Archive for the ‘হুযূরপাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম’ Category

সাইয়্যিদুল আম্বিয়া ওয়াল মুরসালীন, নূরে মুজাসসাম, হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম উনার মুবারক শানে কতিপয় মৌলিক আক্বীদা ও তৎসংশ্লিষ্ট বিষয়


عقيدة (আক্বীদা) অর্থ: দৃঢ় বিশ্বাস, ধর্মমত, দ্বীনিমত। হাক্বীক্বী মু’মিন, হাক্বীক্বী মুসলমান হওয়ার জন্য সাইয়্যিদুল মুরসালীন, ইমামুল মুরসালীন, নূরে মুজাসসাম, হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম উনার মুবারক শানে আক্বীদা বিশুদ্ধ হওয়া আবশ্যক। কেননা উনার মুবারক শানে বিশুদ্ধ আক্বীদাই ঈমানের মূল।

হুজুর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম উনার জীবনী মুবারক।


কারে কাছে যদি যিনি সাইয়্যিদুল মুরসালীন যিনি ইমামুল মুরসালীন যিনি খাতামুন্যাবিয়্যিন যিনি নূরে মুজাসসাম যিনি হায়াতুন্নবী ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম যিনি হাযির ও নাযির ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম যিনি মুত্তালা আলাল গাইব ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম সেই মহাসম্মানিত রসূল ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম উনার মহাসম্মানিত মহাপবিত্র

১ লা রজবুল হারাম শরীফ হযরত আবু রসূলিনা ও উম্মু রসূলিনা ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম উনাদের নিসবাতুল আযীম শরীফ দিবস


সময়টি ছিল নূরে মুজাসসাম হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম উনার বরকতময় বিলাদতী শান মুবারক প্রকাশের ৮ মাস ১২ দিন পূর্বে মহাসম্মানিত রজবুল হারাম শরীফ উনার পহেলা তারিখ লাইলাতুল জুমুয়াহ শরীফ। এই মহাসম্মাণিত দিনে সাইয়্যিদুনা হযরত যবীহুল্লাহ আলাইহিস সালাম ও

প্রসঙ্গ: মীলাদ শরীফ পাঠকালে ছলাত শরীফ বলার সময় নূরে মুজাসসাম হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম উনার নাম মুবারক না বলে লক্বব মুবারক যথা রসূলিল্লাহ ও হাবীবিল্লাহ বলা এবং সালাম পেশ করার সময় আসসালামু আলাইকুম ইয়া রসূলাল্লাহ, আসসালামু আলাইকুম ইয়া নাবিয়্যাল্লাহ, আসসালামু আলাইকুম ইয়া হাবীবাল্লাহ বলা


  নূরে মুজাসসাম হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম তিনি হচ্ছেন আখিরী নবী ও রসূল ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম। উনার আনুষ্ঠানিক সম্মানিত নুবুওওয়াতী ও সম্মানিত রিসালাতী শান মুবারক প্রকাশের পর অতীতের সম্মানিত হযরত নবী-রসূল আলাইহিমুস সালাম উনাদের প্রতি ওহী মুবারক

মিসওয়াকের উপকারীতা ও সুন্নতী তরতীব


মিসওয়াকের উপকারিতা ================= মিসওয়াক করে নামায পড়া মিসওয়াক বিহীন নামাযের চেয়ে ৭৫ গুন বেশী সওয়াব পাওয়া যায়। মিসওয়াকের ৭২ টি উপকারিতা রয়েছে। তার মধ্যে সবচেয়ে ছোট ফায়দা হচ্ছে মউতের সময় কলেমা শরীফ নসীব হওয়া। মিসওয়াককারীর সাথে ফেরেশতা আলাইহিমুস সালামগণ মুছাফাহা করে।

ইসলামী লেবাস ও আধুনিক বিজ্ঞান


সাদা কাপড় সাধারণত সর্বপ্রকার আবহাওয়া পরিবর্তনের প্রভাব মোকাবিলা করে থাকে। তীব্র গরম মওসুমে সাদা লেবাস গরম হয়ে যায় না।কেননা তা গরমকে অাকর্ষণ করে না। অপরদিকে তীব্র শীতের মওসুমে ঠান্ডার কারণে তা শীতলও হয়ে যায় না। হুযুর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম

নূরে মুজাসসাম হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম তিনিই হচ্ছেন পবিত্র ঈমান; তাই উনার পবিত্র শানে বিন্দুতম চু-চেরা করে কেউ মুসলমান থাকতে পারে না


পবিত্র ঈমান উনার মূলই হচ্ছেন- সাইয়্যিদুল মুরসালীন, ইমামুল মুরসালীন, খাতামুন নাবিইয়ীন, নূরে মুজাসসাম, হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম তিনি। উনার প্রতি পরিপূর্ণ পবিত্র ঈমান না আনা পর্যন্ত, পরিপূর্ণ হুসনে যন বা সুধারণা পোষণ না করা পর্যন্ত, উনাকে সবচেয়ে মুহব্বত

নারীদের জন্য ইলম অর্জন যেমনি ফরজ, পাশাপাশি পর্দা রক্ষা করাও ফরজ


মহান আল্লাহ পাক তিনি পবিত্র কালামুল্লাহ শরীফ উনার মধ্যে আমাদেরকে দোয়া শিক্ষা দিয়েছেন- رَبِّ زِدْنِـىْ عِلْمًا অর্থ: “আয় আমার রব আপনি আমার ইলম বৃদ্ধি করে দিন।” আর নূরে মুজাসসাম হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম তিনি ইরশাদ মুবারক করেন- اُطْلُبُوا

অল্প বয়সে বিয়ে হলে অনেক সুবিধা (!) কিন্তু অসুবিধা কি ?


  অল্প বয়সে বিয়ে হলে নানান অসুবিধা হয় বলে প্রচার করা হচ্ছে। কিন্তু অল্প বয়সে বিয়ে হলে যে অনেক সুবিধা হয়, সেটার ফিরিস্তি কিন্তু প্রচার করা হয় না। যেমন ধরুন- একটা ছেলে ও একটা মেয়ের অল্প বয়সে বিয়ে হলো। এতে তাদের

উম্মুল মু’মিনীন হযরত খাদিজা রদ্বিয়াল্লাহু তায়ালা আনহা উনার মামাতো ভাই হযরত অাবদুল্লাহ ইবনে উম্মে মাকতূম রদ্বিয়াল্লাহু তায়ালা আনহু সম্পর্কে !


  হযরত আব্দুল্লাহ ইবনে উম্মে মাকতূম রদ্বিয়াল্লাহু তায়ালা আনহু ছিলেন উম্মুল মুমিনীন হযরত খাদিজা রদিয়াল্লাহু তা’আলা আনহা উনার মামাতো ভাই। হযরত আব্দুল্লাহ ইবনে উম্মে মাকতুম রাদিয়াল্লাহু তা’আলা আনহু তিনি ছিলেন জন্মান্ধ।ইসলামের একেবারে সূচনার দিনগুলোতে নবীজী ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম তিনি কুরাইশী

সুন্নত মুবারক পালনের গুরুত্ব ও ফযীলত !


একটি সুন্নত পালনে যদি ১০০ শহীদের সওয়াব পাওয়া যায়, তাহলে সুন্নত উনার গুরুত্ব, মর্যাদা, ফযীলত কতটুকু নিচের ওয়াকিয়াটি পড়ে আমাদের ফিকির করা উচিত! হযরত আব্দুল্লাহ ইবনে উম্মে মাকতূম রদ্বিয়াল্লাহু তায়ালা আনহু তিনি ছিলেন উম্মুল মুমিনীন হযরত খাদিজা রদিয়াল্লাহু তা’আলা আনহা উনার

খাবার গ্রহণের পূর্বে ও পরের সুন্নত সমূহ


খাবার গ্রহণের পূর্বে ,পরে এবং মাঝে অনেক সুন্নত রয়েছে, অনেকগুলো থেকে কিছু সংখ্যক সুন্নত তরীকার নিচে দেয়া হলো…   ১) হুযুর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম তিনি খাবার গ্রহণের পূর্বে দুই হাত মুবারক ধৌত করতেন বর্তমানে আমরা এক হাত ধৌত করি।