সর্বশ্রেষ্ঠ নিদর্শন মুবারক


কুল মাখলূক্বাতের যিনি খলিক্ব মালিক রব মহান আল্লাহ পাক সুবহানাহূ ওয়া তায়ালা তিনি উনার শিআর বা নিদর্শনসমূহকে তা’যীম-তাকরীম বা সম্মান করার জন্য আদেশ মুবারক করেছেন। আর বলার অপেক্ষা রাখে না, নূরে মুজাসসাম হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম উনার এবং 

মধ্যপন্থী উম্মত


অধিক কঠোর অথবা অতি সহজ কোনো বিষয় যেহেতু ভারসাম্যরহিত তাই এ ধরনের কোনো বিষয় বিশ্বময় গ্রহণযোগ্যতা পেতে পারে না। মধ্যমপন্থাই হচ্ছে উত্তম পন্থা, যা মানুষকে কাছে টানতে পারে অতিসহজে। মুসলিম উম্মত অতি মাত্রায় কঠোরতা অথবা অতি মাত্রায় ঢিলেমী থেকে বিমুক্ত উম্মত। 

কোনো মুসলমান কখনোই তেরেসার মতো মহিলাদের ‘মাদার’ বা ‘মা’ বলতে পারে না


মহান আল্লাহ পাক তিনি পবিত্র কালামুল্লাহ শরীফ উনার মাঝে স্পষ্টভাবেই বলে দিয়েছেন কারা মুসলিম উম্মাহ তথা সকল মুসলমানদের মাতা অর্থাৎ উম্মুল মু’মিনীন। নূরে মুজাসসাম হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম উনার সম্মানিত জাওযা উনারাই হলেন উম্মুল মু’মিনীন। উনাদের মুবারক ফযীলত 

বাংলাদেশসহ বিশ্বের সকল দেশের উচিত মহাপবিত্র মি’রাজ শরীফ উপলক্ষে বাধ্যতামূলক ছুটি ঘোষণা করা


হযরত নবী আলাইহিমুস সালাম উনাদের নবী, হযরত রসূল আলাইহিমুস সালাম উনাদের রসূল, নরে মুজাসসাম, হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম উনার সীমাহীন বেমেছাল সুমহান শানসমূহ উনাদের মধ্যে একটি অন্যতম বিশেষ শান বা মর্যাদা-মর্তবা মুবারক হচ্ছেন পবিত্র মি’রাজ শরীফ। যা বিশ্বাস 

১লা বৈশাখে বিধর্মীরা যে সকল পূজা-পার্বণ পালন করে


পহেলা বৈশাখে রয়েছে- ১) হিন্দুদের ঘটপূজা ২) হিন্দুদের গণেশ পূজা ৩) হিন্দুদের সিদ্ধেশ্বরী পূজা ৪) হিন্দুদের ঘোড়ামেলা ৫) হিন্দুদের চৈত্রসংক্রান্তি পূজা-অর্চনা ৬) হিন্দুদের চড়ক বা নীল পূজা বা শিবের উপাসনা ও সংশ্লিষ্ট মেলা ৭) হিন্দুদের গম্ভীরা পূজা ৮) হিন্দুদের কুমীরের পূজা 

পবিত্র যাকাত আদায়ের বিষয়ে চু-চেরা করা ঈমানদারের লক্ষণ নয়


পবিত্র হাদীছ শরীফ উনার মাঝে একটি ঘটনা বর্ণিত আছে। ঘটনাটি পর্দার হুকুম নাযিল হওয়ার পূর্বের ঘটনা। যখন মহিলা ছাহাবায়ে কিরাম রদ্বিয়াল্লাহু তায়ালা আনহুম উনারা নূরে মুজাসসাম হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম উনার নছীহত মুবারক শুনতে সরাসরি আসতেন। সেই সময় 

পবিত্র লাইলাতুল মি’রাজ শরীফ উনার সুমহান সম্মানার্থে মুসলমানদের জন্য করণীয়


আরবী মাস উনার মধ্যে অন্যতম সম্মানিত মাস হলো পবিত্র মাহে রজবুল হারাম বা রজব মাস। এই পবিত্র রজবুল হারাম মাস উনার ২৭ তারিখ রাত্রে সংঘটিত হয় পবিত্র মি’রাজ শরীফ। এই সম্মনিত লাইলাতুল মি’রাজ শরীফ হলো যিনি মহান আল্লাহ পাক উনার রসূল, 

পহেলা বৈশাখ: দৃঢ়তার সাথে বর্জন করতে হবে


মুসলমানদের সাথে কাফির-মুশরিক সবদিক থেকে পরস্পর বিপরীতমুখী। মুসলমানদের জন্য সম্মানিত দ্বীন ইসলাম, শরীয়ত এবং সুন্নাহ শরীফ সমস্ত কিছুই যিনি খালিক্ব মালিক রব মহান আল্লাহ পাক উনার এবং উনার হাবীব নূরে মুজাস্সাম, হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম উনাদের মনোনীত এবং 

মুসলমানদের হৃদয় জয় করলো নিউজিল্যান্ডের প্রধানমন্ত্রী!


চট্টগ্রামে অনেক ছোট ছোট পাহাড় বা টিলা আছে, সেই পাহাড় আরোহণ করা কিন্তু কঠিন কোন বিষয় নয়। যে কেউ যে কোন উপায়ে সেই পাহাড় জয় করতে পারে। মাঝে মাঝে খবর আসে, ঐ পাহাড়গুলো কেটে নিয়ে যাচ্ছে মাটি ব্যবসায়ীরা। অপরদিকে হিমালয় পাহাড়ের 

জেসিন্ডার ইসলাম গ্রহণ বনাম মুসলমানদের ‘ভিগিল’ গ্রহণ


ক্রাইস্টচার্জে মসজিদে হামলার পর কিছু অনুষ্ঠান পালন করতে দেখা গেছে: ১) মৃতদের উদ্দেশ্যে মোমবাতি প্রজ্জলন ২) নিরবতা পালন ৩) মৃতকে ফুল দিয়ে শ্রদ্ধা জানানো মৃতদের উদ্দেশ্যে এ ধরনের ইভেন্টকে বলে ‘ভিগিল’, এটা এক ধরনের প্যাগান বা মূর্তি পূজকদের কালচার, যা ইতিমধ্যে 

কেন এবং কি উদ্দেশ্যে সরকারী উদ্যোগে ‘কুসংষ্কার রীতি’ আমদানি করা হলো ?


২৫শে মার্চ উপলক্ষে একটি বিষয় নিশ্চয়ই আপনাদের সবার নজরে এসেছে। বিষয়টি হলো সরকারি পুলিশ ও প্রশাসনের মাধ্যমে দেশজুড়ে ২৫ মার্চ উপলক্ষে মোমবাতি প্রজ্জলন করা। খবরগুলো: ১) “লক্ষাধিক মোমবাতি প্রজ্বলন করে শহীদদের স্মরণ করলেন বগুড়াবাসী” পুলিশ সুপার আলী আশরাফ ভূঞা জানান, ১ 

জালিমদের খেলাধূলা দেখে মুসলমান কি করে ফূর্তি করে?


যে সময়ে মুসলমানরা খেলা দেখে উল্লাস করছে সে সময়ে – ফিলিস্তিনে হানাদার ইসরাইলী কাফিররা মুসলমানদেরকে শহীদ করছে, মিয়ানমারে মুসলমান শহীদ করছে, চীনে মুসলমানদের পর্দা করতে, দাড়ী রাখতে, রোযা রাখতে বাধা দিচ্ছে, শ্রীলঙ্কায় মুসলমানের উপর হামলা করছে, ইংল্যান্ডে পর্দা করার কারণে মুসলিম