Posts Tagged ‘আহলে বাইত’

মহাসম্মানিত হযরত আহলু বাইত শরীফ আলাইহিমুস সালাম উনাদের সম্মানিত পরিচিতি মুবারক


শাব্দিক পরিচিতি মুবারক: আরবী ক্বাওয়ায়িদ বা ব্যাকরণ অনুযায়ীاَهْلُ بَيْتٍ (আহলু বাইত) মুরাক্কাবে ইদ্বাফী হয়েছে। অর্থাৎ اَهْلُ (আহাল) শব্দ মুবারকখানা হচ্ছেন মুদ্বাফ আর بَيْتٍ (বাইত) শব্দ মুবারকখানা হচ্ছেন মুদ্বাফ ইলাইহ। اَهْلُ (আহাল) শব্দ মুবারক উনার অর্থ মুবারক হচ্ছেন অধিবাসী, পরিবার-পরিজন, লোকজন, বাসিন্দা,

পবিত্র ৯ই জুমাদাল ঊলা শরীফ নিয়ামতপূর্ণ, বরকতপূর্ণ, সাকীনাপূর্ণ, মাগফিরাত ও নাজাতপূর্ণ দিন 


হযরত আহলে বাইত শরীফ আলাইহিমুস সালাম উনাদেরকে মুহব্বত মুবারক করা সম্পর্কে মহান আল্লাহ পাক তিনি ইরশাদ মুবারক করেন, “(হে আমার হাবীব ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম!) আপনি বলে দিন, আমি তোমাদের নিকট কোনো বিনিময় চাচ্ছি না। আর চাওয়াটাও স্বাভাবিক নয়; তোমাদের পক্ষে

মহাসম্মানিত আহলে বাইত শরীফ উনাদেরকে মুহব্বত করার প্রতিদানসমূহ 


সাইয়্যিদুল আম্বিয়া ওয়াল মুরসালীন, খাতামুন নাবিইয়ীন, রহমাতুল্লিল আলামীন, নূরে মুজাসসাম, হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম উনার নূরানী, পূত-পবিত্র আহলু বাইত শরীফ অর্থাৎ উনার সম্মানিত আব্বা-আম্মা আলাইহিমাস সালাম, হযরত উম্মাহাতুল মু’মিনীন আলাইহিন্নাস সালাম এবং সম্মানিত আওলাদ আলাইহিমুস সালাম, আলাইহিন্নাস সালাম

মহাসম্মানিত ও মহাপবিত্র হযরত আহলু বাইত শরীফ আলাইহিমুস সালাম উনাদের নিসবত মুবারক লাভের মাঝেই উম্মত হবার সার্থকতা নিহিত 


রাজারবাগ শরীফ উনার সাইয়্যিদুনা আস সাফফাহ মামদূহ হযরত মুর্শিদ ক্বিবলা আলাইহিস সালাম তিনি সম্মানিত ৬৩ দিনব্যাপী মজলিস উনার মাঝে ইরশাদ মুবারক করেছেন, “উম্মতকে রিযিক তালাশ করার জন্য প্রেরণ করা হয়নি, তাদেরকে হযরত আহলে বাইত শরীফ আলাইহিমুস সালাম উনাদের সাথে নিসবত স্থাপনের

আহলে বাইত


সাইয়্যিদুল মুরসালীন, ইমামুল মুরসালীন, খতামুন্নাবিয়্যীন, রহমতুল্লিল আলামীন, নূরে মুজাস্সাম, হুজুর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম আরো বলেন, “তারকারাজী আসমানের নিরাপত্তা দানকারী আর আমার বংশধর বা আওলাদগণ যমীনের নিরাপত্তা দানকারী। সুতরাং যখন আমার আহলে বাইত বা আওলাদগণ (দুনিয়া থেকে) চলে যাবেন তখন

সাইয়্যিদাতু নিসায়ি আহলিল জান্নাহ হযরত যাহরা আলাইহাস সালাম তিনি ছিলেন মিছদাক্বে হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম


পবিত্র হাদীছ শরীফ উনার মধ্যে বর্ণিত রয়েছে, উম্মুল মু’মিনীন হযরত ছিদ্দীক্বা আলাইহাস সালাম তিনি ইরশাদ মুবারক করেন, “নূরে মুজাসসাম, হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম তিনি ছিলেন হুবহু পবিত্র কুরআন শরীফ উনার মিছদাক্ব।” সুবহানাল্লাহ! অনুরূপ সাইয়্যিদাতু নিসায়ি আহলিল জান্নাহ, উম্মু

সাইয়্যিদাতুন নিসা হযরত যাহরা আলাইহাস সালাম উনাকে অসš‘ষ্টকারী ব্যক্তি অবশ্যই ক্ষতিগ্রস্ত


বুখারী শরীফ ও মুসলিম শরীফ উনাদের মধ্যে আছে, “হযরত মিসওয়ার ইবনে মাখরামা রদ্বিয়াল্লাহু তায়ালা আনহু উনার থেকে বর্ণিত। নিশ্চয়ই নূরে মুজাসসাম, হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম তিনি ইরশাদ মুবারক করেন, সাইয়্যিদাতুনা হযরত যাহরা আলাইহাস সালাম তিনি আমার দেহ মুবারক

সাইয়্যিদাতুন নিসা, শাহযাদীয়ে রসূল, উম্মু আবীহা হযরত যাহরা আলাইহাস সালাম উনার বেমেছাল শান


সাইয়্যিদুল মুরসালীন, ইমামুল মুরসালীন, নূরে মুজাসসাম, হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম উনার পবিত্র নুবুওওয়াত শরীফ আনুষ্ঠানিকভাবে প্রকাশের ছয় বছর পর যখন পবিত্র রিসালত শরীফ উনার ই’লান মানুষের কাছে দিয়ে যা”েছন; তখনও কুরাইশবাসী এবং অন্যান্য লোকেরা নূরে মুজাসসাম, হাবীবুল্লাহ হুযূর

হযরত আহলে বাইত শরীফ আলাইহিমুস সালাম উনাদের মুহব্বতকারীদের জন্য সম্মানিত জান্নাত উনার সুসংবাদ।


হযরত আহলে বাইত শরীফ আলাইহিমুস সালাম উনাদের মর্যাদা-মর্তবা সম্পর্কে পবিত্র কালামুল্লাহ শরীফ উনার মধ্যে মহান আল্লাহ পাক তিনি ইরশাদ মুবারক করেন, “হে হাবীব ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম! আপনি বলুন, (হে বিশ্ববাসী!) আমি তোমাদের নিকট কোনো প্রতিদান চাই না। আর তোমাদের পক্ষে

ইবনু রসূলিল্লাহ ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম সাইয়্যিদুনা হযরত আউওয়াল আলাইহিস সালাম তিনি যদি দুনিয়ার যমীনে অবস্থান মুবারক করতেন, তাহলে অবশ্য অবশ্যই নবী ও রসূল হিসেবে প্রকাশিত হতেন তথা নূরে মুজাসসাম হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম উনার পরিপূর্ণ হুবহু ক্বায়িম-মাক্বাম নবী ও রসূল হিসেবে, সাইয়্যিদুল মুরসালীন, ইমামুল মুরসালীন হিসেবে অবস্থান মুবারক করতেন


এই সম্পর্কে সম্মানিত ছহীহ সনদ মুবারক-এ অনেক সম্মানিত হাদীছ শরীফ বর্ণিত হয়েছে। যেমন ইবনু রসূলিল্লাহ ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম সাইয়্যিদুনা হযরত রাবি’ আলাইহিস সালাম উনার শান মুবারক-এ ‘ছহীহ বুখারী শরীফসহ আরো অন্যান্য বিশুদ্ধ হাদীছ শরীফ উনাদের কিতাব মুবারক’ উনাদের মধ্যে ইরশাদ

সুমহান মহাপবিত্র ২রা রজবুল হারাম শরীফ- আবূ রসূলিল্লাহ ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম, যাবীহুল্লাহ, সাইয়্যিদুনা হযরত আব্দুল্লাহ আলাইহিস সালাম উনার মহাপবিত্র বিলাদতী শান মুবারক প্রকাশ দিবস। এবং ইবনু রসূলিল্লাহি আল আউওয়াল সাইয়্যিদুনা হযরত ক্বাসিম আলাইহিস সালাম উনার বরকতময় সুমহান পবিত্র বিছালী শান মুবারক প্রকাশ দিবস।


নূরে মুজাসসাম, হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম উনার সম্মানিত আব্বাজান আলাইহিস সালাম অর্থাৎ আবূ রসূলিল্লাহ ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম, যাবীহুল্লাহ, খইরুল বাশার, সাইয়্যিদুল আরব, আবুল বাশার, ছাহিবুল জান্নাহ, ছাহিবু নূরে মুজাসসাম, সাইয়্যিদুনা হযরত আব্দুল্লাহ আলাইহিস সালাম তিনি পবিত্র রজবুল

সাইয়্যিদুল কাওনাইন, মালিকুদ দুনিয়া ওয়াল আখিরাহ, আবূ রসূলিনা সাইয়্যিদুনা হযরত যাবীহুল্লাহ আলাইহাস সালাম উনার বেমেছাল শান-মান, ফাযায়িল-ফযীলদত, বুযূর্গী-সম্মান মুবারক


সম্মানিত হাদীছ শরীফ উনার মধ্যে ইরশাদ মুবারক হয়েছে- قَالَ حَضْرَتْ اَلْقَاضِىْ اَبُو الْفَضْلِ عِيَاضٌ رَحِمَهُ اللهُ تَعَالـٰى لَـمَّا وَرَدَتْ حَلِيْمَةُ السَّعْدِيَةُ عَلَيْهَا السَّلَامُ عَلـٰى رَسُوْلِ اللهِ صَلَّى اللهُ عَلَيْهِ وَسَلَّمَ فَبَسَطَ لَـهَا رِدَاءَهٗ وَقَضٰى حَاجَتَهَا অর্থ: “হযরত ক্বাযী আবুল ফযল আয়ায