পেটে খাবার দিতে পারে না, পিঠে আঘাত করার অধিকার কে দিলো?


ঘরে বসে থাকলে খাবার দিবে কে? এটাই এখন দেশের কোটি কোটি মানুষের প্রশ্ন। অথচ সরকারী আমলা-কামলারা সরকারের কথিত আদেশ-নিষেধ বাস্তবায়নের নামে এইসকল মানুষদের উপরই জুলুম শুরু করেছে। রাস্তায় বের হয়েছে কেন, মাস্ক পরেনি কেন, দোকান খুলেছে কেন, রিকশা চালাচ্ছে কেন ইত্যাদি 

করোনা ভাইরাস নিয়ে মুসলমানরা কেন এত আতঙ্কিত?


বর্তমানে “করোনা” নামক যে ভাইরাসটি কাফির-মুশরিকদের উপর গযব স্বরূপ নাযিল হয়েছে তা নিয়ে কাফিররা আতঙ্কিত থাকবে এটাই স্বাভাবিক। কিন্তু এটা নিয়ে মুসলমানদের এত মাথা ব্যথা কেন? কেন তারা এত আতঙ্কিত? এজন্য তারা স্কুল-কলেজ, অফিস-আদালত তো আছেই এমনকি মসজিদ-মাদ্রাসাগুলিও বন্ধ করে দিয়েছে। 

ইহুদী, নাছারা, মজুসী, মুশরিকদের সর্বপ্রকার ষড়যন্ত্র থেকে সবাইকে সতর্ক থাকতে হবে


মহান আল্লাহ পাক তিনি ইরশাদ মুবারক করেন, ‘আহলে কিতাব অর্থাৎ বিধর্মীরা চায় তোমরা পবিত্র ঈমান আনার পর তোমাদেরকে কাফির বানিয়ে দিতে।’ নাউযুবিল্লাহ! ইহুদী, নাছারা, মজুসী, মুশরিকরা সূক্ষ্মভাবে মুসলমানদের দ্বারা হারামকে হালাল, হালালকে হারাম বানিয়ে, ছোঁয়াচে বিশ্বাস করিয়ে এবং হারাম কাজে খুশি 

১লা এপ্রিল তথা এপ্রিল ফুলের নির্মম ইতিহাস


‘এপ্রিল ফুল’ বাক্যটা মূলত ইংরেজি। অর্থ এপ্রিলের বোকা। এপ্রিল ফুল ইতিহাসের এক হৃদয় বিদারক ঘটনা। ৭১১ উমাইয়া শাসনামলে মুসলমানদের স্পেন জয়ে গড়ে উঠেছিলো গ্রানাডা ও কর্ডোভায় প্রায় ৮০০ বছরের আলোড়ন সৃষ্টিকারী সভ্যতা। কিন্তু মুসলিম শাসকরা যখন পবিত্র কুরআন শরীফ ও পবিত্র 

মহাসম্মানিত ও মহাপবিত্র কুরআন শরীফ এবং মহাসম্মানিত ও মহাপবিত্র সুন্নাহ শরীফ উনাদের আলোকে অকাট্য দলীল-আদিল্লাহর ভিত্তিতে ‘ছোঁয়াচে রোগে বিশ্বাসীদের’


ক্বিল্লতে ইলম ও ক্বিল্লতে ফাহাম তথা কম জ্ঞান ও কম বুঝের কারণে কিছু সংখ্যক উলামায়ে সূ’ ১খানা আছার এবং ২খানা মহাসম্মানিত ও মহাপবিত্র হাদীছ শরীফ দিয়ে নূরে মুজাসসাম হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম তিনি যে বলেছেন, ‘ছোঁয়াচে বলতে কোনো 

পবিত্র আয়াত শরীফ উনার মাধ্যমে পবিত্র যাকাত সম্পর্কিত আলোচনা


পবিত্র কুরআন শরীফ উনার মধ্যে পবিত্র যাকাত অর্থে যে সমস্ত শব্দ মুবারক এসেছে তার ব্যবহার প্রসঙ্গ : পবিত্র কুরআন শরীফ উনার মধ্যে মোট ৩২ স্থানে পবিত্র যাকাত উনার কথা এসেছে, তন্মধ্যে ২৬ স্থানে সরাসরি পবিত্র নামায উনার সাথে সাথেই, ২ স্থানে 

সাইয়্যিদুশ শুহাদা সাইয়্যিদুনা হযরত ইমামুছ ছালিছ মিন আহলি বাইতি রসূলিল্লাহ ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম উনার বেমেছাল শান-মান, ফাযায়িল-ফযীলত, বুযূর্গী-সম্মান


মহাসম্মানিত ও মহাপবিত্র হাদীছ শরীফ উনার মধ্যে ইরশাদ মুবারক হয়েছে, عَنْ حَضْرَتْ أَبِي هُرَيْرَةَ قَالَ كُنَّا نُصَلِّي مَعَ رَسُولِ اللهِ صَلَّى اللهُ عَلَيْهِ وَسَلَّمَ الْعِشَاءَ فَإِذَا سَجَدَ وَثَبَ الْحَسَنُ وَالْحُسَيْنُ عَلَى ظَهْرِهِ فَإِذَا رَفَعَ رَأْسَهُ أَخَذَهُمَا بِيَدِهِ مِنْ خَلْفِهِ أَخْذًا رَفِيقًا 

সাইয়্যিদুনা হযরত ইমামুছ ছালিছ আলাইহিস সালাম উনার সংক্ষিপ্ত পবিত্র সাওয়ানেহ উমরী মুবারক


খালিক্ব মালিক রব মহান আল্লাহ পাক উনার আখাছছুল খাছ মনোনীত ব্যক্তিত্বগণ উনাদের মধ্যে ইমামুছ ছালিছ মিন আহলি বাইতি রসূলিল্লাহি ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম সাইয়্যিদুনা হযরত ইমাম হুসাইন আলাইহিস সালাম তিনি অন্যতম। বলার অপেক্ষা রাখে না যে, সাইয়্যিদুশ শুহাদা সাইয়্যিদুনা হযরত ইমামুছ 

সাইয়্যিদু সুলত্বানিল আউলিয়া, ইমামুল মুহাক্বক্বিক্বীন, পেশওয়ায়ে দ্বীন, আস সাজ্জাদ, আবূ আব্দুল্লাহ, যাইনুল আবিদীন, সাইয়্যিদুনা হযরত


হযরত আহলু বাইত শরীফ আলাইহিমুস সালাম উনাদের সম্পর্কে জানা, উনাদের মুহব্বত করা, উনাদের খিদমত মুবারক করা, উনাদের তা’যীম-তাকরীম করা এবং উনাদের মুবারক ছানা-ছিফত করা সমস্ত মুসলমান তথা জিন-ইনসান সমস্ত কায়িনাতের জন্য ফরয। যিনি খালিক্ব মালিক রব মহান আল্লাহ পাক তিনি উনার 

সাইয়্যিদুনা হযরত ইমামুছ ছালিছ আলাইহিস সালাম উনাকে ‘শিয়াদের ইমাম’ বলে অপপ্রচারকারীরা চরমভাবে বিভ্রান্ত


শতকরা ৯৮ ভাগ মুসলমান উনাদের এদেশে পবিত্র দ্বীন ইসলাম উনার ইতিহাসের ঐতিহাসিক দিন পবিত্র ১০ই মুর্হরম শরীফ অর্থাৎ পবিত্র আশূরা শরীফ উপলক্ষে বাংলাদেশের সংবাদপত্রগুলোর এলোমেলো ভাষ্য বিশেষ করে হযরত ইমাম হুসাইন আলাইহিস সালাম উনাকে ‘শিয়াদের ইমাম’ বলে আখ্যায়িত করা; যা সত্যিই 

ইমামুছ ছালিছ আলাইহিস সালাম উনাকে যারা শহীদকারী তারা যমীনের মধ্যে সবচেয়ে বড় যালিম, কাট্টা কাফির ও চিরজাহান্নামী


হযরত আবু হুরায়রা রদ্বিয়াল্লাহু তায়ালা আনহু তিনি বর্ণনা করেন: নূরে মুজাসসাম হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম তিনি একদা এমন অবস্থায় বাইরে তাশরীফ মুবারক আনলেন যে, উনার এক কাঁধ মুবারক উনার উপর সাইয়্যিদুনা হযরত ইমামুছ ছানী আলাইহিস সালাম এবং অন্য 

সুমহান বরকতময় ৫ই শা’বান শরীফ। সুবহানাল্লাহ! সাইয়্যিদুনা হযরত ইমামুছ ছালিছ মিন আহলি বাইতি রসূলিল্লাহি ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম উনার


নূরে মুজাসসাম হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম তিনি ইরশাদ মুবারক করেন, ‘আমার পবিত্র আহলু বাইত শরীফ আলাইহিমুস সালাম উনাদেরকে মুহব্বত করো আমার সন্তুষ্টি মুবারক লাভ করার জন্য।’ সুবহানাল্লাহ! আজ সুমহান বরকতময় ৫ই শা’বান শরীফ। সুবহানাল্লাহ! সাইয়্যিদুনা হযরত ইমামুছ ছালিছ