Archive for the ‘ষড়যন্ত্র’ Category

দেশের সমুদ্রসীমায় ৪০ ট্রিলিয়ন গ্যাস থাকলেও বিদেশ থেকে আমদানি করা হচ্ছে উচ্চমূল্যের এলএনজি


দেশে গ্যাসের ঘাটতি মেটাতে অত্যন্ত ব্যয়বহুল এলএনজি বা তরল প্রাকৃতিক গ্যাস আমদানির দিকেই সরকারের ঝোঁক বেশি। বিশেষজ্ঞরা বলছেন, আমদানি করা এলএনজি সার্বিক উৎপাদন ব্যয় বাড়িয়ে দেবে। সরকার বর্তমানে যে দামে গ্রাহকদের কাছে গ্যাস বিক্রি করছে, আমদানি করা গ্যাস সেই দামে বিক্রি

আবারো নাস্তিক ও ইসলামবিদ্বেষীদের হাতেই সিলেবাস ও শিক্ষানীতি


বাংলাদেশের শিক্ষা মন্ত্রণালয় নবম ও দশম শ্রেণির ১২টি বইয়ের মধ্যে বাংলা সাহিত্য বইটি পরিমার্জনের দায়িত্ব দিয়েছে নাস্তিক্যবাদী ও চরম ইসলামবিদ্বেষী শ্যামলীকে, ইংলিশ ফর টুডে বইয়ের দায়িত্ব দিয়েছে মনজুরুলকে, বাংলাদেশ ও বিশ্বপরিচয় বইয়ের দায়িত্ব দিয়েছে আখতারুজ্জামানকে, বাংলাদেশ ও বিশ্বসভ্যতা বইয়ের দায়িত্ব দিয়েছে

যখন প্রাণী ও পশু সম্পদ মন্ত্রণালয়ে বিধর্মী বা হিন্দুরা থাকে… তখন কি হতে পারে?


জানা থাকার কথা, খ্রিস্টানদের প্রিয় খাবার শূকর আর হিন্দুদের কচ্ছপ-কাকড়া। আবার হিন্দুরা গরুকে দেবতা মনে করে, তারা গরু কুরবানীবিরোধী। তাহলে বাংলাদেশের মতো ৯৮ ভাগ মুসলমানদের দেশে প্রাণী ও পশু সম্পদ মন্ত্রণালয়ের কর্মকর্তা-কর্মচারী হিসেবে হিন্দু, খ্রিস্টান তথা বিধর্মীদের নিয়োগ দেয়া কি তাদের

উপজাতিগুলোকে যেভাবে উস্কানি দিচ্ছে এনজিওগুলো


পার্বত্য চট্টগ্রামে উপজাতি গোষ্ঠীগুলো উস্কে দেয়ার মূলে কাজ করছে বিদেশী কিছু সংস্থা, যেমন- জাতিসংঘ (ইহুদীসংঘ), ইউএনডিপি, কারিতাস, কেয়ার, আশা, সিসিডিবি’সহ আরো কিছু বিদেশী এনজিও। এরাই কুটবুদ্ধি ও কুপরামর্শ দিয়ে উপজাতি গোষ্ঠীগুলোকে ক্ষেপিয়ে রাখছে। এই উস্কে দেয়ার পেছনে উপজাতিদের মুলো দেখানো হয়-

রোহিঙ্গাদের নিয়ে অপতৎপরতায় দুই এনজিও নিষিদ্ধ


আন্তর্জাতিক এনজিও আদ্রা ও আল মারকাজুল ইসলামীকে সারাদেশে নিষিদ্ধ করেছে এনজিও ব্যুরো। গত ২৫ আগস্ট কক্সবাজারের উখিয়ায় রোহিঙ্গাদের মহাসমাবেশে আর্থিক সহায়তা এবং প্রত্যাবাসনবিরোধী প্রচারণার দায়ে এই এনজিও দুটিকে নিষিদ্ধ করা হয়েছে। একইসঙ্গে এই দুই এনজিও’র ব্যাংকের সব লেনদেন বন্ধ রাখার কথাও

ইতিহাসের পাতা থেকে: মুসলমানদের শিক্ষা-দীক্ষার বিরোধিতায় বিধর্মী-অমুসলিমরা


ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় প্রতিষ্ঠার ঘোর বিরোধিতা করেছিল বিধর্মীরা। তাদের প্রবল বিরোধিতার মোকাবিলা করেই ১৯২১ সালে প্রতিষ্ঠিত হয় ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়। এরপর প্রতিষ্ঠিত হয় রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয় ১৯৫৩ সালে। চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয় প্রতিষ্ঠিত হয় ১৯৬৬ সালে এবং জাহাঙ্গীরনগর ১৯৭০ সালে। দেখা যাচ্ছে, সাতচল্লিশের আগে এই বাংলার

বাংলাদশের স্কুল-কলেজের সিলেবাস দেখে প্রশ্ন জাগে- এটা কি ভারত, না বাংলাদেশ?


বাংলাদশের স্কুল-কলেজের সিলেবাস দেখে প্রশ্ন জাগে- এটা কি ভারত, না বাংলাদেশ? বাংলাদেশ ভারত নয়, ভারতের অঙ্গরাজ্যও নয়। তাহলে এদেশের শিক্ষা ব্যবস্থায়, সরকারি পাঠ্যপুস্তকে কেন বিধর্মী, নাস্তিক্যবাদ অপশিক্ষায় সয়লাব? যে দেশের রাষ্ট্রদ্বীন ইসলাম সেদেশের শিক্ষা ব্যবস্থায় ১ম শ্রেণী থেকে দ্বাদশ শ্রেণী পর্যন্ত

বাংলার আকাশে বহুজাতিক শকুনের ছায়া। প্রসঙ্গ: গোল্ডেন রাইস


পুর্বেই বলা হয়েছে যে, Syngenta Ges Monsanto কোম্পানী USAID এর সাথে মিলে গোল্ডেন রাইসের প্রচার-প্রসার করে। এখন আমরা আলোচনা করবো যে, বাংলাদেশে এর কিরুপ প্রভাব পড়বে। National Security Study Memorandum 200 এর মধ্যে হেনরী কিসিঞ্জার কয়েকটি দেশের নাম উল্লেখ করেছিলো যেগুলোর

চামড়ার দাম কমানোর নেপথ্যে রয়েছে মাদরাসা বন্ধের কারসাজি সহ সম্মানিত দ্বীন ইসলাম উনার ক্ষতিসাধন


পবিত্র কুরবানীর পশুর চামড়া এটা মুলত গরীব ইয়াতীমদের হক্ব তথা ইয়াতীম তলিবে ইলিমদের হক্ব। বাংলাদেশে অনেক মাদরাসা রয়েছে যাদের বাৎসরিক আয়ের বড় একটি উৎস হচ্ছে পবিত্র কুরবানীর পশুর চামড়া। এর মাধ্যমে মাদরাসা পরিচালনার ক্ষেত্রে আর্থিক সচ্ছলতা লাভ করে। এশিয়া মহাদেশের মধ্যে

রবীন্দ্রদের যে চেহারা প্রকাশ করা হয় তা ব্রিটিশের বানানো


বাঙালিরা আবেগপ্রবণ, তাই বলা হয়- হুজুগে বাঙালি। মুসলমানগণ কি সঙ্কীর্ণমনা হিন্দুত্ববাদী কবি-সাহিত্যিকদের আসল রূপ চিনে? সত্যি চিনতে পারলে তাদের নিয়ে হৈ চৈ করার বদলে একরাশ ঘৃণা প্রকাশ করতো। বঙ্গভঙ্গ রোধে ব্রিটিশ পাচাটা রবীন্দ্র নামক কথিত ‘কবি’ ছিল অত্যন্ত সক্রিয়। বাংলা ভাগ

বাংলাদেশের মুসলমানদের শুকর খাওয়াচ্ছে হিন্দুরা


গতকাল (৩রা আগস্ট) বাংলাদেশের রাজধানীর নিকটে ধামরাইয়ে একটি ভোজ্যতেল তৈরীর কারখানায় অভিজান চালিয়ে র‌্যাব ৩ হাজার মেট্রিক টন শুকরের মাংশ, হাড়, চর্বি জব্দ করে। ঐ প্রতিষ্ঠানটি শুকরের মাংশ দিয়ে ভোজ্য সয়াবিন তেল, মাছ-মুরগীর ফিড তৈরী করছিলো। প্রতিষ্ঠানটিতে অভিজান চালিয়ে ২ লাখ

১৯৪৮ সাল থেকে এ পর্যন্ত চাঁদের সঠিক হিসাব অনুযায়ী সউদী আরবে কোনো বছরেই পবিত্র হজ্জ শরীফ সঠিক তারিখে পালিত হয়নি।


মহান আল্লাহ পাক তিনি ইরশাদ মুবারক করেন, “মহান আল্লাহ পাক উনার জন্যেই মানুষের পবিত্র হজ্জ করা ফরয, যার পথের সামর্থ্য এবং (ঈমান-আমল ও জান-মালের) নিরাপত্তা রয়েছে।” সুবহানাল্লাহ! বাংলাদেশে পবিত্র যিলহজ্জ শরীফ মাস উনার চাঁদ তালাশ করতে হবে আগামী ২৯শে যিলক্বদ শরীফ