ফাসেক-ফুজ্জার লোকদের অনুসরণ করা জায়িয নেই


আমরা প্রত্যেকেই কাউকে না কাউকে অনুসরণ করে থাকি। তবে বাজার দরে সবাইকে অনুসরণ করা সম্মানিত দ্বীন ইসলাম, সম্মানিত শরীয়ত উনার সম্পূর্ণ খিলাফ ও গুনাহের কাজও বটে। কেননা মহান আল্লাহ পাক তিনি উনার সম্মানিত কালাম পবিত্র কালামুল্লাহ শরীফ উনার মাঝে ইরশাদ মুবারক 

অতিসত্বর সুন্নতী বাল্যবিবাহ বিরোধী আইন উঠিয়ে নেয়া হোক


খালিক্ব মালিক রব মহান আল্লাহ পাক তিনি পবিত্র কালামুল্লাহ শরীফ উনার মধ্যে ইরশাদ মুবারক করেন- “নিশ্চয়ই আমার হাবীব ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম উনার মাঝে নিহিত রয়েছে তোমাদের জন্য উত্তম আদর্শ মুবারক।” (পবিত্র সূরা আহযাব শরীফ: পবিত্র আয়াত শরীফ-২১) এতদ্বসত্ত্বেও ব্রিটিশ কুচক্রীদের 

হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম তিনি হচ্ছেন- নিয়ামতে উযমা মুবারক অর্থাৎ সবচেয়ে মহান বা বড় নিয়ামত মুবারক


মহান আল্লাহ পাক তিনি ইরশাদ মুবারক করেন, (মু’মিন বান্দা-বান্দী) উনারা খুশি প্রকাশ করেন মহান আল্লাহ পাক উনার নিয়ামত মুবারক ও ফদ্বল বা অনুগ্রহ মুবারক লাভ করার কারণে। সুবহানাল্লাহ! নূরে মুজাসসাম হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম তিনি ইরশাদ মুবারক করেন, 

অনুসরণীয় চার মাযহাব উনাদের ফতওয়া মুতাবিক সাইয়্যিদুল আম্বিয়া ওয়াল মুরসালীন, রহমাতুল্লিল আলামীন, নূরে মুজাসসাম, হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি


নূরে মুজাসসাম হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম উনার সম্পর্কে, উনার সম্মানিত আহলু বাইত শরীফ আলাইহিমুস সালাম অর্থাৎ উনার সম্মানিত আব্বা-আম্মা আলাইহিমাস সালাম উনাদের সম্পর্কে, উনার সম্মানিতা আওয়াজে মুত্বহহারাত হযরত উম্মাহাতুল মু’মিনীন আলাইহিন্নাস সালাম উনাদের সম্পর্কে এবং উনার সম্মানিত আওলাদ 

আপনি কি সম্মানিত রহমত উনার সমস্ত দরজা সমূহ খোলাতে চান? মাগফিরাত এবং নাজাত লাভ করতে চান? তাহলে পরিবার-পরিজন, পাড়া-প্রতিবেশী


“হযরত আবূ দারদা রদ্বিয়াল্লাহু তায়ালা আনহু উনার থেকে বর্ণিত যে, একদা তিনি নূরে মুজাসসাম হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম উনার সাথে হযরত আমির আনছারী রদ্বিয়াল্লাহু তায়ালা আনহু উনার গৃহে উপস্থিত হয়ে দেখতে পেলেন যে, তিনি নূরে মুজাসসাম হাবীবুল্লাহ হুযূর 

গণতন্ত্র হলো সকল হারাম কাজের মূল


পবিত্র হাদীছ শরীফ উনার মধ্যে ইরশাদ মুবারক হয়েছে, হালাল স্পষ্ট, হারাম স্পষ্ট। আর উছূলের কিতাব উনার মধ্যে রয়েছে, হালাল থেকে হালালই বের হয় আর হারাম থেকে হারামই বের হয়। এখন এই গণতন্ত্রের মূলে রয়েছে হারাম। যেটা আমরা দেখতে পাই, এ গণতন্ত্রের 

মহান আল্লাহ পাক উনার ঘর হচ্ছেন পবিত্র মসজিদ সেই পবিত্র মসজিদ কখন অবৈধ হতে পারে না


পবিত্র হাদীছ শরীফ উনার মধ্যে ইরশাদ মুবারক হয়েছে, মহান আল্লাহ পাক তিনি ইরশাদ মুবারক করেন, “পৃথিবীতে পবিত্র মসজিদসমূহ হচ্ছে আমার ঘর। যেভাবে নক্ষত্রসমূহ পৃথিবীর জন্য আলোর বিচ্ছুরণ ঘটায়, তেমনভাবে মসজিদসমূহ আকাশের জন্য আলোর বিচ্ছুরণ ঘটায়।” মসজিদ ব্যবহার করে জনগণ, যারা গণতান্ত্রিক 

মুসলমানরা কি তাদের ক্বিবলা পরিবর্তন করে ফেলেছে?


পবিত্র কা’বা শরীফের দিকে ফিরে নামায পড়তে হয়। অন্য কোনো দিকে ফিরে হাজার হাজার রাকায়াত নামায পড়লেও নামায আদায় হবে না। বিশ্বজুড়ে মুসলিম উম্মাহ অনেক কিছুতে এগিয়ে যাচ্ছে। তারা যুগের সাথে তাল মিলিয়ে উচ্চ শিক্ষা অর্জন করেছে, ডিগ্রি নিচ্ছে, পিএইচডি করছে, 

নূরে মুজাসসাম হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম তিনিই হচ্ছেন পবিত্র ঈমান; তাই উনার পবিত্র শানে বিন্দুতম চু-চেরা


পবিত্র ঈমান উনার মূলই হচ্ছেন- সাইয়্যিদুল মুরসালীন, ইমামুল মুরসালীন, খাতামুন নাবিইয়ীন, নূরে মুজাসসাম, হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম তিনি। উনার প্রতি পরিপূর্ণ পবিত্র ঈমান না আনা পর্যন্ত, পরিপূর্ণ হুসনে যন বা সুধারণা পোষণ না করা পর্যন্ত, উনাকে সবচেয়ে মুহব্বত 

প্রসঙ্গ: দ্বীন ইসলাম নিয়ে কটূক্তি: অন্ততঃপক্ষে জবানে হলেও প্রতিবাদ জানাতে হবে, নচেৎ ঈমানদার থাকা যাবে না


কিতাবে বর্ণিত আছে, একবার একজন ব্যক্তির উপস্থিতিতে একটি মজলিসে কিছু লোক উম্মুল মু’মিনীন সাইয়্যিদাতুনা হযরত ছিদ্দীকা আলাইহাস সালাম উনাদের সম্পর্কে কটূক্তি করলো। কিন্তু সে লোক প্রতিবাদে কোনো কথাও বললো না। ওইদিন রাতেই সে স্বপ্নে দেখলো- স্বয়ং নূর নবীজি হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক 

পবিত্র যাকাত পৌঁছাতে হবে- নায়েবে নবী ওরাসাতুল আম্বিয়া উনাদের কাছে


আজকাল পবিত্র যাকাত সংগ্রহের জন্য বিভিন্ন প্রতিষ্ঠান দাঁড়িয়ে গেছে। পবিত্র যাকাত উনার জন্য মেলারও আয়োজন হচ্ছে। নাউযুবিল্লাহ! অথচ পবিত্র যাকাত কোথায় দিতে হবে, সে উত্তর নিতে হবে পবিত্র কুরআন শরীফ উনার থেকে। মনগড়াভাবে কিছু করলে সকল মানুষের ফরয আদায়ের ত্রুটির দায়ভার 

প্রসঙ্গ: মসজিদে চেয়ারে বসে নামায প্রসঙ্গে ইফা’র ফতওয়া পরিবর্তন


‘মসজিদে চেয়ারে বসে নামায আদায় জায়িয নেই’ মর্মে ইসলামিক ফাউন্ডেশনের দেয়া ফতওয়ায় দেশজুড়ে তোলপাড় সৃষ্টি হওয়ার এক দিনের মাথায় তা অস্বীকার করেছে সংগঠনটি। এভাবে ফতওয়া ঘুরিয়ে ফেলার কারণ সম্পর্কে জানা যায়, বর্তমান সরকারের কয়েকজন মন্ত্রী এই চেয়ারে বসে নামায আদায় করার