হযরত আহলে বাইত ও আওলাদে রসূল ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম উনাদের বিরোধিতাকারীরা জাহান্নামী


বিখ্যাত ছাহাবী হযরত ইবনে আব্বাস রদ্বিয়াল্লাহু তায়ালা আনহু উনার থেকে বর্ণিত, নূরে মুজাসসাম হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম তিনি ইরশাদ মুবারক করেন- لوان رجلا صعد بين الركن والمقام فصلى وصام ثم مات وهو مبغض لاهل بيت النبى صلى الله 

পবিত্র কারবালা উনার হাক্বীক্বী ঘটনা এবং শিক্ষা: মুজাদ্দিদে আ’যম উনার ছোহবত মুবারক ব্যতীত অর্জন সম্ভব নয়


পবিত্র আশূরা মিনাল মুহররম শরীফ যেমন বরকতময় দিন তেমনি পবিত্র কারবালা ময়দানের ইতিহাস হৃদয় বিদারক ঘটনার দিন। মুসলমানগণ এই দিন এবং পবিত্র কারবালা উনার ঘটনা কম-বেশি সকলেই জানে। যারা টুকটাক জানে, তারা ভ্রান্ত আক্বীদাসম্পন্ন, শিয়া মতাবলম্বী মীর মুশাররফ হোসেনের বই পড়ে 

পর্দা-পুশিদার বিষয়ে সচেতন হওয়া প্রত্যেক পুরুষ এবং মহিলার জন্য ফরয


পবিত্র হাদীছ শরীফ উনার মাঝে ইরশাদ মুবারক হয়েছে- “যে দেখে আর যে দেখায় উভয়ের প্রতিই খালিক্ব মালিক রব মহান আল্লাহ পাক উনার লা’নত বর্ষিত হয়।” নাউযুবিল্লাহ! এই একটি পবিত্র হাদীছ শরীফ উনার মাধ্যমেই প্রত্যেক মুসলমান উনাদের জন্য পর্দা রক্ষা করা যে 

কেউ যদি এক বৎসর ভালো খেতে চায়, তবে সে যেন পবিত্র আশূরা শরীফ উনার দিন ভালো খাবারের ব্যবস্থা করে


কেউ কেউ মনে করে থাকে যে, বছরের পহেলা দিন ভালো খেলে বুঝি সারা বছর ভালো খাওয়া যায়। কিন্তু এই কথাটি মোটেও শুদ্ধ নয়; বরং মুসলমানগণ উনাদের বছরের পহেলা দিন পালন করা, উৎসব করা জায়িয নেই। হোক সেটা বাংলা, ইংরেজি অথবা আরবী 

পবিত্র মুহররম শরীফ উনার শ্রেষ্ঠ দিন আশূরা


‘আশূরা’ শব্দটি আরবী ‘আশারুন’ শব্দ থেকে উদ্ভূত। যার অর্থ দশ (১০)। ইসলামী শরীয়ত উনার পরিভাষায় পবিত্র মুহররম শরীফ উনার দশ তারিখকে পবিত্র আশূরা শরীফ বলা হয়। পবিত্র মুহররম শরীফ উনার পূর্ণ মাসের মধ্যে দশ তারিখ তথা পবিত্র আশূরা শরীফ উনার দিনটি 

ছিক্বাহ রাবী হওয়ার মানদণ্ড দ্বারাই প্রমাণিত হয় নবী-রসূল আলাইহিমুস সালাম উনারা মাসুম


হাদীছ বিশরাদগণ ছিক্বাহ রাবী হওয়ার জন্য যে মানদ- নির্ধারণ করেছেন, তার মধ্যে মূল বিষয় হচ্ছে ১. আদালত ২. জবত। আদালতের মধ্যে চারটি শর্ত রয়েছে। তার মধ্যে প্রধান হলো ২টি। যথা ক. তাক্বওয়া খ. মুরুওয়াত। ক. তাক্বওয়া হচ্ছে- কুফরী, শিরক, বিদয়াত ও 

পবিত্র আশূরা মিনাল মুহররমুল হারাম শরীফ উনার কতিপয় বৈশিষ্ট্য


১। পবিত্র মুহররমুল হারাম শরীফ মাসটি চারটি হারাম বা পবিত্র মাসের মধ্যে অন্যতম মাস। ২। এ মাসটি বিশেষভাবে সম্মানিত । ৩। পবিত্র আশূরা শরীফ উনার দিনটি পবিত্র মুহররমুল হারাম শরীফ মাসের দশ তারিখ বলে এর নাম পবিত্র আশূরা শরীফ হয়েছে। ৪। 

লালন নতুন কোন মতবাদের প্রবর্তক নয় পর্ব- (১)


বর্তমান বিশ্বে লালনের অনুসারী নামে পরিচিত বাউল সম্প্রদায়, তথা গাঁজা সেবনকারী একটি দল হর হামেশায় দাবী করেন যে, লালন হিন্দু, মুসলিম, বৌদ্ধ ও খৃষ্টান ধর্ম বাদ দিয়ে নিজেই একটি নতুন ধর্ম বা মতবাদের প্রবর্তক। আর সে ধর্ম বা মতবাদটি অসাম্প্রদায়িক বাউল 

সাইয়্যিদাতুন নিসা ‘আলাল আলামীন, সাইয়্যিদাতু নিসায়ি আহলিল জান্নাহ, উম্মু আবীহা, আন নূরুল ঊলা সাইয়্যিদাতুনা হযরত খইরু ওয়া আফদ্বলু বানাতি


সম্মানিত পরিচিতি মুবারক: সাইয়্যিদুল মুরসালীন, ইমামুল মুরসালীন, নূরে মুজাসসাম হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম উনার মহাসম্মানিত আবনা তথা মহাসম্মানিত ছেলে আওলাদ আলাইহিমুস সালাম এবং মহাসম্মানিতা বানাত তথা মহাসম্মানিতা মেয়ে আওলাদ আলাইহিন্নাস সালাম উনারা ছিলেন মোট আট (৮) জন। সুবহানাল্লাহ! 

আন নূরুল ঊলা সাইয়্যিদাতুনা হযরত খইরু ওয়া আফদ্বলু বানাতি রসূলিল্লাহ ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম উনার সম্মানিত লক্বব মুবারক


সাইয়্যিদাতুন নিসা ‘আলাল আলামীন, সাইয়্যিদাতু নিসায়ি আহলিল জান্নাহ, উম্মু আবীহা, আন নূরুল ঊলা সাইয়্যিদাতুনা হযরত খইরু ওয়া আফদ্বলু বানাতি রসূলিল্লাহ ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম উনার সম্মানিত লক্বব মুবারক মহান আল্লাহ পাক তিনি ইরশাদ মুবারক করেন, وَلِلّٰهِ الْاَسْـمَاءُ الْـحُسْنٰـى فَادْعُوْهُ بِـهَا. অর্থ: 

হযরত আবুল বাশার ছফিউল্লাহ আলাইহিস সালাম তিনি গন্দম খেয়ে ভুল ও গুনাহ করেছেন’ নাউযুবিল্লাহ- এ বক্তব্য ও আক্বীদা কুফরী


পবিত্র আশূরা মিনাল মুহররমুল হারাম শরীফ উপলক্ষে আলোচনা করতে গিয়ে যারা বলে যে, ‘মহান আল্লাহ পাক উনার সম্মানিত নবী ও রসূল হযরত আবুল বাশার ছফিউল্লাহ আলাইহিস সালাম তিনি গন্দম খেয়ে ভুল ও গুনাহ করেছেন’ নাউযুবিল্লাহ- তাদের এ বক্তব্য ও আক্বীদা সম্মানিত 

কায়িনাতের বুকে এক অভূতপূর্ব এবং বেমেছাল সম্মানিত তাজদীদ মুবারক: সাইয়্যিদুনা হযরত আবুল আছ আলাইহিস সালাম তিনি হচ্ছেন ‘সাইয়্যিদুনা হযরত


নূরে মুজাসসাম হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম তিনি সম্মানিত ও পবিত্র হাদীছ শরীফ উনার মধ্যে ইরশাদ মুবারক করেন, وَاِنِّـىْ زَوَّجْتُهُ ابْنَتَـىْ فَذٰلِكَ سَمَّاهُ اللهُ عِنْدَ الْـمَلَائِكَةِ ذَا النُّوْرِ وَسَـمَّاهُ فِى الْـجِنَانِ ذَا النُّوْرَيْنِ فَمَنْ شَتَمَ عُثْمَانَ عَلَيْهِ السَّلَامُ فَقَدْ