Archive for the ‘বিভাগবিহীন’ Category

সাবধান! আপনার সন্তানকেও দূরে রাখুন- পূজার মূর্তিগুলো দেখলে মুসলিম সন্তানের ঈমানের উপর বিরূপ প্রভাব পড়তে পারে


হিন্দুরা এক সময় তাদের নির্দিষ্ট মন্দিরে পূজা করলেও ইদানীং তাদেরকে বিভিন্ন রাস্তাঘাটে অলিগলিতে, স্কুল-কলেজের মাঠে ও বাজারে প্রকাশ্যে পূজামন্ডপ করতে দেখা যায়। যে কারণে দেখা যায় ইচ্ছা-অনিচ্ছায় মুসলমানদের অনেকেই সে সব পুজামন্ডপে যায়। এমনকি অনেকে তাদের শিশুদেরও সেখানে নিয়ে যায়। অথবা

ইতিহাসের পাতা থেকে: সমগ্র পৃথিবীতে পবিত্র সাইয়্যিদুল আ’ইয়াদ শরীফ জাতীয়ভাবে পালন হতো তার প্রমাণ


ইমামুল মুহাদ্দিসীন হযরত মোল্লা আলী ক্বারী হানাফী রহমতুল্লাহি আলাইহি যিনি সমগ্র বিশ্বে সকলের কাছে এক নামে স্বীকৃত একজন মুহাদ্দিস। এখন থেকে প্রায় পাঁচশত বছর পূর্বে উনার বিলাদত শরীফ। তিনি পবিত্র ইলমে হাদীছ শরীফ উনার জ্ঞান অর্জন করতে পবিত্র মক্কা শরীফ শরীফ,

রহমত, বরকত, সাকীনা এবং মাগফিরাতের খাযিনা নিয়ে আবারো আমাদের মাঝে ফিরে আসছে সাইয়্যিদুশ শুহূর মাহে রবীউল আউওয়াল শরীফ


পবিত্র হাদীছ শরীফ উনার মধ্যে এসেছে, “পবিত্র রমাদ্বান শরীফ আসলে উনার সম্মানার্থে রহমতের দরজাসমূহ খুলে দেয়া হয় এবং অবিরত ধারায় রহমত বর্ষিত হতে থাকে।” যদি পবিত্র রমাদ্বান শরীফ উনার সম্মানার্থে রহমতের দরজা খুলে দেয়া হয় এবং অবিরত ধারায় রহমত বর্ষিত হতে

ইহকালে যা উপার্জন করা হয়েছে, পরকালে তাই খরচ করতে হবে। মুফতে কিছু মিলবে না


আমরা এক মাসে যা আয় করি পরবর্তী মাসে তা থেকে ব্যয় করি। কোনো মাসে আয় কম হলে পরবর্তী মাসে কষ্টে জীবন চলে। মানব জীবনের অন্য দিক ইহজীবন এবং পরজীবনে একই নিয়ম চালু আছে। পবিত্র হাদীছ শরীফ উনার মধ্যে আছে- এই দুনিয়া

‘নূরে মুজাসসাম হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম উনার এবং উনার মহাসম্মানিত হযরত আহলু বাইত শরীফ আলাইহিমুস সালাম উনাদের সম্মানিত শান মুবারক-এ ‘মুত্বহ্হার’ (পূত-পবিত্র) এবং ‘মুত্বহ্হির’ (পূত-পবিত্রতাদানকারী) বলতে হবে’


মুজাদ্দিদে আ’যম, আহলু বাইতি রসূলিল্লাহ ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম মামদূহ মুর্শিদ ক্বিবলা সাইয়্যিদুনা ইমাম খলীফাতুল্লাহ হযরত আস সাফফাহ আলাইহিছ ছলাতু ওয়াস সালাম উনার এক অনন্য বেমেছাল বিস্ময়কর মহাসম্মানিত তাজদীদ মুবারক হচ্ছেন, “মহাসম্মানিত ও মহাপবিত্র হযরত আহলু বাইত শরীফ আলাইহিমুস সালাম উনাদের

সাইয়্যিদুনা হযরত ইমাম ইবনে হযরত যুন নূর আলাইহিস সালাম উনার সংক্ষিপ্ত জীবনী মুবারক


সাইয়্যিদু শাবাবি আহলিল জান্নাহ, সিবতু রসূলিল্লাহ ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম, আহলু বাইতি রসূলিল্লাহ ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম, ইবনু খইরি বানাতি রসূলিল্লাহ ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম আন নূরুল ঊলা আলাইহাস সালাম সাইয়্যিদুনা হযরত ইমাম ইবনে হযরত যুন নূর আলাইহিস সালাম উনার সংক্ষিপ্ত

খাবার খাবেন কোথায়?


প্রথমে একটি তথ্য জানাই আপনাদের। এরপর বাকি কথা। ঘটনাটি আজ থেকে প্রায় ১০ বছর আগের। রাজধানী ঢাকার মধ্যে আরেকটি ঢাকা আছে যার নাম ‘পুরাতন ঢাকা’। সে এলাকার একটি জায়গার নাম হলো ঠাঁটারি বাজার। এলাকাটি ব্যবসায়িক এলাকা হওয়ায় সারাদেশ থেকেই প্রচুর লোকজনের

মুসলমানদের মোবাইলে রিংটোন হিসেবে গান-বাদ্য মিউজিক থাকতে পারে না


পবিত্র দ্বীন ইসলাম উনার মধ্যে গান-বাদ্য করা, শ্রবণ করা কিংবা শুনানোর আয়োজন করা সবই কবীরা গুনাহ ও হারাম। বিভিন্নভাবে মুসলিম সমাজে এই হারাম প্রবেশ করেছে। বর্তমানে মোবাইল ব্যবহার করা যোগাযোগের অন্যতম প্রধান পন্থা হিসেবে বিবেচিত হয়ে আসছে। সেটাকেই ইহুদী-নাছারা চক্র মোক্ষম

এক নজরে সিবতু রসূলিল্লাহ সাইয়্যিদুনা হযরত ইমাম ইবনে হযরত যুন নূর আলাইহিস সালাম উনার সম্মানিত পরিচিতি মুবারক


সম্মানিত ও পবিত্র ইসম বা নাম মুবারক: সাইয়্যিদুনা হযরত আলী আলাইহিস সালাম। সুবহানাল্লাহ! সম্মানিত লক্বব মুবারক: সিবতু রসূলিল্লাহ ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম, আহলু বাইতি রসূলিল্লাহ ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম, সাইয়্যিদু শাবাবি আহলিল জান্নাহ ইত্যাদি ইত্যাদি। সুবহানাল্লাহ! যেই সম্মানিত লক্বব মুবারক-এ সম্মানিত

মুসলমানদের ঈমানী বিশ্ববিদ্যালয় কোথায়, কোথায় ঈমানী একাডেমী, কোথায় ঈমানী গবেষণাকেন্দ্র?


এদেশে যবন হিন্দু মুশরিকদের নামে বিশ্ববিদ্যালয় হয়, একাডেমী হয়, গাঁজাখোর বাউল লালনের নামে একাডেমী করার দাবি তোলা হয়। অথচ আফসুস! যিনি মুসলমানদের নবী-রসূল, যিনি আমাদের ঈমান শিক্ষা দিয়েছেন, যিনি আমাদের মুসলমানিত্ব দান করেছেন- উনার নাম মুবারকে কোনো বিশ্ববিদ্যালয়, উনাকে নিয়ে কোনো

প্রতিদিন ৩২ বার…..!!


৫বার ১০বার নয়, প্রতিদিন ৩২বার আমাদেরকে পড়তে হয়। অথচ এরপরও আমরা এর অর্থ-মর্মার্থ নিয়ে চিন্তা করি না, বুঝি না। অথচ এর মধ্যেই রয়ে গেছে আমাদের জীবন-যাপনের মৌলিক সূত্র। আমরা শুধু কেবল এই সর্বাধিক পঠিত বিষয়টির আলোকে জীবনকে পরিচালিত করতে পারলেই এতদিনে

আসন্ন পবিত্র ঈদে মীলাদে হাবীবুল্লাহ ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম অর্থাৎ পবিত্র সাইয়্যিদুল আ’ইয়াদ শরীফ উনার সম্মানার্থে- নিরাপত্তাসহ সার্বিক সাহায্য সহযোগিতা করা সরকারের জন্য ফরয


পবিত্র হাদীছ শরীফ উনার মধ্যে ইরশাদ মুবারক হয়েছে- “আমার আগমন মূর্তি ও বাজনা ধ্বংস করার জন্য।” অন্য পবিত্র হাদীছ শরীফ উনার মধ্যে ইরশাদ মুবারক হয়েছে- “গান-বাজনা মনের মধ্যে নেফাকী পয়দা করে।” ইসলামী শরীয়ত উনার মধ্যে গান-বাজনা হারাম ও নিষিদ্ধ ঘোষণা করা