Archive for the ‘প্রতিবাদ’ Category

রবীন্দ্রকে কেন্দ্র করে মুসলিম জাতিসত্তার অবমাননা, আইনি নোটিশ


রবীন্দ্রকে কেন্দ্র করে বিভ্রান্তিকর প্রবন্ধ রচনা করায় ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের অধ্যা. সিরাজুল ইসলামকে আইনি নোটিশ পাঠিয়েছে দৈনিক আল ইহসান ও মাসিক আল বাইয়্যিনাত উনার সম্পাদক মুহম্মদ মাহবুব আলম। নোটিশে বলা হয়, ঢাবির ওই অধ্যাপক গত ৭ আগস্ট ২০২০ তারিখে দৈনিক যুগান্তর-এ প্রকাশিত

খাবারে লুকিয়ে থাকা হারাম উপাদান


রেনেট বা রেনিন (Rennet or Rennin): সদ্য হত্যাকরা প্রানীর পেট থেকে রেনেট এনজাইম সংগ্রহ করা হয় যা পনির বানানোর কাজে ব্যবহার করা হয়। তবে পাশ্চ্যাতে রেনেট সংগ্রহ করা হয় শুকোরের পেট থেকে। এটি হারাম । এ কারণে বিদেশী (মুসলিম দেশ ছাড়া)

পবিত্র কুরবানী নিয়ে ইসলামবিদ্বেষী মহলের চক্রান্ত অব্যাহত


পবিত্র কুরবানী নিয়ে এদেশে ঘাপটি মেরে থাকা কিছু ইসলামবিদ্বেষী মহল প্রতি বছরই নানা ধরনের চক্রান্ত করে যাচ্ছে। যেমন বিগত বছরগুলোতে যেসব ষড়যন্ত্র করেছিলো তার কিছু নমুনা এখানে তুলে ধরা হলো- ২০০৭ সালে ভারত নিয়ন্ত্রিত মিডিয়াগুলোতে প্রচারণা চালানো হয়- ‘কুরবানী না করে

পবিত্র কুরবানী নিয়ে ষড়যন্ত্র কঠোর হস্তে বন্ধ না করলে সরকারের সহযোগিতা প্রমাণিত হবে


পবিত্র কুরবানী মুসলমানদের ঈমানের সাথে অর্থাৎ মুসলমানিত্বের সাথে সম্পৃক্ত, যা গোটা দেশের জন্য শুধু বরকতের কারণই নয়; বরং অর্থনৈতিকভাবেও ব্যাপক সমৃদ্ধির কারণ। এই বরকতময় কুরবানীতে যেন মুসলমানগণ বাধাগ্রস্ত হয়, কুরবানীর সংখ্যা যেন ধীরে ধীরে কমে আসে, কুরবানীতে যেন বিশৃঙ্খল সৃষ্টি হয়

মানুষের ঘরে খাবার নেই। খাবারের জন্য চলছে বিক্ষোভ, সরকারি ত্রাণে চলছে লুটপাট। জনগণের অসহায়ত্ব নিয়ে টালবাহানার পরিণাম হতে পারে ভয়াবহ।


সারাদেশে চলছে তথাকথিত লকডাউন। বাজার ঘাট বন্ধ, সব ধরণের পেশার উৎসও বন্ধ। এমন পরিস্থিতিতে দেশের অধিকাংশ মানুষের ঘরেই নেই খাবার। ফলে লকডাউন ভেঙ্গে রাস্তায় নেমে আসছে সাধারণ মানুষ। ক্ষুধায় কাতর হয়ে রাস্তায় রাস্তায় ঘুরছে ত্রাণের আশায়। কোথাও ত্রাণের গাড়ি দেখলে হুমড়ি

এক স্বঘোষিত ঈমানহারা, বেঈমানের মুখোশ উন্মোচন


‘অসীম ইলম মুবারক উনার অধিকারী’ বিশ্বাস করলে বা বললে যদি ঈমানহারা হতে হয়, তাহলে আইনুল হুদা ওরফে আইনুশ শয়তান লা’নাতুল্লাহি আলাইহি সদরল আমিনকে মাওলানা বলে এবং মাদরাসা থেকে ফারেগ হওয়া ব্যক্তিদেরকে মাওলানা বলা জায়েয বলে, সে নিজেই ঈমানহারা হয়ে বেঈমান হয়ে

বিশ্বের বৃহত্তম শ্রমশক্তির দেশ বাংলাদেশ এখন গুরুত্বহীন খেলাধুলায় আসক্ত


বাংলাদেশের বিশাল জনসম্পদের কারণে বিশ্বে এখন এ দেশ অন্যতম বৃহত্তম শ্রমশক্তির দেশ হিসেবে পরিচিত। খোদায়ী রহমতে পরিপূর্ণ এ বিশাল জনশক্তি কখনো হ্রাস পায়নি; বরং দিনে দিনে বৃদ্ধি পাচ্ছে। বাংলাদেশে প্রতিবছর ক্রমবর্ধমান হারে শ্রমশক্তি বৃদ্ধি পাচ্ছে। বলাবাহুল্য, এ বিশাল কর্মক্ষম জনগোষ্ঠীর হাতেই

অপারেটরদের বিজ্ঞাপনী এসএমএস এবং ফোনকল থেকে মুক্তি চাই


প্রায় ২০ কোটি জনসংখ্যার বাংলাদেশে মোবাইল ফোন ব্যবহারকারীর সংখ্যা ১৫ কোটি ছাড়িয়েছে। যেহেতু একবার ব্যবহার শুরু করে কেউ মোবাইল ফোন ব্যবহার বন্ধ করে দেয় না, সেহেতু মোবাইল ফোন ব্যবহারকারীর সংখ্যা কখনো কমে না, বরং প্রতিদিনই বাড়ছে এ সংখ্যা।   ইদানীং আমাদের

প্রসঙ্গ: মেট্রোরেল


মেট্রোরেলের ফলাফল আর যাই হোক না কেন, এতে অন্ততঃ যানজট কমবে না বরং দ্বিগুন হতে বাধ্য। অন্য সব কারণ বাদ দিয়ে শুধু একটা কারনই বিবেচনা করা হোক। সেটা হচ্ছে, যে ষ্টেশনগুলোতে রেল থামবে সেখান থেকে যাত্রীদের গন্তব্য স্থলে যাওয়ার বা আসার

জুতা চোর তারাই যারা ৮ রাকায়াত তারাবি পড়ে পবিত্র মসজিদ থেকে বের হয়ে যায়!


২০ রাকায়াত তারাবীহ নামায আদায় করা সুন্নতে মুয়াক্কাদা। কোনো জরুরত ছাড়া যারা ৮ রাকায়াত তারাবীহ পড়ে (৮ রাকায়াতে বিশ্বাসী) পবিত্র মসজিদ থেকে বের হয়ে যায় তারা নিশ্চয় জুতা চোর। এদের কে যেখানে পাবেন গণধোলাই দিয়ে পুলিশে ধরিয়ে দিন। – নূরে মুজাসসাম

চুষিলদের নির্লজ্জ ডাবল ষ্ট্যাণ্ডার্ড এবং মুসলিম বিদ্বেষ


সম্প্রতি সোশ্যাল মিডিয়াতে সংগীতকার আল্লারাখা রহমান (এ আর রহমান) কে নিন্দা ও গালিগালাজ করছে তথাকথিত চুষিলরা। এই চুষিলদের মধ্যে ২ ধরণের লোকেরা আছে – হিন্দু ও ভণ্ড নাস্তিক ( ছুপা হিন্দু)।   সংগীতকার আল্লারাখা রহমান (এ আর রহমান) কে তথাকথিত চুষিলরা

মসজিদে সিসি ক্যামেরা! নাউযুবিল্লাহ! 


খবর বেরিয়েছিলো, প্রশাসন কথিত সন্ত্রাসবাদ ঠেকানোর অজুহাতে মসজিদে মসজিদে সিসি ক্যামেরা লাগানোর উদ্যোগ নিয়েছে। কিন্তু তখন ব্যাপারটিকে এত গুরুত্ব দিয়ে ভাবিনি। মনে করেছিলাম- গণতান্ত্রিক প্রশাসনতো এরকম উদ্ভট ও অযৌক্তিক কত কিছুই তো করার উদ্যোগ নিয়েছে, কিন্তু সবকিছুতো আর বাস্তবে করতে পারেনি।