Posts Tagged ‘কুরআন শরীফ’

আশ্চর্য বিষয়! কুরআন শরীফ পড়তে জানে না নতুন প্রজন্ম


আজ থেকে বছর ৭-৮ আগে রাজধানী ঢাকা বিষয়টি নিয়ে ১ম অভিজ্ঞতা হয়। আমারই এক আত্মীয়ের বন্ধুর এক ছেলে ৯ম শ্রেণীতে পড়ে, অথচ সে কুরআন শরীফ তথা আরবী পড়তে জানে না। শুনে খুবই আশ্চর্য হয়েছিলাম। কিন্তু এখন দিন যত যাচ্ছে কুরআন শরীফ

পবিত্র কুরআন শরীফ হতে ৭শ’ পবিত্র আয়াত শরীফ বাদ দেয়ার দাবি জানানো হয়েছিলো কি কারণে তা জানা আছে কি?


খুব বেশিদিন আগের কথা নয়। মহাসন্ত্রাসী আমেরিকার তথাকথিত সন্ত্রাসবিরোধী যুদ্ধের অংশ হিসেবে সাবেক সউদী ওহাবী বাদশাহ আব্দুল্লাহ তার ওহাবী ধর্মগুরুদের পরামর্শে খ্রিস্টানদের পোপের সাথে যৌথ উদ্যোগে স্পেনের মাদ্রীদে আয়োজন করে বিশ্ব আন্তঃধর্ম সম্মেলন। সব ধর্মের মধ্যে সেতুবন্ধন করে সব ধর্মের অনুসারীরা

এটাই কি ছিল সরকারের ওয়াদা যার ফলশ্রুতিতে সে এখন সম্মানিত শরীয়ত উনার প্রতিটি বিষয় এমনকি সম্মানিত কুরবানী উনার ক্ষেত্রেও পবিত্র কুরআন শরীফ, সুন্নাহ শরীফ বিরোধী আইন জারী করছে?


যে ব্যক্তি নফসের অনুসরণ করত পবিত্র কুরআন শরীফ, পবিত্র সুন্নাহ শরীফ বিরোধী আইন প্রনয়ন করবে অর্থাৎ সম্মানিত শরীয়ত উনার সীমা লঙ্ঘণ করে পবিত্র কুরআন শরীফ, পবিত্র সুন্নাহ শরীফ বহির্ভুত নতুন আইন জারী করবে পরকালে মহান আল্লাহ পাক তিনি তাকে কঠিনভাবে পাকড়াও

বাৎসরিক ছুটি কাটানোর বিষয়টি এসেছে মূলত দ্বীনি দিবসগুলো সুষ্ঠুভাবে পালন করার উদ্দেশ্যে। কিন্তু গণতান্ত্রিক ব্যবস্থা প্রবর্তনের কারণে রাজনৈতিক দিবসের সংখ্যা বাড়তে থাকে; ফলে মুসলমানগণ বিশেষ বিশেষ নিয়ামত হাছিলের দ্বীনী দিবসগুলো পালন করা হতে মাহরূম হচ্ছে এবং বেখবরও থাকছে। নাউযুবিল্লাহ! ৯৮ ভাগ মুসলমান অধ্যুষিত দেশে সম্মানিত দ্বীন ইসলাম উনার সঙ্গে সম্পৃক্ত সমস্ত বিশেষ বিশেষ দিবসগুলোতে বাধ্যতামূলক ছুটি দেয়া সরকারের জন্য দায়িত্ব ও কর্তব্য।


যামানার লক্ষ্যস্থল ওলীআল্লাহ, যামানার ইমাম ও মুজতাহিদ, ইমামুল আইম্মাহ, মুহইউস সুন্নাহ, কুতুবুল আলম, মুজাদ্দিদে আ’যম, ক্বইয়ূমুয যামান, জাব্বারিউল আউওয়াল, ক্বউইয়্যূল আউওয়াল, সুলত্বানুন নাছীর, হাবীবুল্লাহ, জামিউল আলক্বাব, আওলাদে রসূল, মাওলানা সাইয়্যিদুনা হযরত ইমামুল উমাম আলাইহিস সালাম তিনি বলেন, বাৎসরিক ছুটি কাটানোর বিষয়টি

অধিকাংশ লোকের অনুসরণ কিংবা যুগের সাথে তাল মিলিয়ে চলা কতটুকু শরীয়তসম্মত?


  মহান তিনি পবিত্র কুরআন শরীফ উনার বিভিন্ন জায়াগায় অধিকাংশ লোকের অনুসরণ করা থেকে বান্দাদের সতর্ক করেছেন। এখানে কয়েকটি পবিত্র আয়াত শরীফ উল্লেখ করা হলো- (১) “যদি তুমি দুনিয়ার অধিকাংশ লোকের অনুসরণ কর তবে তারা তোমাকে মহান আল্লাহ পাক উনার পথ

পবিত্র সূরা ফাতিহা শরীফ উনার মধ্যেই রয়েছে মুসলমান উনাদের দিক-নির্দেশনা


পবিত্র সূরা ফাতিহা শরীফ উনাকে বলা হয় উম্মুল কুরআন শরীফ। অর্থাৎ পবিত্র কালামুল্লাহ শরীফ উনার মধ্যে যে ইলম মুবারক আছে, তাই সংক্ষেপে আছে পবিত্র সূরা ফাতিহা শরীফ উনার মধ্যে। সুবহানাল্লাহ! মহান আল্লাহ পাক তিনি পবিত্র এ সূরা শরীফ উনার ৫ ও

মুসলমান উনাদের সবচেয়ে বড় শত্রু কারা


প্রত্যেক প্রাণীই তার শত্রুকে খুব ভালো করে চিনে। আর সেই শত্রু থেকে নিজেকে রক্ষা করার ফিকির সবসময় সে করে থাকে। মানুষ হচ্ছে পৃথিবীর সর্বশ্রেষ্ঠ প্রাণী। তাদের মধ্যে আবার শ্রেষ্ঠ হচ্ছেন মুসলমান জাতি। তাহলে মুসলমানগণ উনাদের সবচেয়ে বড় শত্রু কারা। তা কি

সরকারী ওয়েব সাইট সহ বিভিন্ন ওয়েব সাইটে পবিত্র আয়াত শরীফ এর কুফরীমুলক বঙ্গানুবাদ


বাংলাদেশের কুরআন শরীফ ভিত্তিক সরকারী সহ বিভিন্ন ওয়েব সাইট রয়েছে। যেমনঃ আল কুরআনঃ ডিজিটাল ,   কুরআন শরিফ , আমাদের পবিত্র কোরআন  ইত্যাদি। এসমস্ত ওয়েব সাইট গুলোতে বিভিন্ন আয়াত শরীফ এর যে বঙ্গানুবাদ করা হয়েছে তা মুলত কুফরীমুলক এবং আহলে সুন্নত ওয়াল জামায়াতের

হাদীছ শরীফে অবিশ্বাসীরা কুরআন শরীফেও বিশ্বাসী নয়


যিনি নবীগণের নবী, রসূলগণের রসূল, যাঁকে সৃষ্টি না করলে আল্লাহ্‌ পাক কিছুই সৃষ্টি করতেন না। যাঁর রহমতের উছীলায় আল্লাহ্‌ পাক ব্যতীত সমস্ত কায়িনাত যিন্দা রয়েছে, সেই আল্লাহ্‌ পাক-এর হাবীব হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম-এর শানের খিলাফ কেউ কোন কথা বললে

‘শবে বরাত কুরআন শরীফ ও হাদীছ শরীফ-এর কোথাও নেই’ এরূপ বক্তব্য চরম জিহালতি ও মূর্খতাসূচক-১


কুরআন শরীফ ও হাদীছ শরীফ-এর ভাষা যেহেতু আরবী তাই ফারসী ‘শব’ শব্দটি কুরআন শরীফ ও হাদীছ শরীফ-এ না থাকাটাই স্বাভাবিক। প্রকাশ থাকে যে, পৃথিবীতে যত ভাষা রয়েছে তন্মধ্যে একমাত্র আরবী ভাষাই স্বয়ংসম্পূর্ণ। এছাড়া অন্যান্য প্রতিটি ভাষাই একটি আরেকটির উপর নির্ভরশীল। তবে

হারাম খেলাধুলার প্রচার প্রসারে প্রধান দাগী আসামি হলো ওলামায়ে ‘সূ’ ধর্মব্যবসায়ীরা


‘দ্বীন ইসলামে সমস্ত প্রকার খেলাধুলাই হারাম।’ হাদীছ শরীফ-এর এই সুস্পষ্ট বাণীটি মুসলমানদের নিকট যে বা যাদের পৌঁছে দেয়ার কথা ছিলো সেই কথিত আলিম নামের জালেম সমাজ আজ কতটা বিভ্রান্ত, যালিম, কতটা উদ্ভ্রান্ত তা তাদের খেলাধুলার প্রতি, বিশেষ করে ক্রিকেট-ফুটবলের প্রতি অকৃত্রিম

হাজার বছরের প্রাচীন একটি কুরআন শরীফ সংরক্ষণে জাদুঘর নির্মাণ করছে চীন


হাজার বছরের প্রাচীন একটি কুরআন শরীফ সংরক্ষণের লক্ষ্যে জাদুঘর নির্মাণ করা হচ্ছে চীনে। উত্তর-পশ্চিমাঞ্চলীয় গানসু প্রদেশের দংজিয়াং এলাকায় এ জাদুঘর নির্মাণ হবে। রাষ্ট্রীয় বার্তাসংস্থা সিনহুয়া জানায়, এক হাজার বছরের প্রাচীন কুরআন শরীফটি ২০০৯ সালে দংজিয়াং এলাকা থেকে উদ্ধার করা হয়। এর