সাইয়্যিদাতুল উমাম হযরত শাহ নাওয়াসী আর রবি’য়াহ আলাইহাস সালাম তিনি হলেন সাইয়্যিদা শাবাবি আহলিল জান্নাহ হযরত ইমামুছ ছানী ও


নূরে মুজাসসাম হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম উনার আদরের দুলাল, নয়ন মুবারক উনার মণি মুবারক, কলিজা মুবারক উনার টুকরা মুবারক দৌহিত্র হলেন সাইয়্যিদুনা হযরত ইমামুছ ছানী মিন আহলি বাইতি রসূলিল্লাহি আলাইহি ওয়া সাল্লাম ও সাইয়্যিদুনা হযরত ইমামুছ ছালিছ মিন 

আহলু বাইতি রসূলিল্লাহ ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম, সিবত্বতু মুজাদ্দিদে আ’যম আলাইহিস সালাম, জান্নাতী মেহমান, সাইয়্যিদাতুল উমাম সাইয়্যিদাতুনা হযরত শাহ


নূরে মুজাসসাম হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম তিনি ইরশাদ মুবারক করেন, عَنْ حَضْرَتْ عَبْدِ الرَّحْمٰنِ بْنِ الْعَلَاءِ الْحَضْرَمِيِّ قَالَ حَدَّثَنِىْ مَنْ سَمِعَ النَّبِيَّ صَلَّى اللهُ عَلَيْهِ وَسَلَّمَ يَقُوْلُ إِنَّه سَيَكُوْنُ فِىْ اٰخِرِ هٰذِهِ الْأُمَّةِ قَوْمٌ لَـهُمْ مِثْلُ أَجْرِ أَوَّلِـهِمْ 

সাইয়্যিদাতুল উমাম, আওলাদে রসূল, সাইয়্যিদাতুনা হযরত শাহ নাওয়াসী আর রবি’য়াহ আলাইহাস সালাম উনার মর্যাদা-মর্তবা, বুযুর্গী-সম্মান মুবারক


সাইয়্যিদাতুল উমাম হযরত শাহ নাওয়াসী আর রবি’য়াহ আলাইহাস সালাম উনার শান-মান, মর্যাদা-মর্তবা, বুযুর্গী-সম্মান মুবারক বেমেছাল। উনার কোনো মেছাল বা তুলনা নেই। উনার মেছাল শুধুমাত্র তিনি নিজেই। সুবহানাল্লাহ! তিনি বহু কারণে বা বিভিন্ন দিক থেকে বেমেছাল শান-মান, মর্যাদা-মর্তবা উনার অধিকারিণী। সাইয়্যিদাতুল উমাম 

আহলু বাইতি রসূলিল্লাহ ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম, সিবত্বতু মুজাদ্দিদে আ’যম আলাইহিস সালাম, জান্নাতী মেহমান, সাইয়্যিদাতুল উমাম সাইয়্যিদাতুনা হযরত শাহ


সম্মানিত হাদীছ শরীফ উনার মধ্যে ইরশাদ মুবারক হয়েছে- عَنْ حَضْرَتْ عَـلِـىٍّ عَلَيْهِ السَّلَامُ قَالَ قَالَ رَسُوْلُ اللهِ صَلَّى الله عَلَيْهِ وَسَلَّمَ النُّجُوْمُ اَمَانٌ لِّاَهْلِ السَّمَاءِ اِذَا ذَهَبَتِ النُّجُوْمُ ذَهَبَ اَهْلُ السَّمَاءِ وَاَهْلُ بَيْتِـىْ اَمَانٌ لِّاَهْلِ الْاَرْضِ فَاِذَا ذَهَبَ اَهْلُ بَيْـتِـىْ ذَهَبَ 

পবিত্র রজবুল হারাম শরীফ মাস উনার প্রথম জুমুয়াহ শরীফ রাত্রি অর্থাৎ ‘পবিত্র লাইলাতুর রগায়িব শরীফ’ উনার মর্যাদা


সম্মানিত হাম্বলী মাযহাব উনার ইমাম হযরত ইমাম আহমদ বিন হাম্বল রহমতুল্লাহি আলাইহি তিনি একবার ফতওয়া দিলেন, ‘পবিত্র লাইলাতুর রগায়িব শরীফ’ উনার মার্যাদা পবিত্র লাইলাতুল ক্বদর, পবিত্র লাইলাতুল বরাত উনার চেয়েও অনেক বেশি। তখন সে যামানার আলিম-উলামাগণ উনারা এই ফতওয়া শুনে চিন্তিত 

ধন্য ৩রা রজবুল হারাম শরীফ কুল কায়িনাত আলোকীত করে ধরা মাঝে সাইয়্যিদাতুন নিসা সাইয়্যিদাতুল উমাম আর রবিয়াহ আলাইহাস সালাম


সমস্ত কায়িনাত আলোকিত করে উদিত হন এক দীপ্তিমান সূর্য। জীন ইনসান, কায়িনাতবাসী তথা ১৮ হাজার মাখলুকাত সেই দীপ্তিমান সূর্য থেকে ফায়দা তথা নিয়ামত লাভ করে থাকেন। সুবহানাল্লাহ, আর সেই দীপ্তিমান সূর্যই হচ্ছেন সাইয়্যিদাতুন নিসা বিনতে নিবরাসাতূল উমাম ওয়া হাদিউল উমাম আলাইহিমাস 

পবিত্র লাইলাতুল ক্বদর ও পবিত্র লাইলাতুল বরাত এবং অন্যান্য ফযীলতপূর্ণ রাত্রিগুলো সৃষ্টি হয়েছে ‘পবিত্র লাইলাতুর রগায়িব শরীফ’ উনার মুবারক


সম্মানিত হাম্বলী মাযহাব উনার ইমাম হযরত ইমাম আহমদ বিন হাম্বল রহমতুল্লাহি আলাইহি তিনি ফতওয়া দিলেন, “পবিত্র লাইলাতুর রগায়িব শরীফ’’ উনার ফযীলত হচ্ছে পবিত্র লাইলাতুল ক্বদর, পবিত্র লাইলাতুল বরাত এবং অন্যান্য ফযীলতপূর্ণ রাত্রি অপেক্ষা অনেক বেশি।” সুবহানাল্লাহ! তখন সমসাময়িক হযরত ইমাম ও 

আহলু বাইতি রসূলিল্লাহ ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম, সিবত্বতু মুজাদ্দিদে আ’যম আলাইহিস সালাম, জান্নাতী মেহমান, সাইয়্যিদাতুল উমাম সাইয়্যিদাতুনা হযরত শাহ


সিবত্বতু মুজাদ্দিদে আ’যম আলাইহিস সালাম, জান্নাতী মেহমান, সাইয়্যিদাতুল উমাম সাইয়্যিদাতুনা হযরত শাহ নাওয়াসী আর রবি’য়াহ আলাইহাস সালাম তিনি হচ্ছেন সাইয়্যিদুল মুরসালীন, ইমামুল মুরসালীন, নূরে মুজাস্সাম, হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম উনার মহাসম্মানিত ও মহাপবিত্র হযরত আহলু বাইত শরীফ আলাইহিমুস 

ঈদে বিলাদতে সাইয়্যিদাতুল উমাম আর রবি’য়াহ আলাইহাস সালাম


খালিক্ব মালিক রব মহান আল্লাহ পাক তিনি মহাপবিত্র কালামুল্লাহ শরীফ উনার মধ্যে ইরশাদ মুবারক করেন, “হে আমার হাবীব ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম! আপনি জিন-ইনসান উনাদেরকে খালিক্ব মালিক রব মহান আল্লাহ পাক উনার বিশেষ বিশেষ দিন সম্পর্কে স্মরণ করিয়ে দিন।” আর কিতাবে 

পবিত্র লাইলাতুর রাগায়িব শরীফ উনার মহত্ত্ব ও বড়ত


رغائب (রগায়িব) শব্দ মুবারকটি رغيب উনার বহুবচন। যার অর্থ কাঙ্খিত বিষয়, প্রচুর দান। (মিছবাহুল লুগাত-২৯৮) পারিভাষিক বা ব্যবহারিক অর্থে- আখিরী রসূল, সাইয়্যিদুল মুরসালীন, ইমামুল মুরসালীন, নূরে মুজাসসাম, হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম তিনি যে মুবারক রাত্রিতে উনার সম্মানিত আম্মা 

২রা রজবুল হারাম শরীফ সাইয়্যিদুনা হযরত ক্বাসিম আলাইহিস সালাম বিছাল শরীফ গ্রহণ করেন


: এই দিনে সাইয়্যিদুল মুরসালীন, ইমামুল মুরসালীন, নূরে মুজাসসাম, হাবীবুল্লাহ, হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম উনার মহাসম্মানিত প্রথম আওলাদ সাইয়্যিদুনা হযরত ক্বাসিম আলাইহিস সালাম বিছাল শরীফ গ্রহণ করেন পৃথিবীর ইতিহাসে এক মহাস্মরণীয় এক দিন হচ্ছে ২রা রজবুল হারাম। এই দিনে 

বাংলাদেশে কথিত উন্নয়ন কার স্বার্থে হয় ? জনগণের স্বার্থে ?


বাংলাদেশ সরকার যেসব উন্নয়ন করে কিংবা প্রকাশ্যে যেগুলোকে উন্নয়ন হিসেবে দাবী করে, সেগুলো আসলে কার স্বার্থে হয় ? এই প্রশ্নটা কিন্তু একটা গুরুত্বপূর্ণ প্রশ্ন। কারণ উন্নয়ন করতে গেলে কিছু জনগণকে অনেক কষ্ট পোহাতে হয়, জনগণের জমি এ্যাকোয়্যার করতে হয়, দেশের মানুষের