নিচের চিত্র অনেক কথাই বলে


তবে একটা কথা প্রমানিত। মূর্তি ও ভাষ্কর্য একই জিনিষ। শেয়ার করুন TwitterFacebookGoogle+ 

মিরাজ শরীফ রাতে ও দিনে কি আমল করবেন?


আজ দিবাগত রাতেই শবে মিরাজ। দোয়া কবুলের খাছ রাত্রি। সাইয়্যিদুনা নূরে মুজাসসাম, হাবীবুল্লাহ, হুযূরপাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম তিনি ইরশাদ মুবারক করেন, রজব মাসে এমন একটি দিন ও রাত আছে, যে ব্যক্তি ওই দিনে রোযা রাখবে এবং রাতে ইবাদত-বন্দেগী করবে, তাকে 

সাইয়্যিদুল মুরসালীন, ইমামুল মুরসালীন, খাতামুন নাবিইয়ীন, নুরে মুজাসসাম, হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম উনার পবিত্র জীবনী মুবারক-ধারাবাহিক।


সাইয়্যিদুল মুরসালীন, ইমামুল মুরসালীন, খাতামুন নাবিইয়ীন, নুরে মুজাসসাম, হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম উনার পবিত্র জীবনী মুবারক-ধারাবাহিক। ************************************************************************** পূর্ব প্রকাশিতের পর — ********************** খলিক্ব মালিক রব মহান আল্লাহ পাক তিনি উনার সম্মানিত কিতাব কালামুল্লাহ শরীফ উনার মধ্যে ইরশাদ মুবারক 

সম্মানিত মিরজ শরীফ সম্পর্কে সংক্ষিপ্ত আলোচনা -


সম্মানিত মিরজ শরীফ সম্পর্কে সংক্ষিপ্ত আলোচনা – ************************************************** মহান আল্লাহ পাক তিনি ইরশাদ মুবারক করেন, সূরা বাণী ইসরাঈল এর প্রথম আয়াতে বলা হয়েছে: سُبْحَانَ الَّذِي أَسْرَىٰ بِعَبْدِهِ لَيْلًا مِّنَ الْمَسْجِدِ الْحَرَامِ إِلَى الْمَسْجِدِ الْأَقْصَى الَّذِي بَارَكْنَا حَوْلَهُ لِنُرِيَهُ مِنْ آيَاتِنَا ۚ 

মুবারক হো লাইলাতুল মি’রাজ শরীফ!


পবিত্র কুরআন শরীফ উনার মধ্যে বর্ণিত চারটি হারাম বা সম্মানিত মাস উনাদের মধ্যে একটি মাস হলো- ‘পবিত্র রজবুল হারাম শরীফ’। যে আশ্চর্যজনক ঘটনা পবিত্র রজবুল হারাম মাস উনার তাৎপর্য ও গুরুত্বকে বহুগুণ বৃদ্ধি করেছে, তা হচ্ছে পবিত্র মি’রাজ শরীফ। পবিত্র মি’রাজ 

নফল আমলও ফেলনা না!


ভুলতে পারি না! প্রতি বছর পবিত্র শবে মিরাজ আসলেই মনে পরে।ভালো ঝারাঝারির মধ্যে পরতে হয়েছিলো…ঝারাঝারি একপক্ষ থেকেই হয়েছিল অবশ্য! ঘাবড়ে গিয়েছিলাম খুব।পরিস্থিতি এতো প্রতিকূল বুঝতেই পারি নাই! ঘটনা হচ্ছে,একজনকে জিজ্ঞেস করেছিলাম,”শবে মিরাজ তো,রোযা রাখবেন না?” প্রশ্ন করা মাত্রই ব্যক্তি ভয়ানক ক্ষেপে 

যেসব মুছল্লী দাঁড়িয়ে নামায পড়তে অক্ষম তারা কিভাবে নামায আদায় করবে? বসে বা দাঁড়িয়ে কোনভাবেই নামায পড়তে না পারলে


: অক্ষম ও অসুস্থ ব্যক্তি কিভাবে নামায আদায় করবে তা পবিত্র হাদীছ শরীফ উনার মধ্যে ও ফিক্বাহর কিতাবসমূহের মধ্যে সুস্পষ্ট বর্ণনা রয়েছে। পবিত্র হাদীছ শরীফ উনার মধ্যে বর্ণিত রয়েছে- عن حضرت عمران بن حصين رضى الله تعالى عنه قال كانت بى 

সাইয়্যিদুল মুরসালীন, ইমামুল মুরসালীন, খাতামুন নাবিইয়ীন, নুরে মুজাসসাম, হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম উনার পবিত্র জীবনী মুবারক-ধারাবাহিক।


সাইয়্যিদুল মুরসালীন, ইমামুল মুরসালীন, খাতামুন নাবিইয়ীন, নুরে মুজাসসাম, হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম উনার পবিত্র জীবনী মুবারক-ধারাবাহিক। **************************************************************************** পূর্ব প্রকাশিতের পর – ******************** মহান আল্লাহ পাক তিনি পবিত্র কুরআন শরীফ উনার মধ্যে ইরশাদ মুবারক করেন- هو الذى ارسل رسوله 

সন্ত্রাসবাদের কারণ ও প্রতিকারের উপায় প্রসঙ্গ


পবিত্র দ্বীন ইসলাম উনার আলোকে বিশ্ব, রাষ্ট্র বা সমাজে যতদিন সাম্য, সহিষ্ণুতা আর ন্যায় প্রতিষ্ঠিত না হবে, ততদিন সন্ত্রাসবাদ ফিরে ফিরে আসবে নতুন কোনো নামে নতুন কোনোখানে। সন্ত্রাসবাদ ঠেকাতে সবার আগে দরকার ইসলামী ঐক্য ও ভ্রতৃত্ববোধ। সন্ত্রাসবাদ প্রতিরোধে সন্ত্রাসবাদীকে সঙ্গী করে 

অলসতা-গাফলতি আর অকর্মন্যতার সাথে হুযুর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম উনার নাম মুবারক স্মরণ করা বা উচ্চারণ করা মাকরূহ


অলসতা-গাফলতি আর অকর্মন্যতার সাথে হুযুর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম উনার নাম মুবারক স্মরণ করা বা উচ্চারণ করা মাকরূহ । অত্যন্ত আদবের সাথে উনার লক্বব মুবারক নিয়ে সম্বোধন করতে হবে। কুরআন শরীফে আল্লাহপাক তিনি হাবীবুল্লাহ হুযুর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম 

ভাষ্কর্য্য এবং মুর্তি একই জিনিষ


নাস্তিক-ইসলামবিদ্বেষিরা এবং তাদের দালাল মিডিয়া, এমনকি তথাকথিত বুদ্ধুজীবি, মন্ত্রী এমপিরাও প্রতিমা, ভাস্কর্য ও মূর্তিকে আলাদা আলাদা বলতে চায়।তারা বলতে চায়” প্রতিমা হল মানুষ যার আরাধনা উপাসনা করে, ইহকালে-পরকালে মঙ্গল চায়, ভুলের ক্ষমা চায় ইত্যাদি। ভাস্কর্য্য হল মানুষসহ কোনো প্রাণী বা কোনো 

পবিত্র মি’রাজ শরীফ বিশ্বাস করা প্রত্যেক মুসলমান উনাদের জন্য ফরয। আর অস্বীকার ও অবজ্ঞা করা কাট্টা কুফরীর অন্তর্ভুক্ত


“পবিত্র মি’রাজ শরীফ হচ্ছেন- নূরে মুজাসসাম হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম উনার অসংখ্য বেমেছাল ফাযায়িল-ফযীলত উনাদের মধ্য হতে একটি বিশেষ ফাযায়িল-ফযীলত মুবারক। যা বিশ্বাস করা প্রত্যেক মুসলমান উনাদের জন্য ফরয। আর অস্বীকার ও অবজ্ঞা করা কাট্টা কুফরীর অন্তর্ভুক্ত।” আখিরী