শরীয়তসম্মত বহুবিবাহ ও বাল্যবিবাহ নিয়ে যত সমালোচনা; অথচ অবৈধ সম্পর্ক নিয়ে কোনো কথা নেই!


মুসলমানদের চিরশত্রু ইহুদী, নাছারা, কাফির, মুশরিকরা কি করে মুসলমানদের ক্ষতি করবে এবং মিথ্যা কল্পকাহিনী রটাবে- এই চিন্তায় মগ্ন থাকে সারাক্ষণ। সম্মানিত দ্বীন ইসলাম মহান আল্লাহ পাক উনার নিকট একমাত্র মনোনীত দ্বীন; অন্য সকল ধর্মই বাতিল। সম্মানিত দ্বীন ইসলাম একটি পরিপূর্ণ, নিয়ামতপূর্ণ 

যে কারণে চেয়ার-টেবিলে নামায পড়ার বিপক্ষে বলে না তারা


বর্তমানে মসজিদ কমিটিগুলোতে দেখা যায়, যে যতবেশি মসজিদে টাকা-পয়সা দেয় বা এলাকায় যে যত প্রভাবশালী তাদেরকেই কমিটির সভাপতি-সেক্রেটারী করা হয়। এ কারণে দেখা যায়, বিভিন্ন রাজনৈতিক নেতাতো বটেই পাড়ার বড় বড় সন্ত্রাসীদেরকেও অনেক সময় কমিটির সদস্য হিসেবে রাখা হয়। নাউযুবিল্লাহ! আর 

ভারতীয় পণ্যদ্রব্যগুলো সন্দেহযুক্ত, এগুলো বর্জন করা উচিত!


ভারতীয় পণ্যদ্রব্যগুলো সন্দেহযুক্ত, এগুলো বর্জন করা উচিত! ভারতে গরুকে কথিত দেবতা মান্যকারীরা নিয়মিত গো-মূত্র পান করে। জয়রাম সিঙ্ঘাল বহু বছর ধরে গো-মূত্র পান করে এসেছে সে দাবী করে, গো-মূত্র শুধু রোগ থেকে মুক্তই করে না, এটি পূণ্যের কাজও বটে। নাউযুবিল্লাহ! নাউযুবিল্লাহ! 

ক্রীতদাস সাহস হারিয়ে ক্রীতদাসই থেকে যায়!


ক্রীতদাস সাহস হারিয়ে ক্রীতদাসই থেকে যায়! আমি ক্রীতদাস। ত্রীতদাসের যেমন নিজের ইচ্ছা বলে কিছু নাই, অধিকাংশ মানুষের বেলা তাই। সাধারণ ক্রীতদাসের সাথে মানুষের একটু পার্থক্য আছে। ক্রীতদাসের মালিক তার ভরণ-পোষণ করে থাকে এবং ক্রীতদাস তার মালিকের হুকুমের গোলাম হয়ে থাকে। আর 

বাল্যবিবাহ নিয়ে প্রশাসনের অতি-তৎপরতা সমাজে বিরূপ প্রতিক্রিয়া সৃষ্টি করছে


গত কয়েকদিন আগে পত্র-পত্রিকা বিশেষ করে ইহুদী-নাছারাদের দোসর অনলাইন পত্রিকাগুলো একটি খবর খুব হাইলাইট করে প্রচার করেছে। যেন বিশাল এক রাজ্য জয় করার মতো খবর। খবরটির মূল বিষয় ছিলো- মানিকগঞ্জ সদর উপজেলার আটিগ্রামে বাল্যবিয়ে করানোর দায়ে মোশারফ হোসেন নামে এক কাজী 

নিজেকে নিয়ে ব্যস্ত থাকুন


মহান আল্লাহ পাক তিনি ইরশাদ মুবারক করেন, ‘প্রত্যেক নফসকে মৃত্যুর স্বাদ গ্রহণ করতে হবে।” আর হাদীছ শরীফ উনার মধ্যে ইরশাদ মুবারক হয়েছে, “মৃত্যু তোমাদেরকে এমনভাবে তালাশ করে যেভাবে রিযিক তোমাদেরকে তালাশ করে।” মানুষ মরণশীল। প্রত্যেকের এক দিন না একদিন সবকিছু ত্যাগ 

রাস্তা-ঘাট হতে অশ্লীল পোস্টার বিলবোর্ড উচ্ছেদ করা হোক


বাংলাদেশ ৯৮ ভাগ মুসলমান অধিবাসীর একটি দেশ। এদেশের রাজধানী ঢাকা সারা বিশ্বে মসজিদের শহর বলে পরিচিত। এদেশের রাষ্ট্রীয় দ্বীন হচ্ছেন সম্মানিত দ্বীন ইসলাম। অথচ এদেশেরই রাজধানী ঢাকা হতে শুরু করে প্রত্যেকটি শহর বন্দরের রাস্তা-ঘাট পথে প্রান্তরে, বাসা-বাড়ির ছাদে দেয়ালে এমনকি মসজিদ 

পুরুষদের ন্যায় মহিলাদেরও দ্বীনী তা’লীম গ্রহণ করা ফরযে আইনের অন্তর্ভুক্ত


পবিত্র হাদীছ শরীফ উনার মধ্যে ইরশাদ মুবারক হয়েছে, “প্রত্যেক মুসলমান পুরুষ-মহিলার জন্য ইলম অর্জন করা ফরয।” বর্তমানে দেখা যায়, দেশে-বিদেশে পুরুষরা বাইয়াত গ্রহণ করে, যিকির-ফিকির করে আমল করে। কিন্তু মেয়েদেরকে কিতাবাদি পড়তে বা যিকির-ফিকির করতে খুব একটা দেখা যায় না। বরং 

অবশেষে গউছুল আ’যম উনার পিছনে নামায পড়ার সৌভাগ্য নছীব হলো। সুবহানাল্লাহ!


হযরত আউলিয়ায়ে কিরাম রহমাতুল্লাহি আলাইহিম উনাদের লক্বব মুবারক সমূহের মধ্যে একটি বিশেষ লক্বব মুবারক হচ্ছে গউছুল আ’যম। গউছুল আ’যম লক্বব মুবারক উনার শাব্দিক অর্থ হচ্ছে মহান আশ্রয়দাতা, মহান পরিত্রাণ দানকারী ইত্যাদি। পারিভাষিক অর্থ হচ্ছে, যার উসীলায় বা যে মহান ব্যক্তিত্ব উনার 

শয়তানের ওয়াসওয়াসার কারণে কোন গুনাহর কাজ সংগঠিত হলে উপায় কি?


শয়তান নিজে বিভ্রান্ত এবং সে মানুষকেও বিভ্রান্ত করার চেষ্টা করে। এ প্রসঙ্গে মহান আল্লাহ পাক তিনি পবিত্র সূরা হিজর শরীফ উনার ৩৯ ও ৪০ নং আয়াত শরীফ উনার মধ্যে ইরশাদ মুবারক করেন- قَالَ رَبِّ بِمَا اَغْوَيْتَنِىْ لَاُزَيِّنَنَّ لَهُمْ فِىْ الْاَرْضِ وَلَاُغْوِيَنَّهُمْ 

দুনিয়াবী পড়ালেখার অজুহাতে সন্তানদের পবিত্র ইসলামী শিক্ষার অধিকার থেকে বিরত রাখা যাবে না


পবিত্র রমাদ্বান শরীফ মাসে রোযা রাখা প্রত্যেক প্রাপ্ত বয়ষ্ক মুমিন মুসলমান ছেলে মেয়ে সবার জন্যই ফরযে আইন। আর বলার অপেক্ষাই রাখে না যে, পবিত্র দ্বীন ইসলামে নির্দেশিত প্রতিটি আমল আখলাক ছোট বেলা হতে শিক্ষা দিতে হয় কিংবা প্র্যাকটিস করাতে হয়। এটা 

‘অছাম্প্রদায়িক’ চেতনা ধারণের কারণেই একদা প্রাচ্যের অক্সফোর্ড বলে পরিচিত ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় এখন ছা-ছমুছা-ছপের কারখানাতে পরিণত হয়েছে


“এক কাপ ছা, একটা ছমুছা, আর একটা ছপ, মাত্র দশ টাকায় এই তিনটা জিনিস পাওয়া যাবে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্র-শিক্ষক কেন্দ্রে।” প্রতি বছর আন্তর্জাতিক বিশ্ববিদ্যালয় র‌্যাঙ্কিং প্রকাশিত হওয়ার পর যখন তাতে ঢাবি, বুয়েট কিংবা বাংলাদেশের কোনো ভার্সিটিকেই প্রথম ১০০০ এর তালিকায় খুঁজে