(Joomla) হচ্ছে এমন একটি সফটওয়্যার, যা দিয়ে একটি পূর্ণাঙ্গ ওয়েসাইট তৈরি করা যাবে কোনো রকমের প্রোগ্রামিং এবং টেকনিক্যাল জ্ঞান ছাড়াই


ইদানীং কমপিউটারে আমাদের দৈনন্দিন কর্মকান্ডগুলো হয়ে পড়ছে ইন্টারনেটনির্ভর। ওয়েব অ্যাপ্লিকেশনগুলো ধীরে ধীরে ডেস্কটপ অ্যাপ্লিকেশনের স্থান দখল করে নিচ্ছে। ছোট-বড় যেকোনো ধরনের ব্যবসায় প্রতিষ্ঠানের জন্য একটি ওয়েবসাইট থাকাটা হয়ে পড়ছে বাধ্যতামূলক। যাদের প্রোগ্রামিং জানা আছে তারা হয়ত নিজের প্রতিষ্ঠানের জন্য ওয়েবসাইট নিজেই তৈরি করে নিতে পারবেন। তবে অন্যদের জন্য একটি ওয়েবসাইট তৈরির খরচ কিন্তু নেহায়েত কম নয়।

যুগের এই চাহিদা মেটাতে জুমলা (Joomla) হচ্ছে এমন একটি সফটওয়্যার, যা দিয়ে একটি পূর্ণাঙ্গ ওয়েসাইট তৈরি করা যাবে কোনো রকমের প্রোগ্রামিং এবং টেকনিক্যাল জ্ঞান ছাড়াই। জুমলা হচ্ছে একটি কন্টেন্ট ম্যানেজমেন্ট সিস্টেম (CMS)। কন্টেন্ট বলতে বোঝায় লেখা, ছবি, শব্দ, ভিডিও ইত্যাদি। জুমলার অসংখ্য বৈশিষ্ট্যের মধ্যে অন্যতম হচ্ছে এর সহজ ব্যবহারযোগ্যতা এবং এটি দিয়ে যেকোনো ধরনের ওয়েবসাইট তৈরি করা যায়। জুমলা দিয়ে ই-কমার্স ওয়েবসাইট থেকে শুরু করে অনলাইন ম্যাগাজিন, সংবাদপত্রের ওয়েবসাইট, সরকারি/বেসরকারি প্রতিষ্ঠানের ওয়েবসাইট, ছোট-বড় ব্যবসায়িক প্রতিষ্ঠানের ওয়েবসাইট, বিভিন্ন শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের ওয়েবসাইট, ব্যক্তিগত ও পারিবারিক ওয়েবসাইট খুব সহজেই তৈরি করা যায়। সর্বোপরি জুমলা হচ্ছে ওপেন সোর্স যা সম্পূর্ণ বিনামূল্যে ব্যবহার করা যায়।

www.joomla.org ওয়েবসাইট থেকে বিনামূল্যে জুমলা ডাউনলোড করা যাবে। জুমলা তৈরি করা হয়েছে PHP এবং MySQL-এর সমন্বয়ে। তাই জুমলা ইনস্টল করার আগে কমপিউটারে একটি ওয়েব সার্ভার ইনস্টল করে নিতে হবে। জনপ্রিয় একটি ওয়েব সার্ভার সফটওয়্যার হচ্ছে XAMPP। কমপিউটারে জুমলা ইনস্টল করার পূর্ণাঙ্গ দিকনির্দেশনা পাওয়া যাবে help.joomla.org সাইট থেকে।

যদিও জুমলাকে সাধারণভাবে কন্টেন্ট ম্যানেজমেন্ট সিস্টেম বলা হয়, তবে জুমলার ব্যবহার শুধু তথ্য ব্যবস্থাপনার ওপরই সীমাবদ্ধ নয়। বিভিন্ন এক্সটেনশন যোগ করে এটিকে যেকোনো ধরনের ওয়েবসাইটে রূপান্তর করা যায়। এক্সটেনশন হচ্ছে অতিরিক্ত প্রোগ্রাম যা জুমলাকে নতুন নতুন বৈশিষ্ট্য দান করে। এই এক্সটেনশনগুলো জুমলার ব্যবহারকারীরাই তৈরি করে থাকে, যা extensions.joomla.org সাইট থেকে বিনামূল্যে ডাউনলোড করা যায়। জুমলাতে একটি নতুন এক্সটেনশন যুক্ত করা খুবই সহজ, অনেকটা কোনো অপারেটিং সিস্টেমে একটি সফটওয়্যার ইনস্টল করার মতোই। এক্সটেনশনের zip ফাইলকে অ্যাডমিনিস্ট্রেশন প্যানেল থেকে আপলোড করে দিলেই হলো। জুমলা পাঁচ ধরনের এক্সটেনশন সাপোর্ট করে : কম্পোনেন্ট, মডিউল, প্লাগইন, টেম্পলেট এবং ল্যাঙ্গুয়েজ।

কম্পোনেন্ট :

জুমলা হচ্ছে একটি ওয়েব অ্যাপ্লিকেশন, আর কম্পোনেন্ট হচ্ছে জুমলার অভ্যন্তরে আরেকটি অ্যাপ্লিকেশন। কম্পোনেন্টগুলো জুমলার API-এর ওপর ভিত্তি করেই তৈরি করা হয়ে থাকে। জুমলাকে উইন্ডোজ অপারেটিং সিস্টেম হিসেবে কল্পনা করলে, জুমলার ‘কন্টেন্ট কম্পোনেন্ট’কে মাইক্রোসফট ওয়ার্ড হিসেবে বলা যায়। তবে অপারেটিং সিস্টেমে যেখানে একসাথে একাধিক প্রোগ্রাম চালানো যায়, সেখানে জুমলার একটি পৃষ্ঠায় মাত্র একটি কম্পোনেন্ট লোড হয়। কম্পোনেন্টটি সেই পৃষ্ঠার মূল কাজগুলো সম্পন্ন করে থাকে।

মডিউল :

মডিউলগুলো কম্পোনেন্টের বাইরে অবস্থান করে জুমলাকে অতিরিক্ত বৈশিষ্ট্য প্রদান করে। মডিউল সাধারণত একটি নির্দিষ্ট কাজের জন্য ব্যবহার হয়, যেমন- মেনু, লিস্ট, ব্যানার প্রদর্শন করা ইত্যাদি।

প্লাগইন :

প্লাগইনের নানা ব্যবহার রয়েছে। তবে সাধারণত একটি কম্পোনেন্টের ক্ষমতা বাড়াতে প্লাগইন ব্যবহার হয় থাকে। উদাহরণস্বরূপ TinyMCE টেক্সট এডিটর প্লাগইনের সাহায্যে অনেকটা মাইক্রোসফট ওয়ার্ডের মতো করে লেখা সম্পাদন করা যায়।

টেম্পলেট :

টেম্পলেট একটি সাইটের লেআউট এবং ডিজাইন প্রদান করে। HTML/CSS দিয়ে তৈরি করা ডিজাইনকে একটি নির্দিষ্ট পদ্ধতি অনুসরণ করে খুব সহজেই জুমলার টেম্পলেটে রূপান্তর করা যায়। বিভিন্ন সাইটে জুমলার ফ্রি টেম্পলেট পাওয়া যায়, যা এক ক্লিকের মাধ্যমেই সাইটে ইনস্টল করা যায়। জুমলার ফ্রি টেম্পলেট পাওয়া যায় এরকম কয়েকটি সাইট হচ্ছে www.joomla24.com, www.freetemplatehome.com, www.joomlatp.com।

ল্যাঙ্গুয়েজ :

বাংলাসহ বিশ্বের ৬০টিরও অধিক ভাষায় জুমলা পাওয়া যায়। অন্যান্য এক্সটেনশন যোগ করার মতো জুমলায় ভাষা পরিবর্তন করাও খুব সহজ।

জুমলার এক্সটেনশন ওয়েবসাইটে এই মুহূর্তে ৬৬৭০টি এক্সটেনশন পাওয়া যাচ্ছে। এদের মধ্য থেকে জনপ্রিয় কয়েকটি এক্সটেনশনের সাথে পরিচিত হওয়া যাক।

ভার্চুমার্ট :

এক্সটেনশনের সাহায্যে জুমলাকে একটি পূর্ণাঙ্গ ই-কমার্স সাইটে রূপান্তর করা যায়। এর শক্তিশালী অ্যাডমিনিস্ট্রেশন প্যানেলের সাহায্যে অসীমসংখ্যক ক্যাটাগরি, প্রোডাক্ট, অর্ডার, ডিসকাউন্ট, কাস্টমার ব্যবস্থাপনা করা যায়। ভার্চুমার্ট প্রায় সব জনপ্রিয় পেমেন্ট এবং শিপিং মডিউল সাপোর্ট করে। www.virtuemart.net সাইট থেকে জুমলার আলাদা এক্সটেশন হিসেবে অথবা জুমলায় পূর্ব থেকে ইনস্টল করা অবস্থায় একে ডাউনলোড করা যায়।

জেসিই :

এটি হচ্ছে একটি শক্তিশালী টেক্সট এডিটর, যা TinyMCE এডিটরের ওপর ভিত্তি করে তৈরি করা হয়েছে। এই এডিটরের সাথে মিডিয়া, ফাইল ও লিঙ্ক ব্যবস্থাপনা, প্লাগইন সাপোর্ট এবং এডিটরের সেটিং পরিবর্তনের জন্য একটি উন্নত অ্যাডমিনিস্ট্রেশন প্যানেল রয়েছে।

কমিউনিটি বিল্ডার :

এই এক্সটেনশনটি জুমলার ইউজার ম্যানেজমেন্ট সিস্টেমকে বর্ধিত করে জুমলাকে কমিউনিটি ওয়েবসাইটে পরিবর্তন করে। এর মূল ফিচারগুলো হলো- প্রোফাইলে অতিরিক্ত ফিল্ড যুক্ত করা, উন্নত রেজিস্ট্রেশন পদ্ধতি, ব্যবহারকারীর লিস্ট ইত্যাদি।

অলভিডিওস :

এটি একটি অপরিহার্য অডিও/ভিডিও ম্যানেজমেন্ট এক্সটেনশন। এটি প্রায় সব ধরনের মিডিয়া ফাইল চালাতে পারে। পাশাপাশি Youtube, Metacafe, Vimeo-এর মতো জনপ্রিয় সাইটের ভিডিও জুমলায় যুক্ত করতে পারে।

ফোকা গ্যালারি :
এটি একটি চমৎকার ও দৃষ্টিনন্দন ফটো গ্যালারি। এই কম্পোনেন্টটি ছবিকে স্লাইডশো’র মাধ্যমে দেখাতে পারে। একটি আধুনিক ফটো গ্যালারির সব বৈশিষ্ট্যই এতে রয়েছে।

জুমফিশ :

একাধিক ভাষায় ওয়েবসাইট তৈরি করার জন্য এটি একটি অপরিহার্য এক্সটেনশন। এর সাহায্যে জুমলার যেকোনো কন্টেন্টকে খুব সহজেই অনুবাদ করা যায়।

কুনেয়া :
এটি জুমলার প্রধান ফোরাম কম্পোনেন্ট। এর সাহায্যে খুব সহজেই কমিউনিটিভিত্তিক ফোরাম সাইট তৈরি করা যায়। এক্সটেনশনটি গত দুই বছরে সাড়ে আট লক্ষবার ডাউনলোড হয়েছে, যা এর জনপ্রিয়তা সহজেই প্রমাণ করে।

ক্রনোফরমস :

যেকোনো ধরনের ফর্ম তৈরির জন্য এটি একটি অসাধারণ এক্সটেনশন। এই কম্পোনেন্টের সাহায্যে ড্রাগ-অ্যান্ড-ড্রপ পদ্ধতিতে ফর্ম তৈরি করা যায়। অন্যান্য এক্সটেনশনের মতো এটিও বিনামূল্যে ব্যবহার করা যায়, তবে প্রতিটি ফর্মের নিচে ডেভেলপারের সাইটের লিঙ্ক থাকে। ডেভেলপারকে ছোট একটি ফি দিয়ে লিঙ্কটি সরানো যায়।

Extented Menu :

এই মডিউলের সাহায্যে CSS ভিত্তিক দৃষ্টিনন্দন মেনু তৈরি করা। মেনুর ভেতরে সাব-মেনুও খুব সহজে এটি দিয়ে তৈরি করা যায়।

JComments :

এই এক্সটেনশন দিয়ে সাইটে মন্তব্য দেয়ার বৈশিষ্ট্য যুক্ত করা যায়। এটি একটি অ্যাজাক্টভিত্তিক কমেন্ট সিস্টেম যা Smiles, BBCode এবং Avatar সাপোর্ট করে।

ফ্রিল্যান্সারদের জন্য জুমলা হতে পারে আয়ের প্রধান উৎস। আউটসোর্সিংয়ের কাজের পাশাপাশি দেশী ক্লায়েন্টদের কাছেও জুমলার ভালো কদর রয়েছে। আমাদের দেশে ইতোমধ্যেই বিভিন্ন ব্যাংকের সহায়তায় দেশীয় ই-কমার্সের প্লাটফর্ম তৈরি হয়ে গেছে। এক্ষেত্রে জুমলা দিয়ে খুব সহজেই ই-কমার্স ওয়েবসাইটের চাহিদা পূরণ করা যাবে। অন্যদিকে অনলাইনে প্রায় সব মার্কেটপ্লেসেই জুমলার কাজ পাওয়া যায়। তাছাড়া জুমল্যান্সার্স (www.joomlancers.com) নামে একটি আউটসোর্সিং মার্কেটপ্লেস রয়েছে, যেখানে শুধু জুমলার কাজ পাওয়া যায়।

Views All Time
1
Views Today
2
শেয়ার করুন
TwitterFacebookGoogle+

৫টি মন্তব্য

  1. সকাল-বিকালসকাল-বিকাল says:

    আপনাকে অনেক ধন্যবাদ Coffee Rose

  2. মুস্তাফিজুর রহমান ফারুকমুস্তাফিজ says:

    দারুন জিনিসতো জুমলা!! কিভাবে শুরু করা যায় আরো কিছু দিক নির্দেশনা দেন। Rainbow Rainbow

  3. এএইচ খানএএইচ খান says:

    এরকম টেকি পোস্ট আরো চাই।

  4. বাংলা ব্লগবাংলা ব্লগ says:

    এধরনের তথ্য বহুল পোষ্ট ব্লগকে সমৃধ্য করবে।

মন্তব্য করুন

মন্তব্য করতে আপনাকে অবশ্যই লগইন করতে হবে