সাময়িক অসুবিধার জন্য আমরা আন্তরিকভাবে দু:খিত। ব্লগের উন্নয়নের কাজ চলছে। অতিশীঘ্রই আমরা নতুনভাবে ব্লগকে উপস্থাপন করবো। ইনশাআল্লাহ।

Archive for the ‘বিভাগবিহীন’ Category

বাংলাদেশে এসেও চাকরিক্ষেত্রে বাঙালি মুসলমানের অপমানের পালা শেষ হলো না


শামসুল হুদা চৌধুরী ছিলেন জিয়াউর রহমান আমলের তথ্যমন্ত্রী, পরবর্তীতে জাতীয় সংসদের স্পীকার। ১৯২০ সালে তিনি পশ্চিমবঙ্গের বীরভূমে জন্মগ্রহণ করেন। পশ্চিমবঙ্গের স্থানীয় হিসেবে সাতচল্লিশের দেশবিভাগের পর তিনি বাংলাদেশে আসতে চাননি, পশ্চিমবঙ্গেই থেকে যেতে চেয়েছিলেন। কিন্তু তাকে চাকরিক্ষেত্রে হিন্দুদের দ্বারা অপমানিত হয়ে বাংলাদেশে

স্রষ্টার কোন সৃষ্টি অযথা, নিষ্প্রোয়জনীয়, উদ্দেশ্যবিহীন নয়!


হযরত মুসা কালিমুল্লাহ আলাইহিস সালাম তিনি একদিন আল্লাহপাক উনাকে প্রশ্ন করলেন… “হে আল্লাহপাক! যদি ৪টি জিনিস হতো আর ৪টি জিনিস না হত তবে খুব ভাল হত, ১) যদি জীবন হত, মৃত্যু না হত । ২) যদি জান্নাত হত জাহান্নাম না হত।

কামিল মুর্শিদ উনাদের সাহায্য ছাড়া নফস ও শয়তানের বাধা অতিক্রম করা সম্ভব না


মরিতে চাহি না আমি এই সুন্দর ভুবনে। কবি এখানে পৃথিবীকে সুন্দর বলে নাই, সুন্দর বলেছে পৃথিবীর কতিপয় বন্তুকে। যার প্রতি মানুষের রয়েছে দারুণ আকর্ষণ। এই আকর্ষণ স্বয়ং খালিক্ব মালিক রব মহান আল্লাহ পাক তিনিই মানুষকে দান করেছেন। এ সবের উল্লেখ রয়েছে

বাংলাদেশ থেকে টাকা চলে যাচ্ছে এতগুলো দেশে!!!


বাংলাদেশ থেকে পাচার হওয়া অর্থ ভোগ করছে ভারত। ভারত ছাড়াও আরো ৩৬টি দেশ পাচার হওয়া অর্থ ভোগ করে যাচ্ছে। এ সংক্রান্ত তথ্য-প্রমাণাদি এখন অনলাইনে ভেসে বেড়াচ্ছে। সবাই দেখছে, আর আশ্চর্য হচ্ছে!! প্রতিবেদনগুলো থেকে জানা গেছে, বাংলাদেশ থেকে পাচার হওয়া অর্থ ভারত

“নিজ দায়িত্ব বাদ দিয়ে অন্যের দায়িত্ব পালন করতে গিয়ে সব কিছু ভণ্ডল করেছে নারী আনোয়ার হুসাইন খান”


বিভ্রান্ত ও আত্মবিস্মৃত নেতৃত্বের বোঝা বইছে হতভাগ্য বাংলাদেশী জনতা। ক্ষমতাসীন কিংবা বিরোধী কোনো দলই নিজ ক্ষমতা বলে নেতৃত্ব দেয় না। ভাগ্যের ইশারায় এরা নেতৃত্ব দিচ্ছে। দুই প্রধান দলের দুই শীর্ষ নেতার একজন পিতার পক্ষে অন্যজন স্বামীর পক্ষে দায়িত্ব পালন করছে। আসলে

সউদী সরকার তাদের অপকর্মগুলো ঢেকে রাখতেই ওহাবীপন্থীদের নিয়ন্ত্রিত মসজিদ-মাদরাসায় অর্থ যোগান দিচ্ছে


ইহুদী বংশধর সউদী কথিত রাজপরিবারের সমস্ত অপকর্মের পক্ষে সাফাই গায় ওলীআল্লাহ বিদ্বেষী, নবী-রসূল আলাইহিমুস সালাম উনাদের বিদ্বেষী ওহাবীরা, তাদের সমর্থন ও ওয়াসওয়াসার কারণেই মুসলমানগণ সউদী শাসকদের অপকর্মের বিরুদ্ধে বোবা হয়ে থাকে। এমনকি মুসলিম দেশগুলোতে হামলা চালিয়ে হাজার হাজার মুসলমান শহীদ করার

সন্ত্রাসী উপজাতিদের এ দেশ থেকে বিতাড়িত করলেই পাহাড়ে শান্তি ফিরে আসবে


বাংলাদেশের স্বাধীনতার পূর্ব থেকেই বার্মা, নেপাল, ভারত প্রভৃতি দেশ থেকে আসা উপজাতিরা বাংলাদেশের পাহাড়গুলোতে খুঁটি গেড়েছিল। তৎকালীন সরকারের উচিত ছিল এগুলোকে আশ্রয় না দিয়ে বিতাড়িত করা। কিন্তু সেটা না করায় আজ অবধি এর যন্ত্রণার ফল ভোগ করছে দেশের সরকার ও জনগণ।

পবিত্র আখিরী চাহার শোম্বাহ শরীফ পালন করা সুন্নত; বিদয়াত বলা কুফরী


মহান আল্লাহ পাক তিনি ইরশাদ মুবারক করেন, والذين اتبعوهم باحسان رضى الله عنهم ورضوا عنه অর্থ: “হযরত ছাহাবায়ে কিরাম রদ্বিয়াল্লাহু তায়ালা আনহুম উনাদেরকে যারা উত্তমভাবে অনুসরণ করবে, মহান আল্লাহ পাক তিনি তাদের প্রতিও সন্তুষ্ট হবেন এবং তারাও মহান আল্লাহ পাক উনার

এ কী ধরনের প্রশাসন: বিধর্মীদের সাথে বন্ধুত্ব, মুসলমানদের বিরোধিতা!


পৃথিবীর প্রায় প্রতিটি দেশেই লক্ষ্য করলে দেখা যাচ্ছে, মুসলমানগণের ফরয আমল তথা পর্দার বিরোধিতা, পবিত্র কুরআন শরীফ উনার মানহানি করা, মহান আল্লাহ পাক উনার হাবীব নূরে মুজাসসাম হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম উনার মানহানি করা, মুসলমানগণের পবিত্র মসজিদ তৈরিতে

পবিত্র আখিরী চাহার শোম্বাহ শরীফ পালনে মুসলিম বিশ্বের সরকারগুলোকে বিশেষ মনোযোগী হতে হবে


পবিত্র ছফর মাস উনার শেষ ইয়াওমুল আরবিয়া বা বুধবার দিন ইসলামের ইতিহাসে একটি উল্লেখযোগ্য তাৎপর্যময় ঘটনার ঐতিহাসিক দিন। এ সম্পর্কে একমতে বর্ণিত আছে, মাহবুব-ই ইলাহী হযরত নিযামুদ্দীন আউলিয়া রহমতুল্লাহি আলাইহি উনার শায়েখ হযরত বাবা ফরিদউদ্দিন মাসউদ গঞ্জে শকর রহমতুল্লাহি আলাইহি উনার

সখী বা দানশীল হওয়া পবিত্র সাইয়্যিদুল আ’ইয়াদ শরীফ উনার অন্যতম শিক্ষা


পবিত্র হাদীছ শরীফ উনার মধ্যে ইরশাদ মুবারক হয়েছে, “সখী বা দানশীল ব্যক্তি মহান আল্লাহ পাক উনার বন্ধু যদিও সে ব্যক্তি ফাসিক হয়। আর বখীল বা কৃপণ ব্যক্তি মহান আল্লাহ পাক উনার শত্রু যদিও সে ব্যক্তি আবেদ হয়।” (লুগাতুল হাদীছ) হযরত নবী

মহাপবিত্র সাইয়্যিদুল আ’ইয়াদ শরীফ উনার বিরোধিরা আবু লাহাবের চেয়ে কোটি কোটিগুণ নিকৃষ্ট


আবু লাহাব একাধারে বারো বছর নূরে মুজাসসাম, হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম উনার বিরোধিতা করেছিল। মহান আল্লাহ পাক তিনি আবু লাহাব ও তার স্ত্রীসহ পরিবারের সকলের ধ্বংসের ব্যাপারে পবিত্র সূরা লাহাব শরীফ নাযিল করেছেন এবং তারা আযাবে-গযবে ধ্বংস হয়ে