মুসলমানদের জন্য বিধর্মী-বিজাতীয়দের প্রবর্তিত দিবসসমূহ পালন করা হারাম


সম্মানিত মুসলমান উনাদেরকে যিনি খালিক্ব মালিক রব মহান আল্লাহ পাক তিনি “আইয়্যামুল্লাহ” অর্থাৎ মহান আল্লাহ পাক উনার সম্মানিত দিবসসমূহ পালন করার জন্য আদেশ মুবারক করেছেন। বিপরতী পক্ষে মহান আল্লাহ পাক উনার শত্রু কাফির-মুশরিক, বেদ্বীন-বিজাতিদের প্রবর্তিত ও পালিত দিবসসমূহ পালন করতে নিষেধ 

বিজাতী-বিধর্মীদের পূজা-পার্বণের সময় এদের মানবতা কোথায় থাকে?


বাংলাদেশে মোট জনসংখ্যার ৯৮ ভাগই হচ্ছে মুসলমান। এ কারণে এদেশের সংবিধানে পবিত্র দ্বীন ইসলাম উনাকে রাষ্ট্রধর্ম হিসেবে বহাল রাখা হয়েছে। হিন্দু, বৌদ্ধ, খ্রিস্টান ও উপজাতি সবমিলে রয়েছে মাত্র ২ ভাগ। ওদের যে কোনো কল্পিত ধর্মীয় উৎসবের সময় দেখা যায় সরকার স্বয়ং 

পবিত্র আশূরা শরীফ দিনের আমলসমূহ


পবিত্র মুহররমুল হারাম মাসের ১০ তারিখ পবিত্র আশূরা শরীফ দিনের আমলসমূহ হচ্ছে রোযা রাখা অর্থাৎ ৯, ১০ অথবা ১০, ১১ তারিখ দু’দিন রোযা রাখা এরপর পরবর্তী কোনো এক ইছনাইনিল আযীম শরীফ (সোমবার) মিলে মোট ৩টি রোযা রাখা। পবিত্র আশূরা শরীফ উপলক্ষে 

প্রকাশ্যেই হচ্ছে ইসলামবিদ্বেষী কাজ- প্রতিবাদ না করার পরিণতি কখনোই ভালো নয়


কিতাবে একটি ঘটনা বর্ণিত আছে। একবার এ ব্যক্তি কোনো একটি মজলিসে বসা ছিলো। তার উপস্থিতিতেই কিছু লোক সেখানে উম্মুল মু’মিনীন আলাইহিন্নাস সালাম উনাদের নিয়ে কটূক্তিকর কিছু কথা বললো। লোকটি শুনেও না শুনার ভান করে থাকলো। অত:পর সে বাসায় ফিরে ঘুমিয়ে পড়ার 

সামাজিক শৃঙ্খলা রক্ষার্থে বাল্যবিবাহের অপরিহার্যতা


ইদানিং আমাদের দেশে বাল্য বিবাহ নিয়ে পক্ষে বিপক্ষে অনেক যুক্তি তর্ক অনলাইন পত্র পত্রিকায় দেখা যাচ্ছে। মূলত বাল্য বিবাহের মধ্যে সমস্ত বালাই বা উপকারীতা নিহিত। কেননা দেখা যাচ্ছে ছেলে-মেয়েদের অনেকেই বিয়ের উপযুক্ত হওয়া মাত্র বিয়ে না দিলে বিয়ে না করালে তারা 

সরকারের জন্য দায়িত্ব ও কর্তব্য হচ্ছে- পবিত্র আশূরা মিনাল মুহররম শরীফ উপলক্ষে কমপক্ষে ৩দিন ছুটি ঘোষণা করা


পবিত্র হাদীছ শরীফ উনার মধ্যে এসেছে, নূরে মুজাসসাম হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম তিনি ইরশাদ মুবারক করেন, “যে ব্যক্তি পবিত্র মুহররমুল হারাম শরীফ মাস উনাকে তথা পবিত্র আশূরা শরীফ উনার দিনকে সম্মান করবে, খালিক্ব মালিক রব মহান আল্লাহ পাক 

বিধর্মীদের অনুকরণে মুসলিম প্রজন্ম এগোচ্ছে জাহান্নামের দিকে; আর উলামায়ে সূ’রা আছে ফযীলতপূর্ণ আমলকে ‘বিদয়াত’ করার তালে


শতকরা ৯৮ ভাগ মুসলমানের বাংলাদেশে পরিপূর্ণ ইসলাম থাকাটাই স্বাভাবিক ছিলো। কিন্তু ভয়াবহ বাস্তবতা হলো এই যে, মুসলমানদের প্রধান শত্রু ইহুদী-নাছারাদের চক্রান্তের ফাঁদে পড়ে আজকে আমাদের মুসলিম সমাজ জাহান্নামের দিকে ধাবিত। তাদের এই চক্রান্ত শুধু বস্তুবাচক বা টিভি-ক্যামেরার মতো যান্ত্রিক নয়; বরং 

প্রতিটি শ্রেণীতে সাইয়্যিদুল আ’ইয়াদ শরীফ অন্তর্ভুক্ত চাই


“হে আমার হাবীব ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম! আপনি বলে দিন, তারা যে মহান আল্লাহ পাক উনার পক্ষ হতে ‘ফযল ও রহমত’ পেয়েছে সে জন্য তারা যেনো খুশি প্রকাশ করে। নিশ্চয় তাদের এ খুশি প্রকাশ করাটা তাদের সমস্ত সঞ্চয়ের থেকে উত্তম।” সুবহানাল্লাহ! 

পরিত্রাণ পাওয়ার জন্য মুসলমানদের উচিত তওবা করে নেক আমলে ফিরে আসা


যত রকমের গযব দুনিয়ার যমীনে নাযিল হয় তার মূলত প্রধান দুটি কারণ। প্রথম কারনটি হচ্ছে সারা দুনিয়াব্যাপী সমস্ত বিধর্মীরা মুসলমানদের উপর মারাত্মক যুলুম-নির্যাতন চালিয়ে লক্ষ-লক্ষ মুসলমান উনাদের শহীদ করে মুসলমানদের মাল-সম্পদ লুট করে যাচ্ছে। বিধর্মীদের এই বদ আমলের কারণে মহান আল্লাহ 

সাইয়্যিদুল আ’ইয়াদ শরীফ পালন করা কুল কায়িনাতের সর্বশ্রেষ্ঠ ইবাদত


খালিক্ব মালিক রব মহান আল্লাহ পাক তিনি ইরশাদ মুবারক করেন, يَااَيُّهَا النَّاسُ قَدْ جَاءَتْكُمْ مَوْعِظَةٌ مّـِنْ رَّبّـِكُمْ وَشِفَاء لّـِمَا فِى الصُّدُوْرِ وَهُدًى وَّرَحْمَةٌ لّـِلْمُؤْمِنِيْنَ. قُلْ بِفَضْلِ اللهِ وَبِرَحْمَتِهٖ فَبِذٰلِكَ فَلْيَفْرَحُوْا هُوَ خَيْرٌ مّـِمَّا يَـجْمَعُوْنَ. অর্থ: “হে মানুষেরা! হে সমস্ত জিন-ইনসান, কায়িনাতবাসী! 

মাহে মুহররমুল হারাম শরীফ উনার বিশেষ আইয়ামুল্লাহ শরীফসমূহ:


১ মুহররমুল হারাম: সাইয়্যিদুনা হযরত যুন নূরাইন আলাইহিস সালাম উনার খিলাফত মুবারক গ্রহণ দিবস। ২ মুহররমুল হারাম: আবু রসূলিল্লাহ সাইয়্যিদুনা হযরত যবিহুল্লাহ আলাইহিস সালাম উনার পবিত্র বিছালী শান মুবারক প্রকাশ দিবস। ৫ মুহররমুল হারাম: ক) উম্মুল মু’মিনীন সাইয়্যিদাতুনা হযরত আত তাসিয়াহ 

নূরে মুজাসসাম, হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম উনার প্রতি মুহব্বত ও আনুগত্য প্রকাশের সবচেয়ে বড়


খালিক্ব মালিক রব মহান আল্লাহ পাক তিনি পবিত্র কালাম পাক উনার মধ্যে ইরশাদ মুবারক ফরমান, “হে আমার হাবীব ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম! আপনি লোকদেরকে বলে দিন যদি তারা মহান আল্লাহ পাক উনাকে মুহব্বত করে, তবে যেন আপনার আনুগত্য প্রদর্শন করে।” উল্লেখ্য,