পবিত্র আশূরা শরীফ উনার হাক্বীক্বী ফযীলত জানতে হযরত মুজাদ্দিদে আ’যম আলাইহিস সালাম উনার ছোহবত মুবারকে আসুন


কতই না উত্তম একটা ফযীলতের দিন আমাদের সামনে তাশরীফ আনছেন; যে দিনটির উপমা ওই দিনই। আর তা হচ্ছে- পবিত্র মুহররমুল হারাম শরীফ মাস উনার ১০ তারিখ; যা আশূরা শরীফ নামে খ্যাত। জগদ্বিখ্যাত মুহাদ্দিছ হযরত আব্দুল হক মুহাদ্দিস দেহলভী রহমতুল্লাহি আলাইহি তিনি 

পবিত্র আশূরা মিনাল মুহররম শরীফ উপলক্ষে রোযা রাখার এবং তওবা করার গুরুত্ব ও ফযীলত


পবিত্র রমাদ্বান শরীফ উনার রোযা ফরয হওয়ার পূর্বে পবিত্র আশূরা মিনাল মুহররম শরীফ উনার রোযাই ফরয ছিল। কাজেই পবিত্র রমাদ্বান শরীফ উনার রোযার পরই হচ্ছে এ রোযার স্থান। এ সম্পর্কে পবিত্র হাদীছ শরীফ উনার মধ্যে বর্ণিত রয়েছে- “হযরত আবূ হুরায়রা রদ্বিয়াল্লাহু 

পবিত্র ১০ মুহররমুল হারাম শরীফ অর্থাৎ আশূরা শরীফ দিনটিতে ভালো খাওয়া-পরার ব্যবস্থা গ্রহণ করুন, তাহলে সারা বছর সচ্ছলতা লাভ


মুসলমানগণের জন্য যেসব দিনে ঈদ বা খুশি প্রকাশের জন্য বলা হয়েছে- সেসব দিনে ভালো খাবার খাওয়া, পান করা এবং পোশাক পরিধান করা শরীয়ত অনুমতি দিয়েছে। বিশেষ করে পবিত্র মুহররমুল হারাম শরীফ মাস উনার পবিত্র ১০ তারিখ দিনটি যে দিনটি পবিত্র আশূরা 

সর্বশ্রেষ্ঠ ও মহাসম্মানিত পিতা উনার পবিত্রতম বিছালী শান মুবারক প্রকাশ দিবস পালন করার ফযীলত


আমি আপনি আমরা সকলেই কমবেশি নিজেদের পিতা-মাতা উনাদের ইন্তেকাল দিবস পালন করি। এ উপলক্ষে বিশেষভাবে দান-সদকা ও দোয়া-মাহফিলের আয়োজন করি। কিন্তু আমরা কি কখনো ভেবে দেখেছি যিনি আমাদের ঈমান দান করেছেন, যে উসীলায় আমরা সৃষ্টি হয়েছি সেই নূরে মুজাসসাম হাবীবুল্লাহ হুযূর 

আমীরুল মু’মিনীন, কাতিবে ওহী, জামিউল কুরআন, সাইয়্যিদুনা হযরত যুন নূরাইন আলাইহিস সালাম উনার বেমেছাল ফযীলত


মহাসম্মানিত ও মহাপবিত্র হাদীছ শরীফ উনার মধ্যে ইরশাদ মুবারক হয়েছে, عَن حَضْرَتْ ثُمامة بن حَزْنٍ الْقشيرِي رحمة الله عليه قَالَ شَهِدْتُ الدَّارَ حِينَ أَشْرَفَ عَلَيْهِمْ حَضْرَتْ عُثْمَانُ عَلَيْهِ السَّلَامُ فَقَالَ أنْشدكُمْ بِاللَّه وَالْإِسْلَامَ هَلْ تَعْلَمُونَ أَنَّ رَسُولَ اللَّهِ صَلَّى اللَّهُ عَلَيْهِ 

‘আব্দুল্লাহ আলাইহিস সালাম’ নাম মুবারক উনার খুছূছিয়াত মুবারক এবং সাইয়্যিদুনা হযরত জাদ্দু রসূলিল্লাহ ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম ও জাদ্দাতু


‘আব্দুল্লাহ আলাইহিস সালাম’ সম্মানিত ও পবিত্র ইসম বা নাম মুবারক উনার অর্থ মুবারক হচ্ছেন- ‘মহান আল্লাহ পাক উনার খাছ অনুগত বান্দা, মাহবূব ব্যক্তিত্ব মুবারক, মহান আল্লাহ পাক উনার হাবীব’। সুবহানাল্লাহ! আরবী অভিধান ও নাহু-ছরফের বিশ্বখ্যাত ইমাম মুহম্মদ ইবনে ক্বাসিম ইবনে মুহম্মদ 

আল আতকা, আল মুত্তাক্বী মাহবূবু রসূলিল্লাহ, মাহবুবুল্লাহ হযরত যুন নূরাইন আলাইহিস সালাম উনার পবিত্র দ্বীন ইসলাম গ্রহণ


আমীরুল মু’মিনীন সাইয়্যিদুনা হযরত যুন নূরাইন আলাইহিস সালাম উনার খালা সা’দাহ নাম্মী এক মহিলা তিনি হঠাৎ একদিন উনার বাড়িতে এসে উনাকে লক্ষ্য করে বললেন, হে আমীরুল মু’মিনীন সাইয়্যিদুনা হযরত যুন নূরাইন আলাইহিস সালাম! আপনি জেনে রাখুন, আমাদের মাঝে যে নবী ও 

আল হাফিজ, নায়িবু রসূলিল্লাহ, ছাহিবু ফাদ্বলি, খলীফায়ে ছালিছ, খলীফাতুল মুসলিমীন, আমীরুল মু’মিনীন, হযরত যুন নূরাইন আলাইহিস সালাম উনার সংক্ষিপ্ত


খালিক্ব মালিক রব মহান আল্লাহ পাক উনার এবং নূরে মুজাসসাম, হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম উনাদের আখাচ্ছুল খাছ নৈকট্য-নিসবত প্রাপ্ত ব্যক্তিত্বগণ উনাদের মধ্যে আমীরুল মু’মিনীন, সাইয়্যিদুনা হযরত যুন নূরাইন আলাইহিস সালাম তিনি অন্যতম। নি¤েœ উনার সাওয়ানেহ উমরী মুবারক সংক্ষিপ্তভাবে 

সাইয়্যিদুল ক্বওনাইন, সাইয়্যিদুনা হযরত যাবীহুল্লাহ আবূ রসূলিনা আলাইহিস সালাম উনার খুছুছিয়ত মুবারক


মাখলুকাত মাঝে মহান আল্লাহ পাক কর্তৃক আখাছছুল খাছভাবে মনোনীত ব্যক্তিত্বগণ উনাদের মধ্যে সাইয়্যিদুনা হযরত যাবীহুল্লাহ আলাইহিস সালাম তিনি অন্যতম। তিনি মহান বারী তায়ালা উনার সর্বাধিক প্রিয়পাত্র বলেই নূরে হাবীবী ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম ধারণ করার সৌভাগ্য অর্জন করেছেন। পবিত্র হাদীছ শরীফ 

নূরে মুজাসসাম হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম উনার সম্মানিত পিতা-মাতা আলাইহিমাস সালাম উনারা পবিত্র দ্বীনে হানিফ উনার


সাইয়্যিদুল মুরসালীন, ইমামুল মুরসালীন, খাতামুন নাবিইয়ীন, নূরে মুজাসসাম, হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম উনার আনুষ্ঠানিক নুবুওওয়াত ঘোষণার বহু পূর্বে এবং সাইয়্যিদুনা হযরত ঈসা রূহুল্লাহ আলাইহিস সালাম উনার থেকে প্রায় পাঁচশত বছর পরে উনার সম্মানিতা পিতা-মাতা আলাইহিমাস সালাম উনারা উভয়েই 

জিহাদ থেকেও বেশি ফযীলতপূর্ণ হযরত আহলে বাইত শরীফ আলাইহিমুস সালাম উনাদের খিদমত করা


পবিত্র কুরআন শরীফ উনার মধ্যে খালিক্ব মালিক রব মহান আল্লাহ পাক তিনি ইরশাদ মুবারক করেন, “হে আমার হাবীব হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম! আপনি (উম্মতদেরকে) বলুন, আমি তোমাদের নিকট কোনো প্রতিদান চাই না। আর তোমাদের পক্ষে তা দেয়াও সম্ভব নয়। 

আল হাদী, আলুল্লাহ, আকরামুল উম্মাহ, ছালিছুল ক্বওম, খলীফায়ে ছালিছ, আমীরুল মু’মিনীন হযরত যুন নূরাইন আলাইহিস সালাম উনার সুমহান শান


খালিক্ব মালিক রব মহান আল্লাহ পাক রব্বুল আলামীন তিনি ইরশাদ মুবারক করেন, “ইজ্জত ও সম্মান হচ্ছে কেবলমাত্র মহান আল্লাহ পাক রব্বুল আলামীন উনার জন্য এবং উনার রসূল, নূরে মুজাসসাম, হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম উনার জন্য আর যারা ঈমানদার