Posts Tagged ‘আহমদ’

প্রত্যেক মুসলমানের নামের আগে বা পরে ‘মুহম্মদ’ কিংবা ‘আহমদ‘ থাকা আবশ্যক


প্রত্যেক মুসলমানের নামের আগে বা পরে ‘মুহম্মদ’ কিংবা ‘আহমদ’ থাকাআবশ্যক। শুধু তাই নয় বরং প্রত্যেক মুসলমানের নাম ‘মুহম্মদ’ ও আহমদ’ই হওয়া দরকার। কারণ মুহম্মদ ও আহমদ নাম মুবারক দুটি মানুষের জন্য নাযাতের জারিয়া হবে।  যাদের নাম ‘মুহম্মদ’ ও ‘আহমদ’ হবে আল্লাহ

“মুহম্মদ” ও “আহমদ” নাম মুবারক লিখা প্রসঙ্গে


পবিত্র হাদীছ শরীফ উনার মধ্যে বর্ণিত রয়েছে, দুনিয়াতে কেউ যদি ‘মুহম্মদ’ ও ‘আহমদ’ নাম রাখে তা হলে ওই ব্যক্তিকে জাহান্নামের আগুন পোড়াবে না। অর্থাৎ সে জান্নাতী হবে। সুবহানাল্লাহ! হযরত আবু উমামা আল বাহিলী রদ্বিয়াল্লাহু তায়ালা আনহু উনার থেকে বর্ণিত। আখিরী রসূল,

নাজাত লাভের অন্যতম বিশেষ মাধ্যম


পবিত্র হাদীছ শরীফ উনার মধ্যে ইরশাদ মুবারক হয়েছে, “দুনিয়াতে কেউ যদি ‘মুহম্মদ’ ও ‘আহমদ’ নাম মুবারক রাখে তাহলে ওই ব্যক্তি জাহান্নামের আগুনে পুড়বে না অর্থাৎ সে জান্নাতী হবে। সুবহানাল্লাহ! আর পবিত্র হাদীছ শরীফ উনার মধ্যে আরো ইরশাদ মুবারক হয়েছে, হযরত জাফর

বাঙালি রক্তে সিক্ত বালাকোটের ময়দান, ভুলে গিয়েছে এদেশের মুসলমান; ফলে তাদের সঙ্গী হয়েছে লাঞ্ছনা, গঞ্জনা ও অপমান।


হযরত সাইয়্যিদ আহমদ শহীদ বেরেলভী রহমাতুল্লাহি আলাইহি উনার জিহাদই ছিল ভারতবর্ষে যালিম ব্রিটিশ ঔপনিবেশিক শক্তির বিরুদ্ধে সর্বপ্রথম জিহাদ। সেই জিহাদ উনার একজন প্রধান ব্যক্তিত্ব ছিলেন শাহ ছূফী হযরত নূর মুহম্মদ নিজামপুরী রহমতুল্লাহি আলাইহি। তিনি ছিলেন হযরত সাইয়্যিদ আহমদ শহীদ বেরেলভী রহমাতুল্লাহি

নাজাত লাভের অন্যতম বিশেষ মাধ্যম


পবিত্র হাদীছ শরীফ উনার মধ্যে ইরশাদ মুবারক হয়েছে, “দুনিয়াতে কেউ যদি ‘মুহম্মদ’ ও ‘আহমদ’ নাম মুবারক রাখে তাহলে ওই ব্যক্তি জাহান্নামের আগুনে পুড়বে না অর্থাৎ সে জান্নাতী হবে। সুবহানাল্লাহ! আর পবিত্র হাদীছ শরীফ উনার মধ্যে আরো ইরশাদ মুবারক হয়েছে, হযরত জাফর

হযরত ইমাম সাইয়্যিদ আহমদ শহীদ বিরলবী রহমতুল্লাহি আলাইহি উনার পবিত্র বিলাদত শরীফ


পবিত্র আবু দাঊদ শরীফ ও মিশকাত শরীফ উনাদের মধ্যে বর্ণিত আছে- সাইয়্যিদুল মুরসালীন, ইমামুল মুরসালীন, খাতামুন নাবিইয়ীন, নূরে মুজাসসাম, হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম তিনি ইরশাদ মুবারক করেন, “নিশ্চয়ই মহান আল্লাহ তায়ালা তিনি আমার উম্মতের জন্য প্রতি হিজরী শতকের

যারা হনুমান আহমক এর জানাযা পড়বে, তারা কি মুরতাদ হবে না?


হনুমান   অনেক নাস্তিকী বক্তব্য ও লিখনী রেখে গেছে। মুসলমান নামধারী হলেও সে আসলে মুরতাদ হয়েগেছে। তাই তার জানাজা পড়ানো যাবে না। কুকুর শৃগালের মত গর্তে পুঁতে রাখতে হবে। কেউ যদি তার জানাজা পড়ায় ও পড়ে তারা সকলেই মুরতাদ হয়ে যাবে।