Posts Tagged ‘আশূরা’

পবিত্র আশূরা মিনাল মুহররম শরীফ উনার বিশেষ কিছু আমল ও ফযীলত


পবিত্র মুহররমুল হারাম শরীফ মাস উনার উল্লেখযোগ্য ও শ্রেষ্ঠতম দিন হচ্ছে ১০ই মুহররমুল হারাম শরীফ পবিত্র আশূরা শরীফ উনার দিন। এই মুবারক দিনটি বিশ্বব্যাপী এক আলোচিত দিন। কেননা সৃষ্টির সূচনা হয় এ দিনে এবং সৃষ্টির সমাপ্তিও ঘটবে এই দিনে। বিশেষ বিশেষ

পবিত্র আশূরা শরীফ মুসলমানদেরকে প্রতিক্ষেত্রে ইহুদী-নাছারা তথা তামাম কাফির গং-এর অনুসরণ থেকে ফিরে থাকার আহবান জানায়


নূরে মুজাসসাম হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম তিনি হযরত ছাহাবায়ে কিরাম রদ্বিয়াল্লাহু তায়ালা আনহুম উনাদেরকে পবিত্র আশূরা শরীফ-এ রোযা রাখার আদেশ মুবারক করলেন। কিন্তু এক্ষেত্রে ইহুদীদের খিলাফ করতে বললেন। ইহুদী-নাছারারা পবিত্র আশূরা শরীফ দিন রোযা রাখে এজন্য এ রোযা

আগামী ১৪ খমীস ১৩৮৪ শামসী, ১২ অক্টোবর ২০১৬ ঈসায়ী, ইয়াওমুল আরবিয়া বা বুধবার ‘পবিত্র আশূরা শরীফ’।


নূরে মুজাসসাম হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম তিনি ইরশাদ মুবারক করেন, ‘তোমরা সম্মানিত মুহররমুল হারাম শরীফ মাস উনাকে এবং উনার মধ্যস্থিত বরকতময় পবিত্র আশূরা শরীফ উনাকে সম্মান করো।’ আগামী ১৪ খমীস ১৩৮৪ শামসী, ১২ অক্টোবর ২০১৬ ঈসায়ী, ইয়াওমুল আরবিয়া

পবিত্র আশূরা মিনাল মুহররম শরীফ আক্বীদা শুদ্ধ করার, ঈমান হিফাযত করার সর্বোপরি ইস্তিকামত থাকার শিক্ষা গ্রহণ করার দিন


পবিত্র আশূরা মিনাল মুহররম শরীফ এমন এক বিশেষ দিন, যে দিন অনেক হযরত নবী-রসূল আলাইহিমুস সালাম উনাদের বিশেষ বিশেষ ঘটনা সংঘটিত হয়েছে। যেমন, হযরত আদম আলাইহিমুস সালাম তিনি যমীনে তাশরীফ, হযরত মূসা আলাইহিস সালাম উনার লোহিত সাগর পার, হযরত ইউনূছ আলাইহিস

পবিত্র মুহররমুল হারাম শরীফ মাস উনার বরকতপূর্ণ আমল সম্পর্কে মুসলমানরা আজ পুরোই বেখবর


  বর্তমানে আমরা দেখতে পাই আমাদের দেশে বাঙালি সংস্কৃতির নামে বিভিন্ন অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়ে থাকে। যেমন: পহেলা বৈশাখ, বসন্ত উৎসব, নবান্ন উৎসবসহ আরো কতো উৎসব। যার কোনোটাই মুসলমানগণ উনাদের সংস্কৃতির অন্তর্ভুক্ত নয় এবং এসব অনুষ্ঠান পবিত্র কুরআন শরীফ ও পবিত্র

গণতন্ত্রের কুফলের কারণেই পবিত্র আশূরা শরীফ উনার ফযীলত সম্পর্কে কোনো রাষ্ট্রীয় প্রচারণা, পৃষ্ঠপোষকতা নেই


অবৈধ সন্তান আব্রাহাম লিঙ্কন প্রবর্তিত গণতন্ত্র শান্তির ধর্ম পবিত্র ইসলাম উনার সাথে সাংঘর্ষিক হওয়ার কারণেই হারাম গণতন্ত্রের বিষক্রিয়ায় আক্রান্ত গণতান্ত্রিক দেশের মুসলমানগণ। বাংলাদেশে রাষ্ট্রধর্ম ইসলাম হলেও আদতে এদেশের মুসলমানগণ ধর্মের কোনো আবহ খুঁজে পায় না। এমনকি সরকারি প্রচারণায় বা রাষ্ট্রীয় উদ্যোগে

যারা বলে পবিত্র আশূরা শরীফ-এর দিন ভালো খাবার খাওয়া সম্পর্কে কোন বিশুদ্ধ হাদীছ নাই তারা সুস্পষ্ট হাদীছ শরীফ অস্বীকারকারী আর হাদীছ শরীফ অস্বীকারকারী কাফির


আজকে সকালে আমার দেশ পত্রিকাটি পড়তে ছিলাম হঠাৎ পবিত্র আশূরা মিনাল মুহররমুল হারাম শরীফ সম্পর্কে ধর্ম ও জীবন নামক পৃষ্ঠায় “আশূরার দিন যা করব, যা করব না”  শিরোনামে একটি লেখা দেখলাম । পড়তে পড়তে এক জায়গায় দেখলাম লেখা রয়েছে যে -“ আশুরার

যে ব্যক্তি পবিত্র আশূরা শরীফ উনার বরকতময় দিন তার পরিবার পরিজনের জন্য ভালো খাদ্যের ব্যবস্থা করবে মহান আল্লাহ পাক তিনি তাকে এক বৎসরের জন্য সচ্ছলতা দান করবেন।


মহান আল্লাহ পাক তিনি ইরশাদ মুবারক করেন, ‘তোমরা খাও, পান করো, তবে অপচয় করো না।’ পহেলা মুহররম শরীফ, পহেলা বৈশাখ, পহেলা জানুয়ারিতে ভালো বা বিশেষ খাবারের ব্যবস্থা করা ও খাওয়ানোর মধ্যে আলাদা কোনো ফযীলত বা বরকত নেই। অথচ যে ব্যক্তি পবিত্র

পবিত্র আশূরা শরীফ উনার পবিত্র ফাযায়েল ফযিলত ও আমল সম্পর্কে


নূরে মুজাসসাম, হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম তিনি ইরশাদ করেন, তোমরা (হাদীছ শরীফ-এ বর্ণিত আশূরার আমলগুলো করে) আশূরা মিনাল মুহররমকে সম্মান করো। প্রত্যেক বান্দা-বান্দি ও উম্মতের জন্য দায়িত্ব-কর্তব্য হচ্ছে-আশূরা উপলক্ষে দুটি রোযা রাখা, রোযাদারকে ইফতারি করানো, আশূরার দিন আশূরার

পবিত্র মুহররম মাসের চাঁদ দেখা গেছে ॥ ৬ ডিসেম্বর মঙ্গলবার পবিত্র আশূরা শরীফ


যামানার ইমাম ও মুজতাহিদ, কুতুবুল আলম, কাইয়্যুমুয যামান, মুজাদ্দিদে আ’যম, গাউছুল আ’যম, খলীফাতুল্লাহ, খলীফাতু রসূলিল্লাহ, আওলাদে রসূল, সাইয়্যিদুনা ইমাম রাজারবাগ শরীফ-এর মামদূহ হযরত মুর্শিদ ক্বিবলা আলাইহিস সালাম উনার মুবারক পৃষ্ঠপোষকতায় ও দিক-নির্দেশনায় পরিচালিত “আনজুুমানে আল বাইয়্যিনাত রু’ইয়াতে হিলাল” মজলিস-এর সংবাদ অনুযায়ী