Archive for the ‘হুযূরপাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম’ Category

অল্প বয়সে বিয়ে হলে অনেক সুবিধা (!) কিন্তু অসুবিধা কি ?


  অল্প বয়সে বিয়ে হলে নানান অসুবিধা হয় বলে প্রচার করা হচ্ছে। কিন্তু অল্প বয়সে বিয়ে হলে যে অনেক সুবিধা হয়, সেটার ফিরিস্তি কিন্তু প্রচার করা হয় না। যেমন ধরুন- একটা ছেলে ও একটা মেয়ের অল্প বয়সে বিয়ে হলো। এতে তাদের

উম্মুল মু’মিনীন হযরত খাদিজা রদ্বিয়াল্লাহু তায়ালা আনহা উনার মামাতো ভাই হযরত অাবদুল্লাহ ইবনে উম্মে মাকতূম রদ্বিয়াল্লাহু তায়ালা আনহু সম্পর্কে !


  হযরত আব্দুল্লাহ ইবনে উম্মে মাকতূম রদ্বিয়াল্লাহু তায়ালা আনহু ছিলেন উম্মুল মুমিনীন হযরত খাদিজা রদিয়াল্লাহু তা’আলা আনহা উনার মামাতো ভাই। হযরত আব্দুল্লাহ ইবনে উম্মে মাকতুম রাদিয়াল্লাহু তা’আলা আনহু তিনি ছিলেন জন্মান্ধ।ইসলামের একেবারে সূচনার দিনগুলোতে নবীজী ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম তিনি কুরাইশী

সুন্নত মুবারক পালনের গুরুত্ব ও ফযীলত !


একটি সুন্নত পালনে যদি ১০০ শহীদের সওয়াব পাওয়া যায়, তাহলে সুন্নত উনার গুরুত্ব, মর্যাদা, ফযীলত কতটুকু নিচের ওয়াকিয়াটি পড়ে আমাদের ফিকির করা উচিত! হযরত আব্দুল্লাহ ইবনে উম্মে মাকতূম রদ্বিয়াল্লাহু তায়ালা আনহু তিনি ছিলেন উম্মুল মুমিনীন হযরত খাদিজা রদিয়াল্লাহু তা’আলা আনহা উনার

খাবার গ্রহণের পূর্বে ও পরের সুন্নত সমূহ


খাবার গ্রহণের পূর্বে ,পরে এবং মাঝে অনেক সুন্নত রয়েছে, অনেকগুলো থেকে কিছু সংখ্যক সুন্নত তরীকার নিচে দেয়া হলো…   ১) হুযুর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম তিনি খাবার গ্রহণের পূর্বে দুই হাত মুবারক ধৌত করতেন বর্তমানে আমরা এক হাত ধৌত করি।

শিশুদের মুহব্বতের তরীকা


“কোন এক সময় এক বেদুঈন রাসূল ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম উনার নিকট এসে বললো, ‘ইয়া রসূলাল্লাহ্, ইয়া হাবীবাল্লাহ্ ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম! আপনি কি শিশুদের চুমু দেন? আমি তো কখনো শিশুদের চুমু দেই না।’ জবাবে খাইরুল আলম, হাবীবাল্লাহ্ হুজুর পাক ছল্লাল্লাহু

গোসলের ফরয এবং সুন্নত তরীকা !


গোসলের ফরয তিনটি —————————— গোসলের মধ্যে তিনটি ফরয রয়েছে। যদি কোন একটি বাদ বা অসম্পূর্ণ থেকে যায় তবে তার শরীর পাক হবে না বরং নাপাক-ই থেকে যাবে। *গড়গড়ার সাথে কুলি করা (যদি সে রোযাদার না হয়)। *নাকের নরম জায়গা পর্যন্ত পানি

নবাজাতক শিশুকে তাহনীক করানো সুন্নত। সুবহানাল্লাহ!


  باب تَسْمِيَةِ الْمَوْلُودِ غَدَاةَ يُولَدُ، لِمَنْ لَمْ يَعُقَّ عَنْهُ، وَتَحْنِيكِهِ حَدَّثَنِي إِسْحَاقُ بْنُ نَصْرٍ، حَدَّثَنَا أَبُو أُسَامَةَ، قَالَ حَدَّثَنِي بُرَيْدٌ، عَنْ أَبِي بُرْدَةَ، عَنْ أَبِي مُوسَى ـ رضى الله عنه ـ قَالَ وُلِدَ لِي غُلاَمٌ، فَأَتَيْتُ بِهِ النَّبِيَّ صلى الله

নূরেমুজাসসাম, হাবীবুল্লাহহুযূরপাকছল্লাল্লাহুআলাইহিওয়াসাল্লামউনারসম্মানার্থে“ফাল ইয়াফরাহু” বা খুশি করা কি ইবাদত?


নূরেমুজাসসাম, হাবীবুল্লাহহুযূরপাকছল্লাল্লাহুআলাইহিওয়াসাল্লামউনারসম্মানার্থে“ফাল ইয়াফরাহু” বা খুশি করা কি ইবাদত? উত্তর।: হ্যাঁ। নূরে মুজাসসাম, হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম উনার সম্মানার্থে ‘ফালইয়াফরাহু’ বা খুশি করা মহান আল্লাহ পাক উনার আদেশ মুবারক। আর আল্লাহ পাক উনার আদেশ মুবারক পালন করা ইবাদত।

তিনি ইলমে গইব উনার অধিকারী-২


একবার হুযুর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম হযরত আবু হুরায়রা রদ্বিয়াল্লাহু তায়ালা আনহু উনাকে সদকায়ে ফিতরের মালামাল হেফাজতের জন্য নিয়োজিত করেছিলেন। হযরত আবু হুরায়রা রদ্বিয়াল্লাহু তায়ালা আনহু , উনি দিনরাত সেই মাল হেফাজত করতে লাগলেন। এক রাতে এক চোর এসলো এবং

অ্যাস্ট্রোনমারদের গবেষণায় নির্ভুলভাবে প্রমাণ হয় ১২ই রবিউল আউয়াল-ই হচ্ছে নবীজির আগমণ (জন্ম) এর দিন


অ্যাস্ট্রোনমারদের গবেষণায় নির্ভুলভাবে প্রমাণ হয় ১২ই রবিউল আউয়াল-ই হচ্ছে নবীজির আগমণ (জন্ম) এর দিন নবীজির বিদায় গ্রহণের দিন ছিলো: হিজরী সন: ১১ হিজরীর ১২ই রবিউল আউয়াল ঈসায়ী সন: ৬৩২ সাল, ৮ই জুন বার: সোমবার **(১ নং দ্রষ্টব্য দেখুন) Back Calculation করে

তিনি ইলমে গইব উনার অধিকারী


হুযুর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম তিনি ইলমে গইব উনার অধিকারী, আল্লাহপাক উনাকে সৃষ্টির শুরু থেকে শেষ সমস্ত ইলম উনাকে হাদিয়া করেছেন।এটাই আহলে সুন্নাত ওয়াল জামায়াতের আক্বীদা। ইলমে গইব সংশ্লিষ্ট কতক ঘটনা দেওয়া হলো, বদরের যুদ্ধে আল্লাহ তাআলা যখন মুসলমানগণকে জয়যুক্ত করলেন

আমরা খুশি প্রকাশ করি


ঈদে মিলাদুন্নবী পালন করার কথা শুনলেই তোমাদের চুলকানি শুরু হয়ে যায় । এটাই স্বাভাবিক । ইবলিশ তো চিৎকার করে কেঁদেছিল নবীজি ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম উনার আগমনের দিন। তোমরাতো ইবলিসেরই শাগরেদ । এমনিতো হবে। নাউজুবিল্লাহ । তোমরা চিৎকার করে কাঁদতে থাকবে