সুলত্বানুল হিন্দ হযরত খাজা ছাহেব রহমতুল্লাহি আলাইহি তিনি হাক্বীক্বী ওয়ারাছাতুল আম্বিয়া


এক কোটিরও বেশি বিধর্মী যে মহান ব্যক্তিত্ব উনার হাত মুবারক-এ হাত রেখে পবিত্র দ্বীন ইসলাম কবুল করেন, তিনিই হচ্ছেন সুলত্বানুল হিন্দ, সুলত্বানুল মাশায়িখ, সুমহান চীশতিয়া তরীক্বা উনার ইমাম ও প্রতিষ্ঠাতা, সপ্তম হিজরী শতকের মহান মুজাদ্দিদ হযরত খাজা ছাহেব রহমতুল্লাহি আলাইহি। তিনি 

সুলতানুল হিন্দ, গরীবে নেওয়াজ, হাবীবুল্লাহ হযরত খাজা ছাহেব রহমতুল্লাহি আলাইহি উনার সম্মান ও মর্যাদা


মহান আল্লাহ পাক তিনি পবিত্র কুরআন শরীফ উনার মধ্যে ইরশাদ মুবারক করেন, “মহান আল্লাহ পাক তিনি যাকে ইচ্ছা উনাকেই উনার খাছ বান্দা হিসেবে মনোনীত করে থাকেন।” (পবিত্র সূরা শুরা শরীফ : পবিত্র আয়াত শরীফ ১৩) উক্ত পবিত্র আয়াত শরীফ উনার মধ্যে 

সুলত্বানুল হিন্দ হযরত খাজা ছাহেব রহমতুল্লাহি আলাইহি উনার স্মরণে ভারত-বাংলার সরকারের উদ্যোগ কোথায়?


পবিত্র শাহরুল্লাহিল হারাম রজবুল আছাম্ম উনার ৬ তারিখ বিশ্ববিখ্যাত ওলীয়ে কামিল, সুলত্বানুল হিন্দ, হাবীবুল্লাহ হযরত খাজায়ে আ’যম চীশতি সানজরী আজমিরী রহমতুল্লাহি আলাইহি উনার পবিত্র বিছালী শান মুবারক প্রকাশের সুমহান দিবস। ভারতবর্ষে মানবতার মুক্তির দিশারী হিসেবে উনার বিকল্প আর কেউ নেই। অর্থাৎ 

বাংলাদেশ খাদ্য উৎপাদনে স্বয়ংসম্পন্ন। অথচ সরকার প্রচার করে বেড়ায় যে, দেশে খাদ্য ঘাটতি আছে।


বিভিন্ন মৌসুমে খাদ্য উৎপাদন এত বেশি হয় যে, সঠিক বিপণনের অভাবে কৃষক কোন মূল্যই পায় না। এমনকি কৃষকের উৎপাদন খরচও উঠে না। এই সময়টাতে সরকার কৃষক কাছ থেকে খাদ্যগুলো ন্যায্য মূল্যে সংগ্রহ করে, হিমাগারে সংরক্ষণ করলে। একদিকে কৃষক যেমন ন্যায্যমূল্য পেতো 

৬ ই রজবুল হারাম শরীফ সুমহান বিছলী শান মুবারক উনার দিবস


هذ ا حبيب الله مات في حب الله হযরত খাজা মইনুদ্দিন চিশতী রহমাতুল্লাহি আলাইহি উনার । ৬ ই রজবুল হারাম শরীফ । জন্ম ১১৪১ কুরাশান (আধুনিক আফগানিস্তানে) বা এসফাহন (আধুনিক ইরানে) মৃত্যু ১২৩৬ খেতাব غریب نواز গরিব নেওয়াজ،سلطان الہند সুলতান-উল-হিন্দ (ভারতের 

সুলতানুল হিন্দ হযরত খাজা ছাহেব রহমতুল্লাহি আলাইহি তিনি পবিত্র সুন্নতে নববী প্রচার-প্রসারে অনুপম আদর্শ


কুতুবুল মাশায়িখ, সুলত্বানুল হিন্দ, গরীবে নেওয়াজ, হাবীবুল্লাহ হযরত খাজা ছাহিব রহমতুল্লাহি আলাইহি উনার শাদী মুবারক সম্পন্ন হওয়ার বিষয়টি অত্যধিক মাশহূর। উনার দুনিয়াবী হায়াত মুবারক যখন নব্বই বছর, তখন একখানা বিশেষ ঘটনা মুবারক সংঘটিত হয়। এক বিশেষ দীদার মুবারকে নূরে মুজাসসাম হাবীবুল্লাহ 

সিবতু রসূলিল্লাহ ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম, আহলু বাইতি রসূলিল্লাহ ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম সাইয়্যিদুনা হযরত ইমাম ইবনে যুন নূর


সম্মানিত ও পবিত্র হাদীছ শরীফ উনার মধ্যে ইরশাদ মুবারক হয়েছে, عَنْ حَضْرَتْ عَبْدِ اللهِ بْنِ مَسْعُوْدٍ رَضِىَ اللهُ تَعَالـٰى عَنْهُ قَالَ قَالَ رَسُوْلُ اللهِ صَلَّى اللهُ عَلَيْهِ وَسَلَّمَ نَضَّرَ اللهُ امْرَءًا سَـمِعَ مِنَّا حَدِيْثًا فَبَلَّغَهٗ كَمَا سَـمِعَهٗ فَرُبَّ مُبَلَّغٍ اَوْعـٰى مِنْ 

মহাসম্মানিত পবিত্র কুরআন শরীফ উনার আলোকে- সাইয়্যিদুল আম্বিয়া ওয়াল মুরসালীন, নূরে মুজাসসাম, হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম


খালিক্ব মালিক রব মহান আল্লাহ পাক তিনি ইরশাদ মুবারক করেন, “(হে আমার হাবীব ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম! আপনি জানিয়ে দিন, আমি তোমাদের নিকট কোনো বিনিময় চাচ্ছি না। আর চাওয়াটাও স্বাভাবিক নয়; তোমাদের পক্ষে দেয়াও কস্মিনকালে সম্ভব নয়। তবে তোমরা যদি ইহকাল 

যেভাবে জানবেন আপনার কম্পিউটারের বয়স


অনেকেই পুরাতন কম্পিউটার, নেটবুক, ল্যাপটপ কিনে থাকেন। কিন্তু অনেকেই দ্বিধায় ভোগেন কেনা কম্পিউটারটি কতদিনের পুরনো, কতদিনই বা সার্ভিস দিবে এসব নিয়ে। অনেকসময় বিক্রেতা কম্পিউটারের সঠিক বয়স নাও বলতে পারে। তাই কেনার আগে নিজেই পরীক্ষা করে নিতে পারবেন- কম্পিউটারটির বয়স কত হয়েছে। 

মাদরাসায় জাতীয় সংগীত প্রতিযোগিতা বন্ধে রিট


মাদ্রাসাগুলোতে জাতীয় সংগীত প্রতিযোগিতা বন্ধে হাইকোর্টে রিট মামলা দায়ের করা হয়েছে। মাধ্যমিক ও উচ্চশিক্ষা অধিদফতরের (মাউশি) আওতাধীন দেশের সব মাদ্রাসা শিক্ষা প্রতিষ্ঠানকে গত জানুয়ারিতে দলগত জাতীয় সঙ্গীত প্রতিযোগিতা আয়োজনের নির্দেশ দিয়ে পরিপত্র জারি করেছিল মন্ত্রিপরিষদ বিভাগ। সেই পরিপত্রকে চ্যালেঞ্জ করে গতকাল 

পবিত্র লাইলাতুর রগায়িব শরীফ উনার ফযীলত


পবিত্র রজবুল হারাম শরীফ মাস উনার প্রথম জুমুয়াহ শরীফ রাতকে পবিত্র লাইলাতুর রগায়িব শরীফ বলা হয়। কেননা এই মুবারক রজনীতে স্বয়ং নূরে মুজাসসাম হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম তিনি উনার মুহতারামা আম্মাজান আলাইহাস সালাম উনার খিদমত মুবারকে নূর হিসেবে 

পবিত্র রজবুল হারাম শরীফ মাস উনার মধ্যে রোযা রাখার ফযীলত


হযরত আনাস রদ্বিয়াল্লাহু তায়ালা আনহু উনার থেকে বর্ণিত। তিনি বলেন, নূরে মুজাসসাম হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম তিনি ইরশাদ মুবারক করেন, “যে ব্যক্তি হারাম মাসে (যিলক্বদ, যিলহজ্জ, মুর্হরম ও রজব) তিন (৩) দিন রোযা রাখবে, তার জন্য নয় (৯)