহানি হয়রানি: যুক্তরাষ্ট্রে প্রতি ৪৫ সেকেন্ডে সম্ভ্রমহরণের শিকার হয় একজন নারী আর বছরে এই সংখ্যা গিয়ে দাঁড়ায় সাড়ে ৭ লাখে। (সূত্র: দি আগলি ট্রুথ, লেখক মাইকেল প্যারেন্টি)। আর ব্রিটেনে প্রতি ২০ জনের মধ্যে একজন নারী ধর্ষিত হয়। ২.

সম্রাজ্যবাদীদের আগ্রাসনঃ দেশীয় শিল্প ধ্বংস


চকবাজারে দেশী পণ্যের বিরুদ্ধে অভিজান করলেন, কিছু হলো না। ৫২ পণ্যের বিরুদ্ধে অভিজান করলেন, কিছু হলো না। নিউ মার্কেটের ফাস্ট ফুড দোকানগুলোতে অভিজান করলেন, কিছু হলো না গ্রিন লাইন বাস কাউন্টারের বিরুদ্ধে অভিজান করলেন, কিছু হলো না। কিন্তু যেই না, আড়ং

বাল্যবিবাহ বিরোধীদের উচিত ক্লিনিকগুলোর গর্ভপাতের বিষয়ে নিয়ে নজর দেয়া


যারা বাল্যবিবাহ নিয়ে ও বিয়ের বয়স নিয়ে কথা বলে তাদের উচিত- আগে বাংলাদেশের যত হাসপাতাল, ক্লিনিক আছে সেখানে জরিপ করা। কেননা যেখানে যথাসময়ে ও উপযুক্ত বয়সে বিয়ে না দেয়ায় অনৈতিক সম্পর্কে জড়িয়ে, শেষে গর্ভপাত ঘটায় মেয়েরা। বাল্যবিবাহ বিরোধীদের উচিত সেখানে গিয়ে

বাংলাদেশের খনিজ তেলও ভারতের হাতে


সরকারি অর্থ ব্যয় করে প্রকল্প গ্রহণ করে জ্বালানি তেল অনুসন্ধান কাজ শেষে তেল উত্তোলন শুরু হয়েছিল ১৯৮৯ সালে। দীর্ঘ সময় অতিক্রান্ত হবার পর রহস্যজনক কারণে তা কৌশলে তুলে দেয়া হয়েছে পার্শ্ববর্তী দেশের হাতে। আমাদের দেশের মূল খনিমুখ চিরতরে বন্ধ করে দেবার

বাংলার আকাশে বহুজাতিক শকুনের ছায়া। প্রসঙ্গ: গোল্ডেন রাইস


গোল্ডেন রাইস কী? বাংলাদেশে বহুজাতিক এগ্রো কর্পোরেশনের বীজ রাজনীতির নতুন সংযোজন জেনেটিক্যালী মডিফাইড (জিএম) ধান গোল্ডেন রাইস। গোল্ডেন রাইস প্রকল্পের সাথে জড়িত মূলত আন্তর্জাতিক ধান গবেষণা ইন্সটিটিউ (ওজজও), বাংলাদেশ ধান গবেষণা ইন্সটিটিউট, ব্রি (ইজজও) এবং মার্কিন সংস্থা বিল অ্যান্ড মেলিন্ডা গেটস