Posts Tagged ‘আমল’

পবিত্র মুহররম শরীফ মাসের বিশেষ আমল মুবারকসমূহ


পবিত্র মুহররম শরীফ মাসের উল্লেখযোগ্য ও শ্রেষ্ঠতম দিন হচ্ছে ১০ই মুহররম শরীফ ‘আশূরা’র দিনটি। এ দিনটি বিশ্বব্যাপী এক আলোচিত দিন। সৃষ্টির সূচনা হয় এ দিনে এবং সৃষ্টির সমাপ্তিও ঘটবে এ দিনে। বিশেষ বিশেষ সৃষ্টি এ দিনেই করা হয় এবং বিশেষ বিশেষ

শবে বরাত শরীফ উনার আ’মল


শবে বরাত হচ্ছে মুক্তি বা ভাগ্য অথবা নাজাতের রাত। অর্থাৎ বরাতের রাত্রিতে ইবাদত-বন্দেগী করে ও পরবর্তী দিনে রোযা রেখে আল্লাহ পাক ও উনার হাবীব হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম-উনাদের সন্তুষ্টি অর্জন করাই মূল উদ্দেশ্য। শবে বরাতে কোন্ কোন্ ইবাদত-বন্দেগী করতে

একখানা মহাসম্মানিত সুন্নাত মুবারক উনার উপর আমল করলে, মহান আল্লাহ পাক উনার পক্ষ থেকে ৪টি বিশেষ নিয়ামত মুবারক হাদিয়া


সাইয়্যিদুল মুরসালীন, ইমামুল মুরসালীন, খ¦তামুন নাবিয়্যীন, নূরে মুজাসসাম, হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম তিনি মহাসম্মানিত ও মহাপবিত্র হাদীছ শরীফ উনার মধ্যে ইরশাদ মুবারক করেন, مَنْ حَفِظَ سُنَّتِـىْ اَكْرَمَهُ اللهُ تَعَالـٰى بِاَرْبَعِ خِصَالٍ اَلْـمَحَبَّةُ فِـىْ قُلُوْبِ الْبَرَرَةِ وَالْـهَيْبَةُ فِـىْ قُلُوْبِ

ইতিহাস থেকে প্রমাণ- যে আমল মুবারক কখনো কোনভাবেই নষ্ট হয়নি এবং হয়না 


মুঘল শাসক আকবরের নাম শুনেনি এমন লোক খুঁজে পাওয়া দুষ্কর। তার সময়কার এক ক্ষমতাধর দুনিয়াদার গুমরাহ বাদশাহ। মূলত, মুঘল বাদশাহদের দাপট তৎকালীন দুনিয়ায় এতই প্রবল ছিল যে অন্যান্য রাজা-বাদশাহরা সবসময় ভয়ে তটস্থ থাকতো- কখন না জানি মুঘলদের রোষানলে পড়ে ক্ষমতাহীন হতে

যাকাত…১


পবিত্র সূরা মায়িদা শরীফ উনার মধ্যে ইরশাদ মুবারক হয়েছে, وَتَعَاوَنُواْ عَلَى الْبرِّ وَالتَّقْوَى وَلَا تَعَاوَنُواْ عَلَى الإِثْـمِ وَالْعُدْوَانِ وَاتَّقُواْ اللهَ اِنَّ اللهَ شَدِيْدُ الْعِقَابِ তোমরা নেকী ও পরহেযগারীর মধ্যে সহযোগিতা করো; পাপ ও নাফরমানীর মধ্যে সহযোগিতা করো না। এ ব্যাপারে মহান

পবিত্র আশূরা শরীফ হচ্ছেন- আক্বীদা বিশুদ্ধ করার ও আমলে ছলেহ বা নেক আমল করার বরকতময় রাত ও দিন। উনার উসীলায় বান্দা-বান্দী ও উম্মত ইহকালে সর্বপ্রকার মুছীবত থেকে নাজাত লাভ করবে এবং পরকালে জাহান্নাম থেকে নাজাত লাভ করে সম্মানিত জান্নাত লাভ করবে।


মহান আল্লাহ পাক তিনি ইরশাদ মুবারক করেন, ‘পবিত্র আছর উনার কসম! নিশ্চয়ই সমস্ত মানুষ ক্ষতিগ্রস্তের মধ্যে রয়েছে। শুধুমাত্র তারা ব্যতীত যারা পবিত্র ঈমান এনেছে তথা আক্বীদা উনাকে বিশুদ্ধ করেছে এবং নেক আমল করেছে।’ আজ দিবাগত রাতটিই হচ্ছেন পবিত্র আশূরা শরীফ উনার

পবিত্র মুহররমুল হারাম তথা পবিত্র আশূরা শরীফ উনার শ্রেষ্ঠতম আমল হচ্ছে হযরত আহলু বাইত আলাইহিমুস সালাম উনাদের সম্পর্কে আলোচনা করা


পবিত্র মুহররমুল হারাম তথা পবিত্র আশূরা শরীফ উনার শ্রেষ্ঠতম আমল হচ্ছে- হযরত আহলু বাইত আলাইহিমুস সালাম বিশেষ করে সাইয়্যিদু শাবাবি আহলিল জান্নাহ, ইমামুছ ছালিছ সাইয়্যিদুনা হযরত ইমাম হুসাইন আলাইহিস সালাম উনার পূত-পবিত্রতম জীবন মুবারক উনার বিভিন্ন দিক নিয়ে বিস্তারিত আলোচনা-পর্যালোচনা করা।

পবিত্র আশূরা মিনাল মুহররম শরীফ উনার বিশেষ কিছু আমল ও ফযীলত


পবিত্র মুহররমুল হারাম শরীফ মাস উনার উল্লেখযোগ্য ও শ্রেষ্ঠতম দিন হচ্ছে ১০ই মুহররমুল হারাম শরীফ পবিত্র আশূরা শরীফ উনার দিন। এই মুবারক দিনটি বিশ্বব্যাপী এক আলোচিত দিন। কেননা সৃষ্টির সূচনা হয় এ দিনে এবং সৃষ্টির সমাপ্তিও ঘটবে এই দিনে। বিশেষ বিশেষ

মুবারক খিলাফত এবং প্রাসঙ্গিক পর্যালোচনা


আহলে সুন্নাহ ওয়াল জামায়াতের সকলের ঐকমত্যে- আমীরুল মু’মিনীন খলীফাতুল মুসলিমীন সাইয়্যিদুনা হযরত কাররামাল্লাহু ওয়াজহাহূ আলাইহিস সালাম তিনি পবিত্র দ্বীন ইসলাম এবং সম্মানিত হযরত খুলাফায়ে রাশেদীন আলাইহিমুস সালাম উনাদের মধ্যে চতুর্থতম সম্মানিত খলীফা। পবিত্র দ্বীন ইসলাম উনার ইতিহাসে উনার মুবারক খিলাফতকাল অত্যন্ত

বর্তমান কঠিন পরিস্থিতি থেকে মুসলমানদের পরিত্রাণের একমাত্র উপায়- পবিত্র সূরা ফাতিহা শরীফ থেকে শিক্ষা গ্রহণ করা


পবিত্র কালামুল্লাহ শরীফ উনার প্রথম সূরা মুবারক উনার নাম হচ্ছেন পবিত্র সূরা ফাতিহা শরীফ। এই পবিত্র সূরা উনাকে বলা হয় ‘উম্মুল কুরআন’। নাযিল হওয়ার ধারাবাহিকতায় এ পবিত্র সূরা শরীফ পঞ্চম হলেও পবিত্র কালামুল্লাহ শরীফ উনার প্রথমে অবস্থান হয় এই পবিত্র সূরা’

আপনি কি অভাব ও রোগবালাই হতে মুক্তি পেতে চান


  আরবী বছরের সর্বপ্রথম হারাম মাস হলো মুহররমুল হারাম শরীফ। আর এ মাসেরই দশমতম দিনটি হচ্ছে একটি মহাসম্মানিত ও ফযীলতপূর্ণ দিন। কেননা সেদিন হচ্ছে পবিত্র আশূরা শরীফ উনার দিন। এদিনে যে ব্যক্তি তার পরিবারবর্গকে ভালো খাদ্য খাওয়াবে মহান আল্লাহ পাক তিনি

চাঁদ না দেখে যিলহজ্জ মাস শুরু করলে হাজী সাহেবদের হজ্জ ও তার সংশ্লিষ্ট কোনো আমলই শুদ্ধ হবে না


সউদী আরবে পবিত্র যিলহজ্জ মাস সঠিক তারিখে চাঁদ দেখে শুরু না করলে পবিত্র আরাফা উনার ময়দানে উপস্থিত থাকার ফরয, মুজদালিফায় থাকার ওয়াজিব, কঙ্কর নিক্ষেপ করার ওয়াজিব, কুরবানী করার ওয়াজিব, চুল কাটার ওয়াজিব, তাওয়াফে যিয়ারত ও ইহরাম খোলার ফরযসহ সকল আমলসমূহ হাজী