মহাসম্মানিত ও মহাপবিত্র কুরআন শরীফ এবং মহাসম্মানিত ও মহাপবিত্র হাদীছ শরীফ উনাদের আলোকে মহাসম্মানিত ও মহাপবিত্র ‘ফালইয়াফরহূ শরীফ’ সাইয়্যিদুল


যিনি খালিক্ব মালিক রব মহান আল্লাহ পাক তিনি ইরশাদ মুবারক করেন- قُلْ بِفَضْلِ اللهِ وَبِرَحْـمَتِهٖ فَبِذٰلِكَ فَلْيَفْرَحُوْا هُوَ خَيْرٌ مِّـمَّا يَـجْمَعُوْنَ. অর্থ: “আমার মাহবূব হাবীব, নূরে মুজাসসাম হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম! আপনি সমস্ত জিন-ইনসান, তামাম কায়িনাতবাসী সবাইকে জানিয়ে 

খালিক্ব মালিক রব মহান আল্লাহ পাক তিনি স্বয়ং নিজেই সর্বপ্রথম ঈদে মীলাদে হাবীবুল্লাহ ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম উপলক্ষে ঈদ


সাইয়্যিদুল মুরসালীন, ইমামুল মুরসালীন, খাতামুন নাবিইয়ীন হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম উনার মুহব্বত, ছানা-ছিফত, প্রশংসা তথা মীলাদুন নবী ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম উপলক্ষে ঈদ সর্বপ্রথম পালন করেছেন মহান আল্লাহ রব্বুল আলামীন তিনি স্বয়ং নিজে। এ সম্পর্কে হাদীছে কুদসী শরীফ-এ উল্লেখ 

পবিত্র সাইয়্যিদুল আ’ইয়াদ শরীফ অস্বীকার করলে কঠিন শাস্তি ভোগ করতে হবে


পবিত্র কালামুল্লাহ শরীফ উনার মধ্যে ইরশাদ মুবারক হয়েছে, হযরত ঈসা রূহুল্লাহ আলাইহিস সালাম তিনি দোয়া করেছিলেন, “আয় আল্লাহ পাক! আয় আমাদের রব! আমাদের জন্য আপনি আসমান হতে (বেহেশতী খাদ্যের) খাদ্যসহ একটি খাঞ্চা নাযিল করুন। খাঞ্চা নাযিলের উপলক্ষটি অর্থাৎ খাদ্যসহ খাঞ্চাটি যেদিন 

মুসলমানরা তাদের দ্বীনকে টিকিয়ে রাখার জন্য কতটুকু মাল ও সময় ব্যয় করে?


বিধর্মীদের পূজার সময় সমস্ত সরকারি হাই স্কুল ও কলেজগুলো থেকে সমস্ত ছাত্র-ছাত্রীদের জোরপূর্বক পূজায় শরীক করানো হয়। নাউযুবিল্লাহ! ৯৮% মুসলমান অধ্যুষিত দেশ বাংলাদেশ, এই দেশ একটি স্বাধীন দেশ, ৩০ লাখ শহীদের তাজা রক্তে গোসল করেছে এদেশ, মুফতে স্বাধীনতা পাওয়া যায়নি। অনেক 

হযরত খুলাফায়ে রাশিদীন আলাইহিমুস সালাম উনারা উনাদের খিলাফতকালে নাবিইয়ুর রহমাহ, নাজিইয়ুল্লাহ, নূরুম মুজাসসাম হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া


যেমন এ প্রসঙ্গে বিশ্ব সমাদৃত ও সুপ্রসিদ্ধ ‘আন নি’মাতুল কুবরা আলাল আলাম’ কিতাবে বর্ণিত রয়েছে- আফদ্বালুন নাস বা’দাল আম্বিয়া, খলীফাতু রসূলিল্লাহ হযরত আবূ বকর ছিদ্দীক্ব আলাইহিস সালাম তিনি বলেন- من انفق درهما على قرائة مولد النبى صلى الله عليه وسلم كان 

সাইয়্যিদুনা হযরত ইমামুর রবি’ মিন আহলি বাইতি রসূলিল্লাহি ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম তিনি কারবালার হৃদয় বিদারক ঘটনার পর আর


কারবালার ঘটনার পর সাইয়্যিদুনা হযরত ইমামুর রবি’ মিন আহলি বাইতি রসূলিল্লাহি ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম তিনি যখনই পানি দেখতেন, তখনই কারবালায় আহলু বাইতি রসূলিল্লাহি ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম উনাদের পিপাসার কথা মনে পড়তো ও তিনি এতে অত্যন্ত ব্যথিত হতেন। তিনি কোনো 

যারা বলে- মুসলমানদের নির্দিষ্ট কোন পোশাক নেই, তারা জাহিল ও মূর্খ


সেই ছোটবেলা থেকেই প্রায়ই আমি আমার দাদাকে বলতাম- দাদা, অমুসলিমরা এভাবে লুঙ্গি (ধুতি) পরে কেন? তাদের লজ্জা লাগে না? দাদা বেশি কিছু না বলে সংক্ষেপে বলতেন- বিধর্মী হলে এভাবেই কাপড় পরতে হয়। এতটুকু উত্তরেই তখন ক্ষান্ত হতাম। কিন্তু এখন যদি দাদা 

পবিত্র সাইয়্যিদুল আ’ইয়াদ শরীফ উনার সম্মানার্থে খরচ করার প্রতিযোগিতায় বিশেষ আকীকা মুবারক


অভূতপূর্ণ ইতিহাসে নজীরবিহীন কিংবদন্তী তাজদীদ মুবারক: তাজদীদে সাইয়্যিদে মুজাদ্দিদে আ’যম আলাইহিস সালাম! সুবহানাল্লাহ! মহাসম্মানিত সাইয়্যিদু সাইয়্যিদিল আ’দাদ তথা মহাপবিত্র সাইয়্যিদুল আ’ইয়াদ শরীফ উপলক্ষ্যে কে কত খরচ করেছেন এবং বর্তমানে কে কত খরচ করছেন তার একটি পরিসংখ্যান করা ও সেই পরিসংখ্যান মুতাবিক 

আজ সুমহান ও বরকতময় ২৫শে মুহররমুল হারাম শরীফ -মহাসম্মানিত দিবস উপলক্ষে সকলের জন্য দায়িত্ব ও কর্তব্য হচ্ছে- উনাদের পবিত্র


নূরে মুজাসসাম হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম তিনি ইরশাদ মুবারক করেন, ‘আমার পবিত্র হযরত আহলু বাইত শরীফ আলাইহিমুস সালাম উনাদেরকে মুহব্বত করো আমার সন্তুষ্টি মুবারক লাভ করার জন্য।’ সুবহানাল্লাহ! আজ সুমহান ও বরকতময় ২৫শে মুহররমুল হারাম শরীফ। সুবহানাল্লাহ! নূরে 

ইসলাম পালন করতে মুসলমান লজ্জা পায়; অথচ বিধর্মীগুলো নেংটি পরতেও লজ্জা পায় না


একটা বিধর্মী তার কথিত ধর্মে অসামাজিক ও অশোভনীয় বিষয় থাকার পরও সেগুলো ঠিকই গর্ব করে পালন করে। নাউযুবিল্লাহ! যেমন- মুশরিকরা ধুতি পরে, যেটা কিনা এক প্রকার নেংটি, অর্ধউলঙ্গ একটি পোশাক। এরপরও এটা পরেই তারা দেশ-বিদেশ ঘুরে বেড়ায়। বিজাতী-বিধর্মীদের কথিত ধর্মে নানারকম 

টাইম বোমার মতোই সুপ্ত বিপদ- আমাদের প্রতিবেশী বন্ধুবেশী বিধর্মী সম্প্রদায়


অন্যান্য দিনের মতোই ভারতের বোম্বের এক সকাল। এক বিধর্মী নাপিত তার দোকানের ঝাঁপ খুলে চুল কাটার জিনিসপত্র ঠিকঠাক করছে। এর মধ্যেই দোকানে এসে হাজির হলো এলাকার এক মুসলিম যুবক। পরিচিত সেই মুসলিম যুবকের সাথে বিধর্মী নাপিতটি খুব খোশগল্প ও হাসিঠাট্টা করতে 

আমাদের সকলের উচৎ জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের ফেসবুক পেইজ এর বিরুদ্ধে কঠোর প্রতিবাদ করা।


জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের ফেসবুক পেইজ থেকে নূরে মুজাসসাম হাবীবুল্লাহ হূযুর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম উনার শান মুবারকে কার্টুন তৈরি করা হয়েছে সকলকে এর তীব্র প্রতিবাদ করতে হবে এবং এর সংশ্লিষ্ট সকলের ফাঁসিতে ঝুলানোর জন্য দাবি জানাতে হবে। আমাদের সকলের উচৎ জাতীয়