নূরে মুজাসসাম, হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম উনার পবিত্র রওজা শরীফ উনার মধ্যে- পবিত্র দুরূদ শরীফ পাঠকের


হযরত আম্মার ইবনে ইয়াসির রদ্বিয়াল্লাহু তায়ালা আনহু উনার থেকে বর্ণিত। তিনি বলেন, সাইয়্যিদুল মুরসালীন, ইমামুল মুরসালীন, নূরে মুজাসসাম, হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম তিনি ইরশাদ মুবারক করেন, মহান আল্লাহ পাক তিনি আমার পবিত্র রওজা শরীফ উনার মাঝে একজন হযরত 

কুফরী বিজড়িত অন্তরই বিশুদ্ধ বিষয় নিয়ে চু-চেরা করে


চোখে যে রংয়ের চশমা পড়া হয়, প্রকৃতির রংটা তাদের কাছে সেই চশমার রংয়েই রূপান্তরিত হয়। ঠিক তেমনি যাদের অন্তরে কুফরী বিদ্যমান, যারা বিশুদ্ধ আকীদার নয় এবং যারা বাতিল ফিরকার অন্তর্ভূক্ত তাদেরকেই দেখা যাচ্ছে প্রতিষ্ঠিত বিশুদ্ধ বিষয়গুলো নিয়ে চু-চেরা করছে, বিতর্কের জম্ম 

পাঠ্যবইয়ের অন্তর্ভুক্ত রচনাগুলো গভীর ষড়যন্ত্রেরই একটি অংশ ॥ স্বয়ং সাইয়্যিদুল মুরসালীন, ইমামুল মুরসালীন, নূরে মুজাসসাম, হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু


স্কুল কলেজগুলোর অধিকাংশ রচনা বা লেখনীগুলোর কোন অমুসলিম, কোনটা বিধর্মী, কোনটা নস্তিক, কোনটা ইসলামবিদ্বেষী লেখকদের লেখা। এছাড়া বাকি যে লেখাগুলো আছে তার লেখকরাও কি ধরনের মুসলমান সেটাও প্রশ্নবিদ্ধ। কারন সেগুলোও মুসলমানদের মত-পথ, আক্বীদা-আমলের সম্পূর্ণ বিপরীত। বইগুলোতে দু’একটি কথিত ইসলামী ভাবধারার যে 

সুমহান পবিত্র ১৫ই যিলহজ্জ শরীফ। সুবহানাল্লাহ! সাইয়্যিদুনা হযরত ইমামুল আশির মিন আহলি বাইতি রসূলিল্লাহ ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম উনার


নূরে মুজাসসাম হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম তিনি ইরশাদ মুবারক করেন, আমার হযরত আহলু বাইত শরীফ আলাইহিমুস সালাম উনারা যমীনবাসী অর্থাৎ সারা কায়িনাতের জন্য নিরাপত্তা স্বরূপ।’ সুবহানাল্লাহ! আজ সুমহান পবিত্র ১৫ই যিলহজ্জ শরীফ। সুবহানাল্লাহ! সাইয়্যিদুনা হযরত ইমামুল আশির মিন 

তাদের অসুবিধা শুধু দ্বীন ইসলাম পালন করলেই কেন?


পবিত্র ঈমানে মুফাসসাল উনার মধ্যে বর্ণিত হয়েছে, ‘আমি বিশ্বাস করলাম মহান আল্লাহ পাক উনার প্রতি, মহান আল্লাহ পাক উনার রাসূল, নূরে মুজাসসাম, হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম উনার প্রতি, মহান আল্লাহ পাক উনার পক্ষ থেকে প্রেরিত কিতাবসমূহের প্রতি, হযরত 

মুসলমানদের বিয়ের বয়স নির্ধারন করে দেয়া রাষ্ট্রদ্বীন ইসলাম অবমাননার শামিল


সম্মানিত দ্বীন ইসলাম উনার বিধান অনুসারে একজন মুসলমান যে কোন বয়সে বিবাহ বন্ধনে আবদ্ধ হতে পারবেন। বিবাহের জন্য নারী পুরুষের কোন সুনির্দিষ্ট বয়সকে সম্মানিত দ্বীন ইসলাম উনার মাঝে নির্ধারন করে দেয়া হয়নি। তার মানে রাষ্ট্রদ্বীন ইসলাম উনাকে যারা মেনে চলবেন উনারা 

সুমহান ও বরকতময় ঐতিহাসিক ১৪ই যিলহজ্জ শরীফ। সুবহানাল্লাহ! যা নূরে মুজাসসাম হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম উনার


মহান আল্লাহ পাক তিনি ইরশাদ মুবারক করেন, “ক্বিয়ামত নিকটবর্তী হয়েছে, চাঁদ দ্বিখণ্ডিত হয়েছে।” সুবহানাল্লাহ! নূরে মুজাসসাম হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম তিনি ইরশাদ মুবারক করেন, ‘আমার সেই উম্মতের জন্য আমার মুবারক শাফায়াত ওয়াজিব, যে উম্মত আমার হযরত আহলু বাইত 

খাছ সুন্নতী ওয়াক্ত মুতাবিক রাজারবাগ শরীফ সুন্নতী জামে মসজিদে অনুষ্ঠিত হবে দেশের সর্বপ্রথম পবিত্র ঈদুল আযহা উনার জামায়াত অনুষ্ঠিত


আগামী ইয়াওমুস সাবত (শনিবার) পালিত হবে পবিত্র ঈদুল আযহা শরীফ তথা পবিত্র কুরবানীর ঈদ। মুজাদ্দিদে আ’যম, ক্বইয়ূমুয যামান, জাব্বারিউল আউওয়াল, ক্বউইয়্যূল আউওয়াল, সুলত্বানুন নাছীর, হাবীবুল্লাহ, জামিউল আলক্বাব, আহলু বাইতি রসূলিল্লাহ সাইয়্যিদুনা হযরত ইমামুল উমাম আলাইহিস সালাম উনার মুবারক ইমামতিতে পবিত্র ঈদুল 

আজ ইয়াওমুল জুমুয়াহ দিবাগত রাতটিই হচ্ছে পবিত্র ঈদুল আদ্বহা উনার রাত। আর আগামীকাল ইয়াওমুস সাবত (শনিবার) হচ্ছেন পবিত্র ঈদুল


নূরে মুজাস্সাম, হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম তিনি ইরশাদ মুবারক করেন- ‘পাঁচ রাতে নিশ্চিতভাবে দোয়া কবুল হয়। এক. পবিত্র রজবুল হারাম মাস উনার ১লা রাত, দুই. পবিত্র বরাত উনার রাত, তিন. পবিত্র ক্বদর উনার রাত, চার ও পাঁচ. দুই 

নূরে মুজাসসাম, হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম উনার মহাসম্মানিত ওছীয়ত মুবারক পালন করা প্রত্যেক উম্মতের জন্য ফরয।


ইমামুল আউওয়াল মিন আহলি বাইতি রসূলিল্লাহি ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম সাইয়্যিদুনা হযরত কাররামাল্লাহু ওয়াজহাহূ আলাইহিস সালাম তিনি বলেন- ‘নূরে মুজাসসাম, হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম তিনি আমাকে ওয়াছীয়ত মুবারক অর্থাৎ আদেশ মুবারক করেছেন আমি যেন উনার পক্ষ থেকে পবিত্র 

কুরবানী বিরোধীরা সাবধান! কুরবানীর বিরোধিতা করতে গিয়ে গৌড় গোবিন্দের করুণ পরিণতি


সনটি ছিলো ১৩৪৪ খৃ.। তৎকালীন বাংলাদেশের সিলেটে গৌড় গোবিন্দের এলাকার এক মহল্লায় ১৩টি মুসলিম পরিবার বাস করতেন। তারই একজন ছিলেন শেখ বুরহান উদ্দিন। তিনি যবন যালিম গোবিন্দের কারণে গোপনে ইবাদত-বন্দেগী করতেন। কারণ সেখানে প্রকাশ্যে মুসলমানদের জন্য ইবাদত-বন্দেগী করা নিষিদ্ধ ছিলো। কেউই 

পবিত্র কুরবানীর বিরুদ্ধে বড় ষড়যন্ত্র!


-কুরবানীর পশুর হাটকে শহরের বাইরে নেয়া হচ্ছে। -কুরবানীর পশুর হাটের সংখ্যা কমানো হচ্ছে। -সুবিধাজনক স্থানে পশু জবাই না করে সরকার কর্তৃক নির্দিষ্ট স্থানে জবাই করার নির্দেশ। -১৮ বছরের নিচের কাউকে কুরবানীর পশু জবাই নিষিদ্ধ করার নির্দেশ। …এভাবেই একের পর এক কুরবানীর